1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 21, 2024, 5:14 am
শিরোনাম :
গানবাজনা ও গাজীর গান বর্জনের নির্দেশনা দিলেন পাটিকাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান কোটি টাকা আত্মসাতে কুষ্টিয়া শহর  সমাজ সেবা অফিসার জহিরুল ইসলামের সাজা বদলি কুষ্টিয়াসহ দক্ষিণাঞ্চলে হাহাকার স্তর নেমে যাওয়ায় শুস্ক মৌসুমে পানি শুন্য কুষ্টিয়া কুষ্টিয়ার মিরপুরে অস্ত্রসহ আটক ভেড়ামারায় আবারও অগ্নিকান্ডে পুড়ে ছাই হলো ৫০ বিঘা পানের বরজ জেলা পরিষদের শূন্য হওয়া সদস্য পদে নির্বাচন করবেন আওয়ামী লীগ নেতা পান্না বিশ্বাস টানা চারদিন দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গায়, হিট এলার্ট জারি পাহাড়ে সম্ভাবনাময় কফি-কাজুবাদাম চাষে সরকারি প্রকল্প একীভূত হতে যাওয়া পাঁচ দুর্বল ব্যাংকের খেলাপি ঋণ ২৫ হাজার কোটি টাকা উপজেলা নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও কমিটি গঠন বন্ধ থাকবে : ওবায়দুল কাদের

জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে কুষ্টিয়া জেলা আওয়ামীলীগের আলোচনা সভা

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, May 17, 2022
  • 69 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ জননেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৭ই মে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষ্যে গতকাল কুষ্টিয়অ জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়েছে।

জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি হাজী রবিউল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন কুষ্টিয়া দৌলতপুর আসনের সাবেক সংসদ সদস্য রেজাউল হক চৌধুরী, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আজগর আলী, শহর আওয়ামীলীগের সভাপতি তাইজাল আলী খান, সাধারণ সম্পাদক আতাউর রহমান আতা, সদর উপজেলা আওয়ামীলীলীগের সভাপতি আ স আখাতারুজ্জামান মাসুম, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক, জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জেব উন নেসা সবুজ, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ হাফিজ চ্যালেঞ্জ প্রমুখ। সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৮৩ সালের এই দিনে জননেত্রী শেখ হাসিনা ও তার ছোট বোন শেখ রেহেনা পিতা-মাতা- ভাই হারানোর বেদনা বুকে নিয়ে ঢাকা ধানমন্ডির ৩২ নং বাড়ীর সামনে আশ্রয় নিয়েছিলেন। ৭৫’র ১৫ আগষ্ট খুনি জিয়ার নেতৃত্বে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার পর খুনি জিয়া বিদেশে থাকা তার দুই কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনাকে দেশে আসতে দেয়নি এমনকি পিতা-মাতার লাশ দেখার সুযোগও দেয়নি। অবশেষে যখন দেশে ফিরে আসে তখনও তাদেরকে নানা ভাবে প্রতিহত করার চেষ্টা করে। অবশেষে জননেত্রী শেখ হাসিনা মানুষের ভালোবাসা নিয়ে নিজের পৈত্রিক বাড়ীতে আশ্রয় নেন। মানুষের মুক্তির জন্য তিনি দলের দায়িত্ব হাতে নেন। এর পর থেকে দেশব্যাপী মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার নিয়ে কথা বলতে শুরু করেন। বাংলাদেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত পর্যন্ত ১৯৯১ সাল পর্যন্ত স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন সংগ্রাম করে অবশেষে মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করলেও ভোট কারচুপিতে বিএনপি ক্ষমতায় চলে যায়। বিএনপি ক্ষমতায় অধিষ্টিত হয়ে মানুষের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার পরিবর্তে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য মুল্য বৃদ্ধি, সিন্ডিকেট, হত্যা, খুন, সন্তাস সৃষ্টি করে দেশব্যাপী মানুষের স্বাভাাবিক জীবনকে বিনষ্ট করে তোলে। জননেত্রীর নেতৃত্বে শুরু হয় দেশব্যাপী বিএনপি-জামায়াত জোটের বিরুদ্ধে আন্দোলন সংগ্রাম। অবশেষে ১৯৯৬ সালে দীর্ঘ ২১ বছর আওয়ামীলীগ আবারও সরকার গঠন করে একটি উন্নয়নশীল বাংলাদেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ করেন। বিএনপি-জামায়াত জোট এবার ভোট ইঞ্জিনিয়ারিং’র মাধ্যমে আওয়ামীলীগকে পরাজিত করে ২০০১ সালে সরকার গঠন করে সারাদেশে আওয়ামীলীগের নেতা কর্মিদের উপর নির্বিচার অত্যাচার শোষণ শুরু করে। ২০০৪ সালে বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে সন্ত্রাস বিরোধী সমাবেশে জননেত্রী শেখ হাসিনার গ্রেনেড হামলা করে তাকে হত্যার চেষ্টা করে আল্লাহর অশেষ রহমতে নেত্রী বেঁচে গেলেও আওয়ামীলীগের বর্ষিয়ান নেত্রী আইভি রহমানসহ অনেকে প্রাণ হারান। আবার অনেকে দেহে গ্রেনেড হামলায় আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরণ করে। অবশেষে বাংলাদেশের মানুষের প্রতিবাদী কন্ঠস্বর জেগে উঠে ২০০৮ সালে নির্বাচনে আওয়ামীলীগ বিপুল ভোটে বিজয়ী হয় এবং জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার গঠন করেন। এর পর থেকে দেশ এগিয়ে চলছে। আজকে বাংলাদেশ উন্নত থেকে উন্নততর এবং উন্নয়নশীল দেশের সারিতে স্থান করে নিয়েছে। আমরা জননেত্রীর দীর্ঘায়ু কামনা করে মহান আল্লাহপাক যেন আরও হায়াত দান করেন তিনি যেন এ দেশের সকল মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে পারে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640