1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 6:15 pm

তিনদিন অতিবাহিত হলেও কেউ ধরা পড়েনি॥ হরিপুর শালদহে পারিবারিক কবরস্থান ভেঙ্গে গরুর খামার নির্মাণই দ্বন্দের মুল কারণ ॥ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার বাদীসহ চারজনের স্বাক্ষগ্রহন

  • প্রকাশিত সময় Sunday, March 7, 2021
  • 212 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ অর্ধশত বছরের পুরোনো পারিবারিক কবরস্থানে ভেঙ্গে অবৈধভাবে গরুর খামার নির্মাণই হাটশ হরিপুরে প্রয়াত এম মাহমুদ হোসেন সাচ্চুর পৈত্রিক বাড়ীতে নির্যাতনের শিকার ভগ্নিপতির মৃত্ব্যর মুল কারণ বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় গত ৫ মার্চ হামলাকারী হক্কা গুল ফ্যাক্টরীর মালিক আনোয়ার হোসেন মুন্না, স্ত্রী নিলুফা হোসেন ওরফে বেলী খাতুনসহ ৮ জনকে আসামী করে মৃত্ব্যবরণকারী ভগ্নিপতি আনছার আলী মন্ডলের শালিকা সানজিদা খাতুন কলির দায়ের করা মামলার তিনদিন অতিবাহিত হলেও কেউ ধরা পড়েনি বলে জানা গেছে।

সুত্রটি জানায়, বাদী সানজিদা আক্তার কলি তার মামলার বিবরণে জানিয়েছেন, মায়ের নামীয় ২ বিঘা জমি বোন নিলুফা হোসেন ওরফে বেলী যোগসাজসী করে জাল দলিল বানিয়ে নিজেদের বলে দাবী করে আসছিল। এ ব্যাপারে কুষ্টিয়া জজ কোর্টে দেং ১৯৮/২০২০ মামলা দায়ের করা হয়। মামলাটি চলমান অবস্থায় সম্প্রতি উক্ত স্থানে তার দাদা প্রয়াত বিদুর উদ্দিন বিশ^াস, দাদী রহিমন নেছা, বড় চাচা মকবুল হোসেন, প্রয়াত সাচ্চুর মাতা রেলী খাতুন, বড় ভাই হাছুদ হোসেন, পলি খাতুনের এক কন্যাসহ মৃত প্রায় ১০/১২ জনের অর্ধশত বছরের পুরোনো একটি পারিবারিক গোরস্থান ভেঙ্গে হটাৎ করেই সেখানে একটি গরুর খামার নির্মাণের জন্য মেঝে সমান ইট দিয়ে গেঁতে তুলেন মামলার আসামী নিলুফা খাতুন ওরফে বেলী গংরা। এ খবর পেয়ে গত ১৯ ফেব্রুয়ারী শুক্রবার বিকেল অনুমান সাড়ে ৫টার দিকে বাদী সানজিদা খাতুন কলি মামলা চলমান অবস্থায় কিভাবে ঘর করছে এমন প্রশ্ন করলে মামলায় উল্লেখিত আসামীগণ তার উপর ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে এবং সংঘবদ্ধ হয়ে কাঠের বাটাম, হাতুড়ী, ইটপাটকেল ও লোহার রড  ইত্যাদি দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাকে অকথ্য ভাষায় গালি-গালাজ করতে থাকে। এ সময় তার আত্মচিৎকারে বড় ভগ্নিপতি সদ্য প্রয়াত আনছার আলী মন্ডল তাকে ঠেকাতে ছুটে আসলে আনোয়ার হোসেন মুন্না তার মাথায় আঘাত করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার গলার উপর পা রেখে মামলায় উল্লেখিত আসামীগণ ধরে রাখে। এ অবস্থায় মৃতপ্রায় আনছার আলী মন্ডলকে উদ্ধারের জন্য কলিসহ উপস্থিত সকলের আত্মচিৎকারে কলির ছোট বোন সুমাইয়া আক্তার মীম, রিপালী হোসেন, সাকিব হোসেনসহ স্বাক্ষীগণ ছুটে আসলে আনছার আলীকে ছেড়ে দিয়ে দেয়। এর পর গুরুতর আহত আনছারী আলীকে প্রথমে কুষ্টিয়া ২শ ৫০ শর্যার হাসপাতাল পরবর্তিতে রাজশাহী মেডিকেল, ঢাকা নিউরোসাইন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ছিল। গত ৪ মার্চ ঢাকা থেকে পুনরায় তাকে কুষ্টিয়া ২শ ৫০ শয্যার হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ৫ মার্চ অনুমান সকাল সাড়ে ১১টার দিকে মৃত্ব্যবরণ করেন। পরে তার লাশের ময়নাতদন্ত শেষে রাতে তার দাফন সম্পন্ন হয়। ওই দিন ভগ্নিপতি আনছার আলী মন্ডলের সাথে সানজিদা খাতুন কলিও আহত হন। তারা উভয়ে হাসাপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন। এদিকে এ মামলায় এখন পর্যন্ত কেউ ধরা পড়েনি। গতকাল  মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আনছারুল হক মামলার বাদী সানজিদা খাতুন কলি, ছোট বোন সুমাইয়া আক্তার মীম, মরহুম আনছার আলী মন্ডলের পুত্র সাকিব হোসেন, রিপালী খাতুনসহ ৪ জনের স্বাক্ষ্যগ্রহন করেছেন। এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আনছারুল হক জানান, মামলার ভিকটিম যেহেতু মারা গেছেন। সে জন্য মামলাটি সঠিক ধারায় ‘স্যাঙ্গুনইন’ করতে স্বাক্ষীদের স্বাক্ষগ্রহন করা হয়েছে। তবে যেহেতু মামলাটি তদন্তাধীন সে জন্য পোষ্টমটেম রিপোর্ট পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। নিজের বাড়ীতে এমন একটি অনাকাংখিত ঘটনা ঘটেছে সে ব্যাপারে প্রয়াত সাচ্চুর বড় ভাই হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান এম মোস্তাক হোসেন মাছুদ হোসেন জানান, আমার ভগ্নিপতি আমার বাড়ীতে যাবে এটাতো স্বাভাবিক ব্যাপার। আর ভালো মানুষ সেদিন বাড়ীতে খাওয়া-ধাওয়া করেছে। তার শরীরে আঘাতের চিহ্ন আছে। তিনি জানান, আমার বোন কলিকে বোন নিলুফার চাকর হেলালসহ কয়েকজন তার উপর হামলা করে তাকে ঠেকাতে গেলে আনছারকে পেছন থেকে তালা দিয়ে আঘাত করা হয় বলে জেনেছি। আর মায়ের নামীয় জমি দান বলা হচ্ছে, তাতে ৬টি শর্ত পুরণ করতে হয়। আমরা আদালতে বলেছি, আমরা তার সন্তান, আমার মামারা কেউ ওই দলিলে স্বাক্ষী নেই। কিভাবে আমার পিতা আমার মাকে ৩০ কাঠা জমি দান করলো। সে ব্যাপারে দলিল বাতিল চেয়ে আমরা মামলা করেছি এটাই আমাদের অপরাধ। আমিও অনেক চেষ্টা করেছি। বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য। কিন্তু বোন যেমন-তেমন ভগ্নিপতি ঠিক না। ওই তো ঘটনার মুল নায়ক। তিনি দোষীদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি দাবী করেছেন।

মামলার বাদী সানজিদা আক্তার কলি জানান, ওই দিন আমিও আহত হয়েছি। আনছার ভাই’র সাথে আমারও হাসপাতালের ছিলিপে ‘ পুলিশ কেস, সিল মারা আছে, আনছার ভাইরও ভর্তি ছিলিপে পুলিশ কেস লেখা আছে। ভর্তি ছিলিপে পুলিশ কেস মারা নেই, এসব বানোয়াট তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। সে জানায়, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই আনছারুল হক আমাদের স্বাক্ষ্য গ্রহন করেছে। আমরা আশা করছি, আমার ভগ্নিপতি হত্যার বিচার দ্রুত পাব। ছোট বোন সুমাইয়া আক্তার মীম জানান, আমি আমার সন্তানসহ ভগ্নিপতি হত্যার বিচারের জন্য প্রস্তুত আছি। কি নিয়ে আমার বড় বোন পলির সামনে আমরা সারাজীবন মুখ দেখাবো। কোন ভাবেই ওই হত্যাকারীদের ছাড় দেয়া হবে না জানান।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640