1. nannunews7@gmail.com : admin :
July 12, 2024, 2:43 pm
শিরোনাম :
ঢাকায় ছয় ঘণ্টায় ১৩০ মিলিমিটার বৃষ্টি সড়ক ডুবে বিকল যানবাহন, চরম ভোগান্তিতে নগরবাসী চালের দাম আরও বাড়লো সবজি আলু পেঁয়াজের বাজার অস্থির ন্যাটোর অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে যা বলল ইরান অরুণাচলে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের তোড়জোড় ভারতের, চীনের কড়া প্রতিক্রিয়া ফ্রান্সের বিখ্যাত ক্যাথেড্রালে আগুন ২০০০ বর্গফুটের বাড়ি কিনেছেন কৃডু ‘আলিবাগে বিনিয়োগের সেরা সময়’ গায়ে হলুদে বাঙালির হাতে ট্রেন্ডি সাজে রাধিকা কোপা আমেরিকার ফাইনালের মঞ্চ মাতাবেন শাকিরা খোকসায় উপজেলা ছাত্র কল্যাণ পরিষদ মেধাবী শিক্ষার্থী মারিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান পৌরসভার নির্যাতনের প্রতিবাদে  কুমারখালীর যদুবয়রা ইউনিয়নের  ৩’শ ভ্যান চালককে ফ্রি লাইসেন্স প্রদান

আসমার বিষয়ে কিছুই জানতেন না এএসআই সৌমেনের স্ত্রী ও মা

  • প্রকাশিত সময় Monday, June 14, 2021
  • 175 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ প্রায় ১৭ বছর আগে মাগুরার মেয়ে লাকি রায়ের সঙ্গে বিয়ে হয় পুলিশের এএসআই সৌমেন রায়ের। তার বাড়িও মাগুরা জেলায়। এক ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে তাদের ১৭ বছরের সংসার। দীর্ঘ এই সময়ে কুষ্টিয়ার আসমার সঙ্গে সম্পর্কের বিষয়টি পরিবারে কাছে গোপন রেখেছিলেন সৌমেন রায়। সৌমেনের স্ত্রী লাকি রায়, মা ও ভাইসহ পরিবারের অন্য কেউই তার দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়টি জানেন না। খুলনার ফুলতলা উপজেলায় পয় গ্রামের রকিব মোল্লার বাড়িতে ১৪ বছরের একটি মেয়ে ও ৮ বছরের একটি ছেলে নিয়ে ভাড়া থাকতেন সৌমেন রায়ের স্ত্রী। সোমবার সেখানে গিয়ে দেখা যায়, মেয়ে ও ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে রয়েছেন সৌমেনের স্ত্রী লাকি রায়। হত্যাকাণ্ডের সংবাদ পেয়ে রোববার সৌমেনের মা ঝর্ণা রায় (৫৫) এবং ছোট ভাই শান্তি রায় মাগুরা থেকে ফুলতলার ভাড়া বাড়িতে যান। সেখানেই কথা হয় তাদের সঙ্গে। পরিবার ও থানা সূত্রে জানা যায়, ২০২০ সালের ৮ ডিসেম্বর ফুলতলা থানায় যোগ দেন সৌমেন রায়। ফেব্রুয়ারি মাসে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে ফুলতলায় যান। পয় গ্রামের রকিব মোল্লার বাড়িতেই গত ৪ মাস ধরে ভাড়া রয়েছেন তারা। এর আগে কুষ্টিয়ার কুমারখালি থানায় কর্মরত থাকায় অবস্থায় পরিবার নিয়ে সেখানেই থাকতেন সৌমেন। সৌমেন রায়ের স্ত্রী লাকি রায় বলেন, মে মাসের শেষের দিকে জানতে পারি, মাগুরার এক মেয়ের সাথে তার (সৌমেন) সম্পর্ক আছে। এ বিষয়ে তাকে প্রশ্ন করলে সে হেসে উড়িয়ে দিয়েছে। তিনি জানান, শনিবার রাতে বাড়ি ফিরে সৌমেন বলেন একটি ওয়ারেন্ট তামিল করতে ভোরে বের হতে হবে। রোববার ভোর ৫টা ২০ মিনিটে থানার কথা বলে বাসা থেকে বের যান সৌমেন। দুপুরে টিভিতে হত্যাকাণ্ডের খবর দেখছিলেন। এরই মধ্যে থানা থেকে সৌমেনকে খুঁজতে লোক আসে। লাকি রায় বলেন, গত ১৭ বছরে তার অন্য কোনো বিয়ে বা সম্পর্কের বিষয়ে কখনো কিছু বলেনি। যা ঘটেছে এগুলো বিশ্বাস করতে পারছি না। ছেলে-মেয়ে নিয়ে কোথায় যাবো, বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। সৌমেনের মা ঝর্ণা রায় বলেন, পরিবারে নিয়মিত টাকা পাঠাতো সৌমেন। অন্য কোনো মেয়ের সঙ্গে বিয়ে বা সম্পর্কের বিষয়ে আমরা কিছু জানি না। সৌমেনও কখনো কিছু বলেনি। একই কথা জানান সৌমেনের ভাই শান্তি রায়। প্রতিবেশীরা জানান, পুলিশ কর্মকর্তা হলেও তাদের সংসারে অভাব লেগেই থাকতো। প্রায়ই আশপাশের বাড়ি থেকে চাল, তেলসহ গৃহস্থালী পণ্য ধার নিতেন লাকি রায়। আবার পরে শোধ করে দিতেন তিনি। রোববার হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর থেকে ওই বাড়িতে বিভিন্ন আত্মীয় স্বজন আসছে। কিন্তু ঘরে কোনো খাবার নেই। আশপাশের বাড়ির নারীরা রোববার রাতে ও সোমবার দুপুরে তাদের খাবার দিয়েছেন। ফুলতলা থানার ওসি মাহাতাব উদ্দিন জানান, ছুটি ছাড়াই কর্মস্থলে অনুপস্থিত থাকা এবং ফৌজদারি মামলার আসামি হওয়ায় সৌমেন রায়কে রোববার সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। খুলনা জেলা পুলিশ সুপার মো. মাহবুব হাসান জানান, রোববার রাতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (দক্ষিণ) তানভীর আহমেদকে প্রধান করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। কমিটিকে ৩ দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। তদন্ত কমিটি ইতোমধ্যে কাজ শুরু করেছে। তদন্ত শেষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640