1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 8:17 pm
শিরোনাম :
আলমডাঙ্গা প্রেসক্লাবের বার্ষিক বনভোজন-২০২৪ অনুষ্ঠিত কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসক সভা কক্ষে ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ পালন উপলক্ষ্যে প্রস্তুতি সভা অনুষ্টিত বারখাদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা ও পুরুস্কার বিতরণী দৌলতপুরের মাদক স¤্রাজ্ঞী শেফালী অস্ত্র ও ১৯৩৬ বোতল ফেন্সিডিলসহ র‌্যাবের হাতে আটক কয়া স্কুল মাঠে ফুটবল একাডেমির উদ্বোধনকালে এমপি আব্দুর রউফ তরুণ ও যুব সমাজকে মাদকের হাত থেকে রক্ষায় খেলাধুলার কোনো বিকল্প নেই  দৌলতপুরে বিস্তৃর্ণ চর পারাপারে এক মাত্র ভরসা মোটরসাইকেল কুষ্টিয়া মুজিবুর রহমান মোমোরিয়াল ডায়াবেটিক হসপিটালের উদ্যোগে ডায়বেটিস সচেতনতা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা কুষ্টিয়ায় সড়কে দুই ট্রাকের ধাক্কায় হেলপার নিহত আজ কুষ্টিয়া জেলা আইনজীবি সমিতির নির্বাচন পণ্যমূল্য সহনীয় রাখতে সরকারের পাশাপাশি জনগণেরও নজরদারি চাই : সংসদে প্রধানমন্ত্রী 

আবারও কুষ্টিয়ায় বাড়লো চালের দাম

  • প্রকাশিত সময় Thursday, June 10, 2021
  • 90 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ ভরা মৌসুমেও কুষ্টিয়ার সদর উপজেলার খাজানগর মোকামে বেড়েছে চালের দাম। মানভেদে সব ধরনের চালের কেজিতে ২ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। মিল মালিকদের দাবি, ধানের দাম বাড়ায় কারণে এমনটা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) খাজানগর মোকাম ঘুরে জানা গেছে, গত এক সপ্তাহ ধরে সব ধরনের ধানের দাম মণপ্রতি ১০০ থেকে ১৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। প্রতিদিনই বাড়ছে ধানের দাম। এর সঙ্গে সমন্বয় করে চালের দাম নির্ধারণ করা হচ্ছে। তবে এমন ভরা মৌসুমে ধানের দাম বাড়াকে অস্বাভাবিক বলছেন মিল মালিকরা। একাধিক মিল মালিক বলেন, এবার আবহাওয়া ভালো ছিল। সময়মতো ধান ঘরে তুলতে পেরেছেন কৃষকরা। ধান শুকনো থাকায় কৃষকরা ভালো দাম পাচ্ছেন। অন্যান্যবার যেখানে কৃষকরা ভেজা ধান বিক্রি করেছেন কম দামে, সেখানে এবার শুকনো ধানে বেশি দাম পাচ্ছেন। যে কৃষক আগে ১০০ মণ ধান বিক্রি করে যে অর্থ পেতেন, এখন ৭০ মন বিক্রি করে সেই অর্থ পাচ্ছেন। এতে কৃষকদের ঘরে অনেক ধান থেকে যাচ্ছে। খাজানগর এলাকার মিল মালিক লিয়াকত হোসেন বলেন, গত ৪/৫ বছরেও এমন পরিস্থিতি দেখিনি। ভরা মৌসুমে সাধারণত ধান ও চালের দাম বাড়ে না বরং কমে। এবার মাস খানেক আগে ধান বাজারে আসা শুরু হলে দাম কিছুটা কম ছিলো। তখন চালের বাজার কেজিতে ৩ থেকে ৪ টাকা কমে যায়। এখন মাস না পেরোতেই ধানের বাজার বেড়ে যাচ্ছে। এতে চালের দামও বাড়ছে। ধানের দাম কমার কোনও লক্ষণ নেই। তাই সামনে চালের দাম আরও বাড়তে পারে। নজরুল ইসলাম নামের এক মিল মালিক জানান, ২৮ জাতের ধান গত সপ্তাহে কিনেছিলেন ৯৫০ টাকা দরে। এখন সেই ধান এক হাজার ৫০ টাকা। সরু জাতের ধান এক হাজার ৫০০ টাকা থেকে বেড়ে এখন প্রায় এক হাজার ৭০০ টাকা। একটু কমবেশি আছে এলাকাভেদে। এছাড়া ২৯ জাতের ধান বিক্রি হচ্ছে হাজারের কাছে। অনেকে ২৯ জাতের ধান বস্তায় ভরে ২৮ বলে বিক্রি করছেন। আর ২৮ সরু বলে বিক্রি করছেন বলেও জানান তিনি। খাজানগরের একটি বড় অটো মিলের গেটে প্রতিদিনের দর তালিকায় দেখা যায়, মিনিকেট চাল ৫৮, কাজললতা ও আটাশ ৫০, বাসমতি ৬২.৫০ এবং স্বর্ণা বিক্রি হচ্ছে ৪০.৫০ টাকায়। ধানের দরের তালিকায় দেখা যায়, সরু ধান ৩৫.৫০, কাজললতা ও আটাশ ৩১.৫০, বাসমতি ৩৫ এবং স্বর্ণা ২৭.৫০ টাকায় কিনছেন তারা। এক সপ্তাহ আগেও এ দর কেজি অনুযায়ী ২ থেকে ৩ টাকা কম ছিলো। খাজানগরের প্রবীণ ব্যবসায়ী আরশাদ আলী বলেন, প্রতিযোগিতামূলক বাজারে সবাই ব্যবসা করতে চায়। তাই ইচ্ছা করলেই দাম বাড়ানো সম্ভব নয়। মোকামে ধানও কম আসছে। প্রয়োজন মতো ধান তারা কিনতে পারছেন না। কৃষকরাও চড়া দামে ধান বিক্রি করতে চান। এ কারণে ধান ও চালের দাম বাড়ছে। তবে তা ক্রেতাদের সাধ্যের মধ্যে আছে। চালকল মালিক সমিতির একাংশের সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদিন প্রধান বলেন, অন্যান্যবারের তুলনায় এবার ব্যতিক্রম মনে হচ্ছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় ধান ঘরে তুলতে পেরেছেন কৃষকরা। তারা বাজার বুঝে ধান বিক্রি করছেন। বাজারে প্রয়োজনের তুলনায় ধান কম আসছে। কৃষকদের ঘরে এখনও প্রচুর ধান আছে। আমরা অর্ডার পাচ্ছি অনেক বেশি। চালও সরবরাহ হচ্ছে আগের চেয়ে বেশি। তবে ধানের বাজার বেশি। তাই চালের বাজারে এর কিছুটা প্রভাব বাড়ছে। এর বাইরে অসাধু ব্যবসায়ীদের লাগাম টানার কথাও বললেন তিনি। চালকল মালিক সমিতির অন্য অংশের সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, প্রতি বছর বোরো মৌসুমে সাধারণত ধানের ও চালের দাম কমে আসে। এবার ব্যতিক্রম। প্রথমদিকে ধানের দাম হাজারের নিচে ছিলো। তখন চালের দামও কমে আসে। এখন আবার সব ধরনের ধান হাজারের ওপরে। এমনকি ২০০ থেকে ২৫০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। এমনটা হওয়ার কারণে চালের বাজারে প্রভাব পড়েছে। তিনি আরও বলেন, যারা ভুট্টা ও পাট ব্যবসা করেন এমন লোকজনও ধান ও চাল কিনে মজুত করছেন। এদের চিহ্নিত করতে হবে। জেলা খাদ্য কর্মকর্তা এসএম তাহসিনুল হক জানান, তাদের লাইসেন্স ছাড়া কেউ ধান ও চালের ব্যবসা করতে পারবেন না। মিল মালিকরাও ইচ্ছা করলেও বেশি মজুত করার নিয়ম নেই। বিষয়টি মনিটরিং করা হচ্ছে। অবৈধ মজুতকারীদের বিরুদ্ধে প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিকে, চাহিদার উদ্বৃত্ত উৎপাদন হলেও রংপুরে বেড়েছে চালের দাম। দেশের উত্তরাঞ্চলের এ বিভাগটিতে চালের কেজিতে ২ থেকে ৫ টাকা বেড়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640