1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 24, 2024, 10:28 pm
শিরোনাম :
১৩ প্রকার যন্ত্রপাতি কেনায় অনিয়মের অভিযোগে দুদকের তদন্ত চলমান চাপ বেড়েছে তিন গুণ কুষ্টিয়া হাসপাতালে, ফাঁকা পড়ে আছে মেডিকেল কলেজের বিশাল ভবন ২৪ রানে অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে সেমিতে ভারত ৯ শত ৯৮ কোটি ৫৫ লাখ ৩৭ হাজার টাকার মানব সম্পদের ক্ষতি ঈদযাত্রায় ১৩ দিনে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণহানি বেড়েছে ১৩.৩১ শতাংশ খোকসায় আগুনের লেলিহান শিখায় নিঃস্ব ব্যবসায়ীরা আলমডাঙ্গায় ক্ষুদ্রঋণ কার্যক্রমের গতিশীলতা আনয়ন শীর্ষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত প্রকৌশলী আতিকুজ্জামান থ্রি-ডি প্রিন্টারে যন্ত্রাংশ তৈরি করে সফল হওয়ায় পুরস্কার পেলেন ভেড়ামারায় বিষাক্ত সাপের কামড়ে গৃহবধু’র মৃত্যু ॥ এলাকায় আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি বণ্টন সম্ভব নয় : মমতা জামরুল চাষ প্রযুক্তি টস জিতে ভারতকে ব্যাটিংয়ে পাঠালো অস্ট্রেলিয়া

জিয়ার অবদান অস্বীকার মানে স্বাধীনতাকে অস্বীকার : ফখরুল

  • প্রকাশিত সময় Saturday, February 27, 2021
  • 216 বার পড়া হয়েছে

জিয়াউর রহমানের অবদান অস্বীকার করা মানে স্বাধীনতাকেই অস্বীকার করা বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শনিবার দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন। গুলশানের হোটেল লেকশোরে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে মিডিয়া কমিটির আয়োজনে এ সভার আয়োজন করা হয়।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা শুধু ৭ মার্চ নয়, ২ ও ৩ মার্চও পালন করছি। আমরা ২ মার্চ কেন করছি? সেদিন প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেছিলেন আ স ম আবদুর রব। তিনি তখনকার ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতা ছিলেন। আমরা সেটাও পালন করছি, দ্যাট ইজ এ পার্ট অব হিস্ট্রি। তিন তারিখ কি? স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ করেছেন শাহজাহান সিরাজ সাহেব। এটাকে অস্বীকার করব কী করে? আজকে তার রাজনৈতিক ধারা ভিন্ন, রাজনৈতিক দল ভিন্ন হতে পারে কিন্তু দ্যাট ইজ রিয়েলিটি, দ্যাট ইজ পার্ট অব হিস্ট্রি।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঠিক একইভাবে যে ভাষণ শেখ মুজিবুর রহমানের অবশ্যই ইতিহাস। অবশ্যই তার সম্মান, তার মর্যাদা তাকে দিতে হবে। তার অর্থ এই নয় যে, ৭ মার্চ আপনি যখন পালন করবেন তখন এই কথা বলবেন ৭ মার্চের ডাকে হয়ে গিয়েছিলো কি না সেটা তো আলোচনার মধ্যে আসবে। ইতিহাস থেকে আসবে, ইতিহাসের সমস্ত বই থেকে আসবে।’

বিএনপি মহাসচিব স্পষ্ট করে বলেন, ‘কাউকেই খাটো করার কোনো রকম ইচ্ছা আমাদের নেই। আমরা বিশ্বাস করি- সেটা উচিতও নয়। বিশেষ করে স্বাধীনতার ব্যাপারে প্রকৃত সত্য সকলকে উদঘাটিত করতে হবে। এজন্য জোর দিয়ে বলছিÑ আমরাও যুদ্ধের সময়ে যুবক, আমরা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছি। প্রতিটি মুহূর্ত, প্রতিটি সময় আমাদের সামনে জ্বল জ্বল করছে। কে বক্তৃতাতে ৭ মার্চে কি বলেছিলেন, পরবর্তীকালে ২ মার্চে কি বলেছিলেন, ৩ মার্চে কি বলেছিলেন, ৯ মার্চ মওলানা ভাসানী কি বলেছিলেন পল্টন ময়দানে এগুলো সব ইতিহাস। একই সঙ্গে মাহবুবউল্লাহ কি বলেছিলেন সেটাও একটা ইতিহাস।’

তিনি বলেন, ‘২৬ মার্চ শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের যে ঘোষণা জাতিকে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়তে অনুপ্রাণিত করেছিল এবং সমগ্র জাতি যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল এটাও ইতিহাস। সুতরাং এগুলো কোনোটাই অস্বীকার করা যাবে না।’

জাতিকে বিভক্ত করার জন্য আওয়ামী লীগকে অভিযুক্ত করে তিনি বলেন, ‘দুর্ভাগ্য আমাদের ৫০ বছর পরে জাতি হিসেবে আমরা বিভক্ত হয়ে পড়েছি। সেটার জন্য কৃতিত্ব আওয়ামী লীগেরই। জাতিকে প্রথম থেকে তারা স্বাধীনতার পক্ষে, স্বাধীনতার বিপক্ষে, চেতনার পক্ষে-বিপক্ষে নিয়ে গেছে। ওই চেতনা নিয়ে কি দেশ স্বাধীন হয়েছিল যে আমি গণতন্ত্র লুট করে নেব, আমি আগের রাতে নির্বাচন করে সরকার লুট করব। আমি কোষাগার খালি করে দেব। আমি একজন লেখক, একজন নিরীহ মানুষ, তিনি লেখেন সেই অপরাধে তাকে জেলে পাঠিয়ে তাকে মৃত্যুবরণ করতে হবে।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কঠোর সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আজকে যে ডিজিটাল আইন তৈরি করা হয়েছে, আপনারা সাংবাদিকরা তার সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী। আপনাদের প্রায় ৪০০ জন বিভিন্নভাবে ভুক্তভোগী। কত জনকে জেল খাটতে হয়েছে। আপনাদের ফটোগ্রাফার কাজল, তার আগে বিখ্যাত আন্তর্জাতিক আলোকচিত্রী শহিদুল আলম এরা সবাই। সাগর-রুনিকে হত্যা করা হয়েছে। এদের অপরাধ শুধু লেখার জন্য। আমার প্রশ্ন এই জায়গায় যে, এর জন্য তো আমরা স্বাধীনতা যুদ্ধ করিনি, এজন্য আমরা স্বাধীনতা চাইনি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা চেয়েছিলাম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র নির্মাণ করব। আমরা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর কর্মসূচি পালন করার ওই একটাই উদ্দেশ্য যে, গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ আমরা চেয়েছিলাম। আমরা কোনো একজন ব্যক্তি, কোনো একটা পরিবার, কোনো একটা দলের একান্ত ব্যক্তিগত পারিবারিক সম্পত্তি করার জন্য আমরা এদেশ স্বাধীন করিনি। এখানে আমাদের কোনো ধরনের অস্পষ্টতা নেই। এটা বাংলাদেশের মানুষের জন্য, বাংলাদেশের মালিক জনগণ এটা মূল কথা।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ফখরুল বলেন, ‘জিয়াউর রহমানকে ইতিহাস ধারণ করেছে। কে কার খেতাব বাতিল করল, না করল তাতে জিয়াউর রহমানের কিচ্ছু যায়-আসে না। আর এদেশের স্বাধীনতাকামী মানুষেরও কিছু যায়-আসে না। বিএনপিরও কিচ্ছু যায়-আসে না।’

বিএনপিতে রণাঙ্গনের সম্মুখ যুদ্ধে অংশগ্রহণকারী মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা বেশি উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের দলের প্রথম চেয়ারম্যান ছিলেন জিয়াউর রহমান। এর পরে যিনি চেয়ারপারসন হয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া। তিনিও স্বাধীনতা যুদ্ধে একজন অংশগ্রহণকারী ও নির্যাতিত নেত্রী। তিনি কারাবরণ করেছেন একাত্তর সালে এবং আজকেও তিনি যে লড়াইটা করছেন এখনো কারাবন্দি আছেন। তার একমাত্র লক্ষ্য গণতন্ত্রকে মুক্ত করার জন্য।’

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640