1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 24, 2024, 6:22 am

খুন, মাদক, ছিনতাই ও ভাড়াটিয়া হামলারকারী কুষ্টিয়ার কিশোর গ্যাংকে রুখবে কে ?

  • প্রকাশিত সময় Saturday, February 24, 2024
  • 23 বার পড়া হয়েছে

বিশেষ প্রতিবেদক ॥ অনলাইনে জুয়া, মাদক, ছিনতাই, চুরি, হিরোইজম, খুন ও ভাড়াটিয়া হামলায় জড়িয়ে পড়েছে দ্রুত গতিতে কুষ্টিয়ার কিশোর গ্যাং। এদের রুখবে কে। গত কয়েক মাসে খুণ, ছিনতাই, হোটেলের মধ্যে প্রবেশ করে ছুরিকাঘাত করে ঘটনার মত অনেক ঘটনা এখন শহর ও জেলাবাসীর চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সুত্র বলছে, কুষ্টিয়া শহর ও জেলার বিভিন্ন এলাকায় নামে-বেনামে কিশোর গ্যাং’র ২৬টি গ্রুপের নাম পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে বিএসবি, হান্টিং বয়, কেবিএস, ব্ল্যাক, জিরো জিরো সেভেন’র নামই বেশি প্রচলিত। শহরের ছয়রাস্তার মোড়, হাউজিং, এন, এস রোড,নিশান মোড়, পৌর চত্বর, হরিপুর সেতুর নিচে, লালন শাহ মাজার, সাদ্দাম বাজারসহ অন্তত ২৫টি পয়েন্টে কিশোর গ্যাং’র দৌরাত্ম বৃদ্ধি পাওয়ায় আতংকিত হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। ছুটির দিনে পৌরসভা, শিল্পকলা একাডেমী, পৌর শিশু পার্ক, লালন শাহ মাজার, শেখ রাসেল সেতুতে সাধারণ মানুষ এসব কিশোর গ্যাং’র পাল্লায় পড়ে খুন, ছিনতাই ও হামলার শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত। তবে গোয়েন্দা সংস্থা বলছে, আলোচিত ২৬টি গ্রুপের বাইরে ট্যাটু, গেঞ্জি, চুলের কাটিং, পোশাক পরিচ্ছেদ বিশ্লেষণ করে কুষ্টিয়া শহরে কিশোর গ্যাং দমনে অভিযানে যাবে আইনশৃংলাবাহিন। কার্যক্রমের উপর ভিত্তি করে বয়স ও অন্যান্য বিষয় বিবেচনা করা হবে। এ সময়ে কুষ্টিয়ায় সবচেয়ে আলোচিত ঘটনা হরিপুর পদ্মা নদীর চরে যুবক মিলনের খন্ড খন্ড দেহাংশ উদ্ধারের ঘটনা। এ ঘটনার পর থেকে জেলায় কিশোর গ্যাংর দৌরাত্ম যেন রকেট গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। রাজনৈতিক নেতা ও বড় ভাইদের ছত্রছায়ায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছে এসব কিশোর গ্যাং। ভিন্ন ভিন্ন ভীতিকর অশ্লীল নাম এবং নিজ নিজ গ্যাংয়ের টি শার্ট পরেই জেলার অলিগলিতে এসব গ্যাংয়ের আধিপত্য। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ্যে অস্ত্র ও মাদক সেবনের ছবিসহ লাগামহীন এসব গ্যাং। পাড়ার অলিতে গলিতে ব্যানার ফেস্টুন বড় বড় মাইক্রোতে বক্স ভাড়া করে ডিজে গানের সঙ্গে শক্তি প্রদর্শনে মাঝে মধ্যেই শহরে প্রকাশ্যে মহড়া দেয় তারা। বিএসবি, হান্টিং বয়, কেবিএস, ব্ল্যাক সিপসহ নানা নামের কিশোর গ্যাংকে টেন্ডারবাজিসহ নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়েছে। এদের মধ্যে সকল কিশোর গ্যাংকে নিয়ন্ত্রণ করে তাদের বড় ভাই। এ ছাড়াও নেতাদের শেল্টারে থাকায় কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা মাদক ব্যবসাসহ নানা অপকর্মে জড়িয়ে পড়ছে। স্থানীয় প্রভাবশালী নেতা ও বড় ভাইদের ছত্রছায়া থাকায় দিন দিন আরও বেপরোয়া হয়ে উঠছে তারা। তবে পুলিশ বলছে, আর কোনো ছাড় দেয়া হবে না। কিশোর গ্যাংয়ের তালিকা আপডেট করা হচ্ছে। তালিকা ধরে অভিযান চলবে।
বুধবার রাত সাড়ে ৭টার দিকে শহরের থানাপাড়া বাঁধ সংলগ্ন শেখ রাসেল সেতুর নিচে অবস্থিত রিভার ভিউ ফুড কর্নার নামক একটি রেস্তরাঁয় ঢুকে ম্যানেজারসহ ৩ জনকে ছুরিকাঘাত করেছে দুর্বৃত্তরা। ছুরিকাঘাতে আহতরা হলেন, রেস্তোরার ম্যানেজার তুষার (২৩), প্রধান বাবুর্চি শিমুল (২৫) ও সহকারী বাবুর্চি শুভ (২২)। আহতদের কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে রেস্তরাঁর ম্যানেজার তুষারের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছে কর্তব্যরত চিকিৎসক। জেলার সবচেয়ে বড় কিশোর গ্যাংয়ের নেতৃত্বে থাকা ওই নেতা এখন কারাগারে। শহরের অধিকাংশ অপকর্ম হয়েছে তার নেতৃত্বে। গত ৩১শে জানুয়ারি তার নেতৃত্বেই মিলন হোসেন (২৭) নামের এক যুবককে অপহরণের পর হত্যা করে লাশ ৯ টুকরা করা হয়। ৩রা ফেব্রুয়ারি সকালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার পদ্মার চরের চারটি জায়গা থেকে লাশের ৯ টুকরা উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ওইদিন সন্ধ্যায় কুষ্টিয়া মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন মিলনের মা শেফালি খাতুন।
মামলায় কারও নাম উল্লেখ্য করা হয়নি। এ ঘটনায় কিশোর গ্যাং প্রধান এস কে সজীবসহ ৬ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এরা হলো- সজীব, লিংকন, সজল, ইফতি, জনি ও ফয়সাল।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কিশোর দলের সদস্যদের বেশির ভাগই নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের। মিছিলে আসা-যাওয়া ঘিরে তারা এলাকায় প্রভাব বিস্তার শুরু করে। এরপর রাজনৈতিক ‘বড় ভাইদের’ দাপটে নানা অপকর্ম শুরু করে। এলাকা ভাগ করে নিজ নিজ গ্যাংয়ের আধিপত্য গড়ে তুলেছে তারা। পুলিশের একটি সূত্রে জানা গেছে, শুধু কুষ্টিয়া শহরেই কিশোরদের ১৩টি দল রয়েছে যারা শহরে প্রতিনিয়ত ত্রাসের রাজত্ব করে যাচ্ছে। এতে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে স্থানীয় বাসিন্দাদের মনে। প্রতিটি দলে ২০ থেকে ২৫ জন করে সদস্য রয়েছে। এসব দলের নেতৃত্ব দিচ্ছে ২০ বছরের বেশি বয়সী তরুণরা। তারা বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী। অনুসন্ধানে জানা যায়, কুষ্টিয়া শহরের হাউজিং, থানাপাড়া, সিঙ্গার মোড়, ইসলামিয়া কলেজ ও ছয় রাস্তার মোড়, পূর্ব মজমপুর, সাদ্দাম বাজার, সকাল-সন্ধ্যা, কলকাকলী স্কুলের গেট, ঝাউতলা, হাসপাতাল ও আলফার মোড় এবং হরিপুর সেতুর পূর্ব ও পশ্চিম পাশে এসব দলের তৎপরতা বেশি। শহরের বাড়ির সীমানা প্রাচীরে এসব দলের নামে চিকাও রয়েছে।
কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সোহেল রানা বলেন, কিশোর গ্যাংয়ের আপডেট তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। কয়েক বছর আগের চেয়ে এখন এই সংখ্যা অনেক বেড়েছে। তালিকা ধরে অভিযান চলবে। এদিকে কিশোর গ্যাং প্রধান সজীবের নেতৃত্বে মিলন হত্যার ঘটনায় আবারো আলোচনায় উঠে এসেছে কিশোর গ্যাং প্রসঙ্গ। মিলন হত্যাকান্ডে আটক হওয়ার পর সজীবের নানা অপকর্ম বেরিয়ে আসছে। এস কে সজীবের নাম সজীব শেখ। তার বাবার নাম মিলন শেখ। শহরের আড়ুয়াপাড়া এলাকার হরিবাসর এলাকায় তাদের বাড়ি। সজীবের নামে কুষ্টিয়া মডেল থানায় মাদক, চাঁদাবাজি, হামলাসহ নানা অভিযোগে ১৩টি মামলা আছে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে এক নারী ইন্টার্ন চিকিৎসককে মারধরের মামলায় তার দুই বছরের সাজাও হয়েছিল। ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এস কে সজীব কলেজে পড়ালেখা না করেও হঠাৎ করে ছাত্রলীগের পদ পেয়ে যায়। ২০১৭-১৮ সালের দিকে প্রথম সহ-সম্পাদকের পদ পায়। তখন থেকেই শহরের হাউজিং এলাকায় কিশোর গ্যাং তৈরি করে চাঁদাবাজি, মারধর, মাদকের কারবারসহ নানা অপকর্ম শুরু করে। এরপর শহরে প্রকাশ্যে অস্ত্র নিয়ে মহড়া দিতে দেখা যায়। শহরের সাদ্দাম বাজার এলাকায় এক যুবককে ছুরিকাঘাত করার সময় সজীবও গুরুতর আহত হয়েছিল। ওই ঘটনায় মামলাও হয়েছে। শহরের হাউজিং এলাকায় চাঁদাবাজি ও হামলার একাধিক ঘটনা আছে। সেসব ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। সচেতন মহল বলছেন, একের পর এক ঘটনায় কুষ্টিয়ার অতীতের ঘটনার পুনরাবৃত্তি হতে চলেছে। এক সময় চরমপন্থী অধ্যুষিত এলাকা এখন কিশোর গ্যাংর হাতে। এ অবস্থা চলতে থাকলে সামনে ভয়াবহ অবস্থা হবে। এখুনি কিশোর গ্যাংকে রুখতে হবে। এ ব্যাপারে কুষ্টিয়ার পুলিশ সুপার এ এইচ এম আবদুর রকিব কুষ্টিয়ার কাগজকে জানান, শুধু কিশোর গ্যাং কেন যে কোন অপরাধ দমনে জেলা পুলিশ তৎপর রয়েছে। তবে কিশোর গ্যাং’র বিষয়টা এখন আলোচনায় আসছে বেশি। পুলিশও বসে নেই। তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640