1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 19, 2024, 1:39 pm

সড়ক ও জনপথের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে লুটপাট’র তদন্ত শুরু

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, August 3, 2022
  • 54 বার পড়া হয়েছে

ঢাকা অফিস ॥ সড়ক ও জনপথের লুটেরা সিন্ডিকেটের হোতা, বহুল বিতর্কিত অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে মন্ত্রনালয়ের তদন্ত শুরু হয়েছে। পত্রিকায় ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশের প্রেক্ষিতে সড়ক ও সেতু মন্ত্রনালয় সড়ক ও সেতু বিভাগের যুগ্ম সচিব (বাজেট) আব্দুল মোক্তাদিরের নেতৃত্বে তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। এরইমধ্যে তদন্ত কমিটি সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর সরেজমিন পরিদর্শনসহ অভিযুক্ত সিন্ডিকেট সদস্যদের বক্তব্য গ্রহণ করেছেন। সড়ক ও সেতু মন্ত্রনালয়ের সচিব এবিএম আমিনুল্লাহ নূরী গতকাল বুধবার এ তথ্য নিশ্চিত করেন। সড়ক ও জনপথ (সওজ) অধিদপ্তরের অতিরিক্তি প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে লুটেরা সিন্ডিকেট পরিচালনাসহ অনিয়ম, দুর্নীতির হাজারো অভিযোগ রয়েছে। তিনি কমিশন বাণিজ্যেরও সর্বেসর্বা। বিতর্কিত ওই অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সড়ক ভবন, দপ্তর, অধিদপ্তরের যাবতীয় টেন্ডার কার্যক্রমেরও অঘোষিত নিয়ন্ত্রক হয়ে উঠেছেন। তার বিরুদ্ধে টেকনিক্যাল স্পেসিফিকেশন নিয়ে পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দেয়া, অর্থনৈতিক কোডের আইন ভঙ্গ করে পুরানো বিলের চেক পাশ করিয়ে দেয়া, টেন্ডার না করিয়ে বেআইনিভাবে কাজের সময় বর্ধিত করণের আদেশ দেয়া, আইন ও ক্ষমতা বহির্ভূতভাবে সিনিয়র তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীকে নিজের পি.এস বানানোর মতো অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে। এসব ব্যাপারে গত রোববার থেকে জাতীয় দৈনিকে ধারাবাহিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হচ্ছে। প্রতিবেদনের দ্বিতীয় কিস্তি প্রকাশ হতেই সর্বোচ্চ আলোচনা সমালোচনা শুরু হয়, টনক নড়ে খোদ মন্ত্রনালয়েরও। অভিযোগ আছে, বিরাট দাপুটে অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগই আমলে নেয়া হয় না। তিনি উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের নানাভাবে ম্যানেজ করে এবং প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতার দ্বারা ভয়ভীতি প্রদর্শন করে বাধাহীনভাবেই নিজের অনিয়ম, দুর্নীতি, লুটপাট চালিয়ে আসছেন। বিভিন্ন সম্পাদক ও নেতাদের নাম ভাঙিগয়ে তিনি সাংবাদিকদেরও হুমকি দিয়ে নিজেকে নিরাপদ রাখতেন। তবে দেশবাংলা সব রক্তচুক্ষু ও হুমকি ধমকিকে উপেক্ষা করে প্রতিবেদন প্রকাশ শুরু করায় এখন দাপুটে ওই কর্তার পক্ষ থেকে নানাভাবে ম্যানেজ করার ফন্দিফিকির চালানো হচ্ছে।

এদিকে সড়ক ও সেতু মন্ত্রনালয় লুটেরা সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে তদন্ত কমিটি গঠন করলেও অজ্ঞাত কারণে এই চক্রের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ গ্রহণ করছে না দুর্নীতি দমন কমিশন। প্রমানাদিসহ লিখিত অভিযোগ দাখিল সত্তেও তা গ্রহণ করতে রাজি নন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। আবার গ্রহণ করলেও তার স্বীকারোক্তি দিতে সাহস পাচ্ছেন না কেউ। সওজ’র লুটেরা সিন্ডিকেটের মূল হোতা অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের খুবই ঘনিষ্ঠজন রয়েছেন দুদক এর পরিচালক পর্যায়ের কর্মকর্তা। তার ভয়েই তটস্থ অধস্তন কর্মকর্তারা। তাহলে ভুক্তভোগিরা কোথায় পাবেন বিচার? কোথায় চাইবেন প্রতিকার? এর জবাব নেই কারো কাছে। এভাবেই ঘাটে ঘাটে, অভিযোগ নেয়ার দপ্তরে দপ্তরে রফিকুল ইসলামের আত্মীয়স্বজন কিংবা পোষ্যজনরা রক্ষাকবচ হিসেবে কাজ করে চলছে। ফলে লুটপাটের প্রমানাদি থাকা সত্তেও রফিকুল সিন্ডিকেটের বিরুদ্ধে কার্যকর কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয় না। পত্রিকায় প্রতিবেদন ছাপা শুরু হতেই সড়ক ও জনপথের হাজারো অনিয়ম, দুর্নীতির ব্যাপারে বহু অভিযোগ জমা হয়েছে পত্রিকা অফিসে। ভুক্তভোগিরা অনেকেই সরাসরি উপস্থিত হয়েও সাগর চুরির মতো নানা লুটপাটের কাহিনী জানিয়েছেন। সেসব যাচাই বাছাই করে দেখা হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640