1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 19, 2024, 3:40 am
শিরোনাম :
কুষ্টিয়া লালন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাল্য বিয়ের নির্মম বলি কুষ্টিয়ার মিরপুরে নববধুর ঝুলন্ত লাশ হত্যা করে ঝুলিয়ে দেয়ার অভিযোগ পরিবারের মিরপুরের সাগরখালী আদর্শ ডিগ্রী কলেজ জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২৪ কুষ্টিয়া জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত কুষ্টিয়ার দৌলতপুর র‌্যাবের অভিযানে ২০ বোতল ফেনসিডিলসহ একজন মাদক কারবারি আটক পবিত্র ঈদুল আজহা কাল পরিত্যক্ত হলো ‘গুরুত্বহীন’ ভারত-কানাডা ম্যাচ আমরা আক্রান্ত হলে ছেড়ে দেবো না সেন্টমার্টিন নিয়ে ওবায়দুল কাদের পদ্মা সেতুতে একদিনে ৫ কোটি টাকা টোল আদায় সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী গাজার ত্রাণবহরে হামলা: ইসরায়েলি সংগঠনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালকের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, August 3, 2021
  • 196 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মীনি বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯১ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সারাদেশে অস্বচ্ছল, দরিদ্র মহিলাদের মাঝে বিনামুল্যে সেলাই মেশিন ও নগদ টাকা বিতরণ কর্মসুচী হাতে নিয়েছেন। সে লক্ষ্যে প্রতিটি জেলা ও উপজেলায় সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যান, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা মহিলা বিষয়ক উপ-পরিচালকদের বিশেষ নির্দেশনা দিয়েছেন। কিন্তু সে সব নির্দেশনাকে উপেক্ষা করে কুষ্টিয়া মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস নিজ উদ্যোগে গোপনে অস্বচ্ছল, দরিদ্র মহিলাদের পরিবর্তে স্বচ্ছল, স্বাবলম্বী, মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী, জামায়াতের নারী কর্মি, ছাত্রদল নেতা-কর্মিদের কাছ থেকে ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করে গোপনে তালিকা প্রণয়ন করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রেরণ করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

একটি নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা গেছে, কুষ্টিয়া জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস পাশ^বর্তি কুমারখালী উপজেলার বাসিন্দা। বৈবাহিক সুত্রে তিনি ডিসি কোর্টের সামনের বাসিন্দা আনোয়ার বন্দুক ঘরের পুত্র বধু। বর্তমানে তিনি ডিসি কোর্টের সামনে সিঙ্গার ভবনের দ্বিতীয় তলায় বসবাস করেন। খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়,  লেখাপড়া জীবনে তিনি মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। শিক্ষাজীবন শেষ করে সেই সুত্র ধরেই তার চাকুরী জীবনে প্রবেশ। সম্প্রতি তিনি রাজবাড়ী জেলা থেকে নিজ জেলা কুষ্টিয়ায় বদলী হয়ে এসেছেন। এখানে যোগদানের পর থেকে এই করোনা মহামারিতে দিনের পর দিন স্বেচ্ছাচারিতা করে চলেছেন। যেখানে করোনায় শহর, শহরতলী, গ্রামাঞ্চলে অসহায় নারীরা কর্মহীন, অসুস্থ্যতায়, খাদ্যভাবে দিনাতিপাত করছেন। তখন কুষ্টিয়া জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালকের কাছে প্রধামন্ত্রীর দেয়া অসহায়, পিছিয়ে পড়া, করোনায় আক্রান্ত নারীদের জন্য নগদ অর্থ, খাদ্য সহায়তা, চিকিৎসা সরঞ্জামসহ নানা সামগ্রী রয়েছে। কিন্তু তিনি মাঠ পর্যায়ে কোন তদন্ত না করে ঘরে বসে অফিসের হিসাব রক্ষক এক সময়ের শিবির ক্যাডার মিজানকে দিয়ে তালিকা প্রস্তুত করে নাম মাত্র বিতরণ করে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি করেছেন। যেহেতু সে কুষ্টিয়ার অফিস প্রধান তাই তার কাছে কোন কৈফিয়ত চাওয়ার কোন ব্যক্তি নেই। তিনি নিজের ইচ্ছায় চলেন, নিজের ইচ্ছায় অফিস করেন। সরকার এখন সব কিছু ডিজিটাইলস করার বিষয়ে সকল দপ্তরে তাগিদ দিচ্ছে। দাপ্তরিক কোন কাজই ম্যানুয়াল করা যাবে না মর্মে নিদের্শনাও রয়েছে। সেই সাথে প্রত্যাহিক কাজের বিবরণ, সেবার ধরণ, তালিকা, নোটিশসহ সকল কিছু নিজস্ব অফিসের ওয়েব পোর্টালে দেয়ার জন্য আইসিটি বিভাগের নির্দেশনা রয়েছে। কিন্তু ভিন্নমতাদর্শী কুষ্টিয়া মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস নিজের অফিসের ওয়েব পোর্টালের আপলোড, আপডেট কোন কিছুই নজর দেন না। তার নজির হিসেবে ‘কুষ্টিয়া জেলা মহিলা বিষয়ক উপ-পরিচালকের কার্যালয়ের’ ওয়েব সাইটে অফিস প্রধানের জায়গায়, এখনও উপ-পরিচালক তমান্নাজ খন্দকার ( অতিঃ দাঃ)  নাম রয়েছে। তিনি নিজে দায়িত্বে রয়েছেন অথচ ওয়েব সাইটে এখনও উপ-পরিচালক তমান্নাজ খন্দকার’ রয়েছে। শুধু তাই নয়, প্রতিষ্ঠান থেকে সবশেষ ২০১৮-১৯ সালে সেবা প্রদানের তালিকাই ঝোলানো রয়েছে। এর পর  আপডেট আর কোন কর্মসুচীর তালিকাও নেই,। এখানে শেষ নয়, আসছে আগামী ৮ আগষ্ট বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছার ৯১ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে অস্বচ্ছল, দরিদ্র মহিলাদের মাঝে সেলাই মেশিন ও নগদ টাকা বিতরণ কর্মসুচীকে সফল করতে জেলার সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যান, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সাথে আলাপ-আলোচনা করে যাছাই-বাছাইপুর্বক একটি নিরপেক্ষ তালিকা প্রণয়নের নির্দেশনা রয়েছে। তিনি সে নিদের্শনাকে উপেক্ষা করে কোন জনপ্রতিধিদের সাথে আলোচনা ছাড়াই জামায়াত, শিবির, ছাত্রদলের নারী, পুরুষ কর্মিদের কাছ থেকে ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করে নিজেই বরাদ্ধকৃত ৪২টি সেলাই মেশিনের বন্টন তালিকা করেছেন। সাথে ৩০ জনের নগদ জনপ্রতি ২ হাজার টাকার তালিকাও প্রনয়ন করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করেছেন। একটি নির্ভরযোগ্য সুত্রে জানা যায়, উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌস, হিসাব রক্ষক মিজান মিলে এখানে দায়িত্বে আসার পর থেকে নিজেদের পছন্দসই বিএনপি, জামায়াতের কর্মিদের বাছাই করে সেলাই মেশিন, নগদ টাকা বিতরণ করে আসছেন। ইতিপুর্বেও বেশ কয়েকবার এসব সরকারী জিনিস, টাকা কাকে কোথায় বিতরণ করেছেন তার কোন হিসেব নেই অফিসে। তিনি তার নিজের ইচ্ছেমত প্রধান সিপাহসালওয়ার মিজানের কথা মত ইচ্ছে কর্ম করে চলেছেন। তার এ স্বেচ্ছাচারিতায় জেলায় নারীর উন্নয়ন, পুর্নবাসন, সহযোগীতা কর্মকান্ড অনেকটা ভেঙ্গে পড়েছে।

এ ব্যাপারে উপ-পরিচালক নুরে সফুরা ফেরদৌসের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আসলে ব্যাপারটি এমন নয়। এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যানদের বরাদ্ধটা আলাদা। এই বরাদ্ধটা জেলা প্রশাসকের। তাই জেলা প্রশাসক সাহেবে যে ভাবে বলেছেন সেভাবে তালিকা করা হয়েছে। এমপি, উপজেলা চেয়ারম্যানদের বরাদ্ধ আসলে আমরা তাদের পরামর্শ নিয়ে বিতরণ করি। জামায়াত, ছাত্রদল কর্মিদের মধ্যে সেলাই মেশিন, নগদ টাকা বিতরণ প্রসঙ্গে তিনি বলেন,  এটা সত্য নয়। সরকারী জিনিস বিতরণে কোন রাজনৈতিক দৃষ্টি ভঙ্গি দেয়ার সুযোগ নেই। আমার সম্পর্কে খোঁজ খবর নিলেই জানা যাবে বলে তিনি জানান।

 

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640