1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 24, 2024, 9:57 am

  বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মদিনে ॥ সেলাই মেশিন, নগদ টাকা দেয়া হচ্ছে জামায়াত শিবির কর্মিসহ কুষ্টিয়া জেলা ব্যতিত অন্যখানে

  • প্রকাশিত সময় Saturday, August 7, 2021
  • 184 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ আজ ৮ই আগষ্ট। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মীনি বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৭২ তম জন্মবার্ষিকী। এ দিনটিকে যথাযোগ্য মর্যাদায় উদযাপনের জন্য সরকারী, বে-সরকারী, শ^ায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান ব্যাপক কর্মসুচী হাতে নিয়েছে। বঙ্গমাতার এ জন্মদিনে কুষ্টিয়া জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী বিএনপি, জামায়াত-শিবির ক্যাডারদের আত্মীয় স্বজন এবং বরাদ্ধকৃত কুষ্টিয়া জেলা ব্যতিত বিধি বর্হিভুত ভাবে চুয়াডাঙ্গা জেলার বাসিন্দাকে সেলাই মেশিন, নগদ টাকা বিতরণের তালিকা প্রদান করে জেলা প্রশাসকের কাছে হস্তান্তর করেছেন বলে একটি নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা গেছে। আজ সকালে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সভা কক্ষে এসব সামগ্রী বিতরণ করা হবে বলে জানা গেছে।

জানা যায়, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া কুষ্টিয়া জেলায় ৪২ জন অসহায়, অস্বচ্ছল মহিলার জন্য সেলাই মেশিন এবং ৩০ জনকে জনপ্রতি ২ হাজার করে নগদ ৬০ হাজার টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে।

সুত্রে জানা যায়, আজ ৮ আগষ্ট বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে সারাদেশের অসহায়, দুস্থ্য, পিছিয়ে পড়া নারীদের জন্য মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক সেলাই মেশিন ও নগদ টাকা বিতরণের জন্য গত ২৮ জুন ৫৬৪ নম্বর স্বারকে কুষ্টিয়া জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের কাছে জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যানসহ জনপ্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা স্বাপেক্ষে তালিকা প্রস্তুত করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রেরণের জন্য একটি পত্র প্রেরণ করা হয়। পত্র প্রাপ্তির পর বিধি অনুযায়ী প্রশাসন, সকল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সংসদ সদস্য, জনপ্রতিনিধিদের সাথে আলোচনা করে উপজেলা ভিত্তিক বিভাজন করে একটি সঠিক তালিকা প্রস্তুত করবে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর। কিন্তু জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস উক্ত চিঠিটি গোপনে রেখে কাউকে কিছু না জানিয়ে, নিজের ইচ্ছেমত একটি কাগজে উপজেলা বিভাজন করে গোপনে তালিকা প্রস্তুুত করে নিজের কাছেই বিভাজন পত্রটি রেখে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে উপজেলা মহিলা বিষয়ক অধিপ্তরের প্রোগ্রাম অফিসার মর্জিনা খাতুন জানান, এ ব্যাপারে উপ-পরিচালক আমাদের সাথে কোন আলাপ-আলোচনা না করেই সব কিছু গোপনে রেখেছেন। যখন বিভাজন পত্রটি ফাঁস হয়ে যায় তখন তিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেবের কাছে নাম চেয়েছেন। এর পর বিষয়টি দৃষ্টিতে আসে। এর আগে তিনি কবে, কোথায়, কিভাবে তালিকা প্রস্তুত করেছেন সে বিষয়ে অফিসের কারোর সাথে আলাপ-আলোচনা করেননি বলে তিনি জানান। এ ঘটনা ফাঁস হওয়ার পর কুষ্টিয়ার কাগজ থেকে অনুসন্ধানী প্রতিবেদক অনুসন্ধান করে জানতে পারেন, উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস প্রকৃত পক্ষে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার জন্মদিনে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ৪২টি সেলাই মেশিন ৩০ জনের জনপ্রতি ৬০ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিপ্রায়ে নিজের তৈরি করা, কথিত একটি কাগজ সর্বস্ব তালিকা করে বরাদ্ধকৃত সেলাই মেশিন ও নগদ টাকাগুলো উত্তোলনের পর তা আত্মসাতের চেষ্টা করেছেন। উপ-পরিচালকের প্রেরিত তালিকায়, বিএনপি সমর্থক রাকিবের দুঃসম্পর্কের বোন চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার উজিরপুর এলাকার বাসিন্দা সোনিয়া খাতুনকে একটি  ও সদর উপজেলার সাবেক চেয়ারম্যান জামায়াতের নেতা মোশাররফ হোসেনের সময়কালীন চাকুরীতে যোগদানকারী জামায়াত পন্থী পরিবারের সদস্য, জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের হিসাব রক্ষক মিজানের আত্মীয় সদর উপজেলার ঝাউদিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা তাসনিয়া খাতুনকে একটি সেলাই মেশিন দেয়ার নাম রয়েছে। এ ছাড়াও আরও অনেক নাম রয়েছে যাদেরকে কেউ চেনে না, যারা আদৌও জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন কিনা তা জানা যায়নি। সুত্রটি জানায়, উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌসের চাকুরী হয়েছে ২০০১ সালে। বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের সময়। ছাত্রজীবনে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী রাজনীতির সাথে জড়িত থাকার মধ্যদিয়ে তিনি কুমারখালী থেকে এস, এস,সি এবং ঢাকা বদরুন্নেছা কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট এবং ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় থেকে মাষ্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন। পরবর্তিতে তিনি জামায়াত-বিএনপি কানেকটেড হওয়ায় ২০০১ সালে তার চাকুরী হয়। এর পর থেকে তাকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। কুমারখালীর বাসিন্দা হয়েও তিনি নিজ জেলায় পদায়ন হয়ে বহাল তবিয়তে চাকরী করে চলেছেন। চাকুরীতে আসার পর থেকে নানা অনিয়ম, দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়েন বলে অভিযোগ রয়েছে। এ সব বিষয়ে কথা বলতে উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌসের মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমি একজন সরকারী কর্মকর্তা। এটা ডিসি সাহেবের বরাদ্ধ। এখানে কোন রাজনৈতিক পরিচয়ের প্রয়োজন নেই। দুস্থ্য, অসহায় এবং আমাদের এখানে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হলেই তাকে সেলাই মেশিন, নগদ টাকা দেয়া যাবে। আর এই তালিকা প্রনয়ন  আমি করি না। তারপরও যদি তালিকাভুক্ত কোন নামের বিপরিতে অভিযোগ থাকে তা হলে সেটি বাতিল করা যাবে, যেহেতু এখনও বিতরণ হয়নি। তার রাজনৈতিক পরিচয় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আপনি আমার এলাকা কুমারখালীতে খোঁজ নেন, আমি কোন পরিবারের, কোন আদর্শের মেয়ে, আমার পরিবারের সকলে আওয়ামীলীগ করে, আমরা নৌকায় ভোট দেই,। এদিকে বঙ্গমাতার জন্মদিনে জামায়াত-শিবির ক্যাডার আর কুষ্টিয়া ব্যতিত অন্য জেলার মানুষের মধ্যে সেলাই মেশিন, নগদ টাকা বিতরণের খবরে আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মিরা বিক্ষুদ্ধ হয়ে উঠেছে। আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা কর্মি এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে, অবিলম্বে ওই তালিকা বাতিল করে উপ-পরিচালক নুরে সফুরা খাতুনের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানিয়েছেন।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640