1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 5:13 pm

কুষ্টিয়ায় নির্বাচনে আনসার সদস্যের ডিউটি কিনতে হয় ১৫ শ টাকায় !

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, May 15, 2024
  • 86 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় জাতীয় ও উপজেলা নির্বাচনে আনসার (ভিডিপি) সদস্যদের ভোট কেন্দ্রে ডিউটি নিতে জনপ্রতি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাকে ১৫ শ থেকে ২ হাজার টাকা দিতে হয়। তাতে ৭ জানুয়ারী অনুষ্টিত জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং সদ্য সমাপ্ত জেলার দুটি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জেলা আনসার অ্যাডজুটেন্ট, উপজেলা আনসার, ভিডিপি কর্মকর্তারা প্রায় ৪ কোটি টাকার বাণিজ্য করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা যায়, অবাধ ও সুষ্ঠু নিরপেক্ষ এবং বিশৃংলামুক্ত রাখতে প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে পুলিশের পাশাপাশি, রেগুলার আনসার এবং মহিলা ও পুরুষ মিলে (ভিডিপি) ১০ জন করে ভিডিপি সদস্য রাখা হয়। উপজেলা আনসার, ভিডিপি কর্মকর্তার মাধ্যমে গ্রাম ও ওয়ার্ড পর্যায়ে শিক্ষিত, স্বশিক্ষিত যুবক, যুবতী. মাঝ বয়সী পুরুষ ও নারী সদস্যদের প্রশিক্ষণ দিয়ে ভিডিপি সদস্য হিসেবে অন্তভুর্ক্ত করা হয়। এদের মধ্যে থেকে দেশের যে কোন পরিস্থিতিতে বন্যা, ঝড়, নির্বাচনের সময়ে পুলিশ, সেনাবাহিনীসহ আইনশৃংলা বাহিনীর সাথে ভিডিপি সদস্যরা তাদের সহযোগীতা করবেন। কুষ্টিয়া জেলায় ৫টি পৌরসভা ৬টি উপজেলা, ৬৬টি ইউনিয়নে ৬১৪টি ভোট কেন্দ্র রয়েছে। গেল ৭ জানুয়ারী অনুষ্টিত জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং গত ৮ মে থেকে শুরু হয়েছে উপজেলা নির্বাচন। এ দুই দফায় নির্বাচনে ভোট কেন্দ্রে ডিউটি দিতে সাধারণ পুরুষ, মহিলা, আনসার, ভিডিপি সদস্যদের ডিউটি নিতে জনপ্রতি ১হাজার ৫শ থেকে ২হাজার ৫শ টাকা পর্যন্ত অগ্রিম জমা নিয়ে কাজ পাওয়ার তালিকা নিশ্চিত করা হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। দুই দফায় সমাপ্ত জাতীয় ও উপজেলা নির্বাচনে আনসার, ভিডিপি কর্মকর্তারা শুধু মাত্র ডিউটি দিয়েই বাণিজ্য করেছেন প্রায় ৪ কোটি টাকা। যদিও অভিযোগকে অস্বীকার করেছেন জেলা আনসার কর্মকর্তাগণ। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা চত্বরে নির্বাচনী সামগ্রী সংগ্রহ ও কর্মস্থল বুঝে নিতে আসা আনসার সদস্য আব্দুল বারেকের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, ‘পিসি এপিসির মাধ্যমে নির্ধারিত টাকা অগ্রীম দিয়ে নাম তালিকাভুক্তি কনফার্ম করতে হয়েছে। সংগৃহীত এসব টাকা আনসার অফিসের নির্ভরযোগ্য ভাতাভোগী ৫জন আনসার সদস্য যথাক্রমে জেসমিন, ঈশিতা,  আবুল কালাম, সাইদুর রহামন ও মাসুম বিল্লাহ উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমানের মাধ্যমে বড় কর্মকর্তাদের কাছে চলে যায়’।সদর উপজেলার উজানগ্রামের বাসিন্দা আনসার সদস্য রুবিনা খাতুন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে জানায়, ‘একেনে দ্যাকেন প্রায় অদাঅদি (অর্ধেক) নারীরা আনসারের ডিউটি কত্তি আইচে, ইরা সবাই খুব অভাবি সুংসার, এই এক দুইদিন ডিউটি কইরি যদি কিচু টেকা আসে তালিতো সুংসারে ইকটু আয় বরকত হয়। সেজন্যিই সবাই আসে। কত ক্যাম্মা কি দিবিনি একনও বুলিনি। দেখি কয়টেকা দেয়। আগেই তো পোনোরো শো টেকা দিয়ে নাম লেকাতি হইচে। এডি বন্ধ হওয়া দরকার, কাম করবো আমি, কষ্ট করবো আমি, সেই টেকার ভাগ অন্যলোকেক দিতি হবি ক্যা’ এইদিন উপজেলা চত্বরে আলাপ হয় ভাতাভোগী আনসার সদস্যা ঈশিতা খাতুনের। তিনি টাকার বিনিময়ে প্রশিক্ষনের সদস্য সনদ জালিয়াতিসহ চাঁদার টাকা সংগ্রহকারী এমন অভিযোগকে অস্বীকার করে বলেন, ‘এখানে আমার কিছু কাজ না, আমাদের মোস্তাফিজুর স্যারের কিছু কাজ আমি করে দিচ্ছি মাত্র’। এসময় তিনি স্বীকার করেন, তিনি যে কাজটি করছেন সেইকাজ মোট ৫জন ভাতাভোগী সদস্যদের দিয়ে স্যারেরা করান। এসময় একই কথা জানান অপর আনসার সদস্য জেসমিন আক্তার। টের পেয়ে অপর তিন সদস্য গা ঢাকা দেন সদর উপজেলা চত্বরে সমবেত তিন হাজার আনসার সদস্যের ভীড়ে।  কুষ্টিয়া সদর উপজেলা আনসার ও ভিডিপি কর্মকর্তা মো: মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ‘এসব অভিযোগ বানোয়াট ও মিথ্যা। যারা ডিউটি না পেয়ে বঞ্চিত হয়েছে তারাই এই ধরনের উল্টা পাল্টা অভিযোগ দিয়ে অপপ্রচার চালাচ্ছে’।বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী কুষ্টিয়ার জেলা কমান্ড্যান্ট প্রদীপ চন্দ্র দত্ত প্রতিবেদকে জানিয়েছেন, ‘বিধি বহির্ভুত কোন কাজ করার সুযোগ আনসারে নেই। এ ধরণের শোনা কথার অভিযোগ আমার কানে এসেছে। তবে এবিষয়ে আমি কারো কাছ থেকে কোন সুনির্দিষ্ট লিখিত অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে তার তদন্ত করে দেখা হবে এবং অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে জড়িত ব্যক্তি যেই হোন তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রতিবারই ভোটকেন্দ্রে আনসারদের একদিনের কর্মশালসহ ৬দিনের জন্য নিয়োগ দেয়া হয়। প্রতি একদিনের জন্য সাধারণ আনসার সদস্যরা ১হাজার এবং পিসি এপিসিদের ১হাজার ৫০টাকা হারে ভাতা দেয়া হয় বলে জানালেন এই জেলা কমান্ড্যান্ট। আর্থিক বিষয়ে স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে ডিউটি শেষে প্রত্যেকের রকেট নাম্বারে প্রাপ্য টাকা চলে যায়’।আগামী ২ মে পুনরায় কুষ্টিয়ার বাকি ৪টি উপজেলা নির্বাচন। সে সময়েও এমন অনিয়মের খবর রয়েছে। সরকারী কাজের সহযোগীতা করতে এসে গ্রামের সহজ-সরল মানুষের কাছ থেকে জনপ্রতি টাকার বিনিময়ে ভোট কেন্দ্রে ডিউটি দেয়া চরম অনৈতিক বলে মনে করেন সচেতন মহল। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন সকলে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640