1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 6:53 pm
শিরোনাম :
আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের বার্ষিক বনভোজন-২০২৪ অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সভা কক্ষে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা অনুষ্টিত বারখাদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা ও পুরুস্কার বিতরণী দৌলতপুরের মাদক স¤্রাজ্ঞী শেফালী অস্ত্র ও ১৯৩৬ বোতল ফেন্সিডিলসহ র‌্যাবের হাতে আটক কয়া স্কুল মাঠে ফুটবল একাডেমির উদ্বোধনকালে এমপি আব্দুর রউফ তরুণ ও যুব সমাজকে মাদকের হাত থেকে রক্ষায় খেলাধুলার কোনো বিকল্প নেই  দৌলতপুরে বিস্তৃর্ণ চর পারাপারে এক মাত্র ভরসা মোটরসাইকেল কুষ্টিয়া মুজিবুর রহমান মোমোরিয়াল ডায়াবেটিক হসপিটালের উদ্যোগে ডায়বেটিস সচেতনতা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা কুষ্টিয়ায় সড়কে দুই ট্রাকের ধাক্কায় হেলপার নিহত আজ কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচন পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই : সংসদে প্রধানমন্ত্রী 

জীবন রক্ষায় টিকাদান কেন্দ্রে নারী পুরুষের উপচে পড়া ভিড়

  • প্রকাশিত সময় Sunday, July 11, 2021
  • 97 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় গত ২৪ ঘন্টায় আরও করোনা ও উপসর্গ নিয়ে ১৭ জনের মৃত্ব্য হয়েছে। এ নিয়ে জেলায় মোট ৩শ ৬৭ জন করোনা ও উপসর্গ নিয়ে মৃত্ব্যবরণ করলো। এ পর্যন্ত জেলায় সণাক্ত হয়েছেন ১০ হাজার ৪শ ৯২ জন। মৃত্ব্য আর সণাক্তের হার দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। কুষ্টিয়া শহর ও তার আশপাশ এলাকায় জ¦র, সর্দি, কাশি জনিত রোগ ছড়িয়ে পড়ায় মানুষের মনে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। অপরদিকে গতকাল থেকে হাসপাতালেরর আরপিও কেন্দ্র থেকে পরিবর্তন করে কুষ্টিয়া কলকাকলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নতুন টিকাদান কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। সরজমিনে দেখা যায়, জীবন রক্ষায় সেখানে এখন দীর্ঘ লাইন দিয়েছে।

কুষ্টিয়ায় করোনার টিকা নিতে কেন্দ্রে উপচে পড়েছে মানুষ। সেখানে সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মানার কোনো প্রবণতা দেখা যায়নি। কুষ্টিয়া শহরের কলকাকলি মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এই টিকাদান কার্যক্রম চলছে। রোববার সকাল ১০টা থেকে কলকাকলি বিদ্যালয় কেন্দ্রে টিকা কার্যক্রম শুরু হয়। তবে সেখানে সকাল সাতটা থেকে টিকা নিতে আসা মানুষের ভিড় বাড়তে থাকে। সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, গত পরশু থেকে কুষ্টিয়ায় শুধু একটি কেন্দ্রে করোনার টিকা দেওয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে। দুই দিন ধরে কুষ্টিয়া আরপিটিআই কার্যালয় কেন্দ্রে এই টিকা দেওয়া হচ্ছিল। তবে সেখানে মানুষের ভিড় বেশি হওয়ায় রোববার কেন্দ্র পরিবর্তন করা হয়। সরেজমিন সকাল ১০টায় গিয়ে দেখা যায়, বিদ্যালয়ের কক্ষে টিকা দেওয়া হচ্ছে। কক্ষ থেকে শুরু হওয়া লাইন বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে মাঠ এঁকেবেঁকে একেবারে প্রধান ফটকের বাইরে চলে গেছে। বাইরে ও সামনের সড়কেও এক শ থেকে দেড় শ মানুষের দীর্ঘ লাইন। সব মিলিয়ে অন্তত চার হাজার মানুষ আজ টিকা নিতে এই কেন্দ্রে এসেছেন। লাইনে দাঁড়িয়ে থাকা অন্তত ১০ জনের সঙ্গে কথা হলে তাঁদের মধ্যে সাতজন জানান, তাঁরা টিকার জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন তিন দিন আগে। কিন্তু কোনো এসএমএস পাননি। তারপরও এসেছেন টিকা নিতে। তিনজন জানালেন, তাঁরা এসএমএস পাওয়ার পর আজ টিকা নিতে এসেছেন। টিকাদান কক্ষের সামনে বেশ বড় জটলা দেখা গেল। সেখানে পেছন থেকে কয়েকজন ব্যক্তি কক্ষের ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করলে সামনে দাঁড়িয়ে থাকা মানুষের সঙ্গে তাঁদের বাগবিতণ্ডা হয়। টিকা নিতে আসা দিপালী বলেন, ‘সকাল সাড়ে ৮টায় এসেছিলাম। একটু আগে টিকা দিতে পারলাম। তবে ব্যাপক ভিড়, ধাক্কাধাক্কি; একটু ব্যবস্থাপনার অভাব বোধ করলাম।’ সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র বলছে, চীন থেকে আসা টিকা প্রথম ডোজ দেওয়া হচ্ছে। সব মিলিয়ে মাত্র ১ হাজার ৮০০ টিকা মজুত আছে। রোববার সারা দিনে ১ হাজার থেকে ১ ২০০ টিকা দেওয়া সম্ভব হতে পারে। কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, শনিবার শুধু ৩২৬ জনকে রোববার টিকা নেওয়ার জন্য এসএমএস পাঠানো হয়েছিল। কিন্তু মানুষ এসএমএস ছাড়াও শুধু রেজিস্ট্রেশন কার্ড নিয়ে টিকা নিতে এসেছে। কাউকে কিছু বলতে পারছেন না। তিনি আরও বলেন, পরিস্থিতি সামাল দিতে সেখানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ১৩ জন করোনায় আর ৪ জন উপসর্গ নিয়ে মারা যায়। শনিবার সকাল ৮টা থেকে রোববার সকাল ৮টা পর্যন্ত এদের মৃত্যু হয় বলে নিশ্চিত করেছেন কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবদুল মোমেন। এদিন জেলায় ৮৯২টি নমুনা পরীক্ষা করে ২৪৫ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার প্রায় ২৭.৪৪ শতাংশ। এদিকে হাসপাতাল ঘুরে দেখা যায়, শয্যা সংকটের কারণে অতিরিক্ত রোগীরা হাসপাতালের মেঝে, করিডোর এবং বারান্দায় চিকিৎসা নিচ্ছেন। রোগীর ভিড়ে সেখানেও পা ফেলার জায়গা নেই। গাদাগাদি করে চিকিৎসা নিচ্ছেন রোগীরা। কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আবদুল মোমেন বলেন, শনিবার দুপুর পর্যন্ত হাসপাতালে রোগী ভর্তি ছিলেন ৪২২ জন। এর মধ্যে করোনায় আক্রান্ত রোগী ছিলেন ১৯২ জন ও করোনা সন্দেহ রোগী ছিলেন ১৩০ জন। তিনি বলেন, কুষ্টিয়ায় করোনা হাসপাতাল হওয়ার পর একসঙ্গে ৪২২ জন রোগী ভর্তি এই প্রথম। এর আগে ২০০ রোগীর কাছাকাছি ভর্তি হয়েছে। তবে বর্তমান সময়ে যে পরিমাণ রোগী ভর্তি হচ্ছে, তা আগে কখনো হয়নি। এত রোগীর চাপ সামলাতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন, হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা, অক্সিজেন সিলিন্ডার পর্যাপ্ত পরিমাণে রয়েছে। কিন্তু আয়া, সুইপার, পিয়ন ও ফান্ডের অভাব রয়েছে। এই সমস্যা সমাধানের চেষ্টা চলছে। রোগীর চাপ দেখে মনে হচ্ছে আরও শয্যা বা ইউনিট বাড়াতে হবে। চিকিৎসক ও নার্সের সংখ্যাও বাড়াতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640