1. nannunews7@gmail.com : admin :
April 16, 2024, 7:13 am

ঘুষ, দুর্নীতি মুক্ত ও জনবান্ধব পুলিশ উপহার দিয়ে বিদায় নিচ্ছেন পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত

  • প্রকাশিত সময় Wednesday, February 24, 2021
  • 202 বার পড়া হয়েছে

 

কাগজ প্রতিবেদক ॥ ঘুষ, দুর্নীতি মুক্ত, স্বচ্ছ ও জনবান্ধব পুলিশ উপহার দিয়ে বিদায় নিচ্ছেন পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত। গত আড়াই বছরে কুষ্টিয়া জেলায় দায়িত্ব পালনকালিন সময় জনবান্ধব পুলিশ গড়তে নানা পদক্ষেপ নেন। এছাড়া মাদক, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি বন্ধে কঠোর অবস্থানে বদলে যায় জেলার চিত্র। এছাড়া পুলিশের অভ্যন্তরীন ঘুষ লেনদেন, বদলি বানিজ্য ও অবৈধ পরিবহন থেকে চাঁদা আদায় পুরোপুরি বন্ধ করে সাড়া ফেলতে সক্ষম হন। জেলার মানুষের ভালবাসা নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার সকালে বিদায় নিবেন জনপ্রিয় এ পুলিশ সুপার। আড়াই বছর আগে জেলায় যোগ দিয়ে পুলিশ সুপার এসএম তানভীর আরাফাত পুলিশের অভ্যন্তরীন দুর্নীতি বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেন। বিশেষ করে মাদক স্পট থেকে টাকা আদায় বন্ধ, পাসপোর্টের তদন্ত থেকে অর্থ আদায় বন্ধ, অবৈধ পরিবহন থেকে সকল প্রকার চাঁদাবাজি বন্ধসহ থানায় মামলা রেকর্ড ও জিডি করতে সাধারন মানুষকে যাতে কোন প্রকার অর্থ দিতে না হয় সে জন্য উদ্যোগ নেন তিনি। পুলিশ সুপার দায়িত্ব  পালন কালিন মাদক সেবনের দায়ে চাকুরি গেছে ১০ জন পুলিশ সদস্যের। এছাড়া ঘুষ, দুর্নীতি অনিয়ম, দায়িত্বে অবহেলাসহ নানা কারণে শাস্তি হয়েছে অনেকের। এর আগে হাইওয়েতে বাস ও ট্রাক থেকে মাসে লাখ লাখ টাকা চাঁদা আদায় হতো। এসব চাঁদা আদায় করতেন রাজনীতিবিদরা। আগের কোন পুলিশ সুপার চাঁদা আদায় বন্ধ করতে না পারলেও এসএম তানভীর আরাফাত বন্ধ করে দেন চাঁদাবাজি। একই সাথে নসিমন করিমন কারখানা বন্ধ করে দিয়ে তিনি ইতিহাস সৃষ্টি করেন। পাশাপাশি ট্রাফিক পুলিশের সব চাঁদবাজি বন্ধ করে দেন তিনি। এসব নিয়ে অনেক পুলিশ কর্মকর্তা তার উপর নাখোশ হন। নসিমন কারখানা মালিকরা মোটা অঙ্কের অর্থ দেয়াসহ নানা প্রলোভন দেখালেও তার কঠোর অবস্থান তাকে নড়াতে পারেনি। থানাগুলোতে নাগরিক সেবা সহজিকরন বিশেষ করে নারী, শিশু বৃদ্ধদের দ্রুত সেবা দিতে নানা উদ্যোগে বদলে গেছে চিত্র। তিনি জেলার ৭টি থানাকে নিজ কার্যালয়ে বসে সিসিটিভির মাধ্যমে মনিটরিং এর ব্যবস্থা করেন। এ কারণেই সেবা প্রত্যাশীদের হয়রানী কমেছে। সহজেই সেবা নিতে পারছে মানুষ। তিনি সরকারী দলীয় লোকদেরও ছাড় দেননি গত আড়াই বছরে। সরকারী দলের যেসব সদস্য অপরাধে জড়িয়েছেন তাদের অনেককেই আইনের আওতায় এনেছেন পুলিশ সুপার তানভির আরাফাত। এসব অপরাধীর জন্য তার দরজা সব সময় বন্ধ ছিল। আবার করোনা কালে এস এম তানভির আরাফাতকে একজন মানবিক পুলিশ সুপার হিসেবে পেয়েছিলেন জেলার ম্নাুষ। জেলায় করোনা ছড়িয়ে পড়ার পর তিনি একদিকে যেমন জনতা যাতে অপ্রয়োজনে বাইরে না বের হয় সেটা নিশ্চিত করেন অনেকটাই। অন্যদিকে অসহায় মানুষের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন। তিনি ও তার সহধর্মীনি নিজস্ব অর্থে প্রতিদিন খাবার রান্না করে কর্মহীন মানুষের হাতে পৌঁছে দেন। জেলার চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীদের হাতে বিনামূল্যে বিপুল পরিমান পিপিই তুলে দেন। ঘুর্ণীঝড় আম্পানে ঘর হারান হরিপুর এলাকার এক অসহায় বৃদ্ধা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ খবর দেখতে পেয়ে তিনি নিজের অর্থে ওই মহিলার ভিটায় আধাপাকা ঘর তৈরী করে দেন। কুষ্টিয়ায় প্রায় আড়াই বছরের কর্মজীবনে তিনি এমন নানা ধরনের মানবিক কাজ করেছেন। আবার জেলার সংবাদ কর্মীদের সঙ্গে তিনি নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তুলতে সক্ষম হন। তিনি সাংবাদিকদের জন্য অবাধ তথ্যপ্রবাহ নিশ্চিত করেছিলেন। তার দরজা সব সময় খোলা থাকতো। মধ্য রাতেই তিনি সাংবাদিকদের ফোন রিসিভ করতেন। কুষ্টিয়া শহরের থানা পাড়ার বাসিন্দা আব্দুল জলিল বলেন, এস এম তানভির আরাফাতের মত সৎ ও কর্মপরায়ন পুলিশ অফিসার আরো দরকার। তাহলে পুলিশের সার্বিক চিত্রই বদলে যাবে। আড়–য়াপাড়ার বাসিন্দা ইমরান আলী বলেন, ‘তানভির আরাফাতের মত এমন মানবিক পুলিশ সুপার আগে দেখিনি। তিনি বলেন, এই পুলিশ সুপার পুলিশকে জনতার কাতারে দাঁড় করিয়েছেন। কুষ্টিয়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আনিসুজ্জামান ডাবলু বলেন, ‘সংবাদকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সুসর্ম্পক আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় সহায়ক ভুমিকা পালন করে। এ কাজটি করতে সক্ষম হয়েছিলেন পুলিশ সুপার এসএম তানভির আরাফাত। তিনি জেলার সংবাদকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সেতু বন্ধন তৈরী করেছিলেন। আশা করি কুষ্টিয়ার নতুন পুলিশ সুপার এর ধারাবাহিকতা ধরে রাখবেন।’ কুষ্টিয় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব সদর উদ্দিন খান বলেন, এস এম তানভির আরাফাত একজন দক্ষ অফিসার ছিলেন। তিনি জেলার আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় যথেষ্ট সফলতার পরিচয় দিয়েছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640