1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 19, 2024, 4:31 am
শিরোনাম :
কুষ্টিয়া লালন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাল্য বিয়ের নির্মম বলি কুষ্টিয়ার মিরপুরে নববধুর ঝুলন্ত লাশ হত্যা করে ঝুলিয়ে দেয়ার অভিযোগ পরিবারের মিরপুরের সাগরখালী আদর্শ ডিগ্রী কলেজ জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২৪ কুষ্টিয়া জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত কুষ্টিয়ার দৌলতপুর র‌্যাবের অভিযানে ২০ বোতল ফেনসিডিলসহ একজন মাদক কারবারি আটক পবিত্র ঈদুল আজহা কাল পরিত্যক্ত হলো ‘গুরুত্বহীন’ ভারত-কানাডা ম্যাচ আমরা আক্রান্ত হলে ছেড়ে দেবো না সেন্টমার্টিন নিয়ে ওবায়দুল কাদের পদ্মা সেতুতে একদিনে ৫ কোটি টাকা টোল আদায় সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী গাজার ত্রাণবহরে হামলা: ইসরায়েলি সংগঠনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

কুষ্টিয়ায় শিশু-কিশোররা বিপথগামী আসক্তি বেড়েছে মোবাইল গেমস-টিকটকে

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, June 9, 2021
  • 153 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ অনলাইন গেম ও টিকটকে আসক্ত হয়ে পড়ছে কুষ্টিয়ার শিশু-কিশোররা। এদের পাশাপাশি বাদ যাচ্ছে না উঠতি বয়সী যুবকরাও। তারাও গেমস ও মানহীন টিকটক নিয়ে আড্ডায় মেতে উঠছে। শিশু-কিশোর আর তরুণ দের এখন আর খেলার মাঠে হৈ-চৈ করতে দেখা যায় না। শহরের বিভিন্ন পাড়া-মহল্লায় দলেদলে বসে মোবাইলে ফ্রী-ফায়ার,পাবজিসহ বিভিন্ন ধরনের ভিডিও গেমস খেলায় ব্যস্ত এসব শিশু-কিশোররা। আবার যদিও বা দুই চারজনের দেখা মেলে,তাও আবার ক্যামেরা ও মোবাইল হাতে রং ঢং মাখিয়ে, বিভিন্ন অঙ্গ-ভঙ্গিমায়।

এতে অভিভাবকরা শঙ্কিত তাদের আদরের সন্তানের ভবিষ্যত নিয়ে। একদিকে যেমন লেখাপড়া নষ্ট হচ্ছে তেমনি নষ্ট হচ্ছে তাদের নৈতিকতা। অবশ্য এর জন্য মহামারি করোনার আগ্রাসনে স্কুল-কলেজ বন্ধ হওয়াকে অনেক অভিভাবক দায়ি করছেন। ইতিমধ্যে অনলাইন ভিত্তিক সকল গেম নিষিদ্ধের দাবি উঠেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে গণহারে স্ট্যাটাস দিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে ছাত্র ও তরুন সমাজকে রক্ষায় জরুরিভাবে এ দাবি বাস্তবায়ন করতে সরকারকে পদক্ষেপ নেয়ার জন্য দাবি করেছেন ফেসবুক ব্যবহারকারী অভিভাবকরা। সচেতন মহল মনে করেন এধরনের গেমস বন্ধ না করলে তাদের পরিবার পরতে পারে এক ভয়াবহ বিপর্যয়ে। একাধিক ব্যক্তি এই গেমের নেতিবাচক প্রভাবেব কথা তুলে ধরে দ্রুত অনলাইন ভিত্তিক সকল গেম ও টিকটক ভিডিও অ্যাপ বন্ধ করতে সরকারের প্রতি অনুরোধ করেন।

অনুসন্ধান চালিয়ে দেখা গেছে, ফেসবুক ব্যবহারকারীরা গেম বন্ধ করতে আগ্রহের কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন, তাদের সন্তানরা এখন পড়াশুনা বাদ দিয়ে সর্বদা অনলাইন গেমে আসক্ত হয়ে পড়েছে। করোনার মহামারির কারণে চলমান লকডাউনের এ সময়েও সন্তানরা অভিভাবকদের অবাধ্য হয়ে স্মার্টফোনে ইন্টারনেট ভিত্তিক গেমে ব্যস্ততা দেখাচ্ছে।

অসংখ্য অভিভাবকরা জানিয়েছেন, তাদের সন্তানরা এতোটাই অনলাইন গেমে আসক্ত যে, বাবা-মা ও স্বজনদের সাথে রুঢ় আচারণ করে বসছে। কুষ্টিয়া শহরের বাসিন্দা তানভীর রেজা বলেন, তাদের বাসার সামনের রাস্তা ও খোলা স্থানে উঠতি বয়সের কিশোর-যুবকরা সারিবদ্ধভাবে বসে অনলাইন ভিত্তিক গেমে মত্ত থাকছে। পড়াশুনাতো দুরের কথা, বাসার টুকিটাকি কাজেও তাদের সহযোগিতা পাওয়া যায় না।

অনুরুপ তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে সাদেকুল ইসলাম নামে আরেক অভিভাবক বলেন, বেশিরভাগ শিশু-কিশোর মোবাইল ফোন,কম্পিউটার আর ইন্টারনেটের মত যন্ত্রের সাথে সন্ধি করে জীবনকে অন্ধকারের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। হারাচ্ছে তাদের মেধা শক্তি। ভিডিও গেমসে আসক্তদের বয়স ৮-২০ এর মধ্যে। তিনি বলেন, করোনাকালীন সময়ে ভার্চুয়ালি ক্লাস করার জন্য ছেলে মেয়েদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে নামি দামি ব্রান্ডের অ্যান্ড্রয়েড ফোন। আর এই ফোনেই এখন ফ্রি ফায়ার ও পাবজি গেমসে আটকা পড়েছে তাদের বর্ণিল শৈশব।

এছাড়া, সোশ্যাল মিডিয়ায় এখন ব্যাপক জনপ্রিয় টিকটক ভিডিও অ্যাপ। এই সব অনলাইন অ্যাপের মাধ্যমে একদিকে যেমন যুব সমাজ নষ্ট হচ্ছে, অন্যদিকে এই টিকটক অ্যাপ দিয়ে তৈনি অরুচীকর ভিডিও সমাজে অপসংস্কৃতি ছড়াচ্ছে। এই অ্যাপ ব্যবহার করে কুষ্টিয়ার স্থানীয় ভাষাকে ব্যাঙ্গ করে ভাষাকে অসম্মান করছে যুবক-যুবতীরা। শুধু বিনোদনের জন্যই যে মানুষ এই ভিডিও অ্যাপ ব্যবহার করছেন, এমন নয়। নানাভাবে এর অপব্যবহার করছে। এই অ্যাপের মাধ্যমে অশ্লীল ভিডিও তৈরি হচ্ছে।

কুষ্টিয়া শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে বেশ কিছু দিন ধরে ঘুরে দেখা গেছে, স্কুল কলেজে থেকে শুরু করে বিভিন্ন পেশার মানুষ এখন টিকটিকের ভিডিও করে খ্যাতি অর্জনের চেষ্টা করছে। দিন রাত বিভিন্ন ভিডিও তৈরি করে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ারের করে লাইক কমেন্ট পাওয়ার চেষ্টা করছে, কেউ কেউ আবার বাংলা ভাষা ব্যাঙ্গ করা সহ বিভিন্ন অশ্লীল ভিডিও তৈরি করে শিশুদের মানসিক ঝুঁকিতে ফেলছে। সব কিছুর সুবিধা ও অসুবিধা দুটি দিক রয়েছে। টিকটক ভিডিও তৈরির ক্ষেত্রেও সেটা বিবেচ্য। আপনি যদি সেটাকে পজিটিভ চিন্তা করে শিক্ষনীয় কিছু তৈরি করেন তাহলে সেটা সবাই গ্রহণ করবে। আবার মানদন্ড ঠিক রেখে তৈরি টিকটক ভিডিও মানুষকে বিনোদন দিতে পারে। এখন কথা হলো কে,কিভাবে এর ব্যবহার করবে। সেক্ষেত্রে কুরুচীপুর্ণ,অশ্লীল টিকটক ভিডিও কোন ভাবেই শিক্ষনীয় ও বিনোদনের খোরাক হতে পারে না। ভাষা ব্যবহারের ক্ষেত্রে মিশ্র ভাষার ব্যবহার পরিহার করে আঞ্চলিক অথবা সাধু ভাষার ব্যবহারের উপর গুরুত্ব দেয়া উচিত বলে তিনি মনে করেন।

এদিকে শিক্ষার্থীরা মোবাইল গেইম আসক্তির কথা জানিয়েছে। প্রযুক্তির প্রতি বেশি আসক্ত হওয়ার কারণে যাদের নিয়ে এত টেনশন তারা কী ভাবছে? এই নিয়ে এক শিক্ষার্থীর সাফ জবাব, স্কুল বন্ধ। বাসায় বসে কতক্ষণ টিভি দেখবো, বই পড়বো? সারাদিন কী করবো? তাই গেম খেলি,অনলাইনে বন্ধুদের সাথে কথাও বলি।

কুষ্টিয়া জিলা স্কুলের ৯ম শ্রেণির এক ছাত্র ঝটপট উত্তরে বলেন, করোনার জন্য স্কুলে যেতে পারছি না। বাইরে খেলতে, ঘুরতে আর কোথাও বেড়াতে যেতে দিচ্ছে না। তাই বাধ্য হয়ে মোবাইলফোনে গেম খেলি। আমার ভালোও লাগে। তবে, টাকা দিয়ে কোনো গেম খেলি না। তবে এ বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের অভিযান চালানো দরকার বলে মনে করছেন কুষ্টিয়ার সচেতন নাগরিকরা।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. বাকী বিল্লাহ বিকুল বলেন, শিক্ষা জীবন ধ্বংসের পাশাপাশি এই টিকটক অ্যাপ ও মোবাইল গেমস আসক্তি ছেলে-মেয়েদের নষ্টের দিকে ধাবিত করছে। সামাজিক যে কোন অপরাধের সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। এটা কোন সংস্কৃতির সাথে যায় না। এক্ষেত্রে অভিভাবকদের বেশি সচেতন ও দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করতে হবে।

তিনি বলেন, এর জন্য বইপড়া, খেলাধুলা ও বিজ্ঞান চর্চার বিকল্প নেই। শিশু-কিশোরদের উৎসাহ সৃষ্টি ও চিন্তাশক্তির উন্মেষ ঘটাতে নিত্যনতুন ইনোভেশনের অনুষ্ঠান আয়োজন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সেই সাথে সরকার ও প্রশাসনের নজরদারী থাকা জরুরী।

অন্যদিকে শিশু বিষেজ্ঞরা বলছেন, বাচ্চাদের জন্য মোবাইল বা অনলাইন অনেক চটকদার দুনিয়া। ওটা থেকে বের হয়ে নরমাল লাইফ আর ভালো লাগে না। এছাড়া গেম অনেক ফাস্ট। নরমাল লাইফ অনেক শ্লো। ফলে ওরা অ্যাডজাস্ট করতে পারে না। বেশি ডিভাইস ব্যবহারে অনেকের ক্রিয়েটিভিটি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

শিশু রোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ নাজিম উদ্দিন বলেন, দীর্ঘসময় মোবাইল গেমস আসক্তির কারনে পারিবারিক অশান্তি ও শিশুর মানসিক বিকাশ ব্যাহত হয়। অন্যদিকে ক্ষুধামন্দা ও দৃষ্টিশক্তি ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640