1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 24, 2024, 9:51 am

সমসাময়িক রাজনীতি ও আগামী নির্বাচনে দলীয় প্রস্তুতি বিষয়ে মাছরাঙ্গা টেলিভিশনকে দেয়া স্বাক্ষাতকার জোর করে জনসমর্থন আদায় করা যায় না, মানুষের কল্যাণে কাজ করতে হয়ঃ আতাউর রহমান আতা

  • প্রকাশিত সময় Monday, May 23, 2022
  • 103 বার পড়া হয়েছে

কুষ্টিয়াসহ দেশের সমসাময়িক রাজনীতি এবং আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলীয় প্রস্তুতি বিষয়ে মাছ রাঙ্গা টেলিভিশনে এক স্বাক্ষাতকার দিয়েছেন আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপির অনুজ, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও পৌর আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা। স্বাক্ষাতকারটি গ্রহন করেছেন কুষ্টিয়ার কাগজ’র বিশেষ প্রতিবেদক ও মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের কুষ্টিয়া প্রতিনিধি তাশরিক সঞ্চয়।
প্রশ্নঃ বর্তমান কুষ্টিয়ার রাজনীতি নিয়ে আপনার ভাবনা কি?
আতাঃ আপনাকে ধন্যবাদ। আমি শুরুতেই মহান মুক্তিযুদ্ধে সকল শহীদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। শ্রদ্ধা নিবেদন করছি ৭৫’র ১৫ আগষ্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ সকল শহীদের প্রতি। আসলে ইতিহাসে কুষ্টিয়াকে মুক্তিযুদ্ধের সুতিকাগার বলা হয়ে থাকে। এটা সত্যি যে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন বাংলার প্রথম অস্থায়ী সরকার গঠন করে মুক্তিযুদ্ধকে সঠিক ভাবে পরিচালনা করার পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু তেমন কোন নির্ভরযোগ্য জায়গা পাওয়া যাচ্ছিল না। তাই তার সিন্ধান্ত অনুযায়ী ১৯৭১ সালের ১০ এপ্রিল মুজিব সরকার গঠন করা হয় এবং ১৭ই এপ্রিল সাবেক বৃহত্তর কুষ্টিয়া মেহেরপুর মুজিব নগর আ¤্রকাননে মুজিব নগর সরকার শপথ গ্রহন করে। এর মধ্যে দিয়ে প্রমাণ হয় মুক্তিযুুদ্ধে কুষ্টিয়ার একটি গুরুত্বপুর্ণ ভুমিকা রয়েছে। এখানকার রাজনীতি এবং রাজনৈতিক নেতৃত্ব গড়ে উঠেছিল সে আঙ্গিকে। কিন্তু দুর্ভাগ্য জনক হলেও সত্য যে ৭৫’র ১৫ আগষ্টে নৃশংস ঘটনার পর এ জেলায় স্বচ্ছ রাজনৈতিক পরিবেশ গড়ে উঠতে পারেনি। ৮০’র দশকে জাতীয়তাবাদী শক্তির সাথে মৌলবাদী জামায়াত পন্থী রাজনীতি এ জেলায় গোড়া পত্তন করে ফেলে। সে কারণে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি খুব একটা জায়গা করতে পারেনি। ফলে নির্বাচন এলেই জাতীয়তাবাদী, মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী শক্তি এখানে নির্বাচিত হয়েছেন। আর নির্বাচিত ব্যক্তিরা জেলার উন্নয়নের পরিবর্তে নিজ ও দলের উন্নয়নের কথাই বেশি ভেবেছেন। করেছেনও তাই। অথচ এখানে প্রয়োজন ছিল প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী উন্নয়ন করে একটি স্বচ্ছ রাজনৈতিক মাঠ তৈরির। ২১ বছর পর আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসলেও কুষ্টিয়া জেলার একটি আসনেও আওয়ামীলীগ প্রার্থী বিজয় হতে পারেনি, হতে দেয়া হয়নি। অবশেষে ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিপুল ভোটে কুষ্টিয়ার চারটি আসনেই মানুষ নৌকার প্রার্থীকে বিজয় করেছে শুধু সন্ত্রাস, মাদক মুক্ত কুষ্টিয়া গড়ার পাশাপাশি প্রতিশ্রুতিবদ্ধ উন্নয়ন ঘটাতে। লক্ষ্য করবেন, জননেতা মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি দলের একটি গুরুত্বপুর্ণ দায়িত্ব পাওয়ার পর পর কুষ্টিয়ায় নির্বাচিত সংসদ সদস্য হন। তিনি প্রথমেই ২০০৮ সালের নির্বাচনে দলীয় প্রতিশ্রুতির দিকে গুরুত্ব দেন। হাল ধরেন উন্নয়নের। তখন থেকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ, হরিপুর সংযোগ সেতু, বাইপাস সড়ক, ফোরলেন, আধুনিক সুইমিং পুল, শিল্পকলা একাডেমী। শেখ কামালা ষ্টেডিয়ামসহ অনেক উন্নয়ন এখনও চলমান। সে প্রেক্ষাপট মাথায় রেখে মানুষ এখন কি চায় তা দলীয় নেতা কর্মিদের বুঝতে হবে। কুষ্টিয়ার উন্নয়নের চিত্র তাদের সামনে তুলে ধরতে হবে, তৃণমুলের নেতা কর্মিদের দেশপ্রেম, স্বচ্ছ রাজনৈতিক চর্চ্চায় আত্মনিয়োগ ঘটাতে হবে। শহর থেকে গ্রামের উন্নয়নেও ভুমিকা রাখতে হবে। সন্ত্রাস, মাদককে জিরো টলারেন্সে আনতে হবে। আমি মনে করি আমাদের প্রত্যোক রাজনৈতিক নেতার এটাই ভাবনা হওয়া উচিত।
প্রশ্নঃ আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে আপনার ভাবনা কিঃ
আতাঃ খুব স্পষ্ট। সরকারের উন্নয়নের চিত্র গণমানুষের সামনে তুলে ধরতে হবে। পাশাপাশি মানুষকে বোঝাতে হবে শুধু ক্ষমতার জন্য রাজনীতি নয়, দেশপ্রেম, উন্নয়ন, সকল মানুষের অংশগ্রহনমুলক উন্নয়নে দেশকে এগিয়ে নিতে হবে। আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমি একজন আওয়ামীলীগের ক্ষুদ্র সৈনিক হিসেবে মনে করি আওয়ামীলীগ, উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, মহিলা আওয়ামীলীগসহ সকল অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মিদের ঐকব্যবদ্ধ হয়ে এক সঙ্গে কাজ করতে হবে। জেলার উন্নয়ন, মানুষের উন্নয়নের জন্য কাজ করতে হবে। সন্ত্রাস, মাদক, দুনীতিকে প্রশ্রয় না দিয়ে সাধারণ মানুষের জন্য যতটুকো সম্ভব নিঃস্বার্থভাবে কাজ করতে হবে। কোন দলাদলি নয়, মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি এবং আত্মশুদ্ধিমুলক দিক নির্দেশনা নিয়ে, আত্মসমালোচনায় সময় না কাটিয়ে একটি সুন্দর পরিবেশ গড়ে তোলা। নারী, শিশু, যুবক, যুবতী, বৃদ্ধসহ সকল বয়সী মানুষকে উন্নয়নমুলক কাজে অংশগ্রহন করানো। শুধু শহরে বসে না থেকে তৃণমুল মানুষের কাছে যেতে হবে। তা হলেই দেখবেন এখানে একটি রাজনৈতিক পরিবেশ গড়ে উঠেছে এবং নির্বাচনে আওয়ামীলীগ আবারও বিজয় হয়ে নেতৃত্ব দিতে সক্ষম হবে বলে আমি বিশ^াস করি।
প্রশ্নঃ এখন পর্যন্ত মাঠে শক্ত কোন রাজনৈতিক বিরোধীদল আছে বলে বিশ^াস করেন।
আতাঃ আসলে মাঠ পর্যায়ে রাজনৈতিক কর্মকান্ডই প্রমান করে মাঠে বিরোধী দল আছে। বিএনপিকেই যদি ধরা যায় তারা আসলে কি চায়। তারা কি আসলেই নির্বাচন চায়। তা হলে নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিয়ে তাদের নেতা-কর্মিদের নির্দেশনা দিয়ে মাঠ পর্যায়ে কাজ করার নির্দেশ প্রদান করুক। দেশের মানুষ জানে বিএনপির নিজেরই কোন দিক নেই। বরং নির্বাচনকে প্রতিহত করতে এখুনি তারা প্রস্তুতি নিচ্ছে। তাদের নেতা কর্মিদের কথা বার্তা শুনে তাই মনে হচ্ছে। এ প্রসঙ্গে আওয়ামীলীগের প্রস্তুতি বিষয়ে বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন ও অগ্রগামীর বাংলাদেশকে ২০৪১ সালের ভিশনকে বাস্তবায়নে সহায়তা করা। জননেতা মাহবুবউল আলম হানিফ এমপির হাতকে শক্তিশালী করতে কুষ্টিয়া পৌর, সদর ও জেলা আওয়ামীলীগ এক ও ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। কেননা আওয়ামীলীগ বিশ^াস করে জোর করে জনসমর্থন আদায় করা যায় না, উন্নয়ন, মানুষের কল্যাণ করে জনসমর্থন আদায় করতে হয়। আমাদের লক্ষ্য সে দিকে। আপনাকে ধন্যবাদ। জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640