1. nannunews7@gmail.com : admin :
May 19, 2024, 2:01 pm

কুষ্টিয়ায় রথ মেলায় কোটি টাকার সফল ব্যবসা

  • প্রকাশিত সময় Friday, July 1, 2022
  • 76 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥  হিন্দু সম্প্রদায়ের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব রথ যাত্রা কুষ্টিয়ায় অনুষ্টিত হয়েছে। এ রথ যাত্রাকে কে কেন্দ্র করে শহরে গড়ে উঠেছিল বৃহৎ রথ মেলা। করোনা মহামারির কারনে গত ২ বছর এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়নি। এবারের মেলায় গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী খাদ্য সামগ্রী খই, মুড়ি-মুড়কি, গৃহসহ বিভিন্ন সামগ্রী বেচা বিক্রি হয়েছে। এক দিনের এ মেলায় এবার কোটি টাকার ওপরে বেচা বিক্রি হয়েছে বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছে। তবে শুক্রবার ছুটির দিন হওয়ায় সকালের দিকে দোকান ও মেলায় আসা দর্শনার্থাদের উপ¯ি’তি কম ছিলো বলে জানায় ব্যাবসায়ীরা। সরেজমিনে দেখা যায়, হিন্দু ধর্মীয় উৎসব রথ যাত্রা প্রতি বছরের মত এবারও কুষ্টিয়া শহরের শ্রী শ্রী গোপিনাথ জিউর মন্দির রথ খোলা মোড়ে অনুষ্ঠিত হয়। আর এ রথ যাত্রাকে কেন্দ্র গড়ে উঠেছিল বিভিন্ন সামগ্রীর মেলা। এবারও শহরের সরকারী বালিকা বিদ্যালয় সামনে থেকে শুর“ করে রাজার হাট মোড় পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার পথ জুড়ে বসেছিল মেলা। মেলা কেন্দ্রে শুক্রবার সকাল থেকে শুরু হয়েছিল স্থান দখলের চেষ্টা। আর এতে শহরে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। অতিরিক্ত নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা সারা দিন ব্যাপক নিরাপত্তার মধ্যে রেখেছিল রথযাত্রা প্রাঙ্গন। শতশত নারী-পুর“ষ বিভিন্ন জিনিস কিনতে ভীড় করে মেলায়। তবে খই মুরকী এবং মহিলাদের প্রসাধনী ও বা”চাদের বিভিন্ন খেলনার কদর ছিল খুবই বেশি। খেলনা গুলোর মধ্যে ছিল ঠেলা লাঠি গাড়ী, ঝাঁড় বাতি, বাঁশি, মাটির তৈরি পশু-পাখি, ব্যাংক, পুতুল, শো-পিচ সহ বিভিন্ন সামগ্রী।

এবার প্রায় পাচ শতাধিক বিভিন্ন দোকান গড়ে উঠেছিল এ মেলা কেন্দ্রে। মেলায় খাদ্য সামগ্রীর মধ্যে বেশি বিক্রি হয়েছে খই, মুড়ি, মুরকি, ছাঁচ মিষ্টি, জিলাপি, খুড়মা, পাঁপড় সহ খাদ্য সামগ্রী। ভুট্রার খই প্রতি কেজি বিক্রি হয়েছে ১২০-১৫০ টাকা কেজি, ছাঁচ মিষ্টি ১৩০-১৫০ টাকা কেজি , খুরমা ১৩০-১৫০ টাকা কেজি , জিলাপি ১৩০-১৫০ টাকা, মুরকি ১২০-১৪০, কদমা ১২০-১৪০, দানাদার ১২০-১৪০ টাকা টাকা। হরিনারায়নপুর থেকে আসা খই-মুরকি ব্যবসায়ি ফজলু বেচা বিক্রি ভালোই হচ্ছে বলে তিনি জানান। চুয়াডাঙ্গার আলম ডাঙ্গা থেকে আসা বাশের সামগ্রী ব্যাবসায় সোহাগ জানান কুষ্টিয়ায় অনেক বড় রথের মেলা হয় একারণে আমরা এসেছি।

হরিনারায়নপুর থেকে আসা জিলাপী ব্যাসায়ী কমল কুন্ড জানান, বেচাকেনা হচ্ছে তবে ছুটির দিনের কারনে সকালের দিকে লোকসমাগম একটু কম। রাতে বেচাকেনা বাড়তে পারে বলে তিনি জানান। তার মত আরও অনেকে ব্যবসায়ী বিভিন্ন স্থানে বস্তা Ÿস্তা খই বিক্রির জন্য এখানে নিয়ে এসেছিলেন। শুধু খই না এ রকম অনেক খাবার জিনিস বিক্রি হয়েছে মেলায়। এদিকে খাবার জিনিস বাদে অনেকে ছিলেন কাঠের তৈরি খাট, চেয়ার,টেবিল, ছোপা সহ প্রয়োজনীয় অনেক কিছু কিনতে ভোলেননি। তবে মহিলাদের বেশী কিনতে দেখা যায় সংসারের জন্য প্রয়োজনীয় বটি, কুলা, মোড়া, পিঠা তৈরির ছাঁচ ইত্যাদি। অনেক ক্রেতা জানান, এখানে অনেক ধরনের জিনিস আসে যে জিনিস অন্য সময় কিনতে পাওয়া যায় না। যার ফলে আমরা এ মেলা থেকে এসব কিনতে আসি। এদিকে ব্যবসায়িরা জানান, তারা সারা বছর বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত থাকলেও রথ মেলার সময়  সামান্য পুঁজি নিয়ে এখানে ব্যবসা করার সুযোগ পান। আগামি ৮ জুলাই উল্টো রথের মাধ্যমে রথ মেলা শেষ হবে। যদি বৃষ্টি না হয় তাহলে এ মেলায় ক্রেতাদের উপস্থিতি বেশি থাকবে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640