1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 10:05 am

কিউ আর কোড যাচাই ছাড়াই রেজিস্ট্রি করলেন সাব রেজিস্টার! ঘুষ আর নজরানায় চলে মিরপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিস

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, June 13, 2023
  • 108 বার পড়া হয়েছে

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ স্থাবর, অস্থাবর জমি, দোকানঘর বা যে কোন রেজিষ্ট্রি দলিল করতে গেলে হাজারে কমিশন দিতে হয় দলিল লেখকদের। এতে মাত্র ৫০ হাজার টাকার দলিল করতে গেলে লেগে গুণতে হয় ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা। লাখ বা কোটি হলে তো কথা নেই। প্রকাশ্যে সমিতির নির্ধারিত টাকা আর পেছনে অনির্ধারিত হারে গুণতে হয় সাধারণ মানুষকে টাকা। এতে করে সরকারও কোটি কোটি টাকার রাজশ্ব থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অন্যদিকে সাধারণ মানুষের হয়রানির শেষ নেই বলে একাধিক সুত্র জানিয়েছে।

 

জানা যায়, সাধারণ মানুষের  সম্পদ ও সম্পত্তির রেজিষ্ট্রি সেবা প্রদান করতে মিরপুর উপজেলা সাব রেজিষ্ট্রি অফিস। কিন্তু এক শ্রেনীর মুনাফাখোর দলিল লেখক, আর দালালদের দৌরাত্মে ঘুষ আর নজরানা ব্যতিত কোন কিছুই রেজিষ্ট্রি হয় না বলে অভিযোগ রয়েছে। আর এভাবেই অনলাইনে যাচাই ছাড়াই বিক্রিত জমি রেজিস্ট্রি করেন সাব রেজিস্টার। ভূমি উন্নয়ন কর এর রশিদ জালিয়াতি করে বিক্রিত জমি আবারও বিক্রির ঘটনা ঘটেছে। গত জুন কুষ্টিয়ার মিরপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে বারুইপাড়া ইউনিয়ন এর

কেউপুর মাজারের পাশের একটি জমি ৩৩৪৩ নাম্বার দলিলে বিক্রির ঘটনা ঘটে। উক্ত

দলিলে বারুইপাড়া ইউনিয়ন এর কেউপুর এলাকার মৃত তক্কেল আলির ওয়ারিশ জাকিরুল,

জামিরুল, তহুরা, শুকুরণ জমিটি বিক্রি করে দেয় বলে অভিযোগ করেন জমির মূল

মালিক। তিনি আরো বলেন, সাব রেজিস্ট্রি অফিসে আর এস ৩৪২ নং খতিয়ানে ৫৮৪ নম্বর

দাগে ১৩ শতাংশ ও ৬১২ নম্বর দাগে ১৭ শতাংশ রেকর্ডীয় জমি এবং উক্ত জমির ভূমি

উন্নয়ন কর পরিষদের কাগজ দেখিয়ে জমি বিক্রি করেছে প্রতারক চক্র। কিন্তু তারা

৬১২ নম্বর দাগে ১৭ শতাংশ জমি অনেক আগেই উক্ত এলাকার ইসমত আরা খাতুন ও ইফতেখার ইসলামের নিকট বিক্রি করে বলে জানা যায়। প্রতারক চক্র ৬১২ দাগে ১৭ শতাংশ জমির মালিক না হওয়া সত্বেও তারা কিভাবে জমির খাজনা পরিশোধ করল এটি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এ ব্যাপারে সহকারী কমিশনার ভূমি নিকট জমি না থাকা সত্ত্বেও খাজনার

দাখিলা কাটার জন্য ভূমি সহকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের

করেছেন। যা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রাজস্ব বরাবর অনুলিপি প্রদান করেছেন বলে

জানা যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রতারক চক্র জমির আর এস রেকর্ড অনুযায়ী ৩৪২ নং খতিয়ানের ৬১২ নং দাগের ১৭ শতাংশ জমি বিক্রি করে দেয়। বর্তমানে তারা ৫৮৪ দাগের ১৩ শতাংশের মালিক। গত ২৯ মে ২০২৩ তারিখে তারা অনলাইনে ১৩ শতাংশ জমির খাজনা ২৬ টাকা পরিশোধ করে। বিক্রি করলে তারা শুধুমাত্র তেরো শতাংশ জমি বিক্রি করতে পারবে। কিন্তু তারা ভূমি উন্নয়ন কর রশিদ স্ক্যান করে পূর্বের বিক্রির দাগ পাশে বসিয়ে সাব রেজিস্ট্রি অফিসে হার্ড কপি পেশ করে জমি বিক্রি করে দেয়। জমির মূল মালিক ইসমত আরা খাতুনের স্বামী লিটন আহমেদ বলেন, প্রতারক চক্র দলিল লেখক লুৎফর রহমান সহ মাজেদ এবং আরিফের পরামর্শে এই কর্মকান্ড চালিয়েছে বলে। যেখানে কিউআর কোড রয়েছে সাব-রেজিস্ট্রার কিউআর কোড যাচাই না করে কিভাবে শুধু কাগজ দেখে রেজিস্ট্রি করল তা নিয়েও অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী। তিনি আরো বলেন সাব রেজিস্টার যদি কিউআর কোড স্ক্যান করতো তাহলে প্রতারক চক্র এই জমি বিক্রয় করতে পারত না। এ ব্যাপারে মিরপুর উপজেলার সাব-রেজিস্ট্রার রাসেল মল্লিকের সঙ্গে কথা হলে জানা যায়, অনেক জমি রেজিস্ট্রি করতে হয়। তাই অনেক সময় কিউআর কোড যাচাই করার সময় থাকে না। প্রতিনিয়ত সাব রেজিস্ট্রি অফিসে ঘুষের মাধ্যমে বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640