1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 4:02 pm

লাগামহীন করোনা ॥ খুলনা বিভাগে সর্বচ্চ কুষ্টিয়ায় একদিনে মৃত্ব্য ২১ ॥ হাসপাতালে ভর্তি ২৭৩ 

  • প্রকাশিত সময় Sunday, July 4, 2021
  • 98 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কোন ভাবেই করোনার লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না। বলগা হরিণের ন্যায় ছুটে চলেছে শহর থেকে উপজেলায়, ইউনিয়নে, প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে মহামারি করোনা। শহরের বহুতল ভবন, ফ্ল্যাট, সুইট ছেড়ে গ্রামের টিন সেড, অথবা মাটির ঘর, ফসলের মাঠ, হাট, বাজার, বিপণী বিতান, অফিস, আদালত, হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, ডায়াগণষ্টিক সেন্টার, ওষুধ ফার্মেসীসহ সব খানে করোনা দানব যেন ঘাপটি মেরে রয়েছে। সুযোগ পেলেই আক্রান্ত করছে মানবদেহে। গত চব্বিশ ঘন্টায়  খুলনা বিভাগে সর্বচ্চ কুষ্টিয়ায় করোনা ও উপসর্গ নিয়ে মৃত্ববরণ করেছেন ২১ জন। এরা সকলেই কুষ্টিয়া ২শ ৫০ শর্য্যার হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এ নিয়ে জেলায় মোট মৃত্ব্যবরণ করলেন ২৪১ জন। সণাক্তের সংখ্যা  দাঁড়িয়েছে ৮ হাজার ৪৭৫ জনে। অপরদিকে ৬টি উপজেলায় কমবেশি করোনা মোকাবেলা করার সক্ষমতা থাকলেও তারা জেলা হাসপাতালে রেফার্ড করেই দায়িত্ব শেষ করছে। নেই চিকিৎসক, টেকনিশিয়ান, পর্যাপ্ত পরীক্ষা-নিরিক্ষার ব্যবস্থা, অক্সিজেনের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা। অথচ ফি বছর সকল উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে একটি বৃহত অংকের বাটে বরাদ্ধ দিয়ে থাকেন। তার পরও দৌলতপুর, মিরপুর, ভেড়ামারা, কুমারখালী ও খোকসা উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে সাধারণ চিকিৎসা সেবার মান সাধারণত নিচের দিকেই থাকে। করোনা আসার পর থেকে গেল দুই বছর এখন হাল ছেড়ে দিয়েছে বলে জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। সদর উপজেলাসহ ৬টি উপজেলা হাসপাতালে করোনা রোগীর চাপ নিতে হিমশিম খাচ্ছে জেলার করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের। এ অবস্থায় জেলা জুড়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। আর তাই করোনায় আক্রান্ত হলেই নিস্তার নেই। এখন মৃত্ব্য যেন অনেকটাই ভাগ্যের উপর নির্ভর করছে। স্বাস্থ্যবিধির বিকল্প নেই, আল্লাহর রহমত, টিকা আর মাক্স অনিবার্য হয়ে পড়েছে।

কুষ্টিয়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১৫ জন ও উপসর্গ নিয়ে আরও ৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে করোনায় ১৩ জন ও উপসর্গে ৬ এবং কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনায় ১ জন ও নিজ বাড়িতে করোনায় ১ মারা গেছেন। খুলনা বিভআগের মধ্যে কুষ্টিয়া জেলায় ২৪ ঘণ্টায় এটিই সর্বোচ্চ মৃত্যু। রোববার করোনা ইউনিটে ১৯ জনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. এম এ মোমেন। এদিকে কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন করোনায় আক্রান্ত একজন এবং বাড়িতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও একজন করোনা রোগী মারা গেছেন। মৃত দুজনের বাড়িই উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নে। কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আকুল উদ্দিন করোনা আক্রান্ত দুজনের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ২৫০ বেডের করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে এখন শয্যার চেয়ে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেশি। করোনা আক্রান্ত এবং উপসর্গ নিয়ে রোববার সকাল সাড়ে ৯টা পর্যন্ত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৭৩ জনে। এরমধ্যে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাই ২০৫ জন। আর উপসর্গ নিয়ে ভর্তি রয়েছেন আরও ৬৮ জন। হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. তাপস কুমার সরকার জানান, শয্যা না থাকায় এখন রোগীদের মেঝেতে রাখতে হচ্ছে। প্রতিদিনই হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত এবং উপসর্গ নিয়ে আসা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। রোগীর চাপ যেভাবে বাড়ছে তাতে সেবা প্রদান করা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।’

এদিকে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তীব্র অক্সিজেন সঙ্কট দেখা দিয়েছে। বিশেষ করে দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ সমস্যা আরও প্রকট আকার ধারণ করেছে। সবচেয়ে বৃহৎ আয়তনের এ উপজেলাতে ৫০ শয্যার স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ৩০ জনের মতো করোনা রোগীর চিকিৎসা চলছে, যার মধ্যে ১৬ জনের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন। দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে জরুরী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত মেডিকেল অফিসার ডা. ফরহাদ হোসেন জানান, হঠাৎ করে করোনা রোগী বৃদ্ধি পাওয়ায় হাসপাতালে অক্সিজেন সঙ্কট দেখা দিয়েছে। যে কয়টি অক্সিজেন বর্তমানে রয়েছে জরুরী প্রয়োজন হলে এক রোগীর কাছ থেকে খুলে নিয়ে আরেক রোগীকে দিয়ে সাময়িকভাবে পরিস্থিতি সামাল দেয়া হচ্ছে। এ অবস্থা অব্যাহত থাকলে পরিস্থিতি মোকাবিলা করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। দৌলতপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. তৌহিদুল হাসান তুহিন জানান, ৪৮টি সিলিন্ডার দিয়ে সেবা দেয়া হচ্ছে। বর্তমানে পরিস্থিতি যে দিকে যাচ্ছে তা সামাল দিতে আরও অন্তত ১০০ সিলিন্ডারসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য সরঞ্জাম প্রয়োজন। এছাড়া এই হাসপাতালে কোনো মেডিসিন কনসালটেন্ট নেই। চিকিৎসকরাও করোনা আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন। কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ৬০৯টি নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে নতুন করে ১৯৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩১ দশমিক ৬৯ ভাগ। এ নিয়ে জেলায় করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াল ৮ হাজার ৪৭৫ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৫ হাজার ৬৮৯ জন। মৃত্যুর সংখ্যা গিয়ে দাঁড়িয়েছে ২৪১ জনে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640