1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 16, 2024, 7:35 am

বিপুল অর্থে গ্রেনাডার নাগরিক হয়েছিলেন পি কে হালদার!

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, May 18, 2022
  • 73 বার পড়া হয়েছে

অর্থপাচার সংক্রান্ত মামলা থেকে পালিয়ে বাঁচতে বিপুল পরিমাণ টাকার বিনিময়ে ক্যারিবিয়ান দ্বীপরাষ্ট্র গ্রেনাডার নাগরিকত্ব নিয়েছিলেন হাজার কোটি টাকার অর্থ আত্মসাৎ মামলার মূল অভিযুক্ত প্রশান্ত কুমার (পি কে) হালদার। ভারতীয় গোয়েন্দা সূত্র এ খবর জানিয়েছে।
ভারতের পশ্চিমবঙ্গের অশোকনগর থেকে গ্রেফতার পি কে হালদার ও তার সহযোগীদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে গ্রেনাডার পাসপোর্ট। পি কে ভারতে বেনামে কোম্পানিও খুলেছিলেন বলে ভারতের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা ইডি মঙ্গলবার রাতে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে।
জানা গেছে, বাংলাদেশে অর্থ আত্মসাৎ মামলা থেকে বাঁচতে বিপুল পরিমাণ অর্থ দিয়ে গ্রেনাডার নাগরিকত্ব নিয়েছিলেন পি কে হালদার। এই অর্থের পরিমাণ কত এবং এই নাগরিকত্ব তিনি বাংলাদেশে থেকে নাকি ভারতে বসে নিয়েছিলেন তা জানার চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা। এর পাশাপাশি গ্রেনাডার নাগরিকত্ব ও পাসপোর্ট নিতে পি কে হালদারকে কারা সাহায্য করেছিলেন তাও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।
ক্যারিবিয়ান দ্বীপরাষ্ট্র গ্রেনাডা নিজ দেশের উন্নয়নের জন্য বিপুল পরিমাণে আর্থিক সাহায্য নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের নাগরিকত্ব প্রদান করে থাকে। ২০১৭ সালের জুন মাসে দেশটির সংসদে বিনিয়োগের ভিত্তিতে ভিন্ন দেশের নাগরিকত্ব প্রদান আইনটি পাস হয়। তারপর থেকেই গ্রেনাডা এখন পর্যন্ত ১ হাজার ৩০০ জনকে এই সুবিধার আওতায় নাগরিকত্ব দিয়েছে। নাগরিকত্ব দ্বৈত পাওয়া যায় এই সুবিধা বলে।
গ্রেনাডার পাসপোর্টে চীন, যুক্তরাজ্যসহ বিশ্বের ১৪২টি দেশে ভিসামুক্ত প্রবেশের সুযোগ রয়েছে। গ্রেনাডার এই পাসপোর্টে যুক্তরাষ্ট্রের ই২ ভিসা সহজেই পাওয়া যায়।
গ্রেনাডায় রিয়েল এস্টেটের ব্যবসায় ২ লাখ ২০ হাজার ইউএস ডলার বিনিয়োগ করলে আবেদনকারীসহ তার পরিবারের ৩ জন নাগরিক হতে পারেন। এছাড়াও অফেরতযোগ্য সরকারি তহবিলে একজনের নাগরিকত্বের জন্য ১ লাখ ৫০ হাজার ইউএস ডলার এবং আবেদনকারী ও তার পরিবারের ৩ সদস্যের জন্য ২ লাখ ইউএস ডলার প্রদান করলেই তিন মাসের মধ্যে পাসপোর্টসহ নাগরিকত্ব দেওয়া হয়। এর জন্য আবেদনকারীর বয়স ১৮ বছর হলেই হবে। তার অপরাধ সংক্রান্ত রেকর্ড থাকা জরুরি নয়।
নাগরিকত্ব পেতে গেলে গ্রেনাডার অভিবাসন দফতরে সাক্ষাৎকারের কোনও প্রয়োজন নেই। দেশটির ভাষা জানারও দরকার নেই। শিক্ষাগত যোগ্যতা ও কাজের অভিজ্ঞতা না থাকলেও চলবে। যে টাকার বিনিময়ে নাগরিকত্ব মিলবে তার উৎস জানানোরও প্রয়োজন নেই। দেশটিতে কোনও বাসস্থান না থাকলেও চলবে।
জানা গেছে, গ্রেনাডার পাসপোর্ট নেওয়ার জন্য অভিযুক্ত পি কে হালদার দেশটির কোন খাতে বিনিয়োগ করেছিলেন তা জানার চেষ্টা করছেন গোয়েন্দারা। যদি রিয়েল এস্টেটে বিনিয়োগ হয়ে থাকে তাহলে তা বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ১ কোটি ৯২ লাখ ৪২ হাজার ৯৭১ টাকা।
অপরদিকে, অফেরতযোগ্য সরকারি তহবিলে বিনিয়োগ হয়ে থাকলে তার পরিমাণ ১ কোটি ৩১ লাখ ২০ হাজার ২০৭ টাকা। এ ক্ষেত্রে তিনি একাই নাগরিকত্ব নিয়েছিলেন নাকি তার পরিবারের অন্য সদস্যরাও এই সুযোগ নিয়েছিল, তাও জানার চেষ্টা হচ্ছে। এই বিপুল পরিমাণ টাকা কোথায় লেনদেন হলো তাও জানার চেষ্টা চালাচ্ছেন গোয়েন্দারা। এমনটাই সূত্রের খবর।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640