1. nannunews7@gmail.com : admin :
February 28, 2024, 9:50 am

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন সভা কক্ষে প্রেসব্রিফিং এই মুহূর্তে লকডাউন চান সিভিল সার্জন ডাঃ এ এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম

  • প্রকাশিত সময় Thursday, June 3, 2021
  • 116 বার পড়া হয়েছে

 

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ ‘কুষ্টিয়ায় করোনা রোগী বাড়ার হার ঊর্ধ্বমুখী। এই মুহূর্তে লকডাউনের কোনো বিকল্প নেই। সেটা কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে। তা না হলে হাসপাতালে রোগীর চাপ সামলানো যাবে না।’ গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলনকক্ষে সংবাদ সম্মেলনে কুষ্টিয়ার সিভিল সার্জন এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম এ কথা বলেছেন। সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম। সংবাদ সম্মেলনে স্থানীয় সরকার উপ-সচিব মৃণাল কান্তি দে, কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আবদুল মোমেন, মেডিসিন বিভাগের প্রধান সালেক মাসুদ, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ এ এস এম মুসা কবির, কুষ্টিয়া অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আতিকুল ইসলাম, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা, কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু, কুষ্টিয়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রাশেদুল ইসলাম বিপ্লব, দি ডেইলী সানের প্রতিনিধি ও সাংবাদিক অধিকার ফোরামের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা, টেলিভিশিন ক্যামেরাপার্সন এসোসিয়েশনের সধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিবসহ বিভিন্ন গণমাধ্যম কর্মিরা উপস্থিত ছিলেন। সিভিল সার্জন এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতে জেল–জরিমানা করে তেমন কোনো কাজ হবে না। যে হারে করোনা পজিটিভের সংখ্যা বাড়ছে, তাতে মানুষকে অন্তত এক সপ্তাহ কঠোরভাবে ঘরে রাখতে হবে। তাহলে করোনার ঊর্ধ্বমুখী হার ঠেকানো সম্ভব। সভার শুরুতেই জেলার সার্বিক করোনা পরিস্থিতি তুলে ধরেন জেলা প্রশাসক। এতে জানানো হয়, মঙ্গলবার রাত আটটা থেকে বুধবার রাত আটটা পর্যন্ত জেলায় ১৭৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে ৫৪ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এ সময় কুষ্টিয়ায় দুজন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে। সভায় প্রথম আলোর জেলা প্রতিনিধি তৌহিদী হাসান শিপলু ও ইত্তেফাকের জেলা প্রতিনিধি মোস্তাফিজুর রহমান মঞ্জু করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় লকডাউন দেয়ার আহবান জানিয়ে বক্তব্য রাখেন। কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ এ এস এম মুসা কবির বলেন, ‘করোনার মতো ভাইরাস প্রতিরোধে দুটি উপায় আছে। এক হলো টিকা দান, অন্যটি লকডাউন। যেহেতু টিকা আমাদের হাতে (কুষ্টিয়ায়) নেই, তাই লকডাউন ছাড়া কোনো বিকল্প নেই।’ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আবদুল মোমেন বলেন, হাসপাতালে চিকিৎসক ও নার্স  প্রস্তুুত। কিন্তু অবকাঠামো সমস্যা। রোগীতে হিমশিম পোহাতে হচ্ছে। লকডাউনের মতো কঠোর সিদ্ধান্তে গেলে অনেক মানুষ কর্মহীন হয়ে পড়বে বলে জানান কুষ্টিয়া পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা। তিনি বলেন, যাঁরা পজিটিভ হবেন, শুধু তাঁদের বাড়ি লকডাউনের আওতায় আনা যায়। সবার বক্তব্য শেষে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম বলেন, সবার মতামত বিবেচনা করে এবং করোনা প্রতিরোধ কমিটিসহ অন্য সবার সঙ্গে কথা বলে দ্রুত সিদ্ধান্ত জানানো হবে। এ ব্যাপারে সবার সহযোগিতা নেওয়া হবে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640