1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 2:35 am

অক্সিজেন সিলিন্ডার রিফিলে আবারও মনির আয়রন ইন ॥ কুষ্টিয়ায় করোনায় মৃত্ব্যর সংখ্যা ৬শ ছুঁই ছুঁই  

  • প্রকাশিত সময় Sunday, August 1, 2021
  • 171 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় গত ২৪ ঘণ্টায় চিকিৎসাধীন আরও ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ১৪ জন করোনায় ও চারজন উপসর্গ নিয়ে মারা যান। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃত্ব্যর সংখ্যা দাঁড়ালো ৫শ ৭১ জন। ৬শ সংখ্যা পুরণ হতে আর মাত্র ২৯ জনের কমতি রয়েছে।  এ ছাড়া ৫৩৩টি নমুনা পরীক্ষায় ১৮১ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এদিকে গত ২৭ জুলাই এক দিনে হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ২০ জনের মৃত্ব্য ঘটে। সরজমিনে গাণমাধ্যম কর্মিরা হাসপাতালে চিকিৎসরত রোগী ও অভিভাবকদের সাথে আলাপকালে জানতে পারেন, অধিকাংশ সিল্ডিারের (মুখে সাদা রং দেয়া, মনির আয়রন লেখা) সিলিন্ডারগুলোতে সর্বচ্চ ১২শ থেকে ১৫শ চাপ রয়েছে। চিকিৎসারত রোগীরা ছটফট করছেন। গত ২৬ জুলাই করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্ব্যবরণকারী কয়েকজন রোগীর অভিভাবক অভিযোগ করে বলেছেন, ওই সাদা রংয়ের ছোট সাইজের সিলিন্ডারে অক্সিজেন আছে কিনা বোঝার উপায় নেই, অক্সিজেন আসা যাওয়া করলে মিটার নড়াচড়া করে এসবের কোন বালাই ছিল না, তাদের ধারণা মনির আয়রন সিলিন্ডারে অক্সিজেন না দিয়ে কোনটাই অর্ধেক দিয়ে পুরো রিফিল করা বলে হাসপাতালে সরবরাহ করেছে। আর এতে তাদের রোগীর মৃত্ব্যর মুখে পতিত হয়েছে। হাসপাতালে দায়িত্বরত চিকিৎসক, নার্স এ অক্সিজেন সিলিন্ডারের বিষয়ে কোন এক অজ্ঞাত কারণে নিশ্চুপ থাকতে দেখা গেছে বলে রোগীর অভিভাবকদের অভিযোগ। অক্সিজেন সিলিন্ডারে ২ হাজারের পরিবর্তে মাত্র ১২শ থেকে ১৫শ প্রেসারে অক্সিজেন দিয়ে হাসপাতালে সরবরাহ করায় মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধি হয়েছে এমন বিবেচনায় ২৭ জুলাই রাতে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি হাসপাতালে মনির আয়রন থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার রিফিল গ্রহন না করতে হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ আব্দুল মোমেনকে নিদের্শনা প্রদান করেন। তিনি বলেন, মনির আয়রনের অক্সিজেন সিলিন্ডারতো ইন্ডাষ্ট্রিয়াল, তার কাছ থেকে আর কোন সিল্ডিার রিফিল নেয়ার প্রয়োজন নেই। সম্প্রতি যশোরে অক্সিজেন রিফিল সেন্টার বন্ধ হওয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পুৃনরায় মনির আয়রন থেকে ৩১ জুলাই থেকে মনির আয়রন থেকে সিলিন্ডার রিফিল গ্রহন শুরু করেছেন। এতে গতকাল রোববার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১৮ জনের মৃত্যু হয়। এর আগে সর্বচ্ছ ছিল ২৬ ও ২৭ জুলাই। তার পর মনির আয়রন থেকে সিলিন্ডার রিফিল বন্ধ করা হয়। এর পর থেকে মৃত্যের সংখ্যা ৭-৮ নেমে আসে। গতকাল ১ আগষ্ট পুনরায় ১৮ জনের মৃত্ব্য হয়। এখানে সংশ্লিষ্ট মহলের সন্দেহ এখন মনির আয়রন’র দিকে। এ ব্যাপারে মনির আয়রনের স্বত্বাধিকারী মনির হোে এসব অভিযোগ অস্বিকার করে জানান, এসব ঠিক না, আমি একা হাসপাতালে সিলিন্ডার দিচ্ছি না আরও অনেকে দিচ্ছে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবদুল মোমেন জানান, রোববার সকাল পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তদের মধ্যে কুমারখালী আট, দৌলতপুরের ৩১, ভেড়ামারায় চার, মিরপুর ২৯,  খোকসায় ১৩ জন।  নমুনা পরীক্ষা বিবেচনায় শনাক্তের হার গতদিনের চেয়ে বেড়ে ৩৩.৯৫ শতাংশ হয়েছে। এই সময়ে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২০৮ জন। এদিকে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের ২০০ বেডবিশিষ্ট করোনা ও উপসর্গ নিয়ে এখন ভর্তি আছে ২৪৩ জন। তাদের মধ্যে করোনা শনাক্ত রোগী ১৯১ জন। বাকিরা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন। ৭০ শতাংশ রোগীর অক্সিজেন প্রয়োজন হচ্ছে। গত সাত দিনেই কুষ্টিয়ায় করোনা আক্রান্ত ৭২ জনের মৃত্যু হয়েছে এবং এক হাজার ২১৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ পর্যন্ত শুধু করোনা আক্রান্ত হয়ে ৫৭১ জনের মৃত্যু হয়েছে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা.  আব্দুল মোমেন বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলার কারণে মানুষ আগের চেয়ে বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। করোনার নতুন স্ট্রেইন ছড়িয়ে পড়ায় একজনের দ্বারা অনেক লোক আক্রান্ত হতে পারেন। এ জন্য স্বাস্থ্যবিধি মানাতে প্রশাসককে আরও কঠোর হতে হবে। তিনি আরও বলেন, হাসপাতালটিকে ডেডিকেটেড ঘোষণার পর থেকে রোগীর চাপ বাড?তে আছে। প্রয়োজনের তুলনায় আমাদের লোকবল কম। এ জন্য চিকিৎসক, নার্স, আয়াসহ সংশ্লিষ্টতা সবাই চিকিৎসাসেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছে। প্রতিদিনই শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালেও রোগীর চাপ বাড়ছে। এভাবে বাড়তে থাকলে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে যাবে। কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক আকরামুজ্জামান মিন্টু বলেন, হাসপাতালে ২০০ শতাধিক পয়েন্টে কেন্দ্রীয় অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থা রয়েছে। এ ছাড়া ১৭টি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোল চালু রয়েছে। বেশি গুরুতর রোগীদের জন্য আলাদাভাবে পেয়িং ওয়ার্ডে রাখা হয়। ঈদ থেকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। রোগী বাড়লেও চিকিৎসাব্যবস্থা ও ভর্তির ব্যাপারে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সজাগ রয়েছে। কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন অফিসার এইচএম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, কুষ্টিয়ায় গত দুই মাসে করোনায় মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি। তবে আশা করা যাচ্ছে, এটি কমে যাবে। আর প্রায় সব মানুষই মৃদু সংক্রমিত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ জন্য ঈদপরবর্তী আক্রান্তের হার কমতে পারে। কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের কার্ডিওলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নাসিমুল বারী বাপ্পি জানান, করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের ৩০টি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলার মধ্যে ১২টি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা নষ্ট হয়ে গেছে। এ কারণে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন করোনা রোগীদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640