1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 7:40 pm
শিরোনাম :
আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের বার্ষিক বনভোজন-২০২৪ অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সভা কক্ষে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা অনুষ্টিত বারখাদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা ও পুরুস্কার বিতরণী দৌলতপুরের মাদক স¤্রাজ্ঞী শেফালী অস্ত্র ও ১৯৩৬ বোতল ফেন্সিডিলসহ র‌্যাবের হাতে আটক কয়া স্কুল মাঠে ফুটবল একাডেমির উদ্বোধনকালে এমপি আব্দুর রউফ তরুণ ও যুব সমাজকে মাদকের হাত থেকে রক্ষায় খেলাধুলার কোনো বিকল্প নেই  দৌলতপুরে বিস্তৃর্ণ চর পারাপারে এক মাত্র ভরসা মোটরসাইকেল কুষ্টিয়া মুজিবুর রহমান মোমোরিয়াল ডায়াবেটিক হসপিটালের উদ্যোগে ডায়বেটিস সচেতনতা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা কুষ্টিয়ায় সড়কে দুই ট্রাকের ধাক্কায় হেলপার নিহত আজ কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচন পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই : সংসদে প্রধানমন্ত্রী 

জেলা মৎস বিভাগের অবহেলায় কালীগঙ্গা-বাদলবাসা বাওড়ের ৩০ লাখ টাকার মাছ ভেসে গেছে

  • প্রকাশিত সময় Friday, July 30, 2021
  • 116 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া কুমারখালী উপজেলার মৎস অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অবহেলায় ইফাদ প্রকল্পাধীণ কালীগঙ্গা-বাদলবাসা বাওড় এর অভয় আশ্রমসহ বাওড়ের বিস্তীর্ণ এলাকার মৎসচাষ প্রকল্পের পানিতে অক্সিজেন সংকটে ৩০লাখ টাকার মাছ ভেসে  হয়েছে বলে অভিযোগ সেখানকার প্রান্তিক জেলেদের। সংশ্লিষ্ট উপজেলা মৎস কর্মকর্তা ঘটনার সত্যতা স্বিকার করলেও অবহেলার অভিযোগ নাকচ করে বলেন, প্রশাসনিক ও আইন শৃংখলা রক্ষার ক্ষমতা মৎস বিভাগের নাই। তাছাড়া বিয়টি জেলা মৎস কর্মকর্তাও অবগত আছেন বলে দাবি করেন তিনি তবে জেলা মৎস কর্মকর্তা কিছুই জানেন না বলে জানালেন। স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শী কুমারখালী উপজেলার লাহিনী গ্রামের আব্দুল গফুর বলেন, গত তিনদিন ধরে বাওড়ে সব মাছ পানির উপরে ভাসতে দেখে দুইধারের বাসিন্দারা সবাই যে যেমন পেরেছে জাল বর্ষাসহ নানা ধরনের মাছ ধরা সরঞ্জাম নিয়ে পানিতে নেমে বিশেষ করে রুই কাতলা সিলভার কাপ, গ্রাসকার্প মিনারকার্প নানা জাতের মাছ ধরেছে। এখানে যে সব জেলেরা পাহারা দেয় তাদের ক্ষমতা আছে এসব ঠেকানো ? নাম প্রকাশ না করার শর্তে কুষ্টিয়া জেলা মৎস অধিদপ্তরের এক কর্মকর্তা তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, জেলা উপজেলা পর্যায়ের মৎস বিভাগের বিরুদ্ধে অনিয়ম অব্যবস্থাপনার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। যে কারণে খাল বিল বাওড় দীঘি পুকুর নদীর মতো বিশালায়তনের জলাধার থাকা সত্ত্বেও অদ্যবধি জেলার সাড়ে ২২লাখ মানুষের প্রয়োজনে প্রায় ৫৯হাজার মে:টন মাছের চাহিদা পূরন করতে পারেনি মৎস বিভাগ। জেলায় এখনও প্রায় চাহিদানুযায়ী সাড়ে ৬হাজার মে:টন মাছের ঘাটতি পুরণ করতে অন্যান্য জেলা থেকে আমদানী করতে হয়। এখানে মৎস সম্পদ উন্নয়নের ব্যাপক সম্ভাবনার উৎস থাকলেও সেগুলির যথার্থ উপযোগিতা সৃষ্টি করতে পারেনিন সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষ। উপরন্ত ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে উঠা খামারগুলির প্রতি দায়িত্ব পালনে চরম উদাসীন ও অবহেলার অভিযোগ রয়েছে খামারী, জেলে ও মাছ চাষীদের। কালীগঙ্গা-বাদলবাসা বাওড় মৎসজীবি সমিতির সাধারণ সম্পাদক আকমল হোসেনের অভিযোগ, বাওড়টি সরাসরি মৎস বিভাগের তত্ত্বাবধায়নে এখানকার প্রান্তিক জেলেরা মাছ চাষ করলেও সঠিক সময়ে কর্মকর্তাদের দায়িত্ব পালন না করা এবং অবহেলার কারণেই বুধ, বৃহষ্পতি ও শুক্রবার ৩দিন ধরে অবাধের শত শত লোক পানিতে নেমে প্রায় ৩০লাখ টাকার মাছ লুট করে নিয়ে গেছে। আমরা বার বার ফোন করে সাহায্য চাইলেও সারেরা আমাদের কোন সাহায্য করেননি। স্থানীয় বাসিন্দা রবিউল ইসলাম বর্ষা দিয়ে মাছ ধরছিলেন, জিজ্ঞাসা করতেই তিনি জানালেন, প্রতি বছরই বাওড়ের পানিতে (কুষ্টা) পাট পচানোর ফলে পানিতে বিষক্রিয়া সৃষ্টি হয়। এতে পানির সব মাছ ভেসে উঠে। তখন আশপাশের লোকজন এসব ভেসে উঠা মাছ বিভিন্ন ভাবে ধরে নিয়ে যায়। এতো মানুষকে তো ঠেকাতে পারবেন না। কুমারখালী উপজেলা মৎস অধিদপ্তরের জ্যেষ্ঠ মৎস কর্মকর্তা মাহমুদুল হাসান জানান, পানিতে পাট পচানোর কারনে মাত্রাতিরিক্ত এ্যামোনিয়া বেড়ে যাওয়ায় বিষক্রিয়া সৃষ্টি হয়। এসময় মাছের জীবন ধারণে প্রয়োজনীয় অক্সিজেন সংকট দেখা দেয়। এতে মাছ পানির উপর ভেসে উঠে। সময় মতো এর চিকিৎসা দিতে না পারলে পানির সব মাছই মরে যেতে পারে। বাদলবাসা বাওড়ের জেলেরা জানিয়েছিলো সমস্যার কথা। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং ডিএফও কেও জানিয়েছিলাম কিন্তু শেষ পর্যন্ত মাছ লুট ঠেকাতে উনারা প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেননি। তবে জেলা মৎস কর্মকর্তা(ডিএফও) সাজেদুুর রহমান মাছ লুটের ঘটনা কিছুই জানেন না বলে বিষয়টি অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, এটাতো কুমারখালী উপজেলা মৎস কর্মকর্তার দায়িত্ব উনিই বাদলবাসা ব্ওাড়টি দেখভাল করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640