1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 21, 2024, 6:01 am
শিরোনাম :
গানবাজনা ও গাজীর গান বর্জনের নির্দেশনা দিলেন পাটিকাবাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান কোটি টাকা আত্মসাতে কুষ্টিয়া শহর  সমাজ সেবা অফিসার জহিরুল ইসলামের সাজা বদলি কুষ্টিয়াসহ দক্ষিণাঞ্চলে হাহাকার স্তর নেমে যাওয়ায় শুস্ক মৌসুমে পানি শুন্য কুষ্টিয়া কুষ্টিয়ার মিরপুরে অস্ত্রসহ আটক ভেড়ামারায় আবারও অগ্নিকান্ডে পুড়ে ছাই হলো ৫০ বিঘা পানের বরজ জেলা পরিষদের শূন্য হওয়া সদস্য পদে নির্বাচন করবেন আওয়ামী লীগ নেতা পান্না বিশ্বাস টানা চারদিন দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গায়, হিট এলার্ট জারি পাহাড়ে সম্ভাবনাময় কফি-কাজুবাদাম চাষে সরকারি প্রকল্প একীভূত হতে যাওয়া পাঁচ দুর্বল ব্যাংকের খেলাপি ঋণ ২৫ হাজার কোটি টাকা উপজেলা নির্বাচনের সময় আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও কমিটি গঠন বন্ধ থাকবে : ওবায়দুল কাদের

কুমারখালীতে বৃদ্ধের কান্না শুনে পাশে দাঁড়ালেন ইউএনও

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, August 3, 2021
  • 116 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ ঘড়ির কাঁটা বেলা একটা বেজে ১৭ মিনিটে। দোতলা থেকে নেমে গাড়িতে উঠে পড়েছেন কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিতান কুমার মন্ডল। গাড়ির জানালার গ্লাস অর্ধেক খোলা। মোবাইল ফোনে কথা বলছিলেন। কাজ শেষে মধ্যাহ্ন ভোজের উদ্দেশ্যে গন্তব্য সরকারি কোয়ার্টার। এ সময় ইউএনও কার্যালয় ভবনের নিচতলার প্রবেশপথে কান্নাকাটি করছিলেন বৃদ্ধ খন্দকার রুস্তম আলী (৭৮)। দুচোখের জল ছেড়ে দিয়ে বারবার বলছিলেন, ‘ছয় সদস্যের পরিবার। বাড়িতে খাবার নেই। পরিবার অনাহারে আছে। কী করব? কোথায় যাব?’ বৃদ্ধ রুমের এমন আর্তনাদ কানে পৌঁছায় ইউএনও বিতান কুমার মন্ডলের। ফোনে কথা বলা শেষ করে সঙ্গে সঙ্গেই গাড়ি থেকে নেমে বৃদ্ধের কাছে এগিয়ে এলেন। বৃদ্ধের আর্তনাদ শুনলেন মনোযোগসহকারে। তারপর গাড়ির ভেতরে রাখা ১১ পদের প্রধানমন্ত্রীর উপহারের খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন বৃদ্ধের হাতে। বাড়ি যাওয়ার মতো পর্যাপ্ত ভাড়াও দেন ইউএনও। এ সময় খাবার পেয়ে ইউএনওর জন্য দুই হাত তুলে মোনাজাত করেন বৃদ্ধ। মঙ্গলবার দুপুরে কুমারখালী উপজেলা চত্বরে এমন হৃদয়বিদারক ঘটনা ঘটে। এ সময় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) তামান্না তাসনীম ও ইউএনও কার্যালয়ের স্টাফ ও সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন। বৃদ্ধ খন্দকার রুস্তম আলী (৭৮) উপজেলার কয়া ইউনিয়নের বানিয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। তিনি সাবেক আনসার সদস্য। তার পরিবারে স্ত্রী, কন্যা, নাতি-নাতনিসহ ছয় সদস্য আছেন।

বৃদ্ধ খন্দকার রুস্তম আলী বলেন, আগে আনসার বাহিনীতে চাকরি করতাম। স্ট্রোক করে চিটাগাং পাহাড় থেকে পড়ে যাই। পরে শারীরিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ি। এদিকে চাকরিতে আর যেতে পারিনি। দুটো ছেলে ছিল। তারা ঢাকায় কাজে গিয়ে আর ফিরে আসেনি। স্ত্রী, কন্যা, নাতি-নাতনি নিয়ে পরিবারে ছয়জন সদস্য। কাম-কাজ নাই। কী খাব। এ কথা শুনে ইউএনও স্যার খাবার দিছেন। আল্লাহ তার ভালো করুক। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিতান কুমার মন্ডল বলেন, মানুষ হিসেবে একজন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি, সহযোগিতা করেছি। এটা আমার দায়িত্ব ও কর্তব্য। আমি দায়িত্ব পালন করেছি মাত্র।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640