1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 13, 2024, 3:36 am

নন্দীগ্রামে জয়ের দাবি মমতা ও শুভেন্দু দুজনেরই

  • প্রকাশিত সময় Friday, April 2, 2021
  • 173 বার পড়া হয়েছে

পশ্চিমবঙ্গে দ্বিতীয় দফায় দুই মেদিনীপুরে ভোটগ্রহণ শুরুর আগেই সংঘর্ষ শুরু বুধবার রাত থেকে। বৃহস্পতিবার সকালে ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ামাত্রই পশ্চিম মেদিনীপুরের বিভিন্ন এলাকা থেকে রাজনৈতিক সংঘর্ষের খবর আসতে শুরু করে।

যদিও দিনের শেষে প্রায় ৮২.৭৯ শতাংশ ভোটদানের হার বলছে, রক্তপাত এবং সংঘর্ষও প্রভাব ফেলতে পারেনি গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগের উৎসাহে।

দুপুরে নন্দীগ্রামে নিজের কেন্দ্রের একটি বুথ বিজেপি দখল করে সিল মারছে বলে অভিযোগ করে ঘটনাস্থলে যান মমতা। অভিযোগ করেন, ৮০ শতাংশ বুথ দখল হয়েছে। বিজেপির বিরুদ্ধে কোর্টে যাব আমরা।

ভোট শেষ হতেই সেই মমতা দাবি করেন, ৯০ শতাংশ ভোট পেয়ে জিতব নন্দীগ্রামে। বিজেপির প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী পালটা দাবি, ‘যতটা মার্জিনে জিতব ভেবেছিলাম, তার চেয়ে বেশি মার্জিনে জিতবে বিজেপি।’

নন্দীগ্রামে হুইল চেয়ারে বসে যখন মমতা উত্তেজিত হয়ে একের পর এক ফোন করছেন, ঠিক তখনই পাশের জেলা দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার জয়নগরে জনসভা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

সভায় মোদি টেনে নিয়ে এলেন নীলবাড়ির লড়াইয়ের ‘হট সিট’ নন্দীগ্রাম প্রসঙ্গ। বলেন, ‘বাংলা যা চাইছে সেটাই হয়েছে নন্দীগ্রামে। দিদি, প্রথমে ভবানীপুর ছেড়ে নন্দীগ্রামে গিয়েছিলেন। পরে বুঝলেন সেটা ভুল করেছি।’

নন্দীগ্রামের ছবি ও তথ্য তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী মোদি বলেন, ‘দিদিকে দেখুন। তা হলেই সব বুঝে যাবেন। দিদিই ওপিনিয়ন পোল, দিদিই এক্সিট পোল। তার চোখ-মুখ, হাব-ভাবেই সব পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে।’

মোদি এদিন ফের দাবি করেন, বাংলায় যে ‘আসল পরিবর্তন’-এর জোর হাওয়া বইছে তা প্রথম দফাতেই বোঝা গিয়েছে। বিজেপি ২০০-র বেশি আসনে জিতবে বলেও দাবি করেন তিনি।

উলুবেড়িয়ায় মমতার অন্য কেন্দ্র থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা নিয়ে জল্পনা উসকে দিয়ে মোদি বলেন, ‘দিদি অন্য কেন্দ্র থেকে আপনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন বলে যে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে, তা কি সত্যি? আপনি প্রথমে ওখানে (নন্দীগ্রাম) গেলেন, সেখানকার মানুষ আপনাকে জবাব দিয়েছে। আপনি যদি অন্য কেন্দ্র থেকে লড়তে চান, তা হলেও বাংলা প্রস্তুত।’

তবে রাতে তৃণমূল জানিয়ে দেয়, মমতার অন্য কোনো কেন্দ্র থেকে লড়াই করার কোনো প্রশ্নই নেই। কারণ, নন্দীগ্রাম থেকেই তিনি জিতছেন।

পরিস্থিতি তদারকি করতে ভারতীয় সময় দুপুর সোয়া ১টা নাগাদ রেয়াপাড়ার অস্থায়ী বাড়ি থেকে বয়াল মক্তব প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৭ নম্বর বুথের উদ্দেশে রওনা দেন মমতা।

বয়ালে পৌঁছে হুইল চেয়ারে চেপেই গ্রামের ভেতরে ঢোকেন তিনি। রাস্তায় তাকে ছেঁকে ধরেন তৃণমূল সমর্থক এবং স্থানীয় বাসিন্দারা। অভিযোগ করেন, বুথের দখল নিয়েছে বিজেপি।

অবাধে ছাপ্পাভোট করে যাচ্ছে তারা। তৃণমূলের এজেন্টকে পর্যন্ত ঢুকতে দেওয়া হয়নি। তাদের রুখতে কেন্দ্রীয় বাহিনী কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। এর পরই সোজা ওই বুথে পৌঁছে যান মমতা।

সেখানে তিনি পৌঁছতেই উত্তেজনা চরমে ওঠে। মমতাকে দেখে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিতে শুরু করেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। তাতে তেড়ে যান তৃণমূল সমর্থকরাও। দুপক্ষের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়।

পরস্পরকে লক্ষ্য করে শুরু হয় এলোপাতাড়ি ইট-পাটকেল নিক্ষেপ। পরিস্থিতি সামাল দিতে এগিয়ে আসে রাজ্য পুলিশ এবং র‌্যাফ। দুই শিবিরকে আলাদা করে দেয় তারা। কিন্তু বুথের বাইরের পরিস্থিতি শান্ত না হওয়ায়, বুথের ভেতরই আটকে পড়েন মমতা।

প্রায় দুঘণ্টা পর বয়ালের বুথ থেকে বের হন মমতা। কেন্দ্রীয় বাহিনী কড়া নিরাপত্তায় তাকে ওই বুথ থেকে বাইরে আনেন। বাইরে এসে স্থানীয়দের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘নন্দীগ্রাম নিয়ে চিন্তিত নই আমি। গণতন্ত্র নিয়ে চিন্তিত। এখানে ভোটে চিটিংবাজি হয়েছে।’

বয়ালের ওই বুথে যখন ধুন্ধুমার কা-, তখন শুভেন্দু অধিকারী জানান, খেলা যা হওয়ার হয়ে গেছে। ওই বুথে ৭০ শতাংশ ভোটই হয়েছে। সকাল থেকে ভোট হয়ে গিয়েছে। এখন গিয়ে আর কিচ্ছু করার নেই মমতার।

এর পর বুথে বসেই সংবাদমাধ্যমে মমতা অভিযোগ করেন, বয়ালের ওই বুথে ৮০ শতাংশ ছাপ্পাভোট হয়ে গিয়েছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের উসকানিতে বহিরাগতদের এনে অশান্তি পাকানোর চেষ্টা চলছে।

মমতা বলেন, ‘বিহার ও উত্তরপ্রদেশের গুন্ডারা এসে ঝামেলা পাকাচ্ছে। যারা ঝামেলা করছে, একজনও বাংলা জানে না। সব হিন্দি বলছে।’

বুথে বসে বিজেপিকে হুঙ্কার দিয়ে মমতা বলেন, ‘আদালতে যাব আমরা। কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। ভোট দিতে দেওয়া হয়নি। ৬৩টা অভিযোগ পেয়েছি।’

বয়ালের বুথে বসেই রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে ফোন করে পরিস্থিতি জানান তিনি। কিন্তু মমতার অভিযোগ উড়িয়ে দেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

তিনি বলেন, ‘অবাঞ্ছিত কেউ যাতে বুথে না ঢোকেন, তার জন্যই কেন্দ্রীয় বাহিনী রয়েছে। মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দেবেন। তাতে অসুবিধা কোথায়! হেরে যাবেন বুঝে উত্তেজনা সৃষ্টি করছেন মমতা। নির্বাচন কমিশনকে ভরসা করা উচিত। সুষ্ঠুভাবে ভোট করানোই ওদের দায়িত্ব। আর ৮০ শতাংশ ছাপ্পাভোট চাইলে তার দলও করতে পারবে না। নিজেদের ছাপ্পাভোট করতে পারছেন না বলেই এসব বলছেন।’

পরিস্থিতি সামাল দিতে ঘটনাস্থলে যান নন্দীগ্রাম থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত আইপিএস অফিসার নগেন্দ্রনাথ ত্রিপাঠী। বিজেপি এবং তৃণমূল, দুই দলের সমর্থকদের সঙ্গে কথা বলেন নগেন্দ্রনাথ।

পিছু হটতে অনুরোধ জানানো হয় দুই দলের কর্মী-সমর্থকদেরই। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে তারপরই তৃণমূল নেত্রীকে নিরাপদে বের করে নিয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়। বুথের নির্বাচন কমিশনের আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলেন মমতা।

তৃণমূলের এজেন্টকে বসতে দেওয়া হয়নি, ভোটদানে বাধা দেওয়া হয়েছে বলে নন্দীগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিকের কাছে লিখিত অভিযোগ জমা দেন।

বুধবার কেশবপুরে রাতে এক তৃণমূল কর্মীকে কুপিয়ে খুনের অভিযোগ উঠেছিল। রাত ১১টা নাগাদ কেশবপুর ব্লকের ৪ নম্বর অঞ্চলের অন্তর্গত দাদপুর গ্রামের হরিহর চক বুথ এলাকায় তৃণমূল কর্মী উত্তম দলুইকে ছুরি মেরে খুন করা হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে কেশবপুরে পৃথকভাবে হামলা হয়েছে বিজেপি প্রার্থী প্রীতিশরঞ্জন কুয়ার এবং তার নির্বাচনী এজেন্ট তন্ময় ঘোষের ওপর। তাদের গাড়ি ভাঙচুরের পাশাপাশি আক্রান্ত হয়েছে সংবাদমাধ্যমও।

সেখানে হামলার অভিযোগে ১৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলার পুলিশ সুপার দীনেশ কুমার। কেশবপুরের তৃণমূল প্রার্থী শিউলি সাহার নির্বাচনী এজেন্ট হাবিবুর রহমানকে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

নন্দীগ্রামের ভোটগ্রহণ নিয়ে একের পর এক অভিযোগ করে গেছে তৃণমূল। অভিযোগ জানিয়েছেন, প্রার্থী মমতাও। অন্যদিকে শুভেন্দু অধিকারী জানিয়েছেন, তার কোনো অভিযোগ নেই। শান্তিপূর্ণ ও অবাধ ভোট হয়েছে বলেও দাবি করেন তিনি।

শুভেন্দু যেমন জয়ের ব্যাপারে তিনি নিশ্চিন্ত বলে দাবি করেছেন তেমন মমতাও দু’আঙুলে ‘ভিকটরি’ দেখিয়ে বলেন, ‘নন্দীগ্রামে তৃণমূল ৯০ শতাংশ ভোট পাবে। মা-মাটি-মানুষের আশীর্বাদে আমিই জিতব।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640