1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 10:58 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

বিছানাশুন্য হচ্ছে হাসপাতাল ॥ গভীর রাতের কাঁন্না কেউ শোনে না কুষ্টিয়ায় করোনায় ৫শ ৯০ জনের প্রাণহানি

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, August 4, 2021
  • 187 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ গত ২৪ ঘণ্টায় কুষ্টিয়ায় করোনা ও উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন আরও সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। এই নিয়ে জেলায় ৫শ ৯০ জনের প্রাণ হানি ঘটলো। বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. বদুল মোমেন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এদিকে কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে এখন শুধু মাত্র করোনা আক্রান্ত ও উপসর্গ নিয়ে রোগীদের চিকিৎসা সেবা প্রদান করায় মেডিসিন, সার্জারী, গাইনী, অর্থোপেডিকস, শিশু রোগীরা ডায়াবেটিক হাসপাতাল, আদ্বদীনসহ বিভিন্ন জায়গায় শুধু মাত্র আউটডোরে চিকিৎসা নিচ্ছেন। এতে কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে এখন আর ওই সকল বিভাগের রোগী ও অভিভাবকদের ভিড় নেই। এতে আগে আড়াইশ শর্য্যার হাসপাতালে রোগী ভর্তি থাকতো প্রায় ৫শর অধিক এখন সেখানে গতকাল মাত্র ২২৭ জন ভর্তি ছিল। এক প্রকার রিলেক্স মুডেই চিকিৎসক, নার্সরা সময় কাটাচ্ছেন। বাড়তি কোন ঝামেলা নেই। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জুন মাসের প্রথম দিকে প্রতিদিন প্রায় ৩শর অধিক রোগী ভর্তি থাকতো। এখন সেখানে মাত্র ২২৭ জন। এর মধ্যে গড়ে প্রতিদিন ১০ জন করে রোগী মৃত্ব্যবরণ করায় ক্রমান্বয়ে হাসপাতালের বিছানা শুন্য হতে থাকে। এখন এ শুন্যতা আরও বাড়ছে। আর বেশির ভাগ মারা যান রাতে। দিনের আহজারি চিকিৎসক, নার্স, স্বজনদের কানে গেলে গভীর রাতে করোনায় আক্রান্ত রোগীর কাঁন্না কারও কানেই যায় না। তাই মৃত্ব্যর মিছিল কমানো যাচ্ছে না অভিযোগ রোগীর স্বজনদের।

জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৮৯টি নমুনা পরীক্ষায় ১৪৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তদের মধ্যে কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় ৭৪ জন, কুমারখালী উপজেলায় পাঁচ, দৌলতপুরে ১১, ভেড়ামারায় ১০, মিরপুরে ২১, খোকসায় ২২ জন।  নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার ৩৬.৭৬ শতাংশ হয়েছে। এই সময়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২০৮ জন। এদিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের ২০০ বেডে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে এখন ভর্তি আছে ২২৭ জন। তাদের মধ্যে করোনা শনাক্ত রোগী ১৮৮  জন। বাকিরা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন। ৭০ শতাংশ রোগীর অক্সিজেন প্রয়োজন হচ্ছে। গত সাত দিনেই কুষ্টিয়ায় করোনা আক্রান্ত ৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং এক হাজার ৩৭০ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত শুধু করোনা আক্রান্ত ৫৯০ জনের মৃত্যু হলো।

জানা যায়, ৪ আগষ্ট কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ড থেকে সুস্থতার ছাড়পত্র পান আটজন করোনা রোগী। একই দিন হাসপাতালের ওয়ার্ডে মারা গেছেন ১৯ রোগী। এর মধ্যে করোনা পজিটিভ ছিল ১৫ জনের, বাকিদের মৃত্যু ঘটেছে করোনার উপসর্গ নিয়ে। জেলার অন্য তিনটি উপজেলা হাসপাতালে মারা গেছেন আরও তিনজন। সব মিলিয়ে গতকাল এক দিনেই জেলায় প্রাণ গেছে ২২ জনের। এর আগের দিনও কুষ্টিয়া হাসপাতালে মৃত্যু ঘটেছে ১১ জনের।

এভাবে মৃত্যুর পর মৃত্যুতে হাসপাতালের ওয়ার্ডগুলোর বিছানা শুন্য হচ্ছে। যত রোগী সুস্থ হচ্ছেন, মারা যাচ্ছেন তার চেয়ে বেশি। এসব কারণে কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড জেনারেল হাসপাতালে এখন রোগীর চাপ আগের তুলনায় কম। আগে বারান্দা ও ওয়ার্ডের ফাঁকা জায়গায় মেঝের ওপরে রোগী থাকলেও এখন সবাই বেডেই আছেন। সেন্ট্রাল অক্সিজেন সুবিধাও পাচ্ছেন বেশির ভাগ রোগী। সিলিন্ডার সরবরাহের ক্ষেত্রেও কোনো সমস্যা নেই। তবে কোনো কিছুর কমতি না থাকলেও মৃত্যুর মিছিল থামছে না।

রোগীর স্বজনরা বলছেন, এ পরিস্থিতির জন্য দায়ী হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা। বেশির ভাগ রোগীই মারা যাচ্ছেন ভোরের দিকে। বিশেষ করে ৩টা থেকে ৫টার মধ্যে।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল ঘুরে দেখা গেছে, জরুরী বিভাগে রোগী ভর্তির কোনো চাপ নেই। ট্রলিগুলোও বলতে গেলে শূন্য পড়ে আছে। ১৫ দিন আগেও যেখানে গড়ে দিনে ৫০ থেকে ৬০ জন রোগী ভর্তি হতেন, সেখানে এখন ২৪ ঘণ্টায় রোগী ভর্তি হচ্ছেন ২৫ থেকে ৩০ জন। ২০০ বেডের বিপরীতে এখন সব মিলিয়ে ভর্তি রয়েছেন ২২৭ জনের কাছাকাছি।

হাসপাতালের পরিসংখ্যান কর্মকর্তা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ছাড়পত্র পেয়েছেন আটজন। মারা গেছেন ১৯ জন। ভর্তি হয়েছেন ২৭ জন। এর আগের কয়েক দিনেও গড়ে ছাড়পত্র পেয়েছেন ১০ জনের বেশি রোগী। গত এক সপ্তাহে মারা গেছেন ১২০ জনের বেশি রোগী।

হাসপাতালের একাধিক সূত্র জানিয়েছে, রোগীর মৃত্যু কমার কোনো লক্ষণ নেই। বরং তা বাড়ছে। বেশিরভাগ রোগী রাতের বেলা মারা যাচ্ছেন। কারণ রাত ৩টার দিকে প্রায় সবাই ঘুমিয়ে যান। রোগীর স্বজনদেরও এ সময় চোখ বুজে আসে। রোগীরা এ সময় অনেক সময় মুখ থেকে অক্সিজেন মাস্ক খুলে ফেলেন বা খুলে যায়। এটা টের না পাওয়ার কারণে অক্সিজেনের অভাবেও কারও কারও মৃত্যু ঘটছে।

রোগীর স্বজনরা বলছেন, রাতের বেলা নার্স ও ডাক্তারদের কাউকে পাওয়া যায় না। অথচ রোগীরা অনেক সময় এলোমেলো আচরণ করেন। অক্সিজেন চলার পরও অনেকের স্যাচুরেশন কমতে থাকে। সে সময় কাউকে পাওয়া যায় না। অনেক ক্ষেত্রে চোখের সামনে অন্যদের মরতে দেখে অনেক রোগীও অসুস্থ হয়ে পড়ছেন।

আবির নামের এক রোগীর স্বজন জানান, তার এক রোগী হাসপাতালের ৯ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি ছিলেন। সিলিন্ডার অক্সিজেন ব্যবহার করতেন তারা। ভোর রাতের দিকে তাদের রোগীর অবস্থা হঠাৎ খারাপ হয়ে মারা যান। এ সময় ডাক্তার ছিলেন না। নার্সদের জানালে তারা বলেন, ডাক্তার ডাকেন, আমরা কিছু করতে পারব না।

আবিদা নামের এক নারী জানান, রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি যাচ্ছেন কম। এখন মরেই হাসপাতাল ফাঁকা হয়ে যাচ্ছে।

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ব্যর্থতার দায় নিতে নারাজ। তাদের দাবি, তারা নিজেদের সেরাটা দিয়েই চিকিৎসা দিচ্ছেন। এ প্রসঙ্গে ডা. আব্দুল মোমেন বলেন, বারবার একই অভিযোগ করলে ডাক্তার ও নার্সদের মনোবল ভেঙে যাবে। তারা কাজ করতে পারবেন না। আমরা চিকিৎসকরা এর থেকে আর ভালো কিছু করতে পারছি না। একই অভিযোগ বার বার করার চেয়ে প্রয়োজনে সাংবাদিকদেরই দায়িত্ব নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি। মৃত্যু হলে তো কিছু করার নেই।’ অক্সিজেন সংকট না থাকলেও লোকবল সংকট আছে বলে জানান তিনি।

অক্সিজেন বিভাগের এক কর্মী জানান, এখন সব মিলিয়ে তাদের ৬৫০টি সিলিন্ডার রয়েছে। রোগী কম ভর্তি থাকায় সিলিন্ডার এখন কম ব্যবহার হচ্ছে। ৩০০ সিলিন্ডার সব সময় রিজার্ভ থাকছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন চিকিৎসক বলেন, অক্সিজেনও অনেক সময় রোগীর মৃত্যুর কারণ হতে পারে। হঠাৎ করে একজন রোগী কম স্যাচুরেশন নিয়ে ভর্তি হয়ে হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা লাগালে তিনি আর অক্সিজেন নিতে পারেন না। এ সময় তার শরীরে ভেতর নানা পরিবর্তন হয়। সেগুলো দেখার মতো মেশিন এই হাসপাতালে নেই। এভাবে সঠিক চিকিৎসা না পেয়ে অনেকেই মারা যাচ্ছেন।

তিনি বলেন, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে যে সেন্ট্রাল অক্সিজেন লাইন আছে, তাতে ২০টির বেশি হাইফ্লো ন্যাজাল ক্যানুলা ব্যবহার করার মতো সক্ষমতা নেই। এদিকে ব্যবহার হচ্ছে তার চেয়ে বেশি। অনেক রোগীর ৬০ লিটারের মতো অক্সিজেনও লাগে। এসব লাইনে বেশি অক্সিজেন ব্যবহার হওয়ায় সাধারণ বেডের রোগীরা অনেক সময়ই অক্সিজেন কম পান। এ অবস্থায় অক্সিজেন লাইনে কোনো ত্রুটি আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।

 

এদিকে এক বছরেও হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা স্থাপন করতে পারেনি কর্তৃপক্ষ। চারটি বেড আছে। তবে জনবল নেই। কিন্তু প্রশিক্ষিত জনবল ছাড়া আইসিইউ চালু করলে হিতে বিপরীত হতে পারে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640