1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 12:44 pm

দৌলতপুরে আগুনে পুড়িয়ে তিনজনকে হত্যা মামলা পিবিআইতে স্থানান্তরের দাবি

  • প্রকাশিত সময় Monday, May 22, 2023
  • 38 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধ এবং আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের বসতঘরে আগুন দেওয়ার ঘটনায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে দিনু মন্ডল, ফারুক ও আক্তার মন্ডল নামে তিনজনের মৃত্যু হয়। এ হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই প্রকাশ চন্দ্রের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ উঠেছে। একইসঙ্গে সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে আলোচিত হত্যা মামলার তদন্তভার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনে (পিবিআই) স্থানান্তরের দাবি জানিয়েছেন নিহতদের পরিবার।

এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর  ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন মামলার বাদী মোজাম মন্ডল।

 

মামলার তদন্তভার পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনে (পিবিআই) স্থানান্তরের দাবি জানিয়ে লিখিত আবেদনে বাদী মোজাম মন্ডল লিখেছেন, গত ২৭/০৪/২৩ তারিখে চিলমারী ইউনিয়নের চিলমারী বাজার সংলগ্ন রাস্তাকে কেন্দ্র করে। মন্ডল বংশের ওপর খা ও সিকদার বংশের দ্বারা যে বর্বরোচিত, নারকীয়, পৈশাচিক ও অমানবিক ঘটনা ঘটিয়েছে। অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এই যে, দীর্ঘ অর্ধমাসের ও অধিক কাল অতিবাহিত হলেও তদন্তে দৃশ্যমান কোনো অগ্রগতি পরিলক্ষিত হচ্ছে না। এ যাবৎকাল মাত্র চারজন এজাহারভুক্ত আসামিকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে এবং অজ্ঞাতনামা ২০ জনকে গ্রেপ্তার করা হলেও সঠিক প্রতিবেদন না দেওয়ার কারণে গ্রেপ্তারকৃত সব আসামি পরের দিন জামিনে মুক্ত হয়ে যায়। ঘটনার পরের দিন অর্থাৎ ২৮/০৪/২০১৩ তারিখে তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই প্রকাশ আলামত হিসাবে বিস্ফোরক দ্রব্যাদি জব্দ করলেও অজ্ঞাত কারণে এজাহারে বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইনের ৪/৫ ধারা ও অস্ত্র আইনের ১৯ ধারা সংযোজন করেননি। ফলে আসামিরা সহজেই জামিনে মুক্ত হয়। তাছাড়া পেট্রোল দিয়ে আগুন ধরিয়ে পুড়ানো অগ্নিদগ্ধ ভুক্তভোগী ১/৫/২০১৩ তারিখে দুইজন এবং ৪/৫/২০১৩ তারিখে একজন মৃত্যুবরণ করলেও যথাসময়ে ৩০২ ধারা সংযোজিত না করা এবং সময়োচিত যথাযথ পদক্ষেপ না নেওয়ায় এবং বিস্ফোরক আইনের ধারা সংযোজন না করায় গত ১০/০৫/২০১৩ তারিখে মহামান্য হাইকোর্টে সব আসামি জামিনে মুক্ত হয় । জামিনে মুক্ত হয়ে আসামিরা এলাকায় এসে প্রাণনাশের হুমকি দিচ্ছে। সংঘঠিত ঘটনা দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত সাক্ষীদের ডেকে কোনো জবানবন্দী নেননি। ১৫/০৫/২০২৩ তারিখে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিদর্শনে আসলে উভয়ের সামনে বিষয়গুলো উত্থাপন করলে তদন্তকারী অফিসার জানান যে ১৫/০৫/২৩ তারিখ পর্যন্ত ধারা সংযোজন সংক্রান্ত কোনো আবেদন বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়নি। তখন উপস্থিত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহোদয় আগামীকাল অর্থাৎ ১৬/০৫/২০১৩ এর মধ্যে যাবতীয় আলামতসহ এজাহারে বিস্ফোরক দ্রব্যাদি আইনের ৪/৫ ধারা ও অস্ত্র আইনের ১৯ ধারা সংযোজনের আবেদন বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করার জন্য তদন্তকারী কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। অতিরিক্ত পুলিশ সুপারের নির্দেশনা পাওয়ার পর ১৭/০৫/২০১৩ তারিখে জব্দ তালিকার একটি ফরোয়ারডিং আদালত বরাবর পাঠান। বিস্ফোরক দ্রব্যাদি জব্দ করেন ২৮/০৪/২০১৩ তারিখে কিন্তু জব্দ করা দেখান ২৯/০৪/২০১৩ তারিখে। ১৬/০৫/২০১৩ তারিখে প্রেরিত জব্দ তালিকার সাথে আদালতের ফরোয়ারিডিংর কোনো মিল নেই। জব্দ তালিকায় ৬টি ঢাল উল্লেখ থাকলেও ফরোয়াডিং উল্লেখ করেনি। তাছাড়া রহস্যজনকভাবে বিস্ফোরক দ্রব্যাদি জব্দ তালিকায় উল্লেখ থাকলেও বিস্ফোরক আইনের ধারা সংযোজন করেন নাই। তদন্তকারী কর্মকর্তা অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে আরও বলেন, এ পর্যন্ত ১৪ জন সাক্ষীর জবানবন্দি নেওয়া হয়েছে। আমার জানা মতে এ পর্যন্ত আমাদের পরিবারের কোনো ভিকটিমের জবানবন্দি নেইনি। যদি প্রকৃতভাবে জবানবন্দি নিতেন তাহলে তাদেরকে ঘটনাস্থলে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করতেন। এতে প্রতিয়মান হয় যে এই মামলাটি দায়সারাভাবে তদন্ত করছে। তিনি যদি এই মামলাটি তদন্ত করেন তবে আমরা সঠিক বিচার পাওয়া থেকে বঞ্চিত হব। এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার কার্যকলাপে আমরা চরমভাবে হতাশায় ভুগছি। তদন্তকারী কর্মকর্তা কার্যকলাপে প্রতিয়মান হচ্ছে যে আসামিদের সঙ্গে যোগসাজসে মামলার তদন্ত কার্যক্রম ভিন্নখাতে প্রবাহিত হচ্ছে। সার্বিক কার্যক্রম আমাদের কাছে সন্দেহজনক মনে হওয়ায় মামলার সঠিক ও নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে তদন্তে অভিজ্ঞ ইউনিট পিবিআই এর একজন সিনিয়র অফিসার দ্বারা সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষী ব্যক্তিদের আইনের আওতায় এনে বিচারে সোপর্দ করার জন্য আবেদন জানাচ্ছি।

বাদী পক্ষের আইনজীবী বলেন, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা দায়সারা তদন্ত  করছে। আসামিদের সঙ্গে যোগসাজসে মামলার তদন্ত কার্যক্রম ভিন্নখাতে প্রবাহিত হচ্ছে। সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে মামলাটি পিবিআইতে স্থানান্তরিত করার দাবি জানাচ্ছি।

নিহতদের পরিবারের লোকজন বলেন, রাস্তার জমি নিয়ে বিরোধের জেরে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে খা ও শিকদার গ্রুপের শতাধিক লোকজন নির্মমভাবে মন্ডল বংশের লোকজনদের বসতঘরে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে হামলা করে। বিভিন্ন অস্ত্রসস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মন্ডল বংশের প্রায় ২৫ জনকে গুরুতর আহত করে। তাদের দেয়া আগুনে অগ্নিদগ্ধ হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ফারু, আকতার মন্ডল ও দিনু মন্ডল ঢাকায় মারা গেছে। নৃশংস হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি। খুনিদের ফাঁসি চাই।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই প্রকাশ চন্দ্র বলেন, চিলমারীতে প্রতিপক্ষের হামলায় তিনজন নিহতের ঘটনায় করা মামলাটি আইনানুযায়ী নিরপেক্ষভাবে তদন্ত কাজ চলমান রয়েছে। সাক্ষীদের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হচ্ছে। বিস্ফোরক দ্রব্য, রামদা, ঢাল, তলোয়ার, হাসুয়া (দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র), ঘরবাড়ি ভাংচুর ও পুড়ানো হয়েছে, টিন পুড়েছে, ঘর ও ঘরের আসবাবপত্র পুড়েছে, সেখানকার ছাই সিজ করা হয়েছে। তিন ধরনের জব্দ তালিকা সিজ করেছি। কিছুকিছু আলামত ঢাকায় ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজ চলছে। এক প্রশ্নের জবাবে এস আই প্রকাশ আরও বলেন, উনাদের অভিযোগ সত্য না। আসামি কোর্টে ওঠার আগেই আমি তিনিটি জব্দ তালিকা আদালতে জমা দিয়েছি। আসামির রিমান্ডের জন্য আবেদন করেছিলাম। রিমান্ড দেয়ার বিষয়টি আদালতের। জব্দ তালিকার কপিগুলো চার্জশিট জমা দেওয়ার সময়  মামলার মূল ডকেটের সঙ্গে জমা দেওয়া হয়। আসামিদের কয়েকজন কারাগারে আর বাকিরা উচ্চ আদালতের জামিনে আছেন। ঘটনা ঘটার দিন থেকে এখন পর্যন্ত ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। ওই এলাকার পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640