1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 3:29 am

আসছে সাট ডাউন বাস্তবায়নে শহর ও গ্রামাঞ্চলে কঠোর অবস্থান সড়ক আইনের মত, রোগ সংক্রমন আইনেও ক্ষমতা পেলে করোনা রোধ সহজ হতোঃ মোঃ খাইরুল আলম

  • প্রকাশিত সময় Saturday, June 26, 2021
  • 170 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় বিশ্ব বিধবংসী করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কুষ্টিয়ায় যোগদানের প্রথম দিন থেকেই পুলিশ সুপার খাইরুল আলম মাস্ক হাতে শহরের বিভিন্ন সড়কে পথচারী, পরিবহনের যাত্রী ও বাস্তবায়নেরর পাশের বাড়ি বাড়ি নিজ হাতে মাস্ক বিতরন করেন। কঠোর লকডাউন শুরুর প্রথম দিন থেকেই তিনি হাতে মাইক নিয়ে ছুটছেন শহরের এ প্রান্ত থেকে শেষ প্রান্তে। বেরিকেড দিয়েছেন শহরের প্রবেশ মুখের ৭টি পয়েন্ট। সেখানে পুলিশের সার্বক্ষনিক কঠোর পাহারা বসিয়েছেন। এছাড়াও তিনি শহরে একাধিকবার জনসচেতনতার জন্য জেলা পুলিশের র‌্যালী ও নিজ হাতে প্রচার পত্র বিতরণ করেন। বর্তমানে রাত পোহালেই তিনি জেলা পুলিশের টিম নিয়ে করোনা প্রতিরোধে নিজেই মাঠে নামছেন। পুলিশ সুপারের প্রতিদিন একাধিকবার মাঠে নামার কারনে দিনে দিনে মানুষ সচেতন হচ্ছে। প্রথম দিকে শহরে যে পরিমান মানুষের, গণপরিবহনের চলাচল ছিলো তা এখন নেই বললেই চলে। রোগী পরিবহন এবং নিত্য প্রয়োজনীয় পন্য ক্রয় ছাড়া কোন মানুষকে বাইরে দেখা যাচ্ছে না। পুলিশ সুপার যে এলাকায় যাচ্ছেন সেই এলাকা যেন অঘোষিত কারফিউ পরিণত হচ্ছে। মানুষের মধ্যে ব্যাপক জনসচেতনতা সৃষ্টি হচ্ছে। গতকাল কুষ্টিয়া শহরের প্রবেশমুখ হরিপুর সেতু উত্তর দিকের চেক পোষ্ট পরিদর্শন, ছয় রাস্তার মোড়, মজমপুর গেট সহ শহরের বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন এবং জনসচেতনতামূলক কথা নিজ হাতে মাইক নিয়ে প্রচারনা চালান। প্রচারভিযানকালে পুলিশ সুপার মোঃ খাইরুল আলম জানান, চলমান লকডাউনে অফিস আদালত খোলা আছে, ব্যাংক বীমা খোলা আছে। এতে স্বাস্থ্যবিধি মান্য করা খুব কঠিন হয়ে পড়ছিল। মানুষকে মানানো যাচ্ছি না। যদি সাট ডাউনের মাধ্যমে সকল অফিস-আদালত বন্ধ করে দেয়া হয়। তা হলে মাঠে পুলিশ কঠোর ভাবে কাজ করতে পারবে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও আইজিপি সাহেবের নির্দেশ মোতাবেক সারাদেশের ন্যায় কুষ্টিয়া পুলিশও কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মানাতে জনগণের পাশে থেকে কাজ করছে, আগামীতে করবে। কোন প্রকার ছাড় নয়, বিভিন্ন উপজেলা, ইউনিয়ন, ওয়ার্ড পর্যায়ে প্রতিটি ক্যাম্পে নিদের্শনা দেয়া হয়েছে মানুষকে ঘরে থাকতে ব্যবস্থা গ্রহন করতে। স্বাস্থ্যবিধিতে পুলিশের ম্যাজিষ্ট্রেসী পাওয়ার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সড়ক পরিবহন আইনে পুলিশ অনিয়ন্ত্রিত, আইন ভঙ্গকারী যানবাহন ও ব্যক্তিকে জরিমানা করে এবং সে জরিমানার টাকা নগদে আদায় করেও চালানের মাধ্যমে সরকারের ঘরে জমা দেয়। ঠিক এমননি ভাবে যদি রোগ সংক্রমন আইনে পুলিশের হাতে দন্ডবিধি দেয়া হতো তা হলে এই করোনা ভাইরাসকে খুব সহজে মোকাবেলা করা যেত।  এ সময় উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ), জনাব মোঃ ফরহাদ হোসেন খাঁন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (জেলা বিশেষ শাখা), জনাব মোঃ রাজিবুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(সদর), জনাব মোঃ আতিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সদর সার্কেল কুষ্টিয়াসহ অফিসার ইনচার্জ, কুষ্টিয়া মডেল থানা, টিআই-০১, সদর ট্রাফিক, কুষ্টিয়া, জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ও জেলা পুলিশের সকল অফিসার ও ফোর্সগণ।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640