1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 4:04 am

মূল শক্তি ছিল জিয়া, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যা ঃ প্রধানমন্ত্রী

  • প্রকাশিত সময় Saturday, July 3, 2021
  • 94 বার পড়া হয়েছে

ঢাকা অফিস ॥ প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বিএনপির কঠোর সমালোচনা করে বলেছেন, অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী এক সামরিক স্বৈরশাসকের পকেট থেকে যে দলের (বিএনপি) সৃষ্টি তারা গণতন্ত্রের কি বুঝে। তারা আমাদের কি গণতন্ত্র শেখাবে? বিএনপি কি গণতন্ত্র দিয়েছিল, জিয়াউর রহমান দিয়েছিল কারফিউ গণতন্ত্র। ১৫ ফেব্র“য়ারির মতো প্রহসনের নির্বাচন করে যারা (বিএনপি) জনগণের রূদ্ররোষে পদত্যাগে বাধ্য হয়- তারা গণতন্ত্রের সংজ্ঞা কী বুঝাবে? যাদের জন্মই অবৈধভাবে, সামরিক উর্দি পরে- আজ তাদের মুখেই শুনতে হয় গণতন্ত্রের সংজ্ঞা! ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যার যে পরিকল্পনা হয় তার মূল শক্তি ছিল এই জিয়াউর রহমান। জিয়াউর রহমান তাদের সঙ্গে না থাকলে কোনদিনও এ ষড়যন্ত্র করতে পারত না। বিএনপির কাছে গণতন্ত্র মানেই ভোগের বস্তু, আর আওয়ামী লীগের কাছে ক্ষমতা মানে জনগণের কল্যাণ করা। আমরা সেই কাজটাই করে যাচ্ছি।
স্কুল-কলেজ খোলার দাবি করে ছেলেমেয়েদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেবেন কিনা, সংসদ সদস্যদের তা বিবেচনা করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া শিখবে, কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারি না। টিকা দেয়ার পরে আমরা সব স্কুল খুলে দেব। করোনার টিকা নিয়ে দুঃশ্চিন্তা না করার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, যত লাগে টিকা কিনব। তার জন্য বাজেটে আলাদা টাকা রাখা আছে। আমরা ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছি দেশের ৮০ ভাগ লোককে টিকার আওতায় নিয়ে আসব। বেশি দামে টিকা কিনে তা বিনামূল্যে জনগণকে দেয়া হচ্ছে। আওয়ামী লীগকে কেউ ধ্বংস করতে পারবে না উল্লেখ করে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করার অনেক চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু পারেনি, পারবেও না। কেন না আওয়ামী লীগের শেকড় অনেক শক্তিশালী, অনেক গভীরে প্রোথিত।
স্পীকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শনিবার জাতীয় সংসদের ত্রয়োদশ (বাজেট) অধিবেশনে সমাপনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তৃতায় চলমান লকডাউনে দেশবাসীকে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি সংসদে বিএনপি ও বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্যদের বিভিন্ন বক্তব্যের জবাব দেন। প্রধানমন্ত্রীর সমাপনী বক্তব্যের পর স্পীকার রাষ্ট্রপতির আদেশ পাঠ করে সংসদ অধিবেশনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।
বিএনপি-জিয়া দিয়েছিল কারফিউ গণতন্ত্র ঃ জিয়া-খালেদা জিয়া-এরশাদ একই বৃত্তের কয়েকটি ফুল উল্লেখ করে সংসদ নেতা তাঁদের শাসনামলের কঠোর সমালোচনা করে বলেন, উর্দি পরে ক্ষমতায় এসে জিয়াউর রহমানের শখ হলো রাজনীতিবিদ হওয়ার। উর্দি পরে ক্ষমতায় এসে আবার রাজনীতিতে নামলেন, আর সেই অবৈধ ক্ষমতাদখলকারী সামরিক জান্তার পকেট থেকে জন্ম নেয়া দলই হচ্ছে বিএনপি। বিএনপির অর্থ হলো- বি মানে ‘বাংলাদেশ’, এন মানে ‘না’, পি মানে ‘পাকিস্তান হ্যাঁ’। অর্থাৎ বাংলাদেশ না, পাকিস্তান হ্যাঁ। এই হলো তাদের রাজনীতি, এই হলো বিএনপির গণতন্ত্র।
তিনি বলেন, যদি বিএনপি ও এরশাদের আমলের কাহিনী বলতে থাকি তাহলে অনেক সময় লেগে যাবে। জিয়াউর রহমান অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে প্রতিরাতে কারফিউ দিয়েছিল। ১৯৮১ সালে যখন বাংলাদেশে আসি তখন শুনি কারফিউ। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু হত্যার পর থেকে ১৯৮০ সাল পর্যন্ত কারফিউ। বিএনপি কি গণতন্ত্র দিয়েছিল, জিয়াউর রহমান দিয়েছিল কারফিউ গণতন্ত্র। অনেক দল করার সুযোগ দিয়েছিল এটা ঠিক, কিন্তু সেখানে গণতান্ত্রিক চর্চা ছিল না। আর ওই সময় নির্বাচনের ফলাফল তা আগেই ঠিক করা থাকত। ১৯৭৮ সালের ‘হ্যাঁ-না’ ভোট, ’৭৯ সালের নির্বাচন সবই ছিল খেলা। তার পরবর্তীতে এরশাদ সাহেবের আমলে ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে ৪৮ ঘণ্টা ভোটের ফলাফল আটকে রেখে আওয়ামী লীগকে হারাল। আসলে জিয়া-খালেদা জিয়া-এরশাদ সব একই বৃত্তের কয়েকটি ফুল। খালেদা জিয়ার শাসনামলের কথা তুলে ধরে সংসদ নেতা বলেন, খালেদা জিয়া তাঁরাও একই কাজ করেছে। ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচন। সেই নির্বাচন পরিচালনা করেছিল বিচারপতি সাদেক আলী। কোন ভোটার নেই, চারিদিকে আর্মি দিয়ে কোন ভোটার যেতে দিল না, অথচ ভোট হয়ে গেল। ১৫ ফেব্রুয়ারির প্রহসনের নির্বাচন করে খালেদা জিয়া ক্ষমতায় বসেছিলেন। এরপর ৩০ মার্চ জনগণের আন্দোলনের মুখে খালেদা জিয়া পদত্যাগে বাধ্য হয়। ১৫ ফেব্রুয়ারির মতো যারা নির্বাচন করতে পারে, ভোট চুরির অপরাধে জনগণের আন্দোলনে যারা পদত্যাগে বাধ্য হয়- তারা (বিএনপি) কিভাবে গণতন্ত্র দিয়েছে? সংসদে তারা গণতন্ত্রের সংজ্ঞা কী বোঝাবে? আওয়ামী লীগকে কেউ ধ্বংস করতে পারবে না ঃ আওয়ামী লীগকে কেউ ধ্বংস করতে পারবে না উল্লেখ করে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ মাটি ও মানুষ থেকে গড়ে ওঠা রাজনৈতিক দল। জনগণের অধিকার, ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে মানুষের বাঁচার অধিকার এবং এই দেশকে স্বাধীন করার পুরো পরিকল্পনা নিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ গঠিত। তিনি বলেন, আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করার অনেক চেষ্টা করা হয়েছে কিন্তু পারেনি, পারবেও না। কেননা আমাদের আওয়ামী লীগের শিকড় অনেক শক্তিশালী ও গভীরে। আর গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া দিয়ে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে বলে টিকে থাকতে পারে। আর টিকে থাকতে পারে বলেই দেশের উন্নয়ন হয়। আর যারা এভাবে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে তারা ক্ষমতা হারাই, ভয়ে শুধু টাকা বানাতে থাকে, পয়সা বাড়াতে থাকে, ভোগবিলাসে মত্ত ও হাইফাইভাবে চলা এসব কাজ করে। বাংলাদেশের মানুষের দিকে কেউ ফিরে তাকায় না। আজকে আমরা মানুষের দিকে তাকাচ্ছি, মানুষের জন্য কাজ করছি বলেই কিন্তু দেশের মানুষ আজ পেট ভরে খেতে পাচ্ছে, মানুষের ঘর হচ্ছে, চিকিৎসা পাচ্ছে, বাঁচার জন্য উন্নত জীবনের স্বপ্ন দেখতে পাচ্ছে। জাতির পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়ন করা আমাদের দায়িত্ব এবং সে দায়িত্ব বাস্তবায়ন করার জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। যাদের ছেলেমেয়ে স্কুলে যায় না, তারাই বেশি সোচ্চার ঃ স্কুল খোলার দাবি করে দেশের ছেলেমেয়েদের মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেবেন কিনা সংসদ সদস্যদের তা বিবেচনা করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া শিখবে, কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারি না। টিকা দেয়ার পরে আমরা সব স্কুল খুলে দেব। সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদেরের এ প্রসঙ্গে দেয়া বক্তব্যের জবাব দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী তাঁর সরকারের সময় শিক্ষা খাতের উন্নয়নে নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন। তিনি বলেন, যাদের ছোট ছোট ছেলেমেয়ে স্কুল-কলেজ-ইউনিভার্সিটিতে যায়, তারাই কিন্তু তাদের বাচ্চাদের স্কুলে পাঠাতে চান না। তবে যাদের ছেলেমেয়ে লেখাপড়া করে না, ইদানিং সবচেয়ে বেশি সোচ্চার তারা! পড়ানোর মতো ছেলেমেয়ে নেই, তাঁরাই বেশি কথা বলে। কিন্তু যারা যায়, তারা তো চাচ্ছেন না। সংসদ নেতা বলেন, আমরা সর্বস্তরে শিক্ষাবৃত্তি দিয়ে যাচ্ছি। বিনা পয়সায় বই দিচ্ছি। করোনাকালে স্কুল শুরু হবে এজন্য শিক্ষার্থীদের স্কুল ড্রেস, জুতো, ব্যাগ কেনা ও স্কুল ফিডিংয়ের জন্য বাজেটে টাকা রেখেছি। স্কুল বন্ধ আছে কিন্তু পড়াশোনা যাতে বন্ধ না হয় সেজন্য সংসদ টিভি চালু আছে। আমরা রেডিও উন্মুক্ত করে দিয়েছি। রেডিও’র মাধ্যমে পাঠদান চলছে। যেভাবে সম্ভব পড়াশোনার কাজটি চালিয়ে রাখতে সক্ষম হচ্ছি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার দাবির জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, স্কুল বন্ধ এজন্য একটু ক্ষতি হচ্ছে। টিকা দেয়ার পরে আমরা সব স্কুল খুলে দেব। এর আগে আমরা যখন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নিলাম তখনই সারা বিশ্বে করোনাভাইরাস মহামারী এমনভাবে ছড়িয়ে পড়ল যে, তার ধাক্কা এসে পড়ল আমাদের মাঝে। এখন তো শিশুদেরও করোনা সংক্রমণ হচ্ছে। লেখাপড়া শিখবে কিন্তু এটার জন্য জেনেশুনে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেব কিনা তা সংসদ উপনেতাকে একটু বিবেচনা করতে বলব। বলার জন্য বলতে পারেন, কিন্তু এটাও একটু চিন্তা করবেন ছেলেমেয়েদের মৃত্যুর মুখে দেবেন কিনা? এ প্রসঙ্গে উদাহরণ তুলে ধরে সংসদ নেতা বলেন, বিদেশে আমরা দেখেছি সবই অনলাইন। কিছু দেশে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান একটু খুলল, এরপরই আবার মহামারী ছড়িয়ে পড়ল। সঙ্গে সঙ্গে সব বন্ধ। আবার ঘরে বসে কাটাচ্ছে। তবে তারা অপশনও দিচ্ছে। যারা ঘরে বসে পড়বে তারা পড়ছে। যারা যাচ্ছে স্কুলে যাচ্ছে। আবার যখন করোনা বেশি ছড়ায় সঙ্গে সঙ্গে বন্ধ করছে। শুধু বাংলাদেশ কেন এখন সারা বিশ্বে এই অবস্থা। সেটা সবাইকে ভাবতে হবে বলে সরকারপ্রধান মন্তব্য করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ইতোমধ্যে শিক্ষকদের টিকা দিয়েছি। শিক্ষার্থীদেরও টিকা দেব। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কতগুলো নির্দেশনা মেনে চলতে, কোন টিকা কোন বয়স পর্যন্ত দেয়া যাবে। সেটা তারা প্রথমে পরামর্শ দেয় সেটা মেনেই চলতে হয়। সেই হিসাব করে আমরা ইতোমধ্যে টিকা আনতে শুরু করেছি। টিক দেয়ার পরে আমরা সব স্কুল খুলে দেব। বিএনপি ও জাতীয় পার্টির আমলে শিক্ষাঙ্গনে অস্ত্রের ঝনঝনানি, খুন-খারাবি, সেশনজটের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাদের আমলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অবস্থা কী ছিল? প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে খুন-খারাবি লেগেছিল। বোমাবাজি, গুলি, খুন, ক্লাস বন্ধ, সেশনজট ছিল নিত্য ঘটনা। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে কত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ৭ মার্চের ভাষণ বাজানোর কারণে ছাত্রনেতা চুন্নুকে খালেদা জিয়ার নির্দেশে হত্যা করা হয়। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ড. ইউনুসকে হত্যা, প্রফেসর তাহেরকে মেরে ছাত্রদের লাশ মেনহলে ফেলে রাখা হয়েছিল। চট্টগ্রামে তো সবসময় লাশ পড়ত। আমরা সরকারে আসার পর অন্তত এগুলো বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছি। এখন সেই বিএনপি ও জাতীয় পার্টির মুখে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিয়ে নানা কথা শোনা যায়। দেশের সবাইকে বিনামূল্যে টিকা দেব ঃ বিশ্বের যে দেশেই করোনার টিকা আবিষ্কার হচ্ছে সেই দেশে সঙ্গে সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যেখানে যেখানে টিকা পাওয়া যাচ্ছে, আমরা সঙ্গে সঙ্গে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছি, আরও টিকা নিয়ে আসব। যত লাগে টিকা কিনব। তার জন্য বাজেটে আলাদা টাকা রাখা আছে, এজন্য কোন চিন্তা করতে হবে না। তিনি বলেন, টিকা আসতে শুরু হয়েছে কোন অসুবিধা হবে না। আমরা ইতোমধ্যে ঘোষণা দিয়েছি দেশের ৮০ ভাগ লোককে টিকার আওতায় নিয়ে আসব। বেশি দামে টিকা কিনে তা বিনামূল্যে জনগণকে দেয়া হচ্ছে। সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রসঙ্গে সংসদ নেতা বলেন, জনগণকে গত ঈদ-উল-ফিতরে বার বার অনুরোধ করলাম আপনারা আপনাদের জায়গা ছেড়ে যাবেন না, কিন্তু অনেকেই তো সে কথা শোনেন নাই, সকলেই ছুটে চলে গেছেন।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640