1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 21, 2024, 2:24 am
শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় একুশের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে জেলা প্রশাসনসহ সর্বস্তরের মানুষের ফুলেল শুভেচ্ছা আলমডাঙ্গায় যাত্রীবাহী বাস ও মোটর বাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত-১ কুৃষ্টিয়ার সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মিরপুরে মানববন্ধন এক বছরেও ইউপি নির্বাচনে ভোটের ডিউটির টাকা পাননি আনসার সদস্যরা  দৌলতপুরে পথ নির্দেশক স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসে কুমারখালী পাবলিক লাইব্রেরীর আয়োজনে একুশের কবিতা পাঠের আসর মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ ফুল বাগানের নতুন রাণী ‘নন্দিনী’ চাষ পদ্ধতি হংকংয়ে না খেলার বিষয়ে মেসির বিবৃতি একুশে পদক পেলেন ২১ জন

 দৌলতপুরে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত-২, আহত-১৫ দেড় মাসে ১০ খুন

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, June 14, 2023
  • 145 বার পড়া হয়েছে

চরমপন্থী অধ্যুষিত কুষ্টিয়া আবারও উত্তেজিত!

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে একের পর এক খুনের ঘটনায় জনমনে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। ছোট-খাট ঘটনাকে কেন্দ্র করে পাল্টা-পাল্টি, হামলা খুনের ঘটনা ঘটছে। গত দেড় মাসে দৌলতপুরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রায় ১০টি খুনের ঘটনা ঘটেছে। এতে এক সময়ের নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সংগঠনের অভ্যায়রন্য হিসেবে খ্যাত কুষ্টিয়াতে কি আবারও উত্তেজিত হয়ে পড়ছে। এমন আশংকা সচেতন মহলের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছে।  গতকাল জমির ক্ষেত খাওয়া ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে ২জন নিহত হয়েছেন এবং আহত হয়েছেন অন্তত ১৫জন। নিহতরা হলেন শরিফুল মালিথা ওরফে ভেলস মলিথা (৪২) ও বজলু মালিথা (৪৫)। আহতদের উদ্ধার করে দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এর মধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। হতাহতরা দৌলতপুর উপজেলার মরিচা ইউনিয়নের হাটখোলা গ্রামের বাসিন্দা বলে জানা গেছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয় বাসিন্দা উজ্জল সর্দ্দার ও বজলু মালিথার মধ্যে পাটক্ষেতে গরু খাওয়াকে কেন্দ্র করে বাক বিতন্ডা হয়। এ নিয়ে বুধবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মরিচা ইউনিয়নের হাটখোলা জামে মসজিদের সামনে দুপক্ষের মধ্যে আবারও বাক বিতন্ডা এক পর্যায়ে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে বজলু মালিথা  গ্রুপের বজলু ও শরিফুল মালিথা ঘটনাস্থলেই নিহত হন। এ ঘটনায় আহত হন অন্তত:পক্ষে ১০জন। এরমধ্যে দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে। দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মজিবর রহমান জানান গরু পাট খাওয়াকে কেন্দ্র করে স্থানীয় উজ্জল সর্দ্দার ও বজলু মালিথার মধ্যে বাক বিতন্ডা হয়। তারই জের ধরে বুধবার বিকেলে পুনরায় তাদের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে দু’জন নিহত হন। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে বলেও জানান তিনি।  নিহত শরিফুল মালিথা হাটখোলা গ্রামের রহমত মালিথার ছেলে এবং বজলু মালিথা একই এলাকার গেদু মালিথার ছেলে। এ নিয়ে গত দুই মাসে কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলায় প্রায় ১০টি খুনের ঘটনা ঘটলো। উল্লেখ্য, গত ১০ জুন শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলার আড়িয়া ইউনিয়নের পাককোলা গ্রামে হত্যাকান্ডের এ ঘটনা ঘটে। নিহত মাহফুজুর রহমান ইরেন (৬৫) একই গ্রামের মৃত মেহের বক্সের ছেলে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে মাহমুদুল হাসান ওয়াহিদের ছেলে মামুন (৩৫) এর সাথে আপন চাচা মাহফুজুর রহমান ইরেনের তর্ক বিতর্ক হয়। একপর্যায়ে মামুন ক্ষুব্ধ হয়ে লাঠি দিয়ে চাচা মাহফুজুর রহমান ইরেনের মাথায় আঘাত করলে সে মাটিতে লুাটিয়ে পড়ে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে দৌলতপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। ভাতিজার হাতে চাচা খুনের ঘটনার বিষয়ে দৌলতপুর থানার ওসি মজিবুর রহমান জানান, জমি সংক্রান্ত বিরোধে ভাতিজা মামুনের লাঠির আঘাতে আপন চাচা মাহফুজুর রহমান ইরেন গুরুতর আহত হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া হাসপাতালে নেওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাবাদ চলছে।

উল্লেখ্য, গত ২৭ এপ্রিল দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী ইউনিয়ন এলাকায় আধিপত্য বিস্তার কে কেন্দ্র করে ভয়াবহ সংঘর্ষ ও অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটে। এই ঘটনায় প্রতিপক্ষের দেয়া আগুনে দগ্ধ হয়ে গুরুতর আহত অবস্থায় একই গ্রামের ফারুক মন্ডল (২২) আকতার মন্ডল (৪০) চিলমারী গ্রামের তোফাজ্জল হোসেনের ছেলে এবং দিনুমন্ডল (৬৫) একই গ্রামের দবির মন্ডলের ছেলে। শেখ হাসিনা জাতীয়বার্ন ইনস্টিটিউটে, আব্দুর রহমান কাজীর ছেলে সাইদুল কাজী (৩০) ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে, বিশু মন্ডলের ছেলে ফজলু ডাক্তার ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে এবং জখম ও দগ্ধ প্রায় ১৫ জন কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এদের মধ্যে গত ৩০ এপ্রিল কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলায় প্রতিপক্ষের দেয়া আগুনে দগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইন্সটিটিউটে দুজনের মৃত্যু হয়। এরা হলেন আকতার মন্ডল(৪০) চিলমারী গ্রামের তোফাজ্জেল হোসেনের ছেলেএবংদিনুমন্ডল (৬৫) একই গ্রামের দবির মন্ডলের ছেলে।

এই দৌলতপুর থানাতেই ২৪ এপ্রিল নূর সালাম নামের এক প্রতিবন্ধীর কে বা কারা গলা কেটে গুরুতর আহত করে সোনাইকুন্ডি উত্তরপাড়া জামিয়া তুল মাদ্রাসার পাশে রাস্তায় ফেলে রেখে যায়। পরে তাকে উদ্ধার কওে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে গেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ০১মে দিবাগত রাতে সে মারা যায়। নূরসালাম এলাকার শুকুর মন্ডলের ছেলে। এ ঘটনায় ২৬ এপ্রিল নুর সালামের মা বাদী হয়ে অজ্ঞাত নামাদেও আসামী করে দৌলতপুর থানায় মামলা দায়ের করেন। পরে দৌলতপুর থানা পুলিশ ঘটনার সাথে জড়িত একই এলাকার আবুল বাসারের ছেলে মাসুম রানাকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে জোড়া হত্যার রেশ না কাটতেই ফের জোড়া খুনের ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার (২ মে)। পূর্ব শত্রুতা ও জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রেও আঘাতে জাকির মোল্লা (৪০) নামের একজন কৃষক নিহত হন। এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানাযায়, জাকির মোল্লা পরিবারের সঙ্গে দীঘর্ দিন ধরে একই এলাকার আবুমন্ডলের লোকদেও জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। সেই বিরোধের জের ধরে মঙ্গলবার সকালে জাকিরের সঙ্গে আবুর কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে প্রতিপক্ষের লোকদেও ধারালো অস্ত্রেও আঘাতে তিনি নিহত হন। নিহত জাকির মোল্লা কল্যাণ পুর এলাকার আরব মন্ডলের ছেলে। এছাড়া অপর হত্যাকান্ড টি গত ২ মে কুষ্টিয়া দৌলত পুর পূর্ব ফিলিপনগর গোলাবাড়িয়া নদীর কিনারে বাল ুচওে বালিচাপা দেয়া লাশ পাওয়া যায়। নিহত ব্যক্তির নাম মো: মারুফ হোসেন (৩৫)। সে দৌলতপুর মন্ডল পাড়ার মো:আশালত হাজীর ছেলে। নিখোঁজের ৮ দিন পর মারুফ হোসেনের গলিত মৃতদেহ উদ্ধার করেছে দৌলতপুর থানাপুলিশ। অপরদিকে এদিকে সংঘর্ষের ঘটনার জের ধরে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

অপরদিকে এক সময়ে কুষ্টিয়া এলাকায় নিষিদ্ধ ঘোষিত চরমপন্থী সংগঠন গণমুক্তিফৌজ, জনযুদ্ধ, পুর্ব বাংলা কমিউনিষ্টি পার্টি, নিউ বিপ্লবী কমিউনিষ্টি পার্টি, গনবাহিনী লাল, বিল্লবী কমিউনিষ্ট পার্টি, শ্রমজীবি মুক্তি আন্দোলনসহ প্রায় ১১টি সংগঠনের সদস্যদের কম বেশি আধিপত্য ছিল কুষ্টিয়া জুড়ে। ২০০১ সাল থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত এ সব সংগঠনের হাতে চরমপন্থী কানেকটেড ঠিকাদারী, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার, ডাকাতি, হাট-ঘাট ইজারার বিষয়ে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার মানুষ খুন হয়। সকাল হলেই পত্রিকার পাতা জুড়ে কুষ্টিয়ার খুনের ঘটনাই চোখে পড়তো। ২০০৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে র‌্যাব গঠন এবং তৎকালীন  সময়ে আইনশৃংলাবাহিনীর যৌথ অভিযানে বন্দুকযুদ্ধে এ সব সংঘঠনের বাঘা বাঘা নেতারা নিহত হয়। দমতে থাকে চরমপন্থী সংগঠনের আধিপত্য। বেশ কিছুদিন থেকে সকাল হলেই নদীতে, পুকুরে, খালে মানুষের দেহ ভাসতে দেখা যেত না। গত ১৪ জুন কুষ্টিয়ার ইবি থানার বালিয়াপাড়া ক্যানেল থেকে অজ্ঞাত অর্ধগলিত এক যুবকের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় গতকাল সকালের দিকে কুষ্টিয়া সদর উপজেলার কাঞ্চনপুর ইউনিয়নের বালিয়াপাড়ার কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহ মহাসড়কে ক্যানালের পাশে যুবকের লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়। পরে পুলিশ খবর দিলে ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।  এ বিষয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি জহুরুল ইসলাম বলেন নিহতের বয়স ৪০-৪৫ বছর হবে। তবে ধারণা করা হচ্ছে তাকে হত্যা করে মহাসড়কের পাশে ফেলে রেখে পালিয়ে গেছে হত্যাকারী। তবে তদন্ত চলছে তদন্তের পর সব জানা যাবে। এ সব অনাকাংখিত হত্যাকান্ডের ঘটনায় কুষ্টিয়ার মানুষের মনে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। তারা বলছেন, আগে চরমপন্থী অধ্যুষিত এলাকা কুষ্টিয়াতে এখন আবার এসব কিসের আলামত। তারা পুলিশসহ আইনশৃংলাবাহিনীকে আরও তৎপর হওয়ার পরামর্শ প্রদান করেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640