1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 8:05 pm
শিরোনাম :
আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের বার্ষিক বনভোজন-২০২৪ অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সভা কক্ষে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা অনুষ্টিত বারখাদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা ও পুরুস্কার বিতরণী দৌলতপুরের মাদক স¤্রাজ্ঞী শেফালী অস্ত্র ও ১৯৩৬ বোতল ফেন্সিডিলসহ র‌্যাবের হাতে আটক কয়া স্কুল মাঠে ফুটবল একাডেমির উদ্বোধনকালে এমপি আব্দুর রউফ তরুণ ও যুব সমাজকে মাদকের হাত থেকে রক্ষায় খেলাধুলার কোনো বিকল্প নেই  দৌলতপুরে বিস্তৃর্ণ চর পারাপারে এক মাত্র ভরসা মোটরসাইকেল কুষ্টিয়া মুজিবুর রহমান মোমোরিয়াল ডায়াবেটিক হসপিটালের উদ্যোগে ডায়বেটিস সচেতনতা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা কুষ্টিয়ায় সড়কে দুই ট্রাকের ধাক্কায় হেলপার নিহত আজ কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচন পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই : সংসদে প্রধানমন্ত্রী 

(হাসপাতালের বারান্দায় স্বজনদের আহাজারি বাড়ছে) কুষ্টিয়ায় করোনায় একদিনে ১০ জনের মৃত্যু  #হাসপাতালে অক্সিজেন সংকট#

  • প্রকাশিত সময় Saturday, June 19, 2021
  • 118 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে ২৪ ঘন্টায় ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। মারা যাওয়াদের সবাই করোনা পজেটিভ হয়ে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এর মধ্যে শুক্রবার রাতে ৭ জন ও শনিবার সকালে একজন মারা গেছেন। গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় নতুন করে ১১২ জন রোগি সনাক্ত হয়েছে। সনাক্তের হার প্রায় ৩২ শতাংশ। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. তাপস কুমার সরকার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রাতে ৭ জন মারা গেছে। আর সকালে মারা গেছে একজন। এটি কুষ্টিয়া  একদিনে এ যাবতকালের সব থেকে বেশি মৃত্যু। এদিকে, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডে ১০০ শয্যার বিপরিতে বর্তমানে ১১৩ জন রোগি ভর্তি রয়েছেন। ওয়ার্ডে নতুন করে আর কোন রোগি ভর্তির সুযোগ নেই। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে জেনারেল হাসপাতাল থেকে ৩০ জন সাধারণ রোগিকে পাশের মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ডায়াবেটিক হাসপাতালে স্থানাস্তর করেছে কর্তৃপক্ষ। এদিকে, হাসপাতালে অক্সিজেন সংকট দেখা দিয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলো থেকে যেসব রোগিকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছে, সেসব রোগির প্রত্যেকেরই অক্সিজেন প্রয়োজন হচ্ছে। সিভিল সার্জন এইচএম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, শহর থেকে প্রায় প্রতিটি গ্রামে করোনা ছড়িয়ে পড়েছে। এটা ভারতীয় ডেলটা প্রকৃতির মনে হচ্ছে। কারণ আইসোলেশন ওয়ার্ডে এর আগে রোগীদের এটেনডেন্টরা কখনো আক্রান্ত হননি। কিন্তু এখন হচ্ছেন। তিনি বলেন, আমরা জেলায় কঠোর লকডাউনের পরামর্শ দিয়ে এলেও করোনা প্রতিরোধ কমিটি তা আমলে নেয়নি। বৃহস্পতিবার জেলায় ৩৯৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৫৬ জনের। একই সময়ে মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। শনাক্তের হার ৪০ শতাংশের ওপরে। আগের দিন বুধবার ২৭৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৭৩ জন করোনা পজিটিভ হয়েছেন, মৃত্যু হয়েছে ৩ জনের। মঙ্গলবার ২৩৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছে ৯৮ জন, মৃত্যু হয়েছে ১ জনের। গণমাধ্যম কর্মী নুরুল কাদের বলেন, শহরে দুই-একটি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা ও শহরের প্রবেশমুখে কিছু গাড়ি আটকে দেওয়া ছাড়া আর কোনো তৎপরতা চোখে পড়েনি। শহরের ব্যবসায়ী এম জেড সাঈদী বলেন, শহরে বিধিনিষেধ বলে তেমন কিছুই ছিল না, সবকিছুই স্বাভাবিকভাবে চলে। শহরজুড়েই যানজট ছিল। কেউ স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা করছেন না। এই পরিস্থিতিতে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি গত ১১ জুন মধ্য রাত থেকে অধিক সংক্রমিত কুষ্টিয়া পৌর এলাকায় ৭ দিনের কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে। তবে এই বিধিনিষেধ অনেকটা কাগজে কলমেই সীমাবদ্ধ ছিল। মাঠ পর্যায়ে তা খুব একটা কার্যকর হতে দেখা যায়নি। গতকাল শুক্রবার ওই বিধিনিষেধের মেয়াদ শেষ হলে নতুন করে আরো ৭ দিনের  কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে করোনা প্রতিরোধ কমিটি। তবে আজ শনিবার সকাল থেকে এই বিধিনিষেধ কার্যকর করতে প্রশাসনের ব্যাপক তৎপরতা লক্ষ করা গেছে। প্রসঙ্গত, ঈদের পর থেকে কুষ্টিয়ায় করোনা সংক্রমনের মাত্রা কিছুতেই বাগে আসছেনা, ক্রমশ বেড়েই চলেছে। গতকাল শুক্রবারও আক্রান্তের সংখ্যা শতাধিক ছাড়িয়েছে।  এদিন নতুন করে আরো ১১২ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছে। শুক্রবার কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পিসিআর ল্যাবে মোট ৩৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে ১১২টি নমুনা পজিটিভ হয়। পরীক্ষার বিপরীতে আক্রান্তের হার প্রায় ৩২ শতাংশ। নতুন শনাক্ত হওয়ার রোগীর মধ্যে সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৭৫ জন, কুমারখালী উপজেলায় ১৬ জন, মিরপুর উপজেলায় ৪ জন,  দৌলতপুরে ৫ জন, খোকসা উপজেলায় ৪ জন ও  ভেড়ামারা উপজেলায় ৮ জন  রোগী শনাক্ত হয়েছে। এদিন আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মারা গেছেন ১ জন। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো  ৬১৭৫ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪৯৬৯ জন মানুষ। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন  জন ১৪৮ জন মানুষ। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আবদুল মোমেন বলেন, দুশ্চিন্তার মধ্যে আছি। চিকিৎসকেরা আক্রান্ত হচ্ছেন। ২৫০ শয্যার এই হাসপাতালকে কোভিড ডেডিকেটেড ঘোষণা ছাড়া কোনো উপায় দেখছি না। এ বিষয়ে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম জানান, জেলায় কঠোর লকডাউনের ব্যাপারে আলাপ-আলোচনা করে খুব দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640