1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 27, 2024, 5:33 pm

ঘুষ কম দেওয়ায় চরম অপমানবোধ করলেন কুমারখালী মাতৃসদনের পরিদর্শিকা

  • প্রকাশিত সময় Friday, June 11, 2021
  • 139 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়া কুমারখালী উপজেলা মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্র (মাতৃসদন)’র দুই পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শিকা (প:ক) ফাহমিদা ইয়াসমিন (লতা) ও কাজলী রাণী বিশ্বাসের ঘুষ লেনদেনের একটি ভিডিও বৃহস্পতিবার ফেসবুকে বেশ ভাইরাল হয়েছে। ভিডিওটিতে দেখা যায় যে, পরিদর্শিকা লতা এক সেবা গ্রহীতাকে বলছেন, হাজার চারেক (৪ হাজার) টাকা তো দিবেন। গ্রহীতা বলছেন চার হাজার টাকা হলে তো সিজারই হয়ে যায়। উত্তরে লতা বলেন, উ – উ – হু, আঠারো বিশ হাজার টাকার নিচে এখন সিজার হয়না। পাশ থেকে আরেক পরিদর্শিকা কাজল রাণী বলেন পনেরো হাজার টাকায় যদি সিজার করে আসতে পারেন, করে আসেন। এরপর গ্রহিতা ও তার পরিবার বলছেন,’ গরীব মানুষ। আপনারা সরকারি চাকুরী করেন। পাঁচশ টাকা নেন।’ তখন লতা বলেন, ‘যানতো ঝামেলা করেননা।’ পরে লতা পুনরায় বলেন, ‘ আপনি মেয়ের বাপ। প্রথম থেকেই আছেন। আমরা অনেক কষ্ট করেছি, আপনিও করেছেন, মেয়েও কষ্ট করেছে। যাইহোক আমরা একটা ঔষুধপত্রও কেনায়নি, শুধু লাস্টে একটা কিনাইছি, তাও ওইটার ডেট ওভার ছিল তাই।’ এরপর পরিদর্শিকা লতা বলেন, ‘এখন কথা হচ্ছে যে, সবাই যা দেয়, কেউ দুই হাজার টাকা দেয়, কেউ আড়াই হাজার টাকা দেয়, কেউ তিন হাজার টাকা দিয়ে যায়। কিন্তু আপনার মত এরকম অপমান কেউ করেনা। এটায় আমরা চরম অপমানবোধ করছি। ‘ তারপর সবাই কষ্টমষ্ট করেছে এমন উক্তি করে গ্রহীতা লতাকে টাকা দিতে যান। তখন লতা বলেন, ওর (কাজলী রাণী) কাছে যান। কাজলী রাণীর কাছে গেলে তিনি পুনরায় গ্রহীতাকে লতার কাছে পাঠান। এ সময় সেবা গ্রহীতা লতার টেবিলের উপর এক হাজার টাকা রেখে চলে আসে। আর লতা তখন টাকা গুণে কম থাকায় গ্রহীতাকে ডেকে ফেরত দিয়ে বলেন, ‘ এই ধরেন, অসহ্য যতসব। আপনার দেওয়ারই দরকার নেই। আপনি যানতো। আপনি আর এই রুমের ভিতরে প্রবেশ করবেন না। এমনিই আপনার করে দিলাম।’ অতঃপর গ্রহীতা পকেট থেকে আরো টাকা বের করে দুই হাজার পাঁচশ টাকা নিয়ে লতার পিছন পিছন যান। কিন্তু লতা আর কোন টাকা নেননি। জানা গেছে ওই সেবা গ্রহীতার নাম হান্নান। তিনি তার ছেলের বউকে বাচ্চা প্রসবের জন্য কুমারখালী মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রে নিয়ে যান। তিনি নন্দনালপুর ইউনিয়নে ভবানীপুর গ্রামের বাসিন্দা। তিনি বলেন, আমি মাঠে কৃষিকাজ করছিলাম। এ সময় ছেলের বউ নাসিমা মুঠোফোনে বলেন যে পাঁচ হাজার টাকা না দিলে মাতৃসদন থেকে যেতে দিচ্ছেনা। এমন খবর পেয়ে দেড় ঘণ্টা পরে টাকা নিয়ে মাতৃসদনে যাই। তিনি আরো বলেন, প্রথমে পাঁচশ টাকা দিতে গেলে লতা রেগে যায়। তারপর এক হাজার টাকা দিতে গেলে লতা রেগে যান এবং বলেন মানুষ তাদের দুই, তিন ও চার হাজার টাকা দিয়ে থাকেন। আপনারা পঁচিশ শত টাকা দিবেন। এরপর সাংবাদিকের উপস্থিতি টের পেয়ে লতা আর টাকা নেননি। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী নাসিমা বলেন, বাচ্চা প্রসবের জন্য হাসপাতালে (মাতৃসদন) যায়। সেখানে পরিদর্শিকা কাজল ও লতা ৪ হাজার টাকা দাবি করে। আমি গরিব মানুষ ৫ শ’টাকা দিতে গেলে আমার উপর রেগে উঠে লতা। পরে ২৫ শ’টাকা দাবি করেন। এ বিষয়ে পরিবার পরিকল্পনা পরিদর্শিকা ফাহমিদা লতা ও কাজলি রাণী বিশ্বাস বলেন, কারো কাছে কোন টাকা- পয়সা চাওয়া হয়নি। ঠাট্টা করে টাকা চাওয়া হয়েছিল। আমাদের এখানে চিকিৎসার জন্য কোন টাকা-পয়সা নেওয়া হয় না। এই বিষয়ে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত মাতৃসদন অফিসার) আবুল বাসার মোঃ আব্দুল মুত্তালেব বলেন, টাকা নিয়ে চিকিৎসা দেওয়ার কোন সুযোগ মাতৃসদনে নেই। ফেসবুকে বিষয়টি দেখেছি। অবশ্যই বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640