1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 10:58 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

স্বাস্থ্যবিধি মানার প্রবণতা কমায় বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, March 10, 2021
  • 223 বার পড়া হয়েছে

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ফের বাড়ছে। এরই মধ্যে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও আইসিইউতে রোগী বেড়েছে। ভিড় বাড়ছে অন্যান্য হাসপাতালেও।
স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষের মধ্যে এক ধরনের গাছাড়া ভাব চলে আসায় সংক্রমণ বাড়ছে। সংক্রমণ কমিয়ে রাখতে হলে আগের মতো স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।
টিকা নেয়ার পরও স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সংক্রমণের হার আরও বাড়তে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, সামনে ঈদ আসছে। ওই সময় দেশে করোনাভাইরাসের কাছাকাছি গোত্রের ভাইরাস ইনফ্লুয়েঞ্জার মৌসুম শুরু হবে। তাছাড়া দেশে গরম পড়তে শুরু করেছে। এই সময়ে যদি সচেতনতা বাড়ানো না যায়, তবে ফের সারা দেশে করোনা ছড়িয়ে পড়তে পারে। কাজেই সারা দেশের মানুষকে মাস্ক পরতে হবে, ঘনঘন হাত ধুতে হবে এবং সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করে চলতে হবে। নইলে সামনে বড় বিপদ বলে তারা সাবধান করেছেন। এ পরিস্থিতিতে ঈদের ছুটি নিয়ন্ত্রণ করা যায় কি না, সেই বিষয়টিকেও গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। এদিকে সংক্রমণ রোধে তিনটি নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
গত ২৪ ঘণ্টায় (মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে থেকে বুধবার সকাল ৮টা) শনাক্ত হয়েছেন ১০১৮ জন, যা গত দুই মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।
এর আগে সর্বশেষ ১০ জানুয়ারি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর এক দিনে এর চেয়ে বেশি রোগী শনাক্তের তথ্য দিয়েছিল, সেদিন ১ হাজার ৭১ জনের মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। সেদিনের পর থেকে এ পর্যন্ত দেশে দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা হাজারের নিচেই ছিল।
সংক্রমণ বাড়তে থাকায় দৈনিক শনাক্ত রোগীর হারও বাড়ছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মঙ্গলবার জানিয়েছে, গত একদিনে পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ছিল ৫ দশমিক ৯৮ শতাংশ।
গত ১৯ জানুয়ারি দৈনিক শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে নেমে আসার পর এক পর্যায়ে তা ৩ শতাংশের নিচেও নেমেছিল। তবে মার্চের শুরু থেকে সংক্রমণ বাড়তে থাকায় শনাক্তের হারও বাড়তে থাকে। মঙ্গলবার তা আবার ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়।
গত ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষার বিপরীতে দৈনিক শনাক্তের হার দাঁড়ায় পাঁচ দশমিক ১৮ শতাংশ। দৈনিক শনাক্তের হার সর্বশেষ এর আগে পাঁচ এর বেশি ছিল গত ১৮ জানুয়ারিতে। এরপর থেকেই শনাক্তের হার কমতে শুরু করে। তবে মার্চের শুরুতে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে।
গত ২৮ ফেব্রুয়ারিতে শনাক্ত হন ৩৮৫ জন। তারপর থেকেই প্রতিদিন রোগী বাড়ছে। ১ মার্চে ৫৮৫ জন, ২ মার্চে ৫১৫ জন, ৩ মার্চে ৬১৪ জন, ৪ মার্চে ৬১৯ জন, ৫ মার্চে ৬৩৫ জন, ৬ মার্চে ৫৪০ জন, ৭ মার্চে ৬০৬ জন।
গত ৬ মার্চ দেশে সংক্রমণের ৫২তম সপ্তাহ শেষ হয়। সেদিন স্বাস্থ্য অধিদফতরের সাপ্তাহিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, তার আগের সপ্তাহে তুলনায় সে সপ্তাহে শনাক্ত রোগীর বেড়েছে ৩৮ দশমিক ৬৯ শতাংশ।
২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে, ধীরে ধীরে সেটি ছড়িয়ে পড়ে বিশ্বজুড়ে। বাংলাদেশে গত বছরের ৮ মার্চে প্রথম তিনজন করোনা রোগী শনাক্তের খবর জানায় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান। তার ঠিক ১০দিন পর প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুর খবর জানায় প্রতিষ্ঠানটি।
তখন থেকে নিয়মিতভাবে রোগী শনাক্ত বাড়লেও দেশে মে মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। ওই মাসের শেষ সপ্তাহ থেকেই রোগী শনাক্তের হার চলে যায় ২০ শতাংশের ওপর এবং জুন মাসে সংক্রমণ তীব্র আকার ধারণ করে। আগস্ট মাস থেকে নতুন রোগীর সংখ্যা কমতে দেখা যায়। তারপর থেকে কমতির দিকে থাকে। গত ৩ ফেব্রুয়ারিতে শনাক্তের হার নেমে হয় দুই দশমিক ৯২ শতাংশে।
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কিছুটা বেড়ে যাওয়ায় মঙ্গলবার আবারও সবাইকে সতর্ক থাকতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংক্রমণ বেড়ে যাওয়াতে কয়েকটি নির্দেশনাও দেন তিনি।
হঠাৎ করেই সংক্রমণ বাড়ছে কেন এ বিষয়ে কোভিড-১৯ বিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য ও ভাইরোলজিস্ট অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, কেউ মাস্ক পরছে না। মানুষের সামাজিক অনুষ্ঠানে যাবার প্রবণতা বেড়েছে। টুরিস্ট স্পটগুলোতে হোটেল নাকি ফাঁকা নেইÑ এমন সংবাদও দেখছি গণমাধ্যমে। তাহলে কী করে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে থাকবে?
শীতের সময়ে সবাই করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশঙ্কা করলেও অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেছিলেন, ‘শীতে আমাদের দেশে ইনফ্লুয়েঞ্জা-এ, প্যারা-ইনফ্লুয়েঞ্জা-থ্রি, রেসপিরেটরি সিনসিটিয়াল ভাইরাস (আরএসভি) ও রাইনোভাইরাস প্রবলভাবে থাকে। এগুলোর কারণেই শীতে সর্দি, কাশি, জ্বর ও নিউমোনিয়ার রোগী বেশি দেখা যায়। এসব ভাইরাস রেসপিরেটরি ভাইরাস। করোনাভাইরাসও একই। আর ভাইরাসের নিয়ম হচ্ছে, শরীরে যখন একটি ঢোকে, সেটা সহজে অন্য ভাইরাস ঢুকতে দেয় না। ঢুকলেও বের করে করে দেয়।’
গরম পরতে শুরু করেছে, এসব শীতের রেগুলার ভাইরাস চলে যাবে। তাই সংক্রমণ বাড়তে পারে মন্তব্য করে অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, একটা নিচু ঢেউ গরমের দিনে আসতে পারে, কিন্তু অত বড় হবে না, শ্যালো একটা ওয়েভ আসবে।
একইসঙ্গে নতুন স্ট্রেইন বাংলাদেশে ঢুকেছে কিনা-সেটাও এখন গবেষণা করার প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি। করোনার পুনঃসংক্রমণে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে নজরুল ইসলাম বলেন, সরকারকে আবার মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানানোর জন্য নিয়মিতভিত্তিতে কাজ করা দরকার। এজন্য ভ্রাম্যমাণ আদালতসহ যা যা করা দরকার তাই যেন সরকার করে।
এদিকে সংক্রমণ বেড়েছে উল্লেখ স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, সম্প্রতি আমাদের সংক্রমণের হার বৃদ্ধি পেয়েছে। আমরা যদি মাস্ক না পরি, সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখি, সংক্রমণ তো বাড়বেই। তিনি বলেন, ‘মানুষ যেভাবে কক্সবাজার যাচ্ছে, সিলেটে যাচ্ছে, যেভাবে সামাজিক অনুষ্ঠান হচ্ছে, মাস্ক পরার বালাই নাই, সামাজিক দূরত্বের বালাই নাইÑ সংক্রমণ তো বাড়বেই। হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বেড়ে গেছে আগের তুলনায়।’
সংক্রমণ বাড়ছে কেন সেটা অনুমান করা যায়, তবে গবেষণা ছাড়া সেটা নিশ্চিত হওয়া যাবে না মন্তব্য করে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর) এর উপদেষ্টা ও মহামারি বিশেষজ্ঞ ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, আমার অনুমান হচ্ছে গরম বাড়ছে, এখন ফ্যান বা এয়ার কন্ডিশন না হলে টেকা মুশকিল। কিন্তু একটা বদ্ধ জায়গায় যদি মাস্ক ছাড়া অনেক মানুষ থাকে তাহলে লক্ষণ-উপসর্গবিহীন একজন করোনা আক্রান্ত রোগীর থেকে বাতাসের মাধ্যমে অন্যরা সংক্রমিত হবেন। একইসঙ্গে যুক্তরাজ্যে করোনার নতুন ভেরিয়েন্ট বি-ওয়ান ওয়ান সেভেন ( ই১১৭) পাওয়া গেছে । গত জানুয়ারি মাসে সিলেটে সংক্রমিত কয়েকজনের একজনের এ ভেরিয়েন্ট পাওয়া গেছে। সেটার জন্য হচ্ছে কীনা আমি বলতে চাই না, তার জন্য অ্যানালাইসিস দরকার যে, সংক্রমণ বাড়ার হার পুরো বাংলাদেশেই নাকি কোনও বিশেষ এলাকাতে। যদি প্রবাসীদের মধ্যে সিলেট বা ঢাকা অঞ্চলে হয় তাহলে এটা বলা যেতে পারে।
ডা. মুশতাক হোসেন বলেন, প্রতিদিন শনাক্ত বাড়ছে। আগের দিনের চেয়ে পরের দিন আরও বেশি, এই লক্ষণ কিন্তু খারাপ হতে পারে। কাজেই এখনও যদি আমরা সতর্ক হই, যেভাবে শীতকালে প্রধানমন্ত্রীর আশঙ্কার পর সবাই সতর্ক ছিল সেভাবেই কাজ হওয়াতে নভেম্বরে বাড়তে গিয়ে বাড়েনি, নেমে গেছে। সেভাবেই যদি ব্যবস্থা না নেওয়া হয়, আত্মতৃপ্তিতে ভুগি, তাহলে আমাদের বিপদ হতে পারে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640