1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 6:01 pm

কাল থেকে পৌর এলাকা কঠোর লকডাউনে যাচ্ছে ঃ মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি ॥ কুষ্টিয়ায় ২৪ ঘন্টায় ১৫৬ জন শনাক্ত, ৪ জনের মৃত্যু

  • প্রকাশিত সময় Thursday, June 17, 2021
  • 195 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে রোগী সংখ্যা। গতকাল রোগী শনাক্তের সংখ্যা  দেড়শ এর কোঠা পেরিয়েছে। এদিন নতুন করে আরো ১৫৬ জন করোনা  রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ সময়ে মারা গেছে ৪ জন রোগী। এ অবস্থায় গতকাল সন্ধায় জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি এক জরুরী জুম মিটিং’র আয়োজন করে। কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলামের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে জেলার সার্বিক পরিস্থিতি ও করোনা কমিটির সিন্ধান্তক্রমে আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের সংসদ সদস্য মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি বলেনে, এই পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে হলে আমাদের সকলকে আরও সচেতন হতে হবে, কোন ভাবেই ঘরের বাইরে যাওয়া যাবে না। তিনি বলেন, জেলার বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় আগামী কাল শনিবার থেকে পৌর এলাকায় কঠোর লকডাউন যা কারফিউ’র মত। তিনি বলেন, আমাদের মনে রাখতে হবে কোন ভয় নয়, নিজেদের বেঁচে থাকার তাগিদে এ সিন্ধান্ত গ্রহন করতে হচ্ছে। এ সময় জেলা সিভিল সার্জন ডাঃ এ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ^াসসহ সকল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ, জেলা সমাজে সেবা উপ-পরিচালকসহ করোনা প্রতিরোধ কমিটির সকল সদস্যবৃন্দ যুক্ত ছিলেন। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পিসিআর ল্যাবে মোট ৩৯৯টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এরমধ্যে ১৫৬টি নমুনা পজিটিভ হয়। পরীক্ষার বিপরীতে আক্রান্তের হার ৪০ শতাংশ। আগের দিন অর্থাৎ বুধবার সদর উপজেলায় রোগী শনাক্তের সংখ্যা এক লাফে অনেকটা কমলেও গতকাল তা সব রেকর্ড ছাড়িয়েছে। পাশাপাশি কুমারখালী উপজেলাতেও মারাত্মক আকার ধারণ করেছে শনাক্তের হার। নতুন শনাক্ত হওয়া রোগীর মধ্যে সদর উপজেলায় সর্বোচ্চ ৭৭ জন, কুমারখালী উপজেলায় ২৮ জন, মিরপুর উপজেলায় ১৯ জন,  দৌলতপুরে ১৭ জন, খোকসা উপজেলায় ৫ জন ও ভেড়ামারা উপজেলায় ১০ জন  রোগী শনাক্ত হয়েছে। এদিন আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে মারা গেছেন ৪ জন। এনিয়ে জেলায় মোট করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো  ৬০৬৩ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৪৯৪৭ জন মানুষ। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন  জন ১৪০ জন মানুষ। গত শনিবার থেকে এক সপ্তাহের জন্য প্রশাসন কুষ্টিয়া পৌর এলাকায় কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের ঘোষণা দেয়। আজ শুক্রবার মধ্যরাত শেষ হচ্ছে বিধি-নিষেধের সেই সময়। তবে এর মধ্যেও জেলায় করোনা সংক্রমণ মারাত্মকভাবে বেড়ে চলেছে। তবে বিধিনিষেধের শর্তগুলো কাগজে-কলমে সীমাবদ্ধ ছিল। কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি জানান, করোনায় মৃতদের মধ্যে তিনজনের বাড়ি কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় ও একজনের ভেড়ামারা উপজেলায়। এদিকে বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) থেকে জেনারেল হাসপাতালের ১০ নং সার্জিক্যাল ওয়ার্ডকে করোনা ওয়ার্ড হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. তাপস কুমার সরকার বলেন, আগে করোনা ওয়ার্ডে ৭৪টি শয্যা ছিল। সেখানে এখন ২৬টি শয্যা যুক্ত করা হয়েছে। বর্তমানে এ হাসপাতালে ৬৪ জন করোনা রোগী ভর্তি রয়েছেন। এদিকে কুষ্টিয়ায় করোনা পরিস্থিতির অবনতি ঘটায় পৌর এলাকায় চলমান বিধিনিষেধ আরো বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম। এর আগে করোনার বিস্তার রোধে গত ১১ জুন-১৮ জুন পর্যন্ত কুষ্টিয়া শহরের পৌর এলাকায় সাতদিনের কঠোর বিধিনিষেধ জারি করেন জেলা প্রশাসক। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, জেলায় আগে করোনা শনাক্তের হার ২০ ভাগের নিচে থাকলেও এখন সেখানে এ হার ৪০ ভাগের উপরে উঠে গেছে। এতে জেলা জুড়ে লকডাউন সিন্ধান্ত ছাড়া আর কোন উপায় নেই ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640