1. nannunews7@gmail.com : admin :
July 15, 2024, 7:20 am
শিরোনাম :
কোটার সমাধান আদালতেই : প্রধানমন্ত্রী কুষ্টিয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তজার্তিক দিবস উদযাপন সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মাদক প্রতিরোধ করা সম্ভব : এডিসি শারমিন আখতার সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জেলার আইনশৃংলা নিয়ণÍ্রণ করা সম্ভব কুষ্টিয়ায় জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন থানায় অভিযোগ দায়ের চরথানাপাড়ায় বসতবাড়ীতে হামলা গৃহবধুসহ আহত ২ কুষ্টযি়ায় জাতীয় র্পাটরি প্রসেডিন্টে ও সাবকে রাষ্ট্রপতি এরশাদরে ৫ম মৃত্যু র্বাষকিী পালতি দৌলতপুরে আবেদের ঘাটে দিনে-দুপুরে ২ রাউন্ড গুলি কুষ্টিয়ায় কোটা বৈষম্য নিরসনে দাবিতে শিক্ষার্থীদের পদযাত্রা এবং স্মারকলিপি প্রদান চুয়াডাঙ্গায় প্রণোদনার প্রভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে রোপা আউশ ধানের চাষ ভেড়ামারায় ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক পিএলসি এর ১০০২ তম শাখার শুভ-উদ্বোধন রেল কর্তৃপক্ষের নিদ্রাভিনয়ে কুমারখালীতে জলাশয় ভরাটের গতি বেড়েছে, তৈরী হচ্ছে টিনসেড ঘর

অভিযোগ মধ্যস্ততা কারীর বিরুদ্ধে কমিশন বাণিজ্যের

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, May 23, 2023
  • 77 বার পড়া হয়েছে

মাস না পেরুতেই কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে কোটি টাকার টেবিল চেয়ারে ফাটল

কাগজ প্রতিবেদক ॥ সম্প্রতি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) বিভিন্ন বিভাগে নতুন চেয়ার টেবিল বরাদ্দ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তবে মাস না পেরুতেই ফাটল দেখা দিয়েছে কোটি টাকা ব্যয়ে আনা এই ফার্নিচার গুলোতে। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। তারা বলছেন, তাদের কাছে খোজ রয়েছে। আখতার ফার্ণিচার ক্রয়ের ক্ষেত্রে স্থানীয় এক মধ্যস্ততাকারীর কারীর বিরুদ্ধে কমিশন বাণিজ্যের অভিযোগ রয়েছে। অপরদিকে অতিরিক্ত তাপের কারণে চেয়ার-টেবিল গুলো ফেটে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রকৌশল অফিস।

এদিকে ফাটল ধরা চেয়ার-টেবিল গুলো তড়িঘড়ি করে পরিবর্তন করা হলেও বাকিগুলো এখনো সরানো হয়নি। এতে বাকি পণ্যগুলোও দ্রুত সময়ের ভিতরে নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশংকা তৈরী হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি, বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং, হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট বিভাগ, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগসহ বিভিন্ন বিভাগে চেয়ার-টেবিল গুলো ক্যাম্পাসে নিয়ে আসতেই  ফাটল ধরছে। ফাটল ধরা চেয়ার-টেবিল গুলো পুনঃরায় পরিবর্তন করা হলেও অনেক চেয়ার-টেবিল এখনো বিভাগগুলোতে রয়ে গেছে। আবার অল্প একটু ঘর্ষণেই রং উঠে যাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

প্রকৌশলী অফিস সূত্র জানিয়েছে, বিভিন্ন বিভাগের জন্য ৬০০০ হাজার চেয়ার ও ২০০০ টেবিলের অর্ডার করা হয়। যেখানে মোট বাজেট ধরা হয়েছে ৫ কোটি ৮২ লাখ টাকা। এই কাজের অনুমোদন পায় আখতার ফার্নিচার। অভিযোগ রয়েছে, আখতার ফার্নিচারের পণ্যগুলো ঢাকা সাভার থেকে আনার কথা থাকলেও এই পণ্য গুলো খুলনা ও মাগুরা জেলার বিভিন্ন লোকাল কারখানাতে তৈরি করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সূত্র । যদিও বিষয়টি অস্বীকার করছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল অফিস ও আখতার ফার্নিচার। তারা বলছে, এটি ঢাকা সাভার থেকেই তৈরী কৃত এবং এতে কোন অনিয়ম পাওয়া যায়নি। এটিই ইবির ইতিহাসে সবচেয়ে মান সম্মত ফার্নিচার। অতিরিক্ত তাপের কারণে কাঠগুলো ফেটে যাচ্ছে।

তবে সচেতন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বলছে উল্টো কথা। মাস না পেরুতেই এই মান সম্মত টেবিল চেয়ার গুলোতে কেন ফাটল দেখা দিচ্ছে, এমন প্রশ্ন ছুড়ছেন তারা। ক্ষোভ প্রকাশ করে তারা বলেন, বিভিন্ন বিভাগের শ্রেণিকক্ষ ও চেয়ার টেবিল সংকট ছিলো। নতুন চেয়ার টেবিল পেয়ে মনের মাঝে এক প্রকার প্রশান্তি অনুভব করছিলাম। তবে কিছুদিন যেতে না যেতে দেখছি চেয়ার টেবিল গুলোতে ফাটল দেখা দিচ্ছে ও রং উঠে যাচ্ছে। যা দেখে আমাদের কষ্টের উদ্রেক হয়, এগুলো মেনে নেওয়ার বিষয় নয়।

তারা আরো বলেন, এটি আসলেই আখতার ফার্নিচারের পণ্য কিনা আমাদের মনের মাঝে এই সন্দেহ থেকেই যায়। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তদন্ত সাপেক্ষে এ বিষয়ে জোর পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানাচ্ছি।

বায়োমেডিকেল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সভাপতি সহকারী অধ্যাপক রবিউল ইসলাম বলেন, কিছু চেয়ার টেবিল ফাটল অবস্থায় ছিল। অভিযোগ করলে তা পরিবর্তন করে দিয়েছে।

এ বিষয়ে ফার্মেসি বিভাগের সভাপতি সভাপতি সহকারী অধ্যাপক অর্ঘ্য প্রসুন সরকার বলেন, কিছু চেয়ার টেবিলে ফাটল দেখা গিয়েছে। আমরা কারো কাছে কোন অভিযোগ করিনি তবে অন্যান্য বিভাগ অভিযোগ করলে তা পরিবর্তন করে দেয়। পরিবর্তন করলেও এখনো কিছু চেয়ার টেবিল ফাটল অবস্থায় রয়েছে।

এ বিষয়ে আখতার ফার্নিচারের কুষ্টিয়া শাখায় দায়িত্বরত কর্মকর্তা রেজা বলেন, আমাদের ফার্নিচার গুলো ৩৫ ডিগ্রী থেকে ৪০ ডিগ্রী সিজন করা হয়। সিজনটি বৈশ্বিক আবহাওয়ার কারণে অটোমেটিকলি ৪০ ডিগ্রীর এর উপরে পড়ার কারণে কিছু সংখ্যক প্রোডাক্টের জয়েন্ট গ্যাপ হয়েছিল। জয়েন্ট গ্যাপ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে প্রকৌশলী অফিস থেকে আমাদের জানালে ফেটে যাওয়া গুলো পরিবর্তন করে দিয়েছি। কিছু বিভাগে পরীক্ষা চলছে পরীক্ষা শেষ ওখানে থাকা ফাটা প্রোডাক্ট গুলো পরিবর্তন করা হবে।

রং উঠে যাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ যে রং প্রথমে চেয়েছিল তা দেয়া হয়েছিল। তা হলো রোজ রং এটি তারাই পছন্দ করে দিয়েছিল। পরবর্তীতে অভিযোগ আসলে ওই রং আর যায়নি। পরে যে রং দেয়া হয়েছে তা উঠবেও না পানিতে ভিজিয়ে রাখলেও কিছু হবেনা। আর রোজ রংটির প্রোডাক্ট শুধু ফার্মেসি বিভাগে কিছু গিয়েছিল অন্য কোন বিভাগে এই নরমান রংটি যায়নি।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশলী মুন্সী শহিদ উদ্দীন মো. তারেক বলেন, অতিরিক্ত তাপের কারণে চেয়ার-টেবিল গুলো ফেটে গিয়েছে। তবে রং উঠার বিষয়টি তিনি অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, এটিই ইবির ইতিহাসে সর্বোচ্চ মানের চেয়ার-টেবিল। যারা এ নিয়ে অভিযোগ এনেছে তা ভিত্তিহীন।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ট্রেজারার প্রফেসর ড. আলমগীর হোসেন ভূইয়া বলেন, এই বিষয়ে আমার কাছে অভিযোগ এসেছে। বিষয়টি ডিল করছে প্রকৌশল অফিস। তাদেরকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে যে চেয়ার-টেবিল গুলো প্রবলেম হয়েছে তা ফেরত নিয়ে নতুন ভাল প্রোডাক্ট দিতে। তবে নিম্ন মানের বিষয়ে তিনি বলেন, প্রোডাক্ট গুলো নিম্ন মানের কিনা  তা খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগে ল্যাবের অবকাঠামোগত উন্নয়নে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান আখতার গ্রুপের বিরুদ্ধে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640