1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 2:39 am

কুষ্টিয়ায় করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণহীন ॥ চলে গেল আরও ৩০টি প্রাণ

  • প্রকাশিত সময় Saturday, July 10, 2021
  • 88 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ করোনা ও করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্ব্যর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। বিগত দিনের  তুলনায় অনেক চাপ বেড়েছে কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড জেনারেল হাসপাতালে। এতে কুষ্টিয়া করোনা পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়েছে। শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার রাত ৯টা পর্যন্ত গত ৩৭ ঘন্টায় করোনায়  হাসপাতালের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ২৭ জন এবং করোনা উপসর্গ নিয়ে আরও ৩ জনসহ মোট ৩০ জন মৃত্ব্যবরণ করেছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃত্যবরণ করেছেন ৩শ ৫০ জন। গতকাল শনিবার কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে নতুন করে আরও ২শ ৫৪ সণাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে জেলায় মোট ১০ হাজার ৩শ ৫৪ করোনা সণাক্ত হলো। করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল ঘোষণার পর থেকে এখানে করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি  বৃদ্ধি পেয়েছে। যদিও কার্যত প্রতিদিন রোগী ভর্তি থাকছেন ৩০০’রও বেশি। হাসপাতালের পুর্বের ওয়ার্ডগুলোকে করোনা ইউনিট ১,২.৩ করে ৪টি করোনা ওয়ার্ড করা হয়েছে। একটি অবজারভেশন এবং একটি আইসোলেশন ওয়ার্ড করা হয়েছে। সবগুলো ওয়ার্ডকে এখন সেন্ট্রাল অক্সিজেনের নিয়ন্ত্রণে নেয়া হয়েছে। আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভেন্টিলেটর সিষ্টেম করা হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের একটি সুত্র জানিয়েছে, আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভেন্টিলেটর সিষ্টেম ঠিকই আছে। কিন্তু এখানে যেভাবে ৪০-৪৫ অক্সিজেনের মাত্রার রোগীকে ভেন্টিলেশন দেয়া দরকার ঠিক সেভাবে ভেন্টিলেশন সিষ্টেম নেই। আর সে রকম দক্ষ লোকও নেই। সুত্রটি জানায়, ভেন্টিলেশন সিষ্টেমকে কার্যকর এবং দক্ষ টেকনিশিয়ান নিয়োগ এখানে জরুরী বলে মনে করেন ওই সুত্রটি।

এদিকে এখানে গত ১১ দিনে প্রায় ১৫৬ জন মানুষ করোনা ও করোনাজনিত উপসর্গ নিয়ে মৃত্ব্যবরণ করেছেন। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্ব্যর হার বৃদ্ধি পাওয়ায় কুষ্টিয়া পৌর গোরস্থানসহ শহরের তিনটি গোরস্থানে গোড় খদকদের উপর চাপও বৃদ্ধি পেয়েছে। কুষ্টিয়া পৌর গোরস্থানের প্রধান গোড় খদক নুরু মিয়া, জানান, চাপ কাকে বলে, প্রতিদিন ৬টা ৭টা লাশ আসছে। স্বাভাবিক মৃত্ব্যতো আছে এর সাথে এখন করোনায় মৃত্ব্য যোগ হওয়ায়, ভাতই খেতে পারছি না। চার জন মিলে কবর খুঁড়ছি। তার পরও রেষ্ট নেই। হাসপাতালের বাইরে ঠান্ডা, সর্দি নিয়ে বাড়িতেও চিকিৎসা নিচ্ছেন অসংখ্য করোনা রোগী। তারা বাড়িতেই অক্সিজেনের সিলিন্ডার কিনে ব্যবহার করছেন। এতে ব্যাপক চাহিদা বেড়েছে অক্সিজেনের; দামও বেড়েছে কয়েকগুণ। অনেক সময় অতিরিক্ত দামেও মিলছে না অক্সিজেন।

কয়েক দিন ধরে দেখা যাচ্ছে, ঘন ঘন অ্যাম্বুলেন্স ঢুকছে আর বের হচ্ছে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল থেকে। এসব অ্যাম্বুলেন্সে প্রবেশ করছে করোনা রোগী। তবে বের হওয়া অ্যাম্বুলেন্সে থাকছে লাশ। স্বজনদের আহাজারিতে হাসপাতালের পরিবেশ ভারি হয়ে উঠছে। অর্থাৎ প্রতি ঘণ্টায় মৃত্যু ঘটেছে একজনের। আগের দিন মারা গেছেন ২৪ জন। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের হিসাবের বাইরেও জেলার নানা জায়গায় মানুষ করোনাজনিত উপসর্গ নিয়ে মারা যাচ্ছেন। মারা যাচ্ছেন উপজেলাতেও। যাদের হিসাব নেই। অ্যাম্বুলেন্স ব্যবসায়ী মামুন জানান, অ্যাম্বুলেন্সের চাহিদা বেড়েছে। গ্রাম থেকে বেশি কল আসছে। এ ছাড়া লাশ নিয়ে প্রতি ঘণ্টায়ই যেতে হচ্ছে শহরের বাইরে। যেতে হচ্ছে ঢাকায় রেফার করা রোগী নিয়েও। চাহিদা ও ব্যস্ততা বেড়ে যাওয়ায় অ্যাম্বুলেন্সের ভাড়াও বেড়েছে বলে জানান তিনি। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের কর্মী রমজান জানান, এত রোগীর চাপ আগে কখনও দেখেননি। প্রতি ঘণ্টায় রোগী ভর্তি হচ্ছেন তিনজনেরও বেশি। কখনও কখনও একসঙ্গে ১০ জন রোগীও আসছেন। তখন রোগী বহনের ট্রলি সংকট দেখা দিচ্ছে। অক্সিজেনের স্টোরেও মিনিটে মিনিটে স্লিপ হাতে রোগীর আত্মীয়স্বজন আসছেন সিলিন্ডার নিতে। এক সপ্তাহ আগেও অক্সিজেনের সংকট ছিল শহরে। তবে এখন প্রচুর অক্সিজেন মজুদ রয়েছে। তাই চাপ সামাল দিতে বেগ পেতে হচ্ছে না।

এদিকে বর্ষা মৌসুম হওয়ায় কবর খুঁড়তে বেগ পেতে হচ্ছে। বেশির ভাগ কবরেই পানি উঠছে। শহরের একমাত্র মহাশ্মশানেও বেড়েছে সৎকারের সংখ্যা। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার তাপস কুমার সরকার বলেন, ‘হঠাৎ করেই মৃত্যু বেড়েছে। প্রায় প্রতি ঘন্টাই কেউ না কেউ মারা যাচ্ছেন। এক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিনই মারা যাচ্ছেন গড়ে ২০ জন-এর বেশি মানুষ। মানুষ হাসপাতালে আসছে বাড়িতে চিকিৎসা নিতে নিতে অবস্থা অনেক খারাপ হওয়ার পর, অপিজেন লেভেল অনেক নিচে নেমে গেলে। তিনি বলেন, তিনটির বেশি ওয়ার্ডে এখন সেন্ট্রাল অপিজেন চালু করা হয়েছে। প্রচুর সিলিন্ডার মজুদ রয়েছে। তবে ওষুধ সংকট রয়েছে।’ জেলা শহরের সবক’টি অক্সিজেন সিলিন্ডার বিক্রির দোকানেই এখন উপচেপড়া ভিড়। কারণ বাড়িতে চিকিৎসারত অনেকেরও অক্সিজেন লাগছে। তারা বাইরে দোকান থেকে অক্সিজেন কিনছেন। কোনো কোনো স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন অনেক সময় ফ্রি সার্ভিস দিচ্ছে। অক্সিজেনের দোকান মালিক আক্তারুজ্জামান লাবু জানান, অক্সিজেনের চাহিদা কয়েকগুণ বেড়েছে। মিনিটে মিনিটে ফোন আসছে অক্সিজেনের জন্য। দামও আগের তুলনায় বেড়েছে। হাসপাতালে দায়িত্বরত চিকিৎসকরা বলছেন, কঠিন পরিস্থিতি মোকাবিলা করতে তারা হিমশিম খাচ্ছেন। কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজের সহকারী অধ্যাপক আকরামুজ্জমান মিন্টু বলেন, ‘সাত-আট দিন ধরে রোগীরা আসছেন ডেলটা ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে। অনেকে বাড়িতে সাত-আট দিন আইসোলেশনে থাকার পর অবস্থা সাংঘাতিক খারাপ হওয়ার পর বলতে গেলে শেষ সময়ে আসছেন। বেশির ভাগেরই অপিজেন লেভেল তখন আশির নিচে। চিকিৎসকদের ওই সময় কিছুই করার থাকছে না।’ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আবদুল মোমেন বলেন, ‘প্রতিদিনই ৬০-৭০ জন নতুন রোগী ভর্তি হচ্ছেন। ভেন্টিলেটর প্রসঙ্গে বলেন, সব ধরণের ব্যবস্থা করতে আমরা চাহিদা পাঠিয়েছি।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640