1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 11:46 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

প্রধানমন্ত্রীর উপহার চরসাদীপুর গুচ্ছ গ্রাম ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় জলাবদ্ধতায় আশ্রয়ণ প্রকল্প

  • প্রকাশিত সময় Saturday, June 19, 2021
  • 140 বার পড়া হয়েছে

কুমারখালী প্রতিনিধি ॥ “মুজিব শতবর্ষ” উপলক্ষে সারাদেশের ন্যায় দেশনেত্রী শেখ হাসিনার উপহার হিসেবে কুষ্টিয়া জেলার কুমারখালী উপজেলার চরসাদীপুর ইউনিয়নের ঘোষপুর ৩নং ওয়ার্ডে নির্মান করা হয়েছে গুচ্ছ গ্রাম। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মধ্যে নির্মানকৃত গৃহ হস্তান্তর করেন কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রাজীবুল ইসলাম খান। উপজেলার আশ্রায়ন-২ প্রকল্পের আওতায় গৃহহীনদের জন্য দূর্যোগ সহনীয় বাসযোগ্য গৃহনির্মান কাজ ইতিমধ্যে শেষ করে গত বৃহস্পতিবার নির্ধারিত ব্যক্তিদের কাছে হস্তান্তর করেন। কিন্তু উদ্বোধনের দুইদিন পরেই গতকাল শনিবার টানা বর্ষনের কারণে সকালে আশ্রায়ন প্রকল্প গুচ্ছ গ্রামে গিয়ে দেখা যায় ২৫ টি ঘরের মধ্যে প্রায় ১৫টি ঘরেই জলবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। আশ্রায় প্রকল্পের বাসিন্দা মুকুল মন্ডল জানান,আমি পেশায় একজন হকার। আমার ঘর বাড়ি জমাজমি কিছুই ছিলো না। আমি যেখানে ব্যবসা করতাম সেখানই থাকতাম। এখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার পেয়ে নিজস্ব একটা ঠিকানা হয়েছে। এখন যেখানেই থাকি না কেন দিন শেষে এখানে এসে শান্তিতে থাকতে পারি। কিন্তু রাতভর টানা বৃষ্টিতে আমার ঘরের মধ্যে পানি জমে গেছে। সারারাত ঘুমাতে পারিনি। এমনকি সারা দিনেই বৃৃষ্টির কারণে অনেক পানি থাকায় ঘরের মধ্যে যেতেও পারছি না। মোছাঃ হালিমা খাতুন নামে এক বিধবা বলেন, আমি বিধবা মানুষ। আমার একটি ছেলে সন্তান আছে। কিন্তু ওর মাথায় সমস্যা। আমি প্রায় ২০ বছর ছেলেকে সাথে নিয়ে আমার বাপের বাড়িতে থাকি। অনেক কষ্ট করে চলতে হয় আমার। সন্তানকে সাথে নিয়ে আমি মানুষের বাসায় কাজ করে জীবন যাপন করছি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেয়ে অনেক খুশি ছিলাম। কিন্তু আজ আমাদের ঘরের মধ্যে বৃষ্টির পানি যাওয়ায় অনেক কষ্টে আছি। এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান তোফাজ্জল হোসেন মানিক বলেন, এই দায়িত্বে আমি ছিলাম না। দায়িত্বে ছিলেন প্রকল্প কর্মকর্তা মাহমুদুল ইসলাম। আপনারা তার সাথে কথা বলেন। প্রকল্প কর্মকর্তা মাহমুদুল ইসলামের মুঠোফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও সম্ভব হয়নি। কুমারখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাজীবুল ইসলাম খান বলেন, আমাদের এই বিষয়ে অবগত করা হয়ছে। এমন কি আমাদের প্রতিনিধি গিয়ে দেখে আসছে সেখানে বালি মাটি বেশি দেওয়ার কারণে এমনটি হয়ছে। যত দ্রুত সম্ভব আমরা এই সমস্যার সমাধান করে দিব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640