1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 21, 2024, 2:39 am
শিরোনাম :
কুষ্টিয়ায় একুশের প্রথম প্রহরে কেন্দ্রীয় শহিদ মিনারে জেলা প্রশাসনসহ সর্বস্তরের মানুষের ফুলেল শুভেচ্ছা আলমডাঙ্গায় যাত্রীবাহী বাস ও মোটর বাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত-১ কুৃষ্টিয়ার সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মিরপুরে মানববন্ধন এক বছরেও ইউপি নির্বাচনে ভোটের ডিউটির টাকা পাননি আনসার সদস্যরা  দৌলতপুরে পথ নির্দেশক স্থাপন কার্যক্রমের উদ্বোধন আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসে কুমারখালী পাবলিক লাইব্রেরীর আয়োজনে একুশের কবিতা পাঠের আসর মহান শহিদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস আজ ফুল বাগানের নতুন রাণী ‘নন্দিনী’ চাষ পদ্ধতি হংকংয়ে না খেলার বিষয়ে মেসির বিবৃতি একুশে পদক পেলেন ২১ জন

বাস ও লঞ্চ চলবে আজ রাত থেকেই

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, July 13, 2021
  • 67 বার পড়া হয়েছে

ঢাকা অফিস ॥ কঠোর বিধিনিষিধ শিথিল করায় বৃহস্পতিবার থেকে বাস, ট্রেন, বিমান ও লঞ্চ চালুর ঘোষণায় যেন যাত্রীদের মাঝে স্বস্তি ফিরে এসেছে। মঙ্গলবার থেকেই এসব পরিবহনের টিকেট কাটার ধুম পড়ে গেছে। সাজ সাজ রব পড়ে গেছে রাজধানীর বাস-টার্মিনাল, রেল স্টেশন, বিমান অফিস ও লঞ্চ টার্মিনালে। একদিকে ধোয়া মুছা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজ- অন্যদিকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে যাত্রীদের টিকেট বিক্রির প্রস্তুতি। বাস ট্রেন বিমান ও লঞ্চ চালু করার সব ধরনের প্রস্তুতি চলছে। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সভাপতি খন্দকার ্এনায়েত উল্যাহ জানিয়েছেন, আজ বুধবার রাত থেকেই ঢাকা থেকে ছেড়ে যাবে দূরপাল্লার বাস। আগামীকাল বৃহস্পতিবার থেকে চলবে সিটি সার্ভিস থেকে শুরু করে সব ধরনের গণপরিবহন। রেল সূত্র জানিয়েছে অর্ধেক আসন খালি রেখে ঢাকার কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে দেশের বিভিন্ন গন্তব্যে আন্তঃনগর ও মেইল মিলিয়ে ৫৭ জোড়া ট্রেন চলাচল করবে। আকাশপথের সবগুলো গন্তব্যেই চালু করা হবে বিমান। ঢাকা থেকে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, সিলেট, সৈয়দপুর রাজশাহী, যশোর বরিশালে যাবে বিমান, ইউএস বাংলা ও নভো এয়ারের ফ্লাইট। এসব রুটে একাধিক ফ্লাইট চালাবে প্রতিদিন এ তিনটে এয়ারলাইন্স। বৃহস্পতিবার থেকে আগামী শুক্রবার সকাল পর্যন্ত চলবে এসব পরিবহন। এয়ারলাইন্সগুলো জানিয়েছে অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রীদের বেলায় কোন ধরনের ব্যত্যয় ঘটবে কিনা আদেশে সেটা এখনও চূড়ান্ত করা হয়নি। শুক্রবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত লকডাউনের শিথিলতার সময়সীমা ঘোষণাকরা হলে আকাশপথের বেলায় কিভাবে তা মানা হবে এ বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয়। সেক্ষেত্রে এয়ারলাইন্স্গুলো চাইছে অন্তত শুক্রবার সারাদিন ফ্লাইট চালাতে বাস ঃ কঠোর বিধিনিষেধ শিথিলের ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয়ে গেছে দূর পাল্লা ও স্বল্প পাল্লার বাস চালানোর প্রস্তুতি। নগরীর মহাখালী, সায়েদাবাদ ও গাবতলী টার্মিনালে গিয়ে দেখা যায়- ব্যাপক পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার কাজে ব্যস্ত চালক ও শ্রমিকরা। আজ বুধবার রাত থেকেই এসব টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যাবে দেশের সব রুটের বাস। মঙ্গলবার আগাম টিকেট কাটতেও দেখা গেছে। গত দু সপ্তাহ ধরে টার্মিনালে অলস বাসগুলো বসে থাকার পর পরিষ্কার করা হচ্ছে। অনেক বাসেই তোলা হয়েছে হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও স্প্রে। বিধিনিষেধে গণপরিবহন চলাচল বন্ধ থাকায় এ খাতের শ্রমিকরা পড়েছিলেন বিপাকে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন চালুর দাবিও জানিয়ে আসছিলেন তারা। এখানকার পরিবহন শ্রমিক রুবেল বলেন, সরকারের কঠোর লকডাউনে আমরা বিপদে পড়েছি। টানা লকডাউনে পরিবার নিয়ে না খেয়ে দিন পার করেছি। আমি নিজেও অনেক দিন না খেয়েছিলাম। কিন্তু কেউ খোঁজ নেয়নি। আমরা কাজ করলে টাকা পাই আর সেই টাকা দিয়েই সংসার চালাই। কিন্তু এতদিন লকডাউনে আমাদের কেউ খোঁজ-খবর রাখেনি। প্রত্যেক পরিবহন মালিকই ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে গাড়ি কিনেছে। পরিবহন মালিকরা নিজেরাই ঠিক মতো ঋণের টাকা দিতে পারে না। তাহলে আমাদের দেবে কিভাবে। শাহ আলম নামে একজন বাসচালক বলেন, সরকারের সিদ্ধান্তে আমরা খুশি। করোনায় মরে গেলে যাব, কিন্তু ক্ষুধার যন্ত্রণা আর সহ্য হয় না। খুব কষ্টে দিন পার করছি। পুরো পরিবার নিয়ে অসহায়ভাবে জীবনযাপন করতে হচ্ছে। বর্তমানে আমাদের আয় বন্ধ ঠিকই, কিন্তু পরিবারের খরচ তো আর বন্ধ নেই। গাবতলীতে দেখা যায়, দূরপাল্লার বাসগুলো পরিষ্কার করার কাজ চলছে। গাড়িগুলো ঠিকঠাক আছে কি না তা দেখে নিচ্ছেন পরিবহন শ্রমিকরা। এছাড়া অনেক গাড়ি মেরামতের কাজও করছেন মালিকরা।
মহাখালীতে গিয়ে দেখা যায় ঢাকা কিশোরগঞ্জ রুটে অনন্যা পরিবহন সহ উত্তরবঙ্গে রুটে একতা, এনা ও সাদিকা পরিবহানের বাসগুলোতে স্বাস্থ্যবিধির সব শর্ত নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয় সব কাজ চলছে। অনন্যার ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরান রশীদ তুহিন জানান-প্রতিটি সিটেই দেয়া হবে স্বাস্থ্যবিধির সব উপকরণ। এক আসন ফাঁকা রেখেই চালানো হবে বাস। ট্রেন ঃ দু সপ্তাহ ট্রেন বন্ধ রাখার পর বৃহস্পতিবার থেকে ট্রেন চালুর ঘোষণার পর থেকেই কমলাপুর রেল স্টেশনে কর্মব্যস্ততা চোখে পড়ে। অনলাইন টিকেট বিক্রি সিস্টেম হালনাগাদ করা হয়। মঙ্গলবারই মন্ত্রণালয় ঘোষণা দেয়- টিকেট বিক্রির কথা। রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য অফিসার শরিফুল আলম জানান, পবিত্র ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে চলমান বিধিনিষেধ ১৫ থেকে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত শিথিল করা হয়েছে। তাই মঙ্গলবার বিকেল সন্ধ্যা থেকে অনলাইনে টিকেট বিক্রি শুরু হয়েছে। আর ১৫ জুলাই থেকে থেকে ৩৮ জোড়া আন্তঃনগর ও ১৯ জোড়া মেইল ট্রেন যাত্রা শুরু করবে। রেল সূত্র জানিয়েছে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে ৫০ শতাংশ আসন খালি রেখে থেকে ট্রেন চলাচল করবে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে অনলাইনে টিকেট বিক্রি শুরু হয়। তবে ট্রেনে কোন রুটেই ভাড়া বাড়ানো হয়নি। এবার মাস্ক পরিধান ছাড়া কাউকেই রেলস্টেশনে ঢুকতে দেয়া হবে না। এ বিষয়ে কমলাপুর রেলস্টেশনের ব্যবস্থাপক মাসুদ সারোয়ার বলেন, কমলাপুর রেলস্টেশনে মাস্ক পরিধানে আরও কঠোর অবস্থানে যাচ্ছি আমরা। জীবাণুনাশক ব্যবহার ও তাপমাত্রা পরীক্ষার ব্যবস্থাও জোরদার করা হচ্ছে। কাউন্টারে টিকেট বিক্রি করা হবে না। রেলপুলিশসহ আমাদের সকল সংস্থার জনবল পুরোপুরি ও নিরবচ্ছিন্নভাবে কাজে লাগানো হবে। রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, ট্রেনের টিকেট শুধু অনলাইনেই বিক্রি হবে। নন কম্পিউটারাইজড স্টেশনের টিকেট ওই স্টেশন কাউন্টার থেকে কেনা যাবে। অনলাইনে ক্রয় করা টিকেট ফেরত দেয়া যাবে না। কমিউটার ট্রেনের টিকেট যথারীতি নির্দিষ্ট বক্স কাউন্টার থেকে দেয়া হবে। আসনবিহীন টিকেট বিক্রি করা হবে না। টিকেটবিহীন কোন যাত্রী স্টেশনে প্রবেশ বা ট্রেনে ভ্রমণ করতে পারবেন না। ট্রেনে প্রতিনিয়ত বিশেষ চেকিং অভিযান চালানো হবে। বিনা টিকেটে ট্রেন ভ্রমণ করা থেকে বিরত থাকার জন্য রেলওয়ের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হয়েছে। ট্রেনে প্রবেশ ও বের হওয়ার জন্য ভিন্ন ভিন্ন দরজা ব্যবহার করতে হবে। বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া ট্রেনে ভ্রমণ না করার অনুরোধও করেছে রেলওয়ে। ট্রেনে চড়তে হলে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। মাস্ক ব্যতীত কোন যাত্রীকে স্টেশনে প্রবেশ বা ট্রেনে ভ্রমণ করতে দেয়া হবে না। জানা গেছে, ট্রেনে চলাচলকারী যাত্রীদের জন্য বাংলাদেশ রেলওয়ে বেশ কিছু নির্দেশনা দিয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে, প্রতিটি ট্রেনের টিকেট অনলাইনে বিক্রি করা হবে। কথা ভেবে এমন একটি প্রকল্প হাতে নিয়েছেন। সেখানে অনিয়মের তো প্রশ্নই আসে না। বরং আমাদের সকলের উচিত সম্মিলিত ভাবে সহযোগীতা করা। সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধুন কুমার বিশ^াস জানান, আমি কুষ্টিয়ায় যোগদান করেই প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ প্রকল্প মুজিববর্ষে ভুমিহীন, গৃহহীনদের পুর্ণবাসন প্রকল্পের প্রতি গুরুত্ব বাড়িয়ে দেই। কেননা এ জেলাটি দেশের একজন শীর্ষ স্থানীয় রাজনৈতিক নেতার জেলা। তার এলাকায় এই প্রকল্পে কোন প্রকার অনিয়ম হলে আমাদের সকলকে জবাব দিহি করতে হবে। তাই ৫৩টি ঘরের জন্য জমি উদ্ধারে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেব, আমার এসি ল্যান্ড, প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও প্রকল্পবাস্তবায়ন কর্মকর্তা যখন যে সময় যে সমস্যার কথা বলেছে, আমার সাধ্য অনুযায়ী আমি তা পুরণ করার চেষ্টা করেছি। এই কাজটি একটি মহত কাজ। আমার কাছে মনে হয়েছে, এ কাজে যদি নিজেরও কিছু অবদান থাকে তা হলে নিজের কর্মজীবনে অনেক ধন্য মনে হবে। প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইদুর রহমান জানান, মুজিবর্ষে ভুমীহনি, গৃহহীন পুর্নবাসন প্রকল্প একটি খুব চ্যালেঞ্জিং প্রকল্প কেননা নির্ধারিত বরাদ্ধে এই বাজারে ঘর নির্মাণ বেশ কষ্টসাধ্য ব্যাপার। তার পরও উপজেলা চেয়ারম্যান, ইউএনও সাহেবের আন্তরিকাতায় এই প্রকল্প সদর উপজেলায় আসার পর থেকে আমরা জমির সন্ধানে নেমে পড়ি। জমি উদ্ধার যে কি ঝামেলা, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। জমির পর ঘর নির্মাণ। এই করোনাকালেও রাতদিন ঘরেরর তদারকিতে আমাকে মাঠে থাকতে হয়েছে। রোদ-বৃষ্টির মধ্যে কোথায় ঘর হচ্ছে। সেখানে হাজির হয়ে কি দিয়ে কাজ করছেন, কিভাবে করছেন সকল কিছু তদারকি শেষে এখন নিজের কাছে এত ভালো লাগছে। তিনি জানান, আপনার জানেন, মাননীয় প্রধামন্ত্রীর এই বিশেষ প্রকল্প নিয়ে অনেক সমালোচনা চলছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640