1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 15, 2024, 6:02 pm

বন্দুকযুদ্ধ হলে কী পুলিশ পালিয়ে আসবে : বেনজীর

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, February 24, 2021
  • 187 বার পড়া হয়েছে

সন্ত্রাসীরা গুলি করলে সেটা প্রতিহত করতেই সরকার পুলিশকে অস্ত্র দিয়েছে। প্রয়োজনের নিরিখে জীবন রক্ষার জন্য সরকারি অস্ত্র ব্যবহার করা হয় বলে জানিয়েছেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) . বেনজীর আহমেদ।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের (সিপিএইচ) নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রায় পাঁচ মাস পর গেল মঙ্গলবার কক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে আইজিপি বলেন, ‘বন্দুকযুদ্ধ হলে কি আমাদের সদস্যরা অস্ত্র ফেলে পালিয়ে চলে আসবে?

জকির ডাকাত, ভয়াবহ ডাকাত, যান কক্সবাজারে গিয়ে খবর নেন। গত তিন বছরে তার কাছ থেকে কমপক্ষে দেড়শ অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। ২৩ ফেব্রুয়ারি যখন গোলাগুলিতে সে মারা গেছে তখনো তার কাছ থেকে নয়টা অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

যখন ধরনের কোন বিপজ্জনক গ্যাং লিডার আমাদের পুলিশ সদস্যদের লক্ষ্য করে গুলি করবে, তখন কি আমরা শহীদ হয়ে যাবো? নাকি পাল্টা হামলা করবো?’

যেখানে আর্মড গ্যাং আমাদের বিরুদ্ধে অস্ত্র ব্যবহার করবে সেখানে আমরা প্রয়োজনের নিরিখে জীবন রক্ষায় সরকারি অস্ত্র ব্যবহার করবো। সরকারি অস্ত্র দেয়া হয়েছে সেটাকে প্রতিহত করবার জন্য। সরকার অস্ত্র দিয়েছে লাঠি হিসেবে ব্যবহারের জন্য না। লাঠি এক রকম আর লিথল উইপন আরেক রকম। সরকার যদি শুধু লাঠি দেয়, আমরা লাঠিই ব্যবহার করবো।

তিনি বলেন, ‘চট্টগ্রামকক্সবাজার এলাকার মানুষ জানে, জকির ডাকাত কী জিনিস, তার হাতে কতো লোক অপহৃত হয়েছেন আর কতজন মারা গেছেন। তাই যেটা হয়েছে, সেটা আমি মনে করি প্রয়োজন হলে হবে, না হলে হবে না। এখানে ঘোষণা দিয়ে চালু করা বা বন্ধ করার কোন বিষয় নাই।

এর আগে সিপিএইচর নবনির্মিত ভবন প্রসঙ্গে আইজিপি বলেন, ‘গত বছর মার্চে অতিমারী করোনার আবির্ভাব ঘটে, আর এতে সবচেয়ে বড় ক্যাজুয়ালটি হয়েছে বাংলাদেশ পুলিশের। করোনায় প্রায় ৮৩ জন সদস্য শাহাদাত বরণ করছেন। সম্মুখযোদ্ধা হিসেবে ২১ হাজার সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন।

কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতাল একটি জেনারেল হাসপাতাল ছিলো, কিন্তু করোনা পরিস্থিতিতে আমরা এটিকে দ্রুত কোভিড হাসপাতাল হিসেবে রূপান্তর করি।

এখানে পুলিশ সদস্যদের চিকিৎসা ছাড়াও প্রায় ,৫০০ করোনা আক্রান্ত সাধারণ নাগরিককে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ভ্যাক্সিনেশনের শুরু থেকে পুলিশ সদস্য সাধারণ মানুষ মিলে প্রায় ২৮ হাজার মানুষকে ভ্যাক্সিনেশন করা হয়েছে, যা প্রতিদিনই দিয়ে যাচ্ছি।

নতুন ভবনের ফলে হাসপাতালের আইসিইউ, সিসিইউ, এইচডিইউ ক্যাপাসিটি বৃদ্ধি পাবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘পুলিশ সদস্যরা খুব চ্যালেঞ্জিং পরিবেশে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। নানা কারণে পুলিশে হার্টের রোগী, লাং, কিডনী ক্যান্সারের রোগী প্রচুর। প্রতিবছর কোটি কোটি টাকা খরচ করি তাদেরকে বাইরে ট্রিটমেন্ট করানোর জন্য।

আজকের পর এখানকার চিকিৎসা সুবিধা অনেক বেশি সম্প্রসারিত হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশক্রমে বিভাগীয়Ñ জেলা পুলিশ হাসপাতালগুলোকে উন্নত করার চেষ্টা করছি, যা পর্যায়ক্রমে করা হবে। পুলিশ মেডিক্যাল সার্ভিসেরও চেষ্টা চলছে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘পুলিশের মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিষয়ে একাধিকবার সরকারের সঙ্গে কথা হয়েছে। পর্যায়ে বিষয়টি বিবেচনাধীন রয়েছে। সরকার অনুমোদন দিলে আমরা মেডিকেল কলেজ বানাবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640