1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 13, 2024, 3:19 am

কুষ্টিয়ায় আক্রান্ত ৫ হাজার ছাড়ালো মৃত্ব্য ১শ ২০  বিধিনিষেধে উদাসীনতা, বেড়েই চলেছে সংক্রমণ

  • প্রকাশিত সময় Tuesday, June 8, 2021
  • 130 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ কুষ্টিয়ায় করোনার সংক্রমেনের হার উদ্বেগজনকভাবে বেড়েই চলেছে। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে জেলায় ৬৭ জন আক্রান্ত হয়ে মোট সংখ্যা দাঁড়ালো ৫ হাজার ৩২২ জন। আর এ পর্যন্ত মৃত্ব্যবরণ করেছেন ১শ ২০ জন। গত ২৪ ঘন্টায় কুষ্টিয়া পিসিআর ল্যাবে ২২২টি স্যা¤ম্পুলের মধ্যে ৬৭ জন করোনা পজিটিভ হয়েছে। একজন মৃত্ব্য বরণ করেছেন। বিশেষ করে ঈদের পর থেকে এই সংক্রমণের হার বাড়তে শুরু করেছে। এ পর্যন্ত জেলায় করোনা সংক্রমণের হার ছিল ৩৬ শতাংশ। চলতি মাসের সাত দিনে কুষ্টিয়ায় ৯৩১টি নমুনা পরীক্ষায় ২৭৭ জনের পজিটিভ শনাক্ত হয়। জেলায় করোনায় মারা গেছেন ১২০ জন। এর মধ্যে সদরের ৬৯ জন রয়েছেন। আক্রান্তের ক্ষেত্রেও অধিকাংশ রোগী কুষ্টিয়া শহরকেন্দ্রিক। এদিকে করোনা সংক্রমণ ঠেকানোর জন্য কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন বিধিনিষেধ আরোপ করলেও তা একেবারেই মানা হচ্ছে না। সড়কে অবাধে গণপরিবহন চলাচল করছে। শপিং মল,দোকান-পাট,শিল্প-কারখানা,বাজার-ঘাট খোলা থাকায় লোকজনেরও ভিড় রয়েছে রাস্তাঘাটে। সামাজিক দুরত্বসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না কোথাও। সারাদিন যানজট লেগেই আছে শহরের গুরুত্বপুর্ণ নবাব সিরাজউদ্দৌলা (এন,এস) সড়কে। অনেকের মুখে মাস্ক নেই। আবার থাকলেও নামিয়ে রেখেছেন মুখের নিচে। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার। কিন্তু এতেও কমেনি জনগণের উদাসীনতা। রোববার (৬ জুন) রাত ১২টায় কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে কিছু বিধিনিষেধ আরোপ করে এ সংক্রান্ত গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেন। সোমবার দুপুরে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এ সংক্রান্ত অবহিতকরণ মাইকিং করলেও জেলার দোকানপাট-শপিংমল, রাস্তাঘাট, হাটবাজার থেকে শুরু করে কোথাও জনসাধারণের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষার কোনো চেষ্টাই লক্ষ্য করা যায়নি। জেলায় করোনা সংক্রমণের হার প্রতিনিয়ত ঊর্ধ্বমুখী হলেও নেই জেলা প্রশাসনের কোনো তৎপরতা। জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ৬ জুন মধ্যরাত থেকে ১৬ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত জেলায় এ বিধিনিষেধ বহাল থাকবে। এ বিধিনিষেধ অনুযায়ী জেলায় দোকানপাট ও শপিংমল সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত কঠোর স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা রাখা যাবে। এছাড়া রাত ৮টার পর খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরা, কাঁচাবাজার, খুচরা ও পাইকারি বাজারসহ সব ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হবে। তবে খাবারের দোকান, হোটেল-রেস্তোরাঁগুলো অনলাইনে অর্ডারের ভিত্তিতে খাবার সরবরাহ করতে পারবে। কোনো অবস্থাতেই হোটেল-রেস্তোরাঁয় বসে খাবার খাওয়া যাবে না। এছাড়া সব ধরনের পর্যটনকেন্দ্র, রিসোর্ট, কমিউনিটি সেন্টার ও বিনোদনকেন্দ্র বন্ধ থাকবে। জনসমাবেশ হয় এ ধরনের সামাজিক অনুষ্ঠান, রাজনৈতিক ও ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে। রাস্তা ও পাড়া-মহল¬ার চায়ের দোকান সন্ধ্যা ৭টার পর বন্ধ রাখতে হবে। আন্তঃজেলাসহ সব ধরনের গণপরিবহনে আসন সংখ্যার অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচল করতে পারবে। তবে অবশ্যই যাত্রীসহ সংশি¬ষ্ট সবাইকে মাস্ক পরতে হবে। শিল্পকারখানা স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চালু থাকবে। তবে শ্রমিকদের প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আনা-নেয়া করতে হবে। এক্ষেত্রে ব্যবসায়িক নেতার মনে করেন, সম্মিলিত স্বার্থে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে লকডাউন দিলে মেনে নিতে হবে। তবে এর আগে তারা প্রশাসনকে আরো কঠোর হওয়ার তাগিদ দিয়েছেন। এ ব্যাপারে ব্যবসায়িক নেতা এস,এম কাদেরী শাকিলী বলেন, জেলা প্রশাসন থেকে ১০ দিনের যে বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে তা কঠোরভাবে মানতে সবাইকে বাধ্য করা উচিত। সেক্ষেত্রে প্রশাসনকে আরো কঠোর হতে হবে। এরপরেও যদি সংক্রমণ ঠেকানো না যায় সেক্ষেত্রে সম্মিলিত স্বার্থে লকডাউনের বিকল্প নেই।   খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কুষ্টিয়ায় করোনা চিকিৎসার একমাত্র প্রতিষ্ঠান ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল। এতে রোগীদের চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। হাসপাতালটিতে নেই কোন আইসিইউ, করোনা ইউনিটে শয্যা মাত্র ৪১টি। এরই মধ্যে সেখানে ৫০ জনেরও বেশী রোগী ঠাঁই নিয়েছে। সিভিল সার্জন অফিসের তথ্যমতে, জেলায় অক্সিজেন সিলিন্ডার মজুদ আছে ৭০৬টি। এসব সিলিন্ডারের মধ্যে জেলা পর্যায়ে রয়েছে ৩৪৭টি। ৩৫৯টি রয়েছে বিভিন্ন উপজেলায়। এ ছাড়া অক্সিজেন তৈরির ৪২টি কনসেনট্রেটর রয়েছে। এছাড়া কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ১০ বেডের জন্য সেন্ট্রাল অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা রয়েছে। সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, করোনা সংক্রমণের হার বেড়েছে উদ্বেগজনক হারে। তাছাড়া করোনা ওয়ার্ডে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এখন থেকেই সংক্রমণ রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে। এই মুহুর্তে কঠোর লক ডাউনের বিকল্প কিছু নেই। পুলিশ সুপার খায়রুল আলম বলেন, পুলিশ প্রশাসন বিভিন্ন পয়েন্টে আছে কিন্তু যানবাহন চলাচল করার জন্য ব্যবস্থা নিতে পারছেনা। শহরে ঘন্টার মধ্যে প্রায় ১ হাজার যানবাহন চলাচল করছে। এছাড়াও এক পয়েন্টে ৫-১০ জন পুলিশ মোতায়েন করলেও স্বাস্থ্যবিধী রোধ করা সম্ভব হচ্ছে না। তার পরেও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তিনি বলেন, রাত ৮টার পর থেকে যেসব দোকান পাট খোলা থাকছে এগুলো আর থাকবেনা। জেলা প্রশাসকের সাথে কথা হয়েছে। প্রতিদিন হ্যান্ড মাইক নিয়ে সচেতনতা মূলক বক্তব্য দেয়া হবে। রাত ৮টার পর শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে ঘুরে ঘুরে দোকানপাট খোলা থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে কুষ্টিয়ায় ১০ দিনের বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তাছাড়া বিধিনিষেধ কঠোরভাবে কার্যকর করার জন্য বিশেষ কিছু সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। অবস্থা বুঝে সবার মতামতের ভিত্তিতে আরো কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হতে পারে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640