1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 3:52 am

ছড়িয়ে পড়েছে করোনা ॥ এ মাসে ভয়াবহ রূপ নিতে পারে

  • প্রকাশিত সময় Friday, June 4, 2021
  • 88 বার পড়া হয়েছে

ঢাকা অফিস ॥ সারাদেশে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। দ্বিতীয় ঢেউয়ে রাজধানীর বাইরে সীমান্তবর্তী এলাকাগুলোতে করোনা ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করেছে। প্রথম ঢেউয়ে ভাইরাসটি রাজধানী ও আশপাশের এলাকাকেন্দ্রিক সংক্রমণ ঘটালেও এবার ঘটছে উল্টোটা। ভারত সীমান্তবর্তী জেলাগুলো নতুনভাবে করোনার হটস্পটে পরিণত হচ্ছে। শুক্রবার রাজশাহী হাসপাতালে একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যু ও খুলনা বিভাগে সর্বোচ্চ সংক্রমণের ঘটনা ঘটেছে। করোনাভাইরাস ভারতীয় ধরন যা ডেল্টা নামে নামকরণ করা হয়েছে সেটির কমিউনিটি সংক্রমণের কারণে জুন মাসে সারাদেশে মারাত্মক পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে বলে বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন। হটস্পট জেলাগুলোতে নানা সতর্কতার পরেও স্বাস্থ্যবিধি মানছে না জনগণ।
গত ২০২০ সালের ৮ মার্চ প্রথম তিনজন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হবার কথা জানায় স্বাস্থ্য অধিদফতর। এরপর সে বছরের ২০ ডিসেম্বর শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫ লাখ ছাড়ায়। এরপরের ৯৯ দিনে আরও এক লাখ রোগী শনাক্ত হওয়ার মাধ্যমে গত ২৯ মার্চ শনাক্ত হওয়া রোগীর সংখ্যা ৬ লাখ ছাড়ায়। মধ্য মার্চে রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকে হু হু করে, চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় একে ‘দ্বিতীয় ঢেউ’ অভিহিত করা হলেও চিকিৎসকরা একে ‘করোনা সুনামি’ বলে ব্যাখা করছেন। স্বয়ং স্থাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকও ঈদের ছুটির আগে গাদাগাদি করে রাজধানীর ছাড়ার সময় মানুষজনকে তৃতীয় ঢেউ নিয়ে আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন। তিনি বলেন, মানুষ সচেতন না হলে তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে পারে।
করোনা উর্ধমুখী প্রবণতা সীমান্তবর্তী কয়েকটি জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, সাতক্ষীরা, যশোর, খুলনা, কুষ্টিয়া, নাটোর, চুয়াডাঙ্গা ও নওগাঁতে সীমাবদ্ধ থাকলেও আস্তে আস্তে পাশের জেলাগুলোতে সংক্রমণ বাড়ছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরামর্শে চাঁপাইনবাবগঞ্জ, রাজশাহী, নওগাঁ ও সাতক্ষীরাকে স্থানীয়ভাবে লকডাউনের সিদ্ধান্ত প্রশাসন। এছাড়া জেলাগুলোর সীমান্তে বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড ও পুলিশের তল্লাশি চৌকির পরিমাণ বাড়ানো হয়েছে। প্রশাসন চাইলে সাধারণ জনগণের মধ্যে সচেতনতা খুব বেশি বাড়েনি। গত মাসে ঈদের ছুটির আগেই বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, ঈদের পর সংক্রমণ আবার বেড়ে যাবে। এখনও সেভাবে সংক্রমণ না বাড়লেও ঈদের পর থেকে উর্ধগতির প্রবণতা রয়েছে। এদিকে ভারত সীমান্তবর্তী ১৫টি জেলায়ও রোগী দ্রুত বাড়ছে। জনস্বাস্থ্যবিদেরা বলছেন, এখনই কার্যকর ব্যবস্থা না নিলে পরিস্থিতি আবারও ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। রাজশাহী হাসপাতালে দেড় বছরে সর্বোচ্চ মৃত্যু ঃ রাজধানীর বাইরে করোনার সংক্রমণ শুধুমাত্র রাজশাহী মেডিক্যাল হাসপাতালকে দেখলেই স্পস্ট হবে। গত ১০ ধরে পার্শ¦বর্তী জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনার দৈনিক সংক্রমণ ৬০ শতাংশের ওপর চলে যায়। ২৪ মে স্থানীয় জেলা প্রশাসন কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে। এরপরে রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে সংক্রমণ ও মৃত্যু বেড়েছে। রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা কমছেই না। এ হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ১০ জন। করোনা উপসর্গে মারা গেছেন ছয়জন। এই মৃত্যু প্রায় দেড় বছরের মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চ। শুক্রবার সকাল ১০টায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এ তথ্য জানিয়েছে। হাসপাতালের উপপরিচালক সাইফুল ফেরদৌস বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর উপসর্গে মারা গেছেন ছয়জন। এই ১৬ জনের মধ্যে করোনার ‘হটস্পট’ চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৯ জন, রাজশাহীর ৬ জন, নওগাঁর ১ জন রয়েছেন। তাঁদের মধ্যে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) পাঁচজন, ৩ ও ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে তিনজন করে, ২২ ও ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে দুজন করে এবং ৩৯ নম্বর ওয়ার্ডে একজন মারা গেছেন। হাসপাতাল থেকে তাঁদের লাশ স্বাস্থ্যবিধি মেনে দাফনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ঈদের পর থেকে উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে মৃত্যু। মে মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে এই সংখ্যা আশঙ্কাজনকভাবে বেড়েছে। শুধু গত ২৪ মে দুপুর থেকে ৪ জুন পর্যন্ত রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৯৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনা সংক্রমিত ছিলেন ৫৬ জন। অন্যরা করোনার উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। এর মধ্যে গত ২৪ মে ১০ জন, ২৫ মে ৪ জন, ২৬ মে ৪ জন, ২৭ মে ৪ জন, ২৮ মে ৯ জন, ৩০ মে সর্বোচ্চ ১২ জন, ৩১ মে ৪ জন, ১ জুন ৭ জন, ২ জুন ৭ জন, ৩ জুন ৯ জন ও গত ২৪ ঘণ্টায় ১৬ জন মারা গেলেন। খুলনা বিভাগে সর্বোচ্চ সংক্রমণ ঃ খুলনা বিভাগে একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্তের নতুন রেকর্ড হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে ৩৭৭ জনের শরীরে। মারা গেছেন ৪ জন। সুস্থ হওয়ার সংখ্যা ৭২। গত ছয় দিনের মধ্যে এ নিয়ে তিন দফায় এক দিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক রোগী শনাক্তের ঘটনা ঘটল। এর আগে ১ জুন ৩০০ ও গত ৩০ মে ২৩২ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছিল। বিভাগে মোট সংক্রমিত ব্যক্তির সংখ্যা দাঁড়াল ৩৫ হাজার ৪৯০। বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক রাশেদা সুলতানা শুক্রবার এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। ১০ জেলার মধ্যে খুলনায় রোগী সাড়ে ১০ হাজার ও শুধু খুলনা নগরে সাড়ে ৮ হাজার ছাড়িয়েছে। বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাসংক্রান্ত দৈনিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণে দেখা গেছে, গত ৭ দিনে (২৯ মে-৪ জুন) ১ হাজার ৭৪৪ জনের অর্থাৎ প্রতিদিন গড়ে ২৫০ জনের মাঝে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ে মারা গেছেন ৩২ জন। এর আগের ৭ দিনে (২২-২৮ মে) ৮৮০ জনের অর্থাৎ প্রতিদিন গড়ে ১২৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছিল। মারা যান ১৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন শনাক্ত ব্যক্তিদের মধ্যে খুলনা জেলায় রয়েছেন ৮৯ জন (নগরে ৭৬)। এছাড়া বাগেরহাটে ৪৩, যশোরে ৭০, সাতক্ষীরায় ৪৯, নড়াইলে ৮, মাগুরায় ৬, মেহেরপুরে ১২, চুয়াডাঙ্গায় ৫১, ঝিনাইদহে ১৫ ও কুষ্টিয়ার ৩৪ জন।বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আবারও দেশে সংক্রমণ বাড়ছে। স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, দেশের ১১ জেলায় উচ্চ সংক্রমণ রয়েছে। সীমান্তবর্তী জেলাগুলোতে ডেল্টা ধরনে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে এমন রোগী পাওয়া গেছে যাদের ভারত ভ্রমণের ইতিহাস নেই। তবে এই ধরনেও আতঙ্কিত না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, করোনা যতদিন থাকবে নতুন নতুন ধরনও আসবে। তবে জনগণকে মাস্ক ব্যবহার করা, সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা ও জনসমাগম এড়িয়ে চলতেই হবে। তাহলে সব ধরনই আটকানো যাবে। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ঈদের সময়ে মানুষের অবাধ চলাচল, সম্প্রতি মাস্ক ব্যবহারে আবার মানুষের অসচেতনতা, সামাজিক দূরত্ব না মানা এবং বিশেষ করে ভারতীয় ধরনের সামাজিক সংক্রমণের কারণে জুন মাসে করোনা আবার ভয়ঙ্কর হয়ে উঠতে পারে। স্বাস্থ্য অধিদফতরের মুখপাত্র অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম জানিয়েছেন, শনাক্ত হারের বিপরীতে বর্তমানে দেশের ১১ জেলায় সংক্রমণের উর্ধগতি দেখা গেছে। কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরার্মশক কমিটি গত ১ জুন তাদের বৈঠকে করোনা সংক্রমণের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করে। দেশের সার্বিক পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে মনে করেন তারা। বিশেষ করে সীমান্তবর্তী (রাজশাহী বিভাগের চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, রাজশাহী, নওগাঁ এবং খুলনা বিভাগের সাতক্ষীরা, যশোর, খুলনা ও বাগেরহাট) এলাকায় সংক্রমণের উচ্চহার দেখা গেছে। এছাড়াও আরও কিছু জেলাতে উচ্চ সংক্রমণ রয়েছে। এছাড়াও কমিটির এক সূত্র জানায়, এ আট জেলা ছাড়াও সিলেট, কক্সবাজার ও ফেনীতেও সংক্রমণের উচ্চহার রয়েছে। করোনাভাইরাসের ডেল্টা ধরনের সামাজিক সংক্রমণও হয়েছে। আর এটা যদি ছড়িয়ে পড়ে তাহলে চিকিৎসা ব্যবস্থার জন্য বড় রকমের চ্যালেঞ্জ হতে পারে। তাই অবস্থা বিবেচনায় সংক্রমণ প্রতিরোধের কোন বিকল্প নেই এবং এতে জনপ্রশাসনের ভূমিকা অনস্বীকার্য। সারাদেশে সরকার ঘোষিত বিধিনিষেধ কঠোরভাবে পালন করতে হবে জানিয়ে সীমান্তবর্তী জেলা ও উচ্চ সংক্রমিত এলাকায় সম্পূর্ণ লকডাউন দেয়া জরুরী বলে সুপারিশ করে কমিটি। কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ সহিদুল্লা বলেন, কমিটি মনে করে কোভিড-১৯ প্রতিরোধের বিধিনিষেধ পালনে স্বাস্থ্য বিভাগের সঙ্গে জনপ্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের সমন্বয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।’ একইসঙ্গে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিধিনিষেধ নিশ্চিতকরণের উদ্দেশে কঠোর মনিটরিং জোরদার করা প্রয়োজন জানিয়ে অধ্যাপক সহিদুল্লা বলেন, দরকার হলে এ বিষয়ে আইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে যেসব প্রতিবন্ধকতা রয়েছে সেগুলো দূর করতে আইন সংশোধন করা যেতে পারে। একইসঙ্গে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ না আসা পর্যন্ত বিধিনিষেধের প্রয়োগ অব্যাহত রাখা এবং বিজ্ঞানভিত্তিক পদক্ষেপ গ্রহণ নিশ্চিত করা প্রয়োজন বলেও জানান অধ্যাপক সহিদুল্লা। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের রেজিস্ট্রার ও ইনফেকশাস ডিজিজ বিশেষজ্ঞ ডাঃ ফরহাদ হাছান চৌধুরী মারুফ বলেন, ‘উহানে যখন সংক্রমণ শুরু হলো আমরা সবাই মনে করেছিলাম এটা চীনের বাইরে আসবে না কিন্তু সেটা মহামারী হয়েছে। বিশ্বে করোনাভাইরাসে ইতোমধ্যেই ৩৬ লাখ ৯৫ হাজার ৩৭০ জন। বিশ্ব থেমে গেছে এই করোনার কারণে। ঠিক সেভাবেই চাঁপাইনবাবগঞ্জের অবস্থাও একই রকম। এটা সময়ের ব্যাপার মাত্র, এই বিস্ফোরণ থামানো যাবে ন।
সংক্রমণ বাড়বে, বাড়ছেই মন্তব্য করে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পাবলিক হেলথ এ্যাডভাইজারি কমিটির সদস্য অধ্যাপক আবু জামিল ফয়সাল বলেন, তবে এবার প্রথমে পেরিফেরিতে (মফস্বলে) বাড়ছে, ঢাকায় হয়তো পরে বাড়বে। এটা আমাদের আগেই আশঙ্কা ছিলই। আমরা যেরকম আশঙ্কা করেছিলাম সেরকম করেই বাড়ছে। তবে আমাদের ধারণা ছিল জুনের শেষে বা জুলাইয়ে বাড়বে। কিন্তু এখন তার আগে থেকেই শুরু হলো’-বলছিলেন অধ্যাপক আবু জামিল ফয়সাল। জেলাগুলোর পরিস্থিতি ঃ করোনা সংক্রমণের হার বেড়ে যাওয়ায় বুধবার ১৫ দফা নির্দেশনা দিয়ে জেলার পৌরসভা এলাকা ও নিয়ামতপুর উপজেলায় এক সপ্তাহের লকডাউন ঘোষণা করা হয়। জেলা প্রশাসক মোঃ হারুন-অর-রশীদ বলেন, নওগাঁয় জনসাধারণের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধির প্রতি অনীহা দেখা যাচ্ছে। তাই প্রশাসনের একাধিক দল মাঠে থাকবে। জনসমাগমে নজরদারি করা হবে। ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ মঞ্জুর এ মোর্শেদ বলেন, ঈদ-উল ফিতরের পর থেকে করোনা সংক্রমণের হার ৩০ শতাংশের বেশি। নওগাঁ পৌরসভা ও সীমান্তবর্তী নিয়ামতপুরে দুই সপ্তাহ ধরে সংক্রমণের হার প্রায় ৫০ শতাংশ। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪৩ জন। কোয়ারেন্টাইনে নেয়া হয় ২২ হাজার ২৪৯ জনকে। মোট আক্রান্ত ২৩ হাজার ১৬ জন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১১ জন এবং আইসোলেশনে আছে ৯ জন। প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, দোকানপাট ও যানচলাচল বন্ধ থাকবে। জরুরী পণ্যবাহী গাড়ি ছাড়া রাজশাহী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, বগুড়া ও জয়পুরহাট থেকে কোন গাড়ি নওগাঁয় প্রবেশ করতে পারবে না, বেরও হতে পারবে না। রোগী ও জরুরী সেবাদানকারীদের ক্ষেত্রে এটি প্রযোজ্য হবে না। সাতক্ষীরা জেলার সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ হুসাইন শাফায়াত বলেন, ১৬ মে থেকে ৩০ মে পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১২৬২ জনের। পজিটিভ পাওয়া গেছে ২৭০ জনের। সংক্রমণের হার ২১.৩৯ শতাংশ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ৩০ মে ৮৯ জনের নমুনা পরীক্ষায় পজিটিভ আসে ৩৭ জনের। গত বছর থেকে এ পর্যন্ত জেলায় মারা গেছে ৪৭ জন। তিনি আরও বলেন, এখন উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি ১৩৮ জন। তাদের মধ্যে পজিটিভ শনাক্ত হয়েছে ৫৩ জনের। তিনি আরও বলেন, পজিটিভ ১৩৮ জনের মধ্যে সাতক্ষীরা সদরের ৩৯, কালিগঞ্জের ২৪, আশাশুনির ২০ ও শ্যামনগরের ১৫ জন। ইয়াসের প্রভাবে উপকূলের মানুষ পানিবন্দী। গাদাগাদি হয়ে থাকার কারণেও ওই এলাকায় সংক্রমণ বাড়তে পারে বলে জানান তিনি। সীমান্তে নজরদারির ওপর গুরুত্বারোপ করে জনসচেতনতা বৃদ্ধির আহ্বান জানিয়েছেন সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল। সাতক্ষীরার ২২৮ কিলোমিটার সীমান্ত গলিয়ে বৈধপথে আসা মানুষকে কোয়ারেন্টাইনে নেয়া এবং অবৈধভাবে আসাদের আটক করে কোয়ারেন্টাইনে দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। দিনাজপুরের সীমান্তবর্তী হিলিতে বেড়ে চলেছে সংক্রমণের হার। ১-২ জুন নতুন করে আরও ৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। দু’দিনে ১০ জন আক্রান্ত হয়েছেন। আতঙ্ক বাড়ছে স্থানীয়দের মধ্যে। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় দিনাজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে এসব তথ্য জানানো হয়। ২৪ ঘণ্টায় ২৪৬টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছে ২২ জনের। এর মধ্যে হিলির আছে ৫ জন। আক্রান্তের হার ছিল ৮.৯৪ ভাগ। আগের দিন ১৬১টি নমুনা পরীক্ষায় ২৩ জন আক্রান্ত পাওয়া যায়। এর মধ্যেও হিলির ১ জন ছিলেন। শনাক্তের হার ছিল ১৪.২৮ ভাগ। দিনাজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ের তথ্যমতে হিলিতে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১০৭ জন। এর মধ্যে একজন মারা গেছেন। ১৭ জন হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন। হাকিমপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ তৌহিদ আল হাসান বলেন, হিলিতে সংক্রমণ কমই ছিল। কয়েকদিন ধরে হঠাৎ বাড়ছে। আমাদের হাসপাতালের আউটডোর ও ইমারজেন্সিতে এখন প্রায়ই জ্বরের রোগী পাওয়া যাচ্ছে। সতর্কবার্তা একটাই, মাস্ক পরুন আর উপসর্গ দেখা দিলে পরীক্ষা করান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640