1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 24, 2024, 10:20 am

করোনায় এক দিনে ২৫৮ মৃত্যুর নতুন রেকর্ড

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, July 27, 2021
  • 76 বার পড়া হয়েছে

এক দিনের ব্যবধানে করোনায় সর্বোচ্চ মৃত্যুর নতুন রেকর্ড হয়েছে। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় দেশে প্রথমবারের মতো এক দিনে মৃত্যু আড়াইশ ছাড়িয়েছে।
সোমবার সকাল ৮টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ২৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৪ হাজার ৯২৫ জন।
মঙ্গলবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। আগের দিনের তুলনায় মৃত্যু বাড়লেও নতুন রোগী ও পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার কিছুটা কমেছে।
গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ৫২ হাজার ৪৭৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে রোগী শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ২৮ দশমিক ৪৪ শতাংশ। এর আগের ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মৃত্যু হয়েছিল ২৪৭ জনের। ওই সময় রোগী শনাক্ত হয়েছিল ১৫ হাজার ১৯২ জন। রোগী শনাক্তের হার ছিল ২৯ দশমিক ৮২ শতাংশ।
স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, সব মিলিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ লাখ ৯৪ হাজার ৭৫২। মোট মৃত্যু হয়েছে ১৯ হাজার ৭৭৯ জনের। আর করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১০ লাখ ২২ হাজার ৪১৪ জন। সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১২ হাজার ৪৩৯ জন।
করোনাভাইরাসের দাপটে মৃত্যুর সংখ্যা গত ২৭ জুন থেকেই একশর উপরে থাকছিল প্রতিদিন। ৭ জুলাই তা প্রথমবারের মত ২০০ ছাড়িয়ে যায়। এবার তা আড়াইশ ছাড়াল।
ভাইরাসের বিস্তার রোধের কঠোর বিধিনিষেধের মধ্যেই ৬ জুলাই প্রথমবারের মত দৈনিক শনাক্ত রোগী ১০ হাজার ছাড়ায়। তারপর ২৭ জুলাই রেকর্ড ১৫ হাজারের বেশি নতুন রোগী শনাক্তের খবর দেয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।
গত এক দিনে শুধু ঢাকা বিভাগেই ৬ হাজার ১৮৮ জনের মধ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা দিনের মোট আক্রান্তের ৪১ শতাংশের বেশি।
আর এই সময়ে যে ২৫৮ জন মারা গেছেন, তাদের ৮৪ জনই ছিলেন ঢাকা বিভাগের। চট্টগ্রাম বিভাগে ৬১ জন এবং খুলনা বিভাগে ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে।
গত এক দিনে ঢাকা জেলায় দেশের সর্বোচ্চ ৪ হাজার ১৭২ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এছাড়া ঢাকা বিভাগের ফরিদপুরে ১৫৬ জন, গাজীপুরে ২৭০ জন, গোপালগঞ্জে ১৪৯ জন, কিশোরগঞ্জে ১৭০ জন, মাদারীপুরে ১৬৮ জন, মানিকগঞ্জে ১৭০ জন, মুন্সিগঞ্জে ২০১ জন, নারায়ণগঞ্জে ২১৪ জন এবং টাঙ্গাইল জেলায় ২৫৬ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে।
চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে চট্টগ্রাম জেলায় ১৩১০ জন, কক্সবাজারে ৩১৫ জন, ফেনীতে ১২০ জন, নোয়াখালীতে ২২১ জন, লক্ষ্মীপুরে ১৬৯ জন, চাঁদপুরে ১৮০ জন, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১৮৪ জন এবং কুমিল্লায় ৮৩৫ জন আক্রান্ত হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়।
রাজশাহী বিভাগের মধ্যে রাজশাহী জেলায় ১৯৩ জন, পাবনায় ১৪৫ জন, সিরাজগঞ্জে ১৭৪ জন এবং বগুড়ায় ১৩৫ জন নতুন রোগী পাওয়া গেছে গত একদিনে।
খুলনা বিভাগের মধ্যে বাগেরহাটে ১০১ জন,যশোরে ২২৬ জন, খুলনায় ৪৬৯ জন এবং কুষ্টিয়ায় ২৫৩ জন করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছেন গত ২৪ ঘণ্টায়।
অন্য বিভাগগুলোর মধ্যে ময়মনসিংহে ৩৩২ জন, বরিশালে ২৯৩ জন, পটুয়াখালীতে ১১৭ জন, ভোলায় ১২০ জন, পিরোজপুরে ১৩৫ জন, সিলেটে ৪১৬ জন, সুনামগঞ্জে ১২০ জন, মৌলভীবাজারে ১০৬ জন, রংপুরে ১৬১ জন, কুড়িগ্রামে ১০১ জন, ঠাকুরগাঁওয়ে ১১৩ জন এবং দিনাজপুরে ২০৯ জন রোগী শনাক্ত হয়েছে গত ২৪ ঘণ্টায়।
ঢাকা বিভাগে গত এক দিনে যে ৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে, তাদের ৪১ জনই ছিলেন ঢাকা জেলার। চট্টগ্রাম বিভাগে মারা যাওয়া ৬১ জন জনের মধ্যে ১৮ জন চট্টগ্রাম জেলার এবং খুলনা বিভাগে মারা যাওয়া ৫০ জনের মধ্যে ১৮ জন কুষ্টিয়া জেলার বাসিন্দা ছিলেন।
এছাড়া রাজশাহী বিভাগে ২১ জন, বরিশাল বিভাগে ১৩ জন, সিলেট বিভাগে ৭ জন, রংপুর বিভাগে ১১ জন এবং ময়মনসিংহ বিভাগে ১১ জনের মৃত্যু ঘটেছে গত এক দিনে।
মৃত ২৫৮ জনের মধ্যে ১৪৭ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি। এছাড়া ৫৪ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, ৩১ জনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে, ১৬ জনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে, ৮ জনের বয়স ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে এবং ২ জনের বয়স ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে ছিল।
তাদের মধ্যে ১৩৮ জন ছিলেন পুরুষ, ১২০ জন ছিলেন নারী। ২০২ জন সরকারি হাসপাতালে, ৩৯ জন বেসরকারি হাসপাতালে এবং ১৫ জন বাসায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। ২ জনকে হাসপাতালে মৃত অবস্থায় নিয়ে আসা হয়েছিল বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে।
২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম নতুন করোনাভাইরাস সংক্রমণ দেখা দেয়। কয়েক মাসের মধ্যে এই ভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। বাংলাদেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। এরপর বিভিন্ন সময়ে সংক্রমণ কমবেশি হলেও প্রায় দুই মাস ধরে দেশে করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক অবস্থায় পৌঁছেছে। করোনার ডেল্টা ধরনের দাপটে দৈনিক সংক্রমণ ও মৃত্যু কয়েক গুণ বেড়েছে।
সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে চলতি মাসের প্রথম দুই সপ্তাহ দেশে সর্বাত্মক বিধিনিষেধ পালন করা হয়। এ সময় সব ধরনের অফিসের পাশাপাশি গণপরিবহন চলাচলও বন্ধ রাখা হয়। ২১ জুলাই ঈদুল আজহা উপলক্ষে এই বিধিনিষেধ আট দিনের জন্য শিথিল থাকার পর গত শুক্রবার থেকে আবার দুই সপ্তাহের লকডাউন শুরু হয়েছে।
ঈদের ছুটিতে লাখ লাখ মানুষের শহর থেকে গ্রামে যাওয়া এবং তাদের ফিরে আসায় সংক্রমণ বাড়তে পারে বলে সতর্ক করেছিলেন বিশেষজ্ঞরা। করোনা নিয়ন্ত্রণে গঠিত জাতীয় কারিগরি কমিটি ঈদ ঘিরে বিধিনিষেধ শিথিলের সরকারি সিদ্ধান্তে গভীর উদ্বেগ জানিয়েছিল।মঙ্গলবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ২৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। মহামারি শুরুর পর একদিনে এটাই সর্বোচ্চ মৃত্যু। এ সময় নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৪ হাজার ৯২৫ জন।
সংক্রমণের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতায় বর্তমানে বিশ্বের যেসব দেশে একদিনে সবচেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত ও মৃত্যু হচ্ছে, সেই তালিকায় ১১তম অবস্থানে উঠে এসেছে বাংলাদেশ। সোমবার প্রকাশিত আগের ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা বিবেচনায় নিয়ে এই তালিকা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
তাদের তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত বিশ্বে মোট করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৯ কোটি ৪০ লাখ ৮০ হাজার ১৯ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ৪১ লাখ ৬২ হাজার ৩০৪ জনের। এখন পর্যন্ত সবচেয়ে রোগী শনাক্ত ও মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে। মৃত্যুর তালিকায় ব্রাজিল দ্বিতীয় অবস্থানে থাকলেও রোগী শনাক্তের দিক দিয়ে দেশটির অবস্থান তৃতীয়। আর রোগী শনাক্তের দিক দিয়ে দ্বিতীয় এবং মৃত্যুর দিক দিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ভারত।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640