1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 10:24 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

কুল বাগান করে স্বাবলম্বী সোহেল

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, March 10, 2021
  • 198 বার পড়া হয়েছে

 

কৃষি প্রতিবেদক ॥ কুল বাগান করে বেকারত্ব ঘুঁচিয়েছেন শিক্ষিত যুবক সোহেল রানা। বেকারত্বের অভিশাপ থেকে তিনি এখন তার পরিবারের স্বচ্ছলতা এনেছেন। কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার বারুইপাড়া ইউনিয়নের গৌড়দহ এলাকার মীর আবুল কাশেমের ছেলে তিনি। স্বল্প সময় ও অল্প খরচে বেশি লাভ হওয়ায় আরও অনেকেই এই কুল বাগানে উদ্বুদ্ধ হচ্ছেন। গত সোমবার সরেজমিনে দেখা গেছে, কুল বাগান পরিচর্যার কাজে ব্যস্ত সোহেল। বাগানে আরও কয়েকজন শ্রমিক ব্যস্ত পরিচর্যা ও কুল সংগ্রহ করতে। এই বাগান পরিদর্শন করতে আরও কিছু উৎসুক জনতাকেও দেখা গেল। আলাপকালে সোহেল রানা জানান, ২০১৪ সালে মাস্টার্স সম্পন্ন করার পর গাজীপুরে হেলথ কেয়ারে চাকরি করতেন। পরে তার  বাবা অসুস্থ্য হওয়ায় ২০১৭ সালে চাকরি ছেড়ে চলে আসেন। এরপর আর ভালো কোনও চাকরি না পাওয়ায় বাড়ির পাশে অন্যের জমি লিজ নিয়ে শুরু করেন বল সুন্দর কুলের বাগান। তিনি তিন বিঘা জমিতে বল সুন্দর কুল বাগান গড়ে তোলেন। ৮ মাসের ব্যবধানে  চাষ করে বেশ লাভবানও হয়েছেন তিনি। তিনি আরও জানান, কুল বাগানে চাষ শুরুর ৮ মাসের মাথায় বাগানের ফল ধরতে শুরু করে। এখন পর্যন্ত দেড় লাখ টাকার কুল বিক্রি করেছে। এখনও বাগানে কুল রয়েছে। বছর শেষে সকল খরচ বাদ দিয়ে এখান থেকে লাখ টাকার ফল বিক্রি করবেন বলে আশা করেন সোহেল। সোহেল রানা জানান, বিক্রিতেও তেমন কোন ঝামেলা নেই। পাইকাররা এসে বাগান থেকেই সংগ্রহ করে ওজন দিয়ে নিয়ে যায়। তবে সিন্ডিকেট বাজার ব্যবস্থার কারণে ন্যায্যমূল্য পাওয়া যায় না। কুল খেতে মিষ্টি ও সুস্বাদু। বাজারে এর চাহিদাও রয়েছে প্রচুর। সোহেলের এ সাফল্যে ইতিমধ্যেই এলাকায় ব্যাপক সাড়া পড়েছে। এলাকার অনেক যুবক কুল চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। জগতি এলাকার বিপ্লব হোসেন ও সাইদুল ইসলাম এসেছিলেন সোহেলের কুল বাগান দেখতে। তারা বাগান দেখে অভিভূত। তারাও তাদের জমিতে এই ধরনের কুল বাগান করবেন বলে জানান। বাগানে বেশকিছু দর্শনার্থীদের দেখা গেলো। তারা সুন্দর এই বাগান পরিদর্শনে এসেছেন। কেউবা ছবি তুলছে, বাগান মালিক কুল তুলে দিচ্ছেন। মশান এলাকা থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে এসেছিলেন বিপুল হোসেন। তিনি বলেন, ‘পরিবারের সদস্যদের নিয়ে এই গ্রামে বাগান দেখতে এসেছি। বাগান ঘুরে খুব ভালো লাগলো। আমরাও ইচ্ছে হচ্ছে এমন একটা সুন্দর বাগান করার। মিরপুর উপজেলা কৃষি অফিসার রমেশ চন্দ্র ঘোষ বলেন, ‘কুল চাষে সফল সোহেল নিজে কুল বাগান গড়ে তুলে এলাকায় চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছেন। তার দেখাদেখি অনেকেই বাগান করতে চাচ্ছেন। আমরা কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ফলজ বাগান গড়ে তুলতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করি।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640