1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 27, 2024, 9:22 am
শিরোনাম :
উপকূলে ঘূর্ণিঝড়রিমালেরআঘাত আলমডাঙ্গায় ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ঝোড়ো হওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম আলমডাঙ্গার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে ঈদগাহ পূণনির্মাণ নিয়ে দুগ্রুপে চরম বিরোধ বাড়ি ঘর ভাঙচুর আলমডাঙ্গায় মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করার প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন কুষ্টিয়ার মিরপুরের ভেদামারীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে-আহত-১০ কাঙ্খিত সেবা নেই, তবুও ইবির পরিবহন খাতে বছরে বিপুল ব্যয় ! মিরপুরে হাতের রগ কাটা কৃষি ব্যাংক কর্মচারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কুমারখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত জয়নাবাদের তারিকের অবশেষে মৃত্ব্য হত্যাকান্ডঘটিয়েছে চেয়ারম্যান এনামুল হক মঞ্জুঃ আব্দুল মান্নান খান কুষ্টিয়ায় স্বাক্ষর জালিয়াতি কান্ডে সেই প্রতারক মীর সামিউল’র জামিন না মঞ্জুর, একদিনের রিমান্ড মিষ্টি আলু চাষ কৌশল

সেই বাসের যাত্রীর বয়ান: তিন দফায় উঠেছিল ১১ ডাকাত, কথা বললেই মারধর

  • প্রকাশিত সময় Thursday, August 4, 2022
  • 113 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ মঙ্গলবার গভীর রাতে সিরাজগঞ্জে পৌঁছানোর পর পরপর তিন দফায় মোট ১১ জন ডাকাত যাত্রীবেশে উঠেছিল ঈগল এক্সপ্রেস পরিবহনের সেই বাসে। তৃতীয় দফায় দুজন ওঠার পরই বাসটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে তারা। দলনেতাকে তারা ডাকছিল ‘কাকা’ বলে। এ ছাড়া আরও কিছু নামও বিভিন্ন সময় শুনতে পেয়েছেন ভুক্তভোগী যাত্রীরা। সেই বাসে থাকা দুই যাত্রীর বয়ান থেকে জানা গেছে এমন তথ্য। কুষ্টিয়ার প্রাগপুর থেকে ছেড়ে আসা নারায়ণগঞ্জগামী ঈগল এক্সপ্রেস পরিবহনের যে বাসে ডাকাতি ও ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে, তাতে যাত্রী হিসেবে ছিলেন হেকমত আলী ও তাঁর পরিবার। স্ত্রী, দুই সন্তান ও শাশুড়িকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে যাচ্ছিলেন তিনি। সেদিনের ঘটনার বিষয়ে আজকের পত্রিকার সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি ও তাঁর স্ত্রী জেসমিন। হেকমত আলী বলেন, স্ত্রী, দুই সন্তান ও শাশুড়িকে নিয়ে ঢাকায় যাওয়ার জন্য মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার তারাগুনিয়া থেকে ঈগল এক্সপ্রেস পরিবহনের বাসে ওঠেন তিনি। এ সময় বাসে ১০ জনের মতো যাত্রী ছিলেন। বাসটি ভেড়ামারা লালন শাহ সেতু পার হয়ে সাড়ে ১১টার দিকে সিরাজগঞ্জে একটি হোটেলের সামনে গিয়ে থামে। সেখানে যাত্রীদের খাওয়া-দাওয়া শেষে রাত পৌনে ১২টার দিকে আবার বাসটি ঢাকার উদ্দেশ্যে ছাড়ে। বাস ছাড়ার কিছুক্ষণ পর রাত ১২টার দিকে রাস্তার ওপর দাঁড়িয়ে চারজন বাসটিকে সিগনাল দেন। বাসটি থামলে সেখানে ওই চার যুবকের সঙ্গে কথা বলেন হেলপার। দু-এক মিনিট কথা বলার পর গাড়িতে উঠে পড়েন ওই চার যুবক। তাঁরা বাসের পেছনের সিটে গিয়ে বসেন। তাদের মধ্যে একজনের পিঠে একটি ব্যাগ ছিল। এর কিছুক্ষণ পর আরও পাঁচজন একইভাবে ওই বাসে ওঠেন। এর কিছুক্ষণ পর ওঠেন আরও দুজন। ওই দুজন ওঠার মিনিট দশেক পরই বাসের চালককে বাসটি থামাতে বলা হয়। চালক থামাতে রাজি না হলে তাঁকে মারধর করেন তরুণেরা। এক তরুণ দ্রুত তাঁকে সরিয়ে চালকের আসনে বসে বাসটির নিয়ন্ত্রণ নেন। হেকমত আলী জানান, কোনো কিছু বুঝে ওঠার আগেই ওই দশজন বাসের প্রতিটি সিটের পাশে পাশে দাঁড়িয়ে পড়েন। তাঁরা পুরুষ যাত্রীদের গলায় ছুরি ও কাঁচি ধরে তাঁদের জিম্মি করেন। এর মধ্যে কয়েকজন দ্রুত বাসের পর্দা কেটে পুরুষ যাত্রীদের মুখ, হাত ও পা বেঁধে ফেলে এবং বাসের মাঝখানের লম্বা জায়গায় মাথা নিচু করে তাঁদের বসিয়ে রাখে। বাসে থাকা ১০ থেকে ১২ জন নারী যাত্রীর মধ্যে একজনের চোখ, মুখ ও হাত বেঁধে ফেলা হয়। বাকিদের চোখ, মুখ ও হাত খোলা ছিল। বাসের সব আলো নিভিয়ে দেওয়া হয়। জানালার গ্লাসগুলো আটকে দেওয়া হয়। ডাকাতেরা প্রত্যেকের কাছে গিয়ে শরীর তল্লাশি করে টাকা, মোবাইলসহ নারী যাত্রীদের কাছ থেকে স্বর্ণালংকার লুটে নেয়।  হেকমত আলীর স্ত্রী জেসমিন বলেন, বাসের পেছনের দিক থেকে তিন সিট সামনে বসে ছিলেন তিনি। তাঁর হাত বেঁধে দেয় ডাকাত দল। তাঁর থেকে দুই সিট সামনে এক নারীকে তল্লাশি করার সময় ওই নারী প্রতিবাদ করেন। এ সময় ওই নারীর সঙ্গে ডাকাতদের তর্ক বেধে যায়। ওই নারীকে মারধর করে ডাকাতেরা। তাঁকে সংঘবদ্ধভাবে ধর্ষণ করা হয়। জেসমিন আরও বলেন, তিনি সিটে তাঁর এক সন্তানকে বুকে জড়িয়ে মাথা নিচু করে সৃষ্টিকর্তার নাম নিচ্ছিলেন। সামনে আরেক সিটে তাঁর মা বসেছিলেন আরেক সন্তানকে নিয়ে। ডাকাত দল সব কাজ শেষ করার পর একে অপরকে ডাকাডাকি করেন। ডাকাত দলের সরদারকে তাঁরা ‘কাকা’ বলে ডাকছিলেন। মাঝেমধ্যে নুরু, সাব্বির, রকি নামেও ডাকা হচ্ছিল একেকজনকে। রাত ৩টার দিকে বাসের মধ্যেই ডাকাতেরা লুট করা টাকা, মোবাইল ও স্বর্ণালংকার নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে। এই ভাগাভাগি নিয়ে বাসের ভেতরে তাদের মধ্যে কথাকাটাকাটিও হয়। একপর্যায়ে রাস্তার পাশে গাড়িটি থামিয়ে দ্রুত তারা নেমে চলে যায়। হেকমত আলী ও তাঁর স্ত্রী জানান, ডাকাতি চলাকালে কোনো যাত্রী কথা বলার চেষ্টা করলে তাঁকে মারধর করা হয়েছে। ভোরের দিকে পুলিশে এসে তাঁদের উদ্ধার করে। এর পর কয়েকজনে হাসপাতালে ও তাঁদের থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। থানা থেকে তাঁদেরকে দুজনের ছবি দেখানো হয়। বাসের যাত্রীদের অনেকেই নিশ্চিত করেন যে, ওই দুজন বাসের মধ্যে ছিল। তারপর রাত ৯টার দিকে বিআরটিসির গাড়িতে টিকিট কেটে কুষ্টিয়ার গাড়িতে তাঁদের তুলে দেয় পুলিশ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640