1. nannunews7@gmail.com : admin :
June 19, 2024, 3:20 am
শিরোনাম :
কুষ্টিয়া লালন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাল্য বিয়ের নির্মম বলি কুষ্টিয়ার মিরপুরে নববধুর ঝুলন্ত লাশ হত্যা করে ঝুলিয়ে দেয়ার অভিযোগ পরিবারের মিরপুরের সাগরখালী আদর্শ ডিগ্রী কলেজ জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ-২০২৪ কুষ্টিয়া জেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত কুষ্টিয়ার দৌলতপুর র‌্যাবের অভিযানে ২০ বোতল ফেনসিডিলসহ একজন মাদক কারবারি আটক পবিত্র ঈদুল আজহা কাল পরিত্যক্ত হলো ‘গুরুত্বহীন’ ভারত-কানাডা ম্যাচ আমরা আক্রান্ত হলে ছেড়ে দেবো না সেন্টমার্টিন নিয়ে ওবায়দুল কাদের পদ্মা সেতুতে একদিনে ৫ কোটি টাকা টোল আদায় সবুজ বাংলাদেশ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রী গাজার ত্রাণবহরে হামলা: ইসরায়েলি সংগঠনের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা

  দেশের এক শতাংশ মানুষের টিকাদান সম্পন্ন

  • প্রকাশিত সময় Friday, February 19, 2021
  • 192 বার পড়া হয়েছে

 সরকারের সময়োপযোগী সুচিন্তিত পদক্ষেপের কারণে করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বাংলাদেশ শক্ত অবস্থানেই রয়েছে। সংক্রমণ মোকাবিলায় দেশে জাতীয়ভাবে টিকা প্রয়োগের একাদশ দিনে দুই লাখ ৬১ হাজার ৯৪৫ জন টিকা নিয়েছেন। এখন পর্যন্ত দেশে সর্বমোট টিকা গ্রহণ করেছেন ১৮ লাখ ৪৮ হাজার ৩১৩ জন। এই সংখ্যা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, মোট জনসংখ্যার এক শতাংশের কিছু বেশি মানুষ টিকা গ্রহণ করেছে। যা পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত এখনো সম্পন্ন করতে পারেনি। তবে ইসরায়েলসহ বিশ্বের ২৫টির মতো দেশের জনগোষ্ঠীর এক শতাংশ মানুষ টিকাদান কর্মসূচির আওতায় এসেছে। ছাড়া টিকা প্রয়োগ পরবর্তী কারো মধ্যেই বড় ধরনের কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা যায়নি।

এদিকে আগামী জুনের মধ্যেই আসছে কোভ্যাক্সের এক কোটি ২৮ লাখ টিকা।

শুক্রবার রাজধানীর তোপখানা রোডের বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) মিলনায়তনে বাংলাদেশ হেলথ রিপোর্টার্স ফোরাম আয়োজিতকরোনা সংক্রমণের গতিবিধি টিকাশীর্ষক এক আলোচনা সভায় তথ্য জানান সরকারের জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা এএসএম আলমগীর।

তিনি বলেন, এখনই মাঠ লেভেলে (পথেঘাটে) টিকা দেয়া হবে না। আমরা হাসপাতালভিত্তিক ভ্যাকসিনেশন করছি। আমাদের রেজিস্ট্রেশন অনুযায়ী ধাপে ধাপে ৬০ লাখ মানুষকে টিকা দেয়া হবে। এর আগে কাউকেই দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হচ্ছে না।

এএসএম আলমগীর বলেন, ‘বাংলাদেশ তিন কোটি টিকা কিনেছে। ভারত থেকে ২০ লাখ উপহার পেয়েছি। আমাদের হাতে তিন কোটি ২০ লাখ টিকা আছে। বিশ্বজুড়ে ন্যায্যতার ভিত্তিতে সুষ্ঠুভাবে টিকা সরবরাহের প্রতিশ্রুতি নিয়ে গড়া জোট কোভ্যাক্স থেকে মোট জনসংখ্যার ২০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেয়ার জন্য সহায়তা দেবে। তাদের সঙ্গে আলোচনা চলছে ৩০ শতাংশ মানুষকে টিকা দেওয়ার ব্যবস্থা করার জন্য। তারা ৩০ শতাংশ না দিলেও হয়তো ২৭ শতাংশ করতে চেষ্টা করছে।

তিনি বলেন, আগামী জুনের মধ্যেই কোভ্যাক্সের এক কোটি ২৮ লাখ টিকা পাবো। এর প্রথম চালান মার্চে ৫০ লাখ এসে যাবে। এর মধ্যে ২২ ফেব্রুয়ারি ভারত থেকে কেনা আরো ২০ লাখ ভ্যাকসিন আসবে।

স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) সভাপতি জাতীয় কারিগরি উপদেষ্টা কমিটির সদস্য অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান বলেন, দেশে সরকারিভাবে যে টিকা কেনা হয়েছে এর প্রথম চালানের ৫০ লাখ টিকা এনেছে। এগুলো ম্যানুফ্যাকচারিং হয়েছে অক্টোবর মাসে। এর কার্যকরী মেয়াদ ছয় মাস। এটি সরকার এনেছে জানুয়ারির শেষের দিকে। দেয়া শুরু হয়েছে ফেব্রুয়ারির শুরুতে। এর মেয়াদকাল এপ্রিলের শেষের দিকে শেষ হয়ে যাবে। 

উপহার হিসেবে যে টিকা বাংলাদেশে এসেছে। তা তৈরি হয়েছে জানুয়ারিতে, মেয়াদ শেষ হবে জুনে। তাই মেয়াদ উত্তীর্ণ হওয়ার আগেই টিকা শেষ করার জন্য সরকার চিন্তা করেছিলো প্রথম ডোজ নেয়ার চার সপ্তাহ পরে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হবে। কিন্তু বিজ্ঞানভিত্তিকভাবে প্রথম ডোজ দেয়ার আট থেকে ১২ সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হলে ইমিউমিনিটি তৈরি হয়। সেই চিন্তা করে দ্বিতীয় ডোজ নেয়ার সময় নির্ধারণ করা হয় আট সপ্তাহ পরে। এতে মানুষের মধ্যে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে। তবে ১২ সপ্তাহ পড়ে দ্বিতীয় ডোজ নিতে পারলে সবচেয়ে উত্তম।

তিনি আরও বলেন, অক্টোবরের ৎপাদন করা টিকা আমদানি করলাম জানুয়ারিতে। আমাদের হাতে সময় খুব কম। সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য আমাদের বারবার সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে হলো। টিকার কার্যকারিতার মেয়াদকাল মাত্র ছয় মাস। এজন্য এটি আমদানির ক্ষেত্রে সরকারের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের যারা জড়িত তাদের অবশ্যই বিষয়ে নজর রাখতে হবে।

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ইউজিসি অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ বলেন, গত চার সপ্তাহ যাব আমাদের দেশের সংক্রমণ পাঁচ শতাংশের নিচে। এটি আমাদের জন্য স্বস্তির খবর।  তবে আমরা যেন আত্মতৃপ্তিতে না ভুগি। কারণ করোনা সংক্রমণ কমছে এটি ভালো খবর। এটি ধরে রাখতে হবে। এটি বৈশ্বিক সমস্যা। সারা পৃথিবীতে ছড়িয়ে গেছে। যারা বিদেশ থেকে আসছে তাদের দিকেও নজর রাখতে হবে।

এসময় অনলাইনে যুক্ত ছিলেন একুশে পদকপ্রাপ্ত অনুজীব বিজ্ঞানী অধ্যাপক ডা. সমীর কুমার সাহা, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ইউজিসি অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের জনস্বাস্থ্য বিষয়ক উপদেষ্টা ডা. আবু জামিল ফয়সাল।

পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদফতরের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম (এমআইএস) বিভাগের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মিজানুর রহমানের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, টিকা প্রয়োগ পরবর্তী সময়ে ৫৩৭ জনের মাঝে হালকা জ্বর, গায়ে ব্যথা এমন লক্ষণ দেখা গেলেও এখনও পর্যন্ত সবাই সুস্থ আছেন।

তিনি বলেন, ‘যেকোনো টিকা নেয়ার পরে টিকা নেয়ার স্থান লাল হতে পারে, সামান্য জ্বর আসতে পারে এবং কিছু ক্ষেত্রে শরীরে ব্যথা হতে পারে। এখন পর্যন্ত কারোর মাঝেই এর চেয়ে গুরুতর কিছু দেখা যায়নি।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীতে যারা টিকা নিয়েছেন তাদের মধ্যে ২১ হাজার ১৩১ জন পুরুষ ১১ হাজার ২৮১ জন নারী। রাজধানীতে এখন পর্যন্ত দুই লাখ ৪৫ হাজার ৮২৮ জন টিকা গ্রহণ করেছেন। এর মধ্যে এক লাখ ৬৪ হাজার ৯৬০ জন পুরুষ ৮০ হাজার ৮৬৮ জন নারী।

মহানগরী বাদে ঢাকা জেলায় এখন পর্যন্ত টিকা নিয়েছেন ৩১ হাজার ৫৮৯ জন। এর মধ্যে ২১ হাজার ৩২৫ জন পুরুষ ১০ হাজার ২৬৪ জন নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় এই জেলায় ভ্যাকসিন নিয়েছেন পাঁচ হাজার ১৩৫ জন। এর মধ্যে তিন হাজার ৩৯২ জন পুরুষ এক হাজার ৭৪৩ জন নারী ভ্যাকসিন পেয়েছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা বিভাগে ভ্যাকসিন নিয়েছেন ৭৩ হাজার ৫১৪ জন। এর মধ্যে ৪৭ হাজার ৪৩৭ জন পুরুষ ২৬ হাজার ৭৭ জন নারী। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত পাঁচ লাখ ১৮ হাজার ৯৮৩ জন ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। ভ্যাকসিন গ্রহণ করার পরে এই বিভাগে ১৩৩ জনের মাঝে ভ্যাকসিন নেওয়া পরবর্তী পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। তবে সবাই সুস্থ আছেন।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ময়মনসিংহ বিভাগে ১১ হাজার ৯০১ জন ভ্যাকসিন নিয়েছেন। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ৮৩ হাজার ২৭৬ জন ভ্যাকসিন নিয়েছেন যার মধ্যে পুরুষ ৫৪ হাজার ৪৯৬ জন নারী ২৮ হাজার ৭৮০ জন। এই বিভাগে ৩৪ জনের মাঝে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেলেও সবাই এখন সুস্থ আছেন।

চট্টগ্রাম বিভাগে এখন পর্যন্ত টিকা নিয়েছেন চার লাখ ১৯ হাজার ৫৩০ জন যার মাঝে দুই লাখ ৮৩ হাজার ২১৬ জন পুরুষ এক লাখ ৩৬ হাজার ৩১৪ জন নারী। গত ২৪ ঘণ্টায় এই বিভাগে ভ্যাকসিন নিয়েছে ৫৪ হাজার ৭৮৮ জন। এখন পর্যন্ত এই বিভাগে ১২৯ জনের মাঝে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেলেও সবাই এখন সুস্থ আছেন।

রাজশাহী বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় টিকা নিয়েছেন ৩২ হাজার ২২৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ২০ হাজার ১২৮ জন নারী ১২ হাজার ৯৬ জন। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন নিয়েছেন দুই লাখ ১৩ হাজার ১৫ জন। এর মধ্যে এক লাখ ৪১ হাজার ৫৭৯ জন পুরুষ ৭১ হাজার ৪৩৬ জন নারী। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ৫১ জনের শরীরে দেখা দিয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। তবে সবাই সুস্থ আছে এখন পর্যন্ত।

গত ২৪ ঘণ্টায় রংপুর বিভাগে টিকা নিয়েছেন ২৫ হাজার ৫৭৯ জন। এদের মধ্যে পুরুষ ১৬ হাজার ৬৭ জন নারী হাজার ৫১২ জন। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন নিয়েছেন এক লাখ ৭২ হাজার ৭৮৩ জন। এর মধ্যে এক লাখ ১৫ হাজার ৫৬৪ জন পুরুষ ৫৭ হাজার ২১৯ জন নারী। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ৬১ জনের শরীরে দেখা দিয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। তবে সবাই সুস্থ আছে এখন পর্যন্ত।

খুলনা বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৪ হাজার ১৯৫ জনকে টিকা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ২০ হাজার ৮৩৩ জন পুরুষ, নারী ১৩ হাজার ৩৬২ জন। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন নিয়েছেন দুই লাখ ১৫ হাজার ৮১৬ জন। এর মধ্যে এক লাখ ৪৩ হাজার ১৯৬ জন পুরুষ ৭২ হাজার ৬২০ জন নারী। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ৮০ জনের শরীরে দেখা দিয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। তবে সবাই সুস্থ আছে এখন পর্যন্ত।

বরিশাল বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় টিকা দেয়া হয়েছে ১৪ হাজার ৪৪৪ জনকে। এর মধ্যে পুরুষ হাজার ১৯৩, নারী পাঁচ হাজার ২৫১। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন নিয়েছেন ৯১ হাজার ২৪৯ জন। এর মধ্যে ৬১ হাজার ৬৯৩ জন পুরুষ ২৯ হাজার ৫৫৬ জন নারী। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ২৪ জনের শরীরে দেখা দিয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। তবে সবাই সুস্থ আছে এখন পর্যন্ত।

গত ২৪ ঘণ্টায় সিলেট বিভাগে টিকা দেয়া হয়েছে ১৫ হাজার ৩০০ জনকে। এর মধ্যে পুরুষ হাজার ৩৭৮, নারী পাঁচ হাজার ৯২২ জন। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিন নিয়েছেন এক লাখ ৩৩ হাজার ৬৬১ জন। এর মধ্যে ৮৬ হাজার ৬৯২ জন পুরুষ ৪৬ হাজার ৯৬৯ জন নারী। এই বিভাগে এখন পর্যন্ত ২৫ জনের শরীরে দেখা দিয়েছে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। তবে সবাই সুস্থ আছে এখন পর্যন্ত।

উল্লেখ্য, জনসাধারণ পর্যায়ে টিকা প্রয়োগের প্রথম দিন ৩১ হাজার ১৬০ জন দ্বিতীয় দিন ৪৬ হাজার ৫০৯ জন টিকা নিয়েছিলেন। তৃতীয় দিনে টিকা গ্রহণ করেন এক লাখ এক হাজার ৮২ জন। চতুর্থ দিনে দেশে এক লাখ ৫৮ হাজার ৪৫১ জন টিকা গ্রহণ করেন। পঞ্চম ষষ্ঠ দিনে ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন যথাক্রমে দুই লাখ চার হাজার ৫৪০ জন এক লাখ ৯৪ হাজার ৩৭১ জন। সপ্তম দিনে টিকা গ্রহণ করেন এক লাখ ৬৯ হাজার ৩৫৩ জন। অষ্টম দিনে টিকা গ্রহণ করেন দুই লাখ ২৬ হাজার ৬৭৮ জন টিকা গ্রহণ করেন। নবম দিনে টিকা গ্রহণ করেন দুই লাখ ২৬ হাজার ৯০২ জন। দশম দিনে টিকা গ্রহণ করেন  দুই লাখ ২৬ হাজার ৭৫৫ জন।

পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বিষয়ে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, প্রথম দিন ২১ জনের মধ্যে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিলেও দ্বিতীয় দিন দেখা দেয় ৭১ জনের মধ্যে। তৃতীয় দিন ৯৪ জন এবং চতুর্থ দিন দেখা দিয়েছে ৭০ জনের শরীরে। পঞ্চম দিনে দেশে ৭৬ জনের মাঝে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়। ষষ্ঠ দিনে ৩১ জনের মাঝে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। সপ্তম দিনে ১৮ অষ্টম দিনে ২১ জনের মাঝে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। অষ্টম দিনে ২৯ জনের মাঝে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। নবম দিনে ৩৫ দশম দিনে ২০ জনের মাঝে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। একাদশ দিনে ২৭ জনের মাঝে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। তবে সবাই সুস্থ আছে এখন পর্যন্ত।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ বিভাগের আরও সংবাদ
© All rights reserved © 2020 Kushtiarkagoj
Design By Rubel Ahammed Nannu : 01711011640