1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 24, 2024, 10:26 am

কাল থেকে লকডাউন   ॥ করোনার ভয়ঙ্কর রূপ একদিনে মৃত্যু ৫৮

  • প্রকাশিত সময় Saturday, April 3, 2021
  • 143 বার পড়া হয়েছে

ঢাকা অফিস ॥ ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। প্রতিদিন করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যু যেন পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। মানুষের মৃত্যুর মিছিল থামাতে বাধ্য হয়েই লকডাউনের পথেই হাঁটছে সরকার। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে গত ২৪ ঘন্টায় আরও ৫৮ জনের মৃত্যু হয়েছে, নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে আরও ৫ হাজার ৬৮৩ জন। শনিবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত এক দিনে মারা যাওয়া ৫৮ জনকে নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে মোট ৯ হাজার ২১৩ জনের মৃত্যু হল। আর নতুন রোগীদের নিয়ে দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৬ লাখ ৩০ হাজার ২৭৭ জন হয়েছে। মহামারী সামাল দিতে এবং মানুষের জীবন সুরক্ষায় আগামীকাল সোমবার থেকেই সারাদেশে জারি হতে চলেছে লকডাউন। সরকার থেকে বলা হয়েছে, এক সপ্তাহের জন্য জারি থাকবে এই লকডাউন। বাংলাদেশে করোনা মহামারী রুখতে আনুষ্ঠানিক ‘লকডাউন’ ঘোষণা এই প্রথম। গত বছর করোনার সংক্রমণ রুখতে লকডাউন না বলে সরকারী ছুটি ঘোষণার মাধ্যমে সবকিছু বন্ধ করে দিয়েছিল সরকার।
এবারের লকডাউনে সাধারণ মানুষের চলাফেরা একেবারে সীমিত করা হতে পারে। অর্থাৎ লকডাউন হবে কড়াকড়ি। তবে এবার লকডাউন ঘোষণার কারণে দেশের অর্থনীতি যাতে থমকে না যায়, তার জন্য শর্তসাপেক্ষে কলকারখানা আগের মতোই চালু থাকবে। একইসঙ্গে লকডাউন চলাকালে শুধু জরুরী সেবা দেয়, এমন প্রতিষ্ঠানগুলো খোলা থাকবে। লকডাউনের ব্যাপ্তি, করণীয় এবং কী কী নির্দেশনা পালন করতে হবে তা আজ রবিবার সরকার থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষণা করা হবে বলে জানা গেছে। তবে লকডাউন এক সপ্তাহ, নাকি আরও বাড়তে পারে- সে ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট করে সরকার তরফে বলা না হলেও সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনা করেই পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। করোনা মহামারী সামাল দিতে আবারও ‘লকডাউনের’ ঘোষণা আসছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের শনিবার সংবাদ সম্মেলন করে বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সোমবার থেকে সারাদেশে এক সপ্তাহের জন্য লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। তবে সেই লকডাউনের ব্যাপ্তি কী হবে, কী কী খোলা থাকবে আর কী কী বন্ধ, তা সরকারের ঘোষণায় বিস্তারিত জানা যাবে। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেনও শনিবার এক ভিডিও বার্তায় লকডাউন পরিকল্পনা নিয়ে কিছুটা আভাস দিয়েছেন। তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দ্রুত বেড়ে যাওয়ায়, সংক্রমণ রোধ করার স্বার্থে সরকার দু-তিন দিনের মধ্যে সারাদেশে এক সপ্তাহের লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে লকডাউন চলাকালে শুধু জরুরী সেবা দেয় এমন প্রতিষ্ঠান খোলা থাকবে। আর শিল্প কলকারখানা খোলা থাকবে, যাতে শ্রমিকরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিভিন্ন শিফটে কাজ করতে পারেন। এই লকডাউন গতবছরের ‘সাধারণ ছুটি’র মতো হবে, নাকি মিরপুরের টোলারবাগ বা অন্য এলাকায় যেভাবে সব কিছু বন্ধ ছিল এবং চলাচল নিয়ন্ত্রিত ছিল- তেমন হবে তা এখন পর্যন্ত স্পষ্ট নয়। তবে এ ব্যাপারে সরকারের নীতিনির্ধারক পর্যায়ের একাধিক কর্তা-ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সাধারণ ছুটি ঘোষণা করলে মানুষ মনে করে ছুটি হয়েছে, ঘুরতে চলে যায়। এ কারণে এবার লকডাউন দেয়া হচ্ছে। সবাইকে ঘরে থাকতে হবে। প্রাণঘাতী করোনা মহামারী সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে গতবছর ২৩ মার্চ প্রথমবার ‘সাধারণ ছুটি’র ঘোষণা দিয়েছিল সরকার। শুরুতে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ‘ছুটি’ ঘোষণা করা হলেও পরে তার মেয়াদ বাড়ে কয়েক দফা। সে সময় সব অফিস আদালত, কলকারখানা, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে সারাদেশে সব ধরনের যানবাহন চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়। ছুটির মধ্যে সব কিছু বন্ধ থাকার সেই পরিস্থিতি ‘লকডাউন’ হিসেবে পরিচিত পায়। কিন্তু তাতে নিম্নবিত্তের জীবন-জীবিকা আর দেশের উৎপাদন ব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়লে বিভিন্ন মহলের দাবিতে সরকার ৩১ মে’র পর থেকে ধাপে ধাপে বিধিনিষেধ শিথিল করতে থাকে। বছরের শেষে এসে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকা ছাড়া আর সব কড়াকড়িই উঠে যায়। করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে রেখেই অর্থনৈতিক কর্মকা- সচল রাখার ভাবনা থেকে মাঝে পুরো দেশকে লাল, হলুদ ও সবুজ জোনে ভাগ করে পরিস্থিতি অনুযায়ী লকডাউনের বিধিনিষেধ আরোপের পরিকল্পনা হয়েছিল। পরীক্ষামূলকভাবে কয়েকটি এলাকায় সেই ব্যবস্থা চালানোও হয়েছিল। কিন্তু পরে আর তা এগোয়নি।
এদিকে নতুন বছরের শুরুতে দেশে সংক্রমণের হার অনেকটা কমে আসে। সারাদেশে জীবনযাত্রা আগের মতোই স্বাভাবিক হয়ে আসে। বিশ্বের বড় বড় অর্থনৈতিক শক্তিশালী দেশগুলোও যখন করোনার ভ্যাকসিন সংগ্রহে হিমশিম খায়, তখন দক্ষ কূটনৈতিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে আগাম অর্থ বরাদ্দ দিয়ে ভ্যাকসিন ক্রয় চুক্তি এবং দেশে করোনার ভ্যাকসিন এনে সারাদেশে গণটিকাদানও শুরু হয়। দেশের বিপুলসংখ্যক মানুষ করোনার প্রথম ডোজের টিকাও গ্রহণ করে কিছুটা স্বস্তিবোধ করে।
কিন্তু গত মাসের শুরু থেকে দেশে আবার করোনার নতুন রোগীর সংখ্যা হু হু করে বাড়তে থাকে। মাত্র কয়েক দিনের ব্যবধানে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশেও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করে। প্রতিদিনই আগের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাচ্ছে। সংক্রমণ নিয়ে মানুষের মধ্যে তীব্র আতঙ্কও বিরাজ করছে। শনিবার দেশে আরও ৫ হাজার ৬৮৩ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে। দেশে এ পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৬ লাখ ৩০ হাজার ২৭৭ জনে। আর তাদের মধ্যে মোট ৯ হাজার ২১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।
বিশ্বের একাধিক দেশে আছড়ে পড়েছে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ। ব্যতিক্রমী নয় বাংলাদেশেও। সংক্রমণ লাগাম দিতে ২৯ মার্চ সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয়সহ সকল ক্ষেত্রে সব ধরনের জনসমাগম সীমিত করাসহ ১৮ দফা নির্দেশনা জারি হয়। এরপর সেগুলো বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে বিভিন্ন ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা ও কড়াকড়ির ঘোষণা আসতে থাকে। ইতোমধ্যেই বাংলাদেশের যাবতীয় নির্বাচন বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ১১ এপ্রিল দেশের ৩৭১টি ইউনিয়ন পরিষদে সাধারণ নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। পাশাপাশি ১১টি পৌরসভাতেও অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল নির্বাচন। কিন্তু করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় সেসব নির্বাচন স্থগিত রাখার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন। এমন কড়াকড়ি ও বিধি নিষেধের মধ্যেই শনিবার দেশে এক সপ্তাহের জন্য লকডাউনের ঘোষণা এসেছে সরকারের তরফ থেকে। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন লকডাউনের সুনির্দিষ্ট কোন তারিখের কথা না জানালেও আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সংবাদ সম্মেলনে স্পষ্ট করেই জানিয়ে দিয়েছেন আগামীকাল সোমবার থেকেই এক সপ্তাহের জন্য লকডাউনের ঘোষণা আসছে।
হঠাৎ করেই ভয়ঙ্কররূপে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় বাধ্য হয়েই সরকার এমন কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে বলে জানা গেছে। এ ব্যাপারে শনিবার এক ভিডিও বার্তার মাধ্যমে সংস্থাপন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, দ্রুত বেড়ে যাওয়া করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধ করার স্বার্থে সরকার দু-তিন দিনের মধ্যে সারাদেশে এক সপ্তাহের লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে। লকডাউনের মধ্যে জরুরী সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব ধরনের সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। সব ধরনের মার্কেট বন্ধ থাকবে। আর শিল্প কলকারখানা খোলা থাকবে, যাতে শ্রমিকরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিভিন্ন শিফটে কাজ করতে পারে।
তা না হলে তো আবার গত বছরের মতো শ্রমিকদের বাড়ি যাওয়ার ঢল শুরু হয়ে যাবে। পরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী জানান, মানুষের চলাফেরা যাতে কমাতে পারি সেজন্য আমরা আপাতত এক সপ্তাহের জন্য লকডাউন দিচ্ছি। আমাদের জরুরী সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান যেমন- ডিসি অফিস, ইউএনও অফিস, ফায়ার সার্ভিসের অফিস, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অফিস, সংবাদপত্র অফিস- এই ধরনের অফিস খোলা থাকবে। মোট কথা, মানুষের চলাচল যাতে একেবারে সীমিত করে ফেলা যায় আমরা সেই পদক্ষেপ নেব। কেউ অপ্রয়োজনে ঘর থেকে বের হতে পারবে না। অনেক লোক বিভিন্ন স্থানে আটকে থাকতে পারে, তাদের সেই সুযোগটা দিয়ে একদিন পর লকডাউন দেয়া হচ্ছে বলেও জানান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী। লকডাউন বাস্তবায়নে কঠোর হবে প্রশাসন ? দেশে করোনাভাইরাস ভয়ঙ্কর রূপ নেয়ায় আগামীকাল থেকে সারাদেশে লকডাউন ঘোষণা করতে যাচ্ছে সরকার। দেশব্যাপী নতুন লকডাউন কার্যকর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ও লকডাউনের নির্দেশনা পালনে পুলিশ আরও কঠোর হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম। শনিবার তিনি সাংবাদিকদের বলেন, গত বছর কোন অভিজ্ঞতা ছাড়াই পুলিশ মাঠে কাজ করেছে। গতবারের অভিজ্ঞতার আলোকে এবার পুলিশ কাউকেই লকডাউন ও স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনে ছাড় দেবে না। গত বছর লকডাউন চলাকালে অনেকেই বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে ঢাকা ছেড়েছিল, এবার তা হতে দেয়া হবে না। কোভিড-১৯ এর নিয়ন্ত্রণ করতে পুলিশ মাঠে থেকে কাজ করবে। জানা গেছে, লকডাউনের সময় ট্রেন চলাচল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। তবে মালবাহী ট্রেন চলাচল করবে। এদিকে লকডাউনের মধ্যে দেশের অর্থনৈতিক লেনদেনের অন্যতম প্রধান মাধ্যম ব্যাংকখাত কীভাবে চলবে সে বিষয়ে আজ রবিবার সিদ্ধান্ত জানাবে বাংলাদেশ ব্যাংক। এদিকে, লকডাউনের ঘোষণা সারাদেশে প্রচার হওয়ার পর থেকে আতঙ্কিত হয়ে নিত্য প্রয়োজনীয় বাজারে হুমড়ি খেয়ে পড়েছে মানুষ।
শনিবার বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, লকডাউনের মধ্যে যাতে কোন ধরনের বিড়ম্বনার মধ্যে পড়তে না হয় সেজন্য আগে থেকে চাল, ডাল, তেলসহ প্রতিদিনের ব্যবহার্য নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে মানুষের ভিড় ছিল লক্ষ্যণীয়। তবে লকডাউন ঘোষণা হলেও মানুষের দৈনন্দিন জীবনে যাতে কোন ব্যাঘাত না ঘটে সেজন্য নির্দিষ্ট সময়ের জন্য কাঁচাবাজারসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকান-পাট খোলা রাখার ঘোষণা আসতে পারে বলে জানা গেছে। আগামীকাল থেকে দেশে লকডাউন হচ্ছে, এমন খবরে ঢাকায় আটকে পড়া অসংখ্য মানুষ নিজ নিজ বাড়িতে ফিরতে শনিবার সকাল থেকেই বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড, লঞ্চঘাট, রেলওয়ে স্টেশনে ছিল মানুষের উপচে পড়া ভিড়। যে যেভাবে পেরেছে ঢাকা ছেড়ে নিজ এলাকায় ফিরে যাওয়ার চেষ্টা করছেন। হঠাৎ করেই এত মানুষের ভিড় সামলাতে যানবাহন, লঞ্চ ও স্টেশনগুলোতে দায়িত্বরতদের হিমশিম খেতে হয়েছে। আজ রবিবারও ঢাকা থেকে কিংবা বিভিন্ন জেলায় থাকা মানুষজন ঢাকায় ফিরতে পারেন বলে যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640