1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 13, 2024, 4:26 am

তিন যুগের রেকর্ড ভেঙ্গেছে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদ ॥  নির্ভৃত পল্লীর মানুষের সুখ-দুঃখের সাথী হওয়াই সার্বিক উন্নয়নের পুর্ব শর্ত ঃ আতাউর রহমান আতা

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, March 31, 2021
  • 305 বার পড়া হয়েছে

কাগজ প্রতিবেদক ॥ বিধবা, বয়ষ্ক, প্রতিবন্ধী ভাতা ভোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি, আগুণে পুড়ে যাওয়া, ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ্য হওয়া গৃহহারাকে ঢেউটিন, দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত মানুষকে নগদ টাকা সহায়তার আওতায় আনা, কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের ১২টি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত এলাকার রাস্তা, কালভার্ট, স্কুল, মাদ্রাসা, কলেজ, বিদ্যুত সংযোগ স্থাপনসহ উন্নয়নের প্রায় ৭০ ভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে গত পৌনে তিন বছরে। এতে ১৯৮৫ সাল থেকে তিনযুগের রেকর্ড ভেঙ্গেছে বর্তমান কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতাসহ বর্তমান পরিষদ।

জানা যায়, ২৪ মে ১৯৮৫ সালে কুষ্টিয়া সদর উপজেলা পরিষদে চেয়ারম্যান হিসেবে জাফর উল্লাহ খান চৌধুরী লাহড়ী ২৪ এপ্রিল ১৯৯০ সাল পর্যন্ত স্বাধীন বাংলার প্রথম সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরপর পর ২৪ এপ্রিল ১৯৯০ সাল থেকে ২১ নভেম্বর ১৯৯১ সাল পর্যন্ত জাফর উল্লাহ খান চৌধুরী লাহড়ী দ্বিতীয় মেয়াদে চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্বপালন করেন। জনশ্রুতি আছে জাতীয় পার্টি (নাফা) গ্রুপের সমর্থক জাফর উল্লাহ খান চৌধুরী লাহড়ী দোদন্ড প্রতাপে ৬ বছর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্বপালন করেছেন। তার ক্ষমতার দাপটে তৎকালীন সময়ে জেলা প্রশাসক, এসপিসহ প্রশাসনের শীর্ষ কর্তাগণ থাকতেন তটস্থ। তবে প্রশাসনের বিকেন্দ্রীকরণের ধোয়া তুলে এরশাদ সরকারের উপজেলা পরিষদ পদ্ধতি নির্ভৃত পল্লী গ্রামের মানুষের উন্নয়নের কথা বললেও কার্যত তেমন একটা কাজ করতে পারেনি তৎকালীন সময়ের চেয়ারম্যানগণ। চরমপন্থী অধ্যুষিত এলাকা কুষ্টিয়া সদর উপজেলার আলামপুর, আব্দালপুর, ঝাউদিয়া, দুর্গাপুর, জিয়ারুখী ইউনিয়নের গ্রামে, গ্রামে চরমপন্থীদের দৌরাত্ম ছিল। রাত আসলেই অস্ত্রের ঝনঝনানি, সকাল হলেই এখানে সেখানে নিরস্ত্র, অসহায় মানুষের লাশ পড়ে থাকতো। সে সময়ের মধ্যে কর্দমাক্ত রাস্তা, ভাঙ্গা কালভার্ট, কালভার্টবীহিন এক এলাকা থেকে আরেক এলাকায় যোগাযোগ রক্ষায় কলার ভেলা অথবা সাঁতরিয়ে করতে হতো মানুষকে। তার পরও উন্নয়নের পরিবর্তে মানুষ দিনভর কঠোর পরিশ্রম করে স্ত্রী, পুত্র নিয়ে রাতে ঘরে একটু ঘুম পাড়তে নিরাপত্তা চেয়েও পায়নি। এ জন্য কত আঁকুতি, মিনতি দেখা গেছে তার সংখ্যা জানা নেই। তবুও তাদের শেষ রক্ষা হয়নি। সে সময়ে অনেক পরিববার কে দেখা গেছে সদর উপজেলা পরিষদে ভিড় করতে। একটু নিরাপত্তার জন্য। রাস্তা-কালভার্টের জন্য নয়। কোন ভাতার জন্য নয়। কারণ সে কথা বলার অবকাশ তাদের ছিল না। নিরাপদে বাড়ীতেই থাকতে পারছেন না। রাস্তা, কালভার্ট, ভাতার কথা কখন বলবেন। আর চেয়ারম্যান সাহেবদেরই কাজ ছিল শালিস-মিমাংসা করা। কিন্তু কাজের কাজ কত টুকো হয়েছে সে সময়ের মানুষরাই ভালো বলতে পারবেন। যত সামান্য ডিপ টিউওবওয়েল স্থাপন, ইন্দারা স্থাপন, আর হাতে গোনা রাস্তা, কালভার্টের নিশানা পাওয়া যায় কিছু। তাও নড়বড়ে। নিরাপত্তা, যোগাযোগ, শিক্ষা, চিকিৎসা ব্যবস্থায় মানুষের সীমাহিন দুর্ভোগে থাকতে হতো। এ অবস্থায় কেটেছে বহু বছর। এর পর দীর্ঘ ৮ বছর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাগণ পরিষদের মুখ্য কর্মকর্তা হিসেবে সকল কিছু নিয়ন্ত্রণ করেছেন। অবশেষে মহাজোট সরকার ক্ষমতায় আসলে ২০০৯ সালে তৃণমুল মানুষের অধিকার ফিরিয়ে দিতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার উপজেলা পরিষদ পদ্ধতি পুনরায় চালু করেন। ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০০৯ সাল থেকে ১ মে ২০১৪ সাল পর্যন্ত জামায়াত নেতা মোশরারফ হুসাইন সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পরবর্তি নির্বাচনে প্রকৌশলী জাকির হোসেন সরকার ২০১৮ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত দায়িত্বপালন করেছেন। জাতীয় পার্টি, বিএনপি ও জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান গণই গত তিন যুগ ধরে কুষ্টিয়া সদর ্উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্বপালন করেছেন। এ সময়ে সদর উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে কত কিঃ মিঃ রাস্তা, কালভার্ট, স্কুল, কলেজের নতুন ভবন নির্মাণ, কতজনকে বিধবা, বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, অসুস্থ্যতার জন্য সহায়তা করা হয়েছে তার কোন জরিপ নেই। অথচ এই দীর্ঘ সময়ে সরকারী রাজশ^ খাত, এডিবিসহ বিভিন্ন দাতা সংস্থার উন্নয়ন সহায়তার পরিমান একেবারে কম নয়। কিন্তু কাজের  কাজ চাহিদা অনুপাতে হয়নি বলে অভিযোগ উপজেলার নিভৃত এলাকার বাসিন্দাদের। মনোহর দিয়া ইউনিয়নের কন্দর্পদিয়া গ্রামের কৃষক দিরাজ বিশ^াস জানালেন, শহরে যাওয়ার দরকার হলে রাইত থাকতি উঠতি হতো। না হলে গাড়ী পাওয়া দুস্কর। এলাকায় ছিল বিদ্যুত সমস্যা, রাস্তা সমস্যা, অল্প বৃষ্টি হলেই রাস্তা দিয়ে হাটা যেত না। স্বাধীনতার পর এই উপজেলায় কত চেয়ারম্যান আসলো, গেলো। কিন্তু আমাদের ভাগের‌্য পরিবর্তন তেমন একটা হয়নি। উন্নয়ন হয়েছে বাইছি বাইছি। তবে বর্তমান চেয়ারম্যান আতা সাহেব আসার পর আমাদের অনেক সমস্যা সমাধান হয়েছে। এখন আমরা অনেক শান্তিতে আছি।

পাটিকাবাড়ী ইউনিয়নের মাঝিলা গ্রামের বাসিন্দা স্কুল শিক্ষক রফিজ উদ্দিন জানালেন, এই পাটকা বাড়ীতে শহর থেকে কত নেতা ,আইসেছে, কত নেতা ভোট নেয়ার জন্য কত কথা বলেছে। কাজের কাজ কিছুই হয়নি। দীর্ঘদিন পরে কুষ্টিয়ার সার্বিক উন্নয়নের জন্য আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি আমাদের এলাকায় কত বার এসেছেন। এর আগে কোন এমপি এলাকায় এতবার আসেননি। ঈদে-চাঁদে, রমজানে ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ্য,  অতিবৃষ্টিতে যে কোন দুর্যোগে একবার হলেও তিনি আসবেন। তার নির্দেশনায় বর্তমান সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা। নিরলসভাবে কাজ করে চলেছেন।  তিনি জানান, প্রচন্ড হাড় কাঁপানো শীতে মানুষ যখন ঘর থেকে বের হতে পারে না। কাক ডাকা ভোরেই আতা সাহেব এলাকায় এসে হাজির। গত পৌনে তিন বছরে তিনি এই এলাকায় অন্তত শত বার এসেছেন, মিটিং করেছেন। রাস্তা, কালভার্ট নির্মাণ করেছন। পাটিকাবাড়ী থেকে আগে কয়েক ঘন্টা লাগতো শহরে পৌছাতে এখন মাত্র ৩০ মিনিটেই পৌছানো যায়। স্কুলের নতুন ভবন, পুলিশ ফাঁড়ির তদারকি, শীতে শীত বস্ত্র, ঈদের সময় নতুন কাপড়, রমজানে ইফতারির কথাতো সকলের জানা।

নাজিরপুর এলাকার বাসিন্দা ফারুক জানান, আমাদের এলাকায় চাপাইগাছী, নানদিয়ার বিল রয়েছে। এ বিলে কত মানুষের লাশ পড়ে থেকেছে। গেল কয়েক বছর আগেও এই বিলের দখল নিতে রাতের বেলায় যেন যুদ্ধ হতো। বর্তমান সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতা সাহেব দায়িত্বে আসার পর, বিলের মাঝ দিয়ে যে চমৎকার রাস্তা করেছেন। তাতে এলাকাটি একটি দর্শনীয় স্থান হিসেবে স্থান পেয়েছে। আগে গ্রামের মানুষ বিলের কাছে আসতি সাহস পাইতো না, এখন মটরসাইকেল নিয়ে শহর থেকে মানুষ এসে বিলের মাঝে ব্রীজের উপর মোবাইলে সেলফী দিয়ে যায়। রাস্তার কথা বলতেই তিনি জানান, আমাদের এলাকায় কোন কাঁচা রাস্তা নেই। আমারা শুনেছি শহরের পৌর এলাকায় অনেক কাঁচা রাস্তা আছে। কিন্তু আমাদের গ্রামে কোন কাঁচা রাস্তা নেই।

পাটিকাবাড়ী ইউনিয়নের খেজুর তলা গ্রামের কলেজ ছাত্রী জান্নাত জানায়, আগে কলেজে ক্লাস থাকলেও দিন থাকতে থাকতে বাড়ীতে ফিরে আসতে হতো। আমাদের এলাকায় অনেক বড় আপরা সপ্তাহে দু/তিন দিন কলেজে যেতেন। এখন আমরা এই করোনার আগে প্রায় প্রতিদিন কলেজ করে সেই বিকেলে কখনও সময় সন্ধা আসলেও বাড়ীতে এসেছি। আবার ঢাকা, রাজশাহী থেকে কেউ বাস ষ্ট্যান্ডে নেমে অপেক্ষা না করে ওই রাতেই ইজি বাইক, সিএনজিতে চড়ে বাড়ীতে আসে।

ঈদ আসলে রাতের বেলা রাত ২টা ৩টায় এ গ্রামের অনেক মানুষ যারা ঢাকায়, চট্রগামে চাকরী করেন তারা বাড়ীতে পরিবার-পরিজনের সাথে ঈদ করতে আসেন কোন সমস্যা হয়না। রাস্তায় কেউ কেড়েও নেয় না, কেউ বাধাও দেয় না। সে জানায় বর্তমানে একদিকে সরকার কঠোর, আরেকদিকে সদর আসনের নেতা হানিফ সাহেব এমপি হওয়ার পর থেকে অস্ত্রবাজী, চাঁদাবাজী, মাদক নির্মুলে ভুমিকা রাখায় এমন পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। জান্নাত জানায়, তার ছোট ভাই চেয়ারম্যান আতা ভাইও তার নির্দেশনায় অনেক বেশি মানুষের কাছে চলে গেছেন। সপ্তাহে একদিন না একদিন তাকে দেখা যাবেই কোন না কোন অনুষ্ঠানে তিনি এসেছেন। আমাদের স্কুলে প্রতি বছর বার্ষিক ক্রীাড় প্রতিযোগীতা, নতুন ভবন নির্মাণ, ঈদের সময় নতুন কাপড় দেয়া, শীতে কম্বল বিতরণ, আছেই কোন না কোন অনুষ্ঠানে। এমন জনপ্রতিনিধিদের জন্যই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এমনই হওয়া উচিত বলে মনে করে সে।

উপজেলা পরিষদ সুত্রে জানা যায়, ত্রাণ ও পুর্ণবাসন দ্প্তর, এডিবি, এলজিইডি, উপজেলা পরিষদসহ কয়েকটি শাখার উদ্যোগে এবং বর্তমান সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতার সময়কালীন সময়ে গত পৌনে তিন বছরে ১২টি ইউনিয়নে শতাধিক রাস্তা কাচা থেকে পাকাকরণ, অর্ধশত কালভার্ট নির্মাণ, প্রায় ২৫টি ছোট ব্রীজ নির্মাণ, ৩০টি নতুন স্কুল ভবন নির্মাণ, কয়েক হাজার মানুষকে বয়স্ক, বিধবা, প্রতিবন্ধী ভাতা প্রদান, আত্মনির্ভরশীল হতে দোকান ঘর নির্মাণ, আগুণে পুড়ে যাওয়া, ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ্য হওয়া প্রায় ৪ হাজার পরিবারকে ঢেউটিন নগদ টাকা বিতরণ, প্রধানমন্ত্রীর গৃহউপহার কর্মসুচীর অংশ হিসেবে একেবারে দরিদ্র জমি আছে ঘর নেই তাকে গৃহ উপহার, আবার জমিও নেই ঘর নেই এমন শতাধিক মানুষকে গৃহনির্মাণ করে দিয়েছেন। এ ব্যাপারে কথা হয়, সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাইদুর রহমানের সাথে। তিনি জানান, আমি অনেক চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে কাজ করেছি। কিন্তু আমাদের সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাহেব একটু ব্যতিক্রম। তিনি কখনও কাউকে নির্দেশ করেন না। শুধু বলেন এটা কি বিধানে আছে করা যায়। এমন ভাব। আসলে একজন জনপ্রতিনিধি হবেন যেমন চৌকস, তেমনি পরোপকারী, নির্ভিক। যার প্রত্যোকটি তার মধ্যে রয়েছে। এমন জনপ্রতিনিধি দেশের প্রতিটি উপজেলায় থাকে তা হলে সরকারের যে মিশন-ভিশন পরিকল্পনা রয়েছে। তা পুরণ হবে শতভাগ।

সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কার্যালয়ে সরজিমেন দেখা গেল আরও কিছু চিত্র। এক বৃদ্ধা এসেছেন। তার এক মাত্র মেয়েটির পেট ফুলে যাচ্ছে। চিকিৎসা করানোর সামর্থ নেই। তার কাছে আবেদন করতেই তিনি কিছুটা যাচাই করে তার ভোটার আইডি কার্ড নিয়ে একটি আবেদন করতে বললেন। নির্ধারিত দিনে তার জন্য একটি বরাদ্ধের ব্যবস্থা হলো। এর মধ্যে হাজির হলেন, আরও দুইজন। তারা একেবারে হাত পেতে সামনে হাজির। পকেট থেকে দুজনকেই বের করে দিলেন কিছু টাকা। এর মধ্যে বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, ছাত্রলীগ কর্মি, যুবলীগ, আওয়ামীলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, কৃষকলীগ, শ্রমিকলীগতো আছেই। মাঝে মধ্যে অফিসিয়াল স্টাফরা আসছেন তারা ফাইল ধরছেন, তিনি দেখে শুনে গুলোও সই স্বাক্ষর করছেন। সামনে টিভি সেটে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বাধীনতার সুর্বণ জয়ন্তী উপলক্ষ্যে টেলিভিশনে দেয়া ভাষণ শুনছেন। নেতা কর্মিদের জননেত্রীর নানা কর্মকান্ডের প্রতি উৎসাহ জোগাচ্ছেন। এমন অবস্থায় চলছে সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতার দিনের কার্যাবলী। এ ব্যাপারে কথা হয় সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল হক’র সাথে। তিনি জানান, আমার রাজনৈতিক জীবনে অনেক তিক্ত, মিষ্টি অভিজ্ঞতা রয়েছে। ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতৃত্বও দিয়েছি। ব্যবসায়ী সুবাধে এই সদর উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের প্রায় প্রতিটি গ্রামেই আমার অবাধ যাতায়াত রয়েছে। একজন নেতাকে দেখিনি। সেই শহর থেকে তৃণমুল পর্যায়ে সাধারণ মানুষের এতনিগুড় খোঁজ খবর নেয়া মানুষ দেখিনি। সবচেয়ে বড় কথা অনেক নেতাই আছেন কুষ্টিয়ার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে অন্তত ৪/৫টি ইউনিয়নের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের নাম বলতে পারবেন। এর বেশি কিছু নয়। কিন্তু আতা ভাইকে দেখলাম ব্যতিক্রম। তিনি ১২টি ইউনিয়নের প্রায় প্রতিটি ওয়ার্ডের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, কুষ্টিয়া পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর, এমনকি মিরপুর, ভেড়ামারা, কুমারখালী, দৌলতপুর উপজেলার অনেক ইউনিয়নের নেতা কর্মিদের নাম একেবারে সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে। একদিনে তার সাথে আমি ৮টি প্রোগ্রামও করেছি। ডাঃ আফিল উদ্দিন, কাউন্সিলর মীর রেজাউল ইসলাম বাবুসহ তার সফর সঙ্গী যারা রয়েছেন। তাদের কাছ থেকে শুনেছি তিনি টানা চার বছর প্রতি বছর রমজানের ৩০দিনই বাইরে ইফতার করেছেন, সাধারণ মানুষের সাথে। এর মাঝে স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা, শারদীয় দুর্গোৎসবে মন্দিরে মন্দিরে পরিদর্শন, সহায়তা করাসহ বাকিতো রয়েছে আরও অনেক অনুষ্ঠান। তিনি আরও জানান, একজন মানুষ খুব অল্প সময়ে কিছু কাজ করে জনপ্রিয় হয়ে উঠেন। কিন্তু তার বেলায় দেখলাম। তিনিই একমাত্র নেতা যিনি জনপ্রিয় থেকে অতিজনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন এই সদর উপজেলাসহ পৌরসভার ২১টি ওয়ার্ডের মানুষের কাছে। এটি কম কথা নয়। আমরা অনেক নেতাই আছি ঘুমিয়ে থাকি। বিশেষ দিবস আসলেও আমাদের ঘুম ভাঙ্গে না। আর বিশেষ দিবসে তার কর্মসুচী আরও বৃহত্তর হয়ে থাকে। সেই ভোর ৬টা থেকে শুরু করে রাত ১২টা পর্যন্ত। এর পর আবার বাড়ীর নিচ তলায় দর্শনার্থীদের সাথে স্বাক্ষাত, এটা কিভাবে সম্ভব আমার জানা নেই। তিনি জানান, আমি মনে করি মানুষের জন্য রাজনীতি করতে হলে এমনটিই হওয়া উচিত। তবেই একজন মানুষ কর্মি থেকে একজন শক্তিশালী নেতা হিসেবে গড়ে উঠতে পারে।

তার এমন ধৈয্য, জনগণের সাথে সার্বক্ষণিক চলাফেরা কিভাবে সম্ভব এ সব বিষয়ে জানতে কথা হয় সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতার সাথে। তিনি জানান, আমরা যারা রাজনীতি করতে এসেছি। তাদের একটা কমিটমেন্ট থাকা উচিত। আমি কে, কি, কার জন্য কি করতে এসেছি। এই কয়টা প্রশ্ন বুকের ভেতর ধারণ কলে চললেই কিন্তু সব কিছু চলে আসবে। জননেত্রী শেখ হাসিনা ১৪ কোটি মানুষের নেতা, মাহবুবউল আলম হানিফ এমপি কুষ্টিয়াবাসীর নেতা। আমি তাদের কর্মি। আমার সাথে যদি সদর উপজেলা, এবং পৌর এলাকার ২১টি ওয়ার্ডের মানুষের সাথে অন্তত পরিচয়টা না থাকে, আমি জানি না, কোন ওয়ার্ডের দলের সভাপতি কে, সাধারণ সম্পাদক কে। কিভাবে চলেন, কিভাবে দল করেন। তার সাধ্য আছে নাকি একটি অনুষ্ঠান করার? তা হলে তো আর নেতৃত্ব দেয়া যায় না। নেতৃত্ব দিতে হলে অন্তত তৃণমুলের সকলেই না হউক অন্তত সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের নাম, নম্বর যদি না থাকে তা হলে আমার নেতৃত্ব আসবে কিভাবে। কেননা, নির্ভৃত পল্লীর মানুষের সুখ-দুঃখের সাথী হওয়াই সার্বিক উন্নয়নের পুর্ব শত। তাই যদি হয় উন্নয়ন করতে হলে আমাকে সকলকে চিনতে হবে। তার সকল খোঁজ খবর রাখতে হবে। সপ্তাহে অন্তত তার এলাকায় যেতে হবে। তবেই আমি দল, নেতা কর্মিদের জন্য কিছু করতে পারবো। নেতা কর্মিদের সুখে-দুঃখে দল পাশে থাকবে। তিনি নিজের ও জননেতা মাহবুবউল আলম হানিফ এমপির জন্য সকলের কাছে দোয়া কামনা করেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640