1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 27, 2024, 1:05 am
শিরোনাম :
উপকূলে ঘূর্ণিঝড়রিমালেরআঘাত আলমডাঙ্গায় ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ঝোড়ো হওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি, খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম আলমডাঙ্গার বাঁশবাড়িয়া গ্রামে ঈদগাহ পূণনির্মাণ নিয়ে দুগ্রুপে চরম বিরোধ বাড়ি ঘর ভাঙচুর আলমডাঙ্গায় মিথ্যা অভিযোগ তুলে সংবাদ সম্মেলন করার প্রতিবাদে পাল্টা সংবাদ সম্মেলন কুষ্টিয়ার মিরপুরের ভেদামারীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সংঘর্ষে-আহত-১০ কাঙ্খিত সেবা নেই, তবুও ইবির পরিবহন খাতে বছরে বিপুল ব্যয় ! মিরপুরে হাতের রগ কাটা কৃষি ব্যাংক কর্মচারীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার কুমারখালীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আহত জয়নাবাদের তারিকের অবশেষে মৃত্ব্য হত্যাকান্ডঘটিয়েছে চেয়ারম্যান এনামুল হক মঞ্জুঃ আব্দুল মান্নান খান কুষ্টিয়ায় স্বাক্ষর জালিয়াতি কান্ডে সেই প্রতারক মীর সামিউল’র জামিন না মঞ্জুর, একদিনের রিমান্ড মিষ্টি আলু চাষ কৌশল

কুষ্টিয়ায় বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে মাদ্রাজি ওলকচু

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, July 26, 2022
  • 105 বার পড়া হয়েছে

কৃষি প্রতিবেদক ॥ গত কয়েকবছর ধরে কুষ্টিয়ার বিভিন্ন উপজেলায় দেশি ওলের পাশাপাশি বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে মাদ্রাজি ওলকচু। পতিত ও বেলে দোঁ-আশ মাটিতে এই মাদ্রাজি ওলকচুর চাষ করে আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন চাষিরা। ফলে, প্রতিবছর এই মাদ্রাজি ওলকচু চাষিদের কাছে এখন খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বাজারে চাহিদার পাশাপাশি এর দামও ভাল। মাদ্রাজি জাতের এই ওলকচু চাষে বিঘাপ্রতি ৩০-৪০ হাজার টাকা খরচ করে লক্ষাধিক টাকা পর্যন্ত আয় করা সম্ভব। অতি নরম ও সুস্বাদু হওয়ায় ক্রেতারাও ঝুঁকছেন মাদ্রাজি এই ওলের প্রতি। তাই দিন দিন বাড়ছে এর কদর। এবার আবহাওয়া ভালো থাকায় প্রতিটি গাছ থেকে ৮-২০ কেজি পর্যন্ত ওলের ফলন পেতে পারে বলে জানিয়েছেন কৃষি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। কুমারখালী উপজেলার নন্দলালপুর গ্রামে দুই বিঘা মাদ্রাজি ওলকচু চাষ করেছেন কৃষক আলাউদ্দিন। তিনি বলেন, কৃষি অফিসের পরামর্শে এর আগের বছরও এক বিঘা জমিতে এই ওল রোপন করেছিলাম। লাভও বেশি পেয়েছিলাম। তাই এবার দুই বিঘা জমিতে এই ওল রোপন করেছি। আর কয়েকমাস পরেই এই ওল উত্তোলন করা হবে।

আরেক কৃষক সাইফুল্লাহ জানান, একবিঘা জমিতে ওলচাষ করতে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা খরচ হয়ে থাকে। ফলন ভালো হলে সেখান থেকে ১৪০ থেকে ১৫০ মণ পর্যন্ত ফলন পাওয়া যায়। বিক্রি করে এক লাখ টাকার উপরে লাভ পাওয়া সম্ভব। কুমারখালী উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ দেবাশীষ কুমার দাস বলেন, বেশি লাভের ফলে ওলচাষের দিকে ঝুঁকে পড়েছে কৃষকরা। কুমারখালী উপজেলায় ওলচাষ এখন অর্থকরী ফসলে রূপ নিয়েছে। তিনি আরও বলেন, ওল চাষের পাশাপাশি ওলের বীজও উৎপাদন করেও আরও বেশি লাভের মুখ চোখে দেখছেন কৃষকরা। এর বীজ বিক্রি করলে লাভ হয়। এক হাজার টাকা মণ ওলের বীজ বিক্রি হয়। ফলে এটি বর্তমানে এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে। আগামীতে এ ফসলের চাষটি আরও বাড়বে বলেও যোগ করেন তারা। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ হায়াৎ মাহমুদ বলেন, এই ওল চাষ সম্প্রসারণে আমরা কৃষকদের উৎসাহিত ও উদ্বুদ্ধকরণের চেষ্টা করছি ও নানাভাবে পরামর্শ দিচ্ছি। মাদ্রাজি ওল চাষে লাভ বেশি হওয়ায় উপজেলায় দিন দিন বাড়ছে এই ওল চাষ। এ বছর উপজেলায় ১০ হেক্টর জমিতে ওল চাষ হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640