1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 27, 2024, 12:04 am
শিরোনাম :
উপকূলে ঘূর্ণিঝড়রিমালেরআঘাত আলমডাঙ্গায় ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ঝোড়ো হওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম আলমডাঙ্গার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে ঈদগাহ পূণনির্মাণ নিয়ে দুগ্রুপে চরম বিরোধ বাড়ি ঘর ভাঙচুর আলমডাঙ্গায় মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করার প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন কুষ্টিয়ার মিরপুরের ভেদামারীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে-আহত-১০ কাঙ্খিত সেবা নেই, তবুও ইবির পরিবহন খাতে বছরে বিপুল ব্যয় ! মিরপুরে হাতের রগ কাটা কৃষি ব্যাংক কর্মচারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কুমারখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত জয়নাবাদের তারিকের অবশেষে মৃত্ব্য হত্যাকান্ডঘটিয়েছে চেয়ারম্যান এনামুল হক মঞ্জুঃ আব্দুল মান্নান খান কুষ্টিয়ায় স্বাক্ষর জালিয়াতি কান্ডে সেই প্রতারক মীর সামিউল’র জামিন না মঞ্জুর, একদিনের রিমান্ড মিষ্টি আলু চাষ কৌশল

মিরপুরে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে বন্ধ হতে চলেছে অপারেশন থিয়েটার, ফিরে যাচ্ছেন রোগীরা

  • প্রকাশিত সময় Saturday, May 27, 2023
  • 131 বার পড়া হয়েছে

গাইনি কনসালটেন্ট ডাঃ ফারহানা ঝুমুর কাগজে মাঝে মাঝে অসুস্থ্য থাকেন, বাস্তবে নয়

মিরপুর প্রতিনিধি ॥ নিয়মিত বসেন ক্লিনিক ডায়াগণষ্টিক। চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে উপজেলার গাইনি রোগীরা। বাধ্য হয়ে যেতে হচ্ছে প্রাইভেট ক্লিনিকে। এমন অভিযোগই পাওয়া গেছে মিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আসা রোগীদের সুত্রে।

জানা যায়, কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অত্যাধুনিক অপারেশন থিয়েটার থাকলেও আবারো বন্ধ হতে চলেছে অপারেশন কার্যক্রম। এতোপূর্বে দীর্ঘ ২০ বছর ধরে অপারেশন কার্যক্রম বন্ধ ছিল। এ বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে বহুল প্রতিক্ষিত অপারেশন থিয়েটারে আবারো চালু হয়। যেখানে প্রতি নিয়ত ছোট খাটো অপারেশন ও গাইনি সিজারিয়ান অপারেশনের রোগী চিকিৎসা সেবা নিতে আসে। কিন্তু গাইনি কনসার্টেন্ট এর অনিয়মিত আসা-যাওয়া,এবং আসলেও কম সময় উপস্থিত থাকার কারণে চিকিৎসা সেবা ও অপারেশন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে রোগীরা। এছাড়াও যেদিন হাসপাতালে উপস্থিত হন সর্বোচ্চ পাঁচ থেকে ছয়টি রোগী দেখে হাসপাতাল ছেড়ে চলে যান বলে অভিযোগ করেছেন হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা গাইনি রোগীরা। মিরপুর হাসপাতালে প্রতি রবি ও বুধবার সিজারিয়ান অপারেশন চালু রয়েছে । কিন্তু ঠিকমতো ডাক্তার না থাকার কারণে এবং রোগী চেকআপ ও প্রস্তুুত না করতে পারায় গত তিন মাসে মাত্র ১৫ টি সিজারিয়ান অপারেশন সম্পূর্ণ হয়েছে। ডাক্তার না পাওয়ার কারণে রোগীরা হাসপাতালে এসে অনেক সময় ফিরে যেতে বাধ্য হচ্ছে। পরে তাদের অধিক খরচে ক্লিনিকে সেবা নিতে হচ্ছে। সরকারি সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে গাইনি রোগীরা। এ ব্যাপারে বারুইপাড়া ইউনিয়নে সাথী নামের একজন গাইনি রোগীর সঙ্গে কথা হলে বলেন, গত বুধবার হাসপাতালে গিয়ে ডাক্তারকে না পেয়ে ফিরে আসি। উল্লেখ্য মিরপুর হাসপাতালের গাইনি কনসালটেন্ট ডাক্তার ফারহানা মনসুর ঝুমুর তিনি গত ফেব্রয়ারী মাসে মিরপুর হাসপাতালে যোগ দেন। এর পর থেকে কাগজে শারিরিক অসুস্থ্যতার দোয়াই দিয়ে হাসপাতালে ঠিকমতো সেবা না দিলেও বাস্তবে কুষ্টিয়ার পপুলার ডায়াগণষ্টিক সেন্টার ও ট্রমাতে নিয়মিত রোগী দেখছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তার অনিয়মিত হাসপাতালে আসা-যাওয়া এবং কম সময় উপস্থিতি মিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিসিটিভি ক্যামেরা ফুটেজ চেক করলেই ঘটনার সত্যতা বের হয়ে আসবে।

এ ব্যাপারে ডাক্তার ফারহানা ঝুমুর বলেন, মাঝে মাঝে অসুস্থ থাকার কারনে অনুপস্থিত হয়তো থাকি,তখন অফিস প্রধানের কাছে ফোনে ছুটিনি। তবে কম সময় অফিস করার বিষয় অস্বীকার করেন তিনি। তিন মাসে এতঅল্প শুধুমাত্র ১৫ টি সিজার হয়েছে এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলতে বলেন তিনি।

এ ব্যাপারে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার পীযূষ কুমার বলেন, উনার রেগুলার পোস্টিং এখানে। প্রতিয়িতই উনার অপারেশন ছাড়াও এখানে সেবা দেয়ার কথা রয়েছে। আমার কাছেও অভিযোগ এসেছে এবং শুনেছি উনি হাসপাতলে এসে কম সময় উপস্থিত থাকেন এতে অনেক রোগী ফিরে যান। এমন অভিযোগ রয়েছে কিন্তু হাসপাতালে অনুপস্থিত থাকে বিষয়টি আপনাদের থেকে শুনলাম বিষয়টি হাজিরা যাচাই-বাছাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ দিতে বলেন। অনেক কিছুই জানি, বিষয়টি দেখব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640