1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 5:06 pm

পটল

  • প্রকাশিত সময় Saturday, May 27, 2023
  • 25 বার পড়া হয়েছে

কৃষি প্রতিবেদক ॥ পটল বর্ষজীবি লতা জাতীয় ভিন্নবাসী উদ্ভিদ। অর্থাৎ এখানে পুরুষ ও মহিলা ফুল আলাদা আলাদা গাছে অবস্থান করে। এটি খরিফ মৌসুমের অন্যতম প্রধান অর্থকরী ও উপাদেয় সবজী। প্রায় সারা বছরই এটা বাজারে পাওয়া গেলেও খরিফ মৌসুমেই এর ফলন বেশি। বাংলাদেশের বৃহত্তর রংপুর, রাজশাহী ও কুষ্টিয়া জেলা পটলের প্রধান উৎপাদন স্থান। তাছাড়া ফরিদপুর, বগুড়া, পাবনা, যশোর, খুলনা অঞ্চলেও পটলের চাষ হয়। জলবায়ু ও মাটি ঃ পটল উষ্ণ ও আর্দ্র জলবায়ুর উপযোগী ফসল। পটলের জন্য উচ্চতর তাপমাত্রা এবং অধিক সূর্যালোক দরকার। আধিক বৃষ্টিপাত ফুলের পরাগায়নে বিঘ্ন ঘটায়। সবরকম মাটিতেই পটলের চাষ হতে পারে তবে জৈব পদার্থ সমৃদ্ধ, বন্যামুক্ত, পানি নিস্কাশনযুক্ত উর্বর দোঁ-আশ ও বেলে দো-আঁশ মাটিই পটল চাষের পক্ষে বেশি উপযোগী। জাত ঃ এদেশে জানা অজানা অনেক জাতের পটল আবাদ হয়। এগুলো বিভিন্ন স্থানীয় নামে পরিচিত। অতি সমপ্রতি বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠান বারি পটল-১ ও বারি পটল-২ নামে ২টি উচ্চ ফলনশীল পটরের জাত অবমুক্তায়িত করেছে। বারি পটল-১ ঃ ফলের আকার মাঝারি, সিলিন্ডারাকৃতি ও দু’প্রান্ত ভোতা। ফলের রং গাঢ় সবুজ, গায়ে ৯-১০টি হালকা হলুদ রংয়ের ডোরা থাকে। ফল ৯-১০ সেমি লম্বা এবং বেড় ৪-৪.৫ সেমি। প্রতিটি ফলের গড় ওজন ৫০ গ্রাম। শাখা কলম লাগানোর ৯০ দিনের মধ্যেই ফর সংগ্রহ করা যায়। প্রতিটি গাছে প্রায় ৩৮০টি ফল ধরে যার গড় ওজন প্রায় ১৪ কেজি। হেক্টর প্রতি ফলণ ৩৮ মেঃ টন। উচ্চ ফলণশীল এ জাতটি রোগ শহনশীল ও তাড়াতাড়ি ফল দেয়।
বারি পটল-১ ঃ ফলের আকার মাঝারি, সিলিন্ডারাকৃতি ও দু’প্রান্ত সুচালো। ফলের রং হালকা সবুজ,গায়ে ১০-১১টি সাদা রংয়ের ডোরা থাকে। ফল ১১-১২ সেমি লম্বা এবং বেড় ৩.৫-৪.০ সেমি। প্রতিটি ফলের গড় ওজন ৫৫ গ্রাম। শাখা কলম লাগানোর ৯৫ দিনের মধ্যেই ফর সংগ্রহ করা যায়। প্রতিটি গাছে প্রায় ২৪০টি ফল ধরে যার গড় ওজন প্রায় ১০ কেজি। হেক্টও প্রতি ফলণ ৩০ মে টন। এ জাতটি থেকে অনেক দিন ফল সংগ্রহ করা যায়। এ ছাড়া স্থানীয় জাতের মধ্যে ধুসরবর্ণের, পুরুত্বক বিশিষ্ট ’মুর্শিদাবাদী’ এবং ডোরা দাগ ও অধিকস্বাদযুক্ত ’বালী’ উল্লেখযোগ্য। বংশ বিস্তার ঃ লতার কাটিং, গাছের মূল এবং বীজ দ্বারা পটলের চাষ হতে পারে। তবে অধিকাংশ স্থানেই লতার কাটিং থেকে পটলের চাষ করা হয়। কান্ডসহ কন্দালমূল দিয়েও পটলের বংশ বিস্তার করা যায়। বীজ তলায় কিংবা সরাসরি জমিতে শাখা কলম, কন্দমুল বা বীজ লাগিয়ে চারা উৎপাদন করা যায়। রিং পদ্ধতিতে শাখা কলম উৎপাদন এক বছর বয়সী সবল গাছের শাখার মাঝামাঝি অংশ হতে ১ মিটার শাখা নিয়ে রিং বা চুড়ির আকার করে পিট বা মাদায় লাগাতে হবে। শাখাটি ৫০পিপিএম ইনডোল বিউটারিক এসিড (ওইঅ) দ্রবনে ৫ মিনিট ডুবিয়ে লাগালে কলমে বেীশ শিকড় পাওয়া যায়। জমি তৈরি ঃ পটলের জমি ভালোভাবে তৈরি করা দরকার। ৪/৫টি গভির ও আড়াআড়ি ভাবে চাষ ও মই দিয়ে মাটি ঝুরঝুরা কেও জমি তৈরী করতে হয়। বপন/রোপণ সময় ও বীজ হার ঃ যে সমস্ত জমিতে রস থাকে অথবা সেচের সুবিধা আছে, সে সব স্থানে মধ্য অক্টোবর থেকে নভেম্বর মাসে বা মধ্য ডিসেম্বর থেকে মধ্য ফেব্রুয়ারী মাসে পটলের লতার কাটিং লাগানো আরাম্ভ হয়। সাধারনত অক্টোবার মাসে লাগানো গাছ হতে ফেব্রুয়ারী – মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহে এবং ফেব্রুয়ারী – মাচ মাসে লাগানো গাছে মে-জুন মাসে ফল পাওয়া যায়। পটল আলোক সংবেদনশীল না হওয়ায় বছরে কয়েক দফায় শাখা-কলম লাগানো যায় এবং সারা বছরই ফলন পাওয়া যায়। বপন/রোপণ পদ্ধতি ঃ বেড পদ্ধতিতে পটল চাষ করলে ফলন ভাল হয় এবং বর্ষাকালে ফসল নষ্ট হয় না। ১.২৫ মিটার চওড়া বেডের মাঝে ১ মিটার পর পর মাদা তৈরী করতে হয়। দুই বেডের মাঝে পানি নিষ্কাশনের জন্য ৭৫ সেমি নালা থাকতে হবে। সুষ্ঠু পরাগায়ণের জন্য অবশ্যই জমিতে ১০ ভাগ পুরুষ গাছ সমান ভাবে ছড়ানো থাকা প্রয়োজন, অর্থাৎ প্রতি ১০টি স্ত্রী মাদার জন্য ১টি পুরুষ মাদা থাকতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640