1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 11:44 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

ইবির ভিসিকে নিয়ন্ত্রণ নিতে সকল অপকর্মের হোতা ড. মাহাবুব ও ড.আরেফিন ঐক্যবদ্ধ !

  • প্রকাশিত সময় Friday, March 5, 2021
  • 398 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের আলোচিত দুই শিক্ষক সাবেক প্রক্টর প্রফেসর ড. মো : মাহাবুবর রহমান এবং সাবেক ভিসি ‘আসকারী হটাও’ আন্দোলনকারী নেতা ইইই বিভাগের শিক্ষক ও প্রফেসর ড. মাহাবুবুল আরেফিন ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক নতুন ভিসিকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ নিতে এবার ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। একটি দায়িত্বশীল সুত্রে জানা যায়, ইবির ভিসিকে নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়োগ ও টেন্ডার বাণিজ্য সহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতি করতে এই দুই শিক্ষক এক হয়েছেন। ইবিতে সব চেয়ে আলোচিত এই দুজন শিক্ষক কিছু দিন আগেও দুই গ্রুপের নেতৃত্ব দিয়েছেন ড. মাহাবুব ছিলেন সাবেক ভিসি ড. আসকারীর পক্ষে অপর দিকে ড. আরেফিন ছিলেন সাবেক ভিসির বিপক্ষে। কিন্তু হঠাৎ করে এই দুই শিক্ষক এক হল কিভাবে এ নিয়ে ক্যাম্পাস জুড়ে চলছে নানা আলোচনা সমালোচনা। ড. আরেফিনের নামে নানা অভিযোগ রয়েছে ছাত্রীর সাথে প্রেম আলাপের অডিও ফাঁস এক কর্মকর্তার সহযোগিতাই বিভিন্ন নারীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তোলা এক কর্মকর্তার অফিসে সন্ধ্যায় মদের আসর বসান শিক্ষক নিয়োগের অডিও ফাঁস ও ইবিতে চলমান মেগা প্রকল্পে টেন্ডার বাণিজ্যের অভিযোগ আছে পরিচয় গোপন রেখে আপন ভাইকে( শিবির ক্যাডার ) কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগ দিতে গিয়ে হাতে নাতে ধরা পড়ে এবং ঐ বিশ্ববিদ্যালয়ে আজীবনের জন্য কালো তালিকাভুক্ত করে ইউজিসি কে তদন্তের জন্য অনুরোধ করে ( তদন্ত চলমান) এছাড়াও ছাত্র জীবনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিবিরের রাজনীতির করতো বলেও অভিযোগ আছে ড. আরেফিনের বিরুদ্ধে। অপর দিকে ড. মাহাবুবের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই ইবিতে যেই ভিসি হয়ে আসে তাকেই নিজ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেই এই শিক্ষক। তার বিরুদ্ধে আছে নানা অভিযোগ শিক্ষক নিয়োগ বাণিজ্য টেন্ডার বাণিজ্য ছাত্রলীগ নিজের নিয়ন্ত্রণে নিতে পছন্দের ছাত্র দিয়ে টাকা দিয়ে ছাত্রলীগের কমিটি বাণিজ্য ক্যাম্পাসের আসে পাসের সন্ত্রাসী নিয়ন্ত্রণ ইবির অঘোষিত ভিসি বলে নিজেকে পরিচয় দেন এই শিক্ষক। ছাত্র জীবনে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে শিবিরে রাজনীতি করতো বলেও অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। প্রগতিশীল সংগঠনের মধ্যে বিভক্তি করে সবাইকে নিজ নিয়ন্ত্রণে রাখা ক্যাম্পাসে ভুইফোড় সংগঠন খোলাসহ বিস্তর অভিযোগ আছে এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে। ইবির আলোচিত এই দুই শিক্ষক বর্তমান উপাচার্য প্রফেসর ড. শেখ আব্দুস সালাম কে নিজ নিয়ন্ত্রণে নিয়ে পছন্দের শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন প্রশাসনিক পদে বসিয়ে সামনে অনেক বড় নিয়োগ ও চলমান মেগা প্রকল্প নিজেদের নিয়ন্ত্রণে আনতে কিছু শিক্ষক নেতা ও কর্মকর্তা নেতাদের সাথে নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন ড. মাহাবুব ও আরেফিন। কিছুদিন আগে কুষ্টিয়া শহরে এক কর্মকর্তা নেতার বাসাই বসে একটি মিটিংও করেছেন এই দুজন শিক্ষক। এ নিয়ে ইবিতে নানা রকম আলোচনা সমালোচনা চলছে ইবিতে । বিভিন্ন সময় নতুন ভিসি নিয়োগ কে কেন্দ্র করে ইবিতে শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের মধ্যে হয় বিভক্তি কিন্তু কিছু দিন আগেও ড. রহমান ও ড. ফিনের মধ্যে বিরোধ ছিল তুঙ্গে। একজন আরেক জন কে সহ্য করতে পারতো না!! এ বিষয়ে জানতে চাইলে ইবির একজন সিনিয়র শিক্ষক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন ইবিতে এই দুজন শিক্ষক দীর্ঘদিন ধরে উপাচার্যদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়োগ ও টেন্ডার বাণিজ্য করে এবং ক্যাম্পাসে শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করে চলেছেন পাশাপাশি শিক্ষক সমাজকে দীর্ঘদিন কলঙ্কিত করে চলেছেন। আমি বিশ্বাস করি বর্তমান উপাচার্য শিক্ষক নামের নষ্ট দুজনকে প্রশাসন থেকে দূরে রেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মান রক্ষা করবে । ইবি বঙ্গবন্ধু পরিষদের জনৈক নেতা বলেন হাতে গোনা কিছু শিক্ষক ও কর্মকর্তা ভিসি স্যার কে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নিয়োগ ও ট্রেন্ডার বাণিজ্য করাই এদের মূল লক্ষ্য। আর এ কারনেই বিভিন্ন সময় এরা গ্রুপ পরিবর্তন করে নোংরা রাজনীতি করে তাদের প্রয়োজনে বিভিন্ন সংগঠনের মধ্যে বিভক্তি ও বিভিন্ন শিক্ষক ও কর্মকর্তাদের জামায়াত বিএনপি বানায়। এর মধ্যে অন্যতম এই দুজন শিক্ষক। এছাড়াও ক্যাম্পাসে একাধিক সংগঠনের নেতারা বলেন কিছু শিক্ষক ও কিছু কর্মকর্তা ঘুরে ঘিরেই ইবিতে নানা রকম আলোচনা সমালোচনা সৃষ্টি করে এদের বয়কট করা উচিৎ বর্তমান ভিসি স্যারের উচিৎ এই মানুষ গুলোকে এড়িয়ে চলা। এ ব্যাপারে মুঠোফোনে ড. আরেফিন জানান, এ বিষয়টি সঠিক নয়। সাবেক প্রক্টর ড. মাহবুবর রহমানের সাথে যোগসাজস, বা সম্পর্ক, সমঝোতার প্রশ্নই আসে না, তিনি আরও জানান হটাৎ এ বিষয়টি কেন আসলো তা বুঝতে পারছি না, বলে জানান।  অপর দিকে ড. মাহাবুব কে ফোন দিলে ওনি বলেন যে রাজনৈতিক কারণে যে কারোর সাথে আলোচনা হতেই পারে আমার, বলে ফোন কেটে দেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640