1. nannunews7@gmail.com : admin :
July 15, 2024, 9:10 am
শিরোনাম :
কোটার সমাধান আদালতেই : প্রধানমন্ত্রী কুষ্টিয়ায় মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচারবিরোধী আন্তজার্তিক দিবস উদযাপন সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় মাদক প্রতিরোধ করা সম্ভব : এডিসি শারমিন আখতার সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় জেলার আইনশৃংলা নিয়ণÍ্রণ করা সম্ভব কুষ্টিয়ায় জেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আলমগীর হোসেন থানায় অভিযোগ দায়ের চরথানাপাড়ায় বসতবাড়ীতে হামলা গৃহবধুসহ আহত ২ কুষ্টযি়ায় জাতীয় র্পাটরি প্রসেডিন্টে ও সাবকে রাষ্ট্রপতি এরশাদরে ৫ম মৃত্যু র্বাষকিী পালতি দৌলতপুরে আবেদের ঘাটে দিনে-দুপুরে ২ রাউন্ড গুলি কুষ্টিয়ায় কোটা বৈষম্য নিরসনে দাবিতে শিক্ষার্থীদের পদযাত্রা এবং স্মারকলিপি প্রদান চুয়াডাঙ্গায় প্রণোদনার প্রভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে রোপা আউশ ধানের চাষ ভেড়ামারায় ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক পিএলসি এর ১০০২ তম শাখার শুভ-উদ্বোধন রেল কর্তৃপক্ষের নিদ্রাভিনয়ে কুমারখালীতে জলাশয় ভরাটের গতি বেড়েছে, তৈরী হচ্ছে টিনসেড ঘর

মোবাইল গেমসের ভয়াবহ আসক্তিতে পাবনার শিক্ষার্থীরা

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, July 14, 2021
  • 120 বার পড়া হয়েছে

পাবনা প্রতিনিধি ॥ বেশকিছুদিন ধরেই দরিদ্র ভ্যানচালক বাবা সাইদ ফকিরের কাছে একটি এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন কিনে দেবার বায়না ধরে সাঁথিয়ার নন্দনপুর ইউনিয়নের মাহমুদপুর গ্রামের কিশোর আরিফ (১৬)। কিন্তু,অভাবের সংসারে ছেলের বায়না মেটাতে পারেননি দরিদ্র বাবা সাইদ ফকির। বাড়িতে কেউ না থাকায় তাদের নিজ ঘরের আড়ার সাথে গলায় দড়ি পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে আরিফ। স্বজনরা জানান, মোবাইল গেমসে আসক্তির কারণে বাবার কাছে ফোনের জন্য জিদ করছিল সে। গেম খেলার নেশা এতটাই তীব্র যে রাগে ক্ষোভে নিজের প্রাণ বিসর্জন দিতেও দ্বিধা করেনি সে। আরিফের এমন কান্ডে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে পাবনার স্কুল কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের মধ্যে। স্থানীয়রা জানান, বৈশি^ক মহামারি করোনার প্রাদুর্ভাবের কারণে প্রায় দেড় বছর ধরে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। স্কুল-কলেজের অধিকাংশ শিক্ষার্থীরা দিনরাতের বেশীর ভাগ সময় মুঠোফোনে ভিডিও গেমসে আসক্ত হয়ে পরেছে। অনলাইন ক্লাসের অযুহাতে অসচ্ছল পরিবারের সন্তানরাও অভিভাবকদের চাপ দিয়ে এন্ড্রয়েড ফোন কিনে নিয়েছে। গ্রামগঞ্জের কিশোর তরুণদের মাঝে এসব গেমস আসক্তি মহামারী আকার ধারণ করেছে। সরেজমিনে পাবনার বেড়া ও সাঁথিয়া উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের পাড়া মহল্লায় ঘুরে দেখা যায়, কিশোর তরুণরা রাস্তার মোড়ে, গাছের নিচে, খোলা কোন জায়গায়, স্কুল মঠে, জুটিবেধে বসে ফোর্টনাইট, তিন পাত্তি, লুডু, জান্ডীমুন্ডা ফ্রী ফায়ার-পাবজি গেমসগুলো খেলছে। যে স্থানে ওয়াইফাই ইন্টারনেট কানেকশন আছে সেখানে জটলা করে ৩০- ৪০ জনকেও একসাথে বসে গেম খেলতে দেখা যায়। অনেকে আবার মোবাইলে অর্থের বিনিময়ে জুয়ায় আসক্ত হয়ে পড়েছে। কয়েকজন কিশোরের সাথে কথা বলে জানা যায়, তাদের বেশীর ভাগই ফ্রি ফায়ার ও পাবজি নামক গেমসের নেশায় জড়িয়ে পড়ছে। এই গেমসে যারা বেশি পারদর্শী তারা আবার ডায়মন্ড পয়েন্ট বিক্রির ব্যবসা করছে। অনেকে আবার ফ্রী ফায়ার ও পাবজী গেমস খেলে অতিরিক্ত লেভেল পার করে সেই ফেসবুক আইডি ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকাও দাম হাকিয়ে বিক্রিও করছে।  নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্থী জানায়, ‘ফ্রি ফায়ার গেমস প্রথমে তাদের কাছে ভালো লাগত না। কিছুদিন বন্ধুদের খেলা দেখা দেখিতে তারা আসক্ত হয়ে গেছে। এখন গেমস না খেলে তাদের অস্বস্তিকর মনে হয়।’ সাঁথিয়া সোয়াইব ক্যাবল নেটওয়াক এর পরিচালক কাবিল হোসেন বলেন, এক বছরে  আমার ইন্টারনেটট সংযোগ বেড়েছে কয়েকগুন। বছরখানেক আগে হাতেগোনা কয়জন নেট কানেকশন নিত আর এখন এর চাহিদা বেড়েছে কয়েক গুন।  প্রতিটি পাড়ায় ও ঘরে ঘরে সংযোগ নিচ্ছে। শিক্ষার্থীদের এমন প্রবণতায় অভিভাবক ও শিক্ষকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন। সাঁথিয়ার কলেজ শিক্ষক আব্দুদ দাউয়ান বলেন, ‘ করোনা মহামারির আগে যে সময়ে শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে পাঠ গ্রহণ ও খেলার মাঠে ক্রীড়া চর্চার মধ্যে ব্যস্ত থাকতো  সে সময়টা তারা মোবাইলে গেমস খেলে কাটাচ্ছে। অনেক ক্ষেত্রেই এসব গেমস নৃশংসতা, কুরুচীপূর্ণ ও অশ্লীলতায় ভরা। তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার একটি প্রজন্মকে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে নিয়ে যাচ্ছে। এসব বিদেশী গেম থেকে নিজেদের ছেলেমেয়েকে ফিরিয়ে আনতে না পারলে অপূরণীয় ক্ষতি হয়ে যাবে। সাঁথিয়া উপজেলার পুন্ডুরিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু হানিফ খান বলেন, ‘অনলাইন ক্লাসের অজুহাতে অসচ্ছল পরিবারের সন্তানরাও অনেক দামী ফোন কিনছে। ছেলে-মেয়ের শিক্ষার বিষয়টি বিবেচনা করে অভিভাবকরাও ধার-দেনা করে ফোন কেনার টাকা যোগার করছে। অনেকেই টাকা যোগান দিতে জড়িয়ে পড়ছে বিভিন্ন অপকর্মে। এখন বিকেল হলে ছেলেদের স্কুল মাঠে খেলতেও দেখা যায় না। এগুলো বন্ধে প্রশাসনিক উদ্যোগ প্রয়োজন। পাবনার সাঁথিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম জামাল আহমেদ বলেন, মোবাইল ফোনে গেমস আসক্তির বিষয়টি উদ্বেগজনক। শিশু কিশোরদের এ প্রবণতা ঠেকাতে অভিভাবকদের উদ্যোগ নিতে হবে। প্রশাসন ও স্কুল কলেজের শিক্ষকরাও তাদের সচেতন করতে কাজ শুরু করেছেন। মানুষকে সচেতন করতে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানগুলোতেও এসব গেমসের কুফল নিয়ে আলোচনা করতে বলা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640